Logo
আজঃ Wednesday ০৮ December ২০২১
শিরোনাম
নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু! তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল! মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রংপুরের তারাগঞ্জে ট্রাকচাপায় তিন নারী শ্রমিক নিহত কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !
ইউপি নির্বাচনে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে কঠোর ব্যবস্থা: সেতুমন্ত্রী

ইউপি নির্বাচনে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে কঠোর ব্যবস্থা: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ১৫৬জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে মনোনয়নকে কেন্দ্র করে যারা সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছেন, নিজেদের মধ্যে সংঘাত- সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছেন তাদেরকে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা বিরোধী তৎপরতা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

 

তিনি বলেন, সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী এবং তাদের মদদদাতা, উস্কানিদাতা নেতা ও জনপ্রতিনিধিরাও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থার সম্মুখীন হবেন।সোমবার সকালে সংসদ ভবন এলাকায় নিজ বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

 

শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী এবং তাদের মদদদাতাদের বিরুদ্ধে দলীয় প্রধানের নির্দেশে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, অপকর্ম করলে কেউ রেহাই পাবে না; শাস্তি তাদের  পেতেই হবে। কৌশলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কেউ নির্বাচিত হলে শৃঙ্খলা বিরোধী অপকর্ম বলে গণ্য করা হবে।

 

তিনি বলেন, ক্ষমতায় যেতে আওয়ামী লীগের কোন ষড়যন্ত্রের প্রয়োজন হয় না, আওয়ামী লীগ এদেশের মাটি ও মানুষের দল। বঙ্গবন্ধু এ দেশের মানুষের জন্য আজীবন সংগ্রাম করেছেন, আর এখন তার কন্যা শেখ হাসিনা পিতার স্বপ্ন পূরণে অবিরাম লড়ে যাচ্ছেন।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের রাজনীতি করে বলেই জনগণ আওয়ামী লীগের প্রাণ শক্তি। অপরদিকে যারা ক্ষমতাকে নিজের ভাগ্য বদলের চাবি মনে করে এবং দেশে বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়ে,ষড়যন্ত্র, হত্যা ও সন্ত্রাস নির্ভর রাজনীতি করে তাদের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে।

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



হাজার হাজার শৌখিন মৎস শিকারিদের আনা গোনায় রহুল বিল

পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ১৬৬জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

মাছ ধরা বা মাছ শিকার করা বিলাঞ্চলের মানুষদের আজন্ম শখ। বিশেষ করে চলন বিল এলাকায় বর্ষা মৌসুমে নিম্নাঞ্চলের খাস বা সরকারি জলাভূমিতে পানি অল্প থাকাকালে মাছ শিকারিরা দল বদ্ধ হয়ে পলো, ছোট জাল নিয়ে একটি নিদিষ্ট দিনে মাছ শিকার করে থাকে। এলাকায় এটি পলো উৎসব বা বাউত উৎসব নামের পরিচিত।

 

শনিবার পাবনার ভাঙ্গুড়ার উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউপির বিল রুহুলে এমনই এক শৌখিন মাছ শিকারিদের মিলন মেলা হয়েছে। এতে সবার কাছে মাছ ধরা পড়ুক বা না পড়ুক এক সঙ্গে বছরের এই দিনে মাছ ধরতে আসার মজাই যেন অন্য রকম।

 

সরেজমিন শনিবার উপজেলার বিল রুহুল এলাকা ঘুরে দেখা যায় , পাবনাসহ পার্শ্ববর্তী জেলাগুলো থেকে শৌখিন মাছ শিকারিরা ভোর বেলার কুয়াশা ভেদ করেই বিভিন্ন যানবাহন বাস, নছিমন, আটো ভ্যান, ভটভটি যোগে এই বিল পাড়ে আসতে থাকে। তাদের হাতে পলো, জাল ঠেলাজাল, ধর্মখরাসহ মাছ ধরার বিভিন্ন উপকরণ নিয়ে বিলের পাড়ে এসে হাজির হয়ে এক সঙ্গে মাছ ধরতে পানিতে নামে। তারা মাছ ধরার সময় বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। কেউ মাছ পেলে সবাই মিলে তাকে আরো উৎসাহ দিতে থাকে।

 

এদিনে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে বিলপাড়ে বিস্কুট রুটি ও চায়ের দোকান নিয়েও বসেছে। মাৎস শিকারিদের কেউ কেউ পেয়েছে সোল, বোয়াল, রুই, গজার । আবার অনেকেই মাছ পায় নি। তবে প্রায় সবার মুখেই ছিল মাছ ধরতে আসতে পারায় আনন্দের ছোয়া।

শিশু, কিশোর, যুবক, বৃদ্ধসহ সব ধরণের হাজার হাজার শৌখিন মৎস শিকারিদের আনা গোনায় রহুল বিল ছিল কানায় কানায় পরিপূর্ণ।

জানা গেছে, ভাঙ্গুড়া উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউপি ও পার্শ্ববর্তী চাটমোহর উপজেলার পার্শ্বডাঙ্গা ইউপির কিছু অংশ নিয়ে কয়েক হাজার একর জমি নিয়ে রয়েছে রুহুল বিল। বিশেষত বর্ষার পানি চলে যাওয়ার পর কয়েক শ’ একর জমিতে বিভিন্ন গভীরতায় পানি থাকে। সেখানে বর্ষার পানিতে আটকে থাকা বোয়াল, সোল, গজার, পুঁটি, সিং সহ দেশীয় প্রজাতির বিভিন্ন মাছ।

 

বছরের একটি নিদিষ্ট দিনে একে অন্যেরে সঙ্গে মোবাইল ফোন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যোগাযোগ করে নাটোর, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল থেকে বাস, ভটভটি, নছিমন যোগে ভোরে এই বিলে মাছ ধরার জন্য এসে হাজির হয়। এদিনে তাদের হাতে ধরা পড়ে নানা ধরণের মাছ। বেলা বাড়ার  সঙ্গে সঙ্গে মাছ শিকারির সংখ্যাও কমতে থাকে।

মাছ ধরতে আসা নাটোরের পঞ্চাশোর্ধ আলম হোসেন বলেন, এই দিনটিতে রহুল বিলে মাছ ধরার জন্য প্রতি বছর অপেক্ষা করে থাকি। লোক মুখে খবর পেয়ে মাছ ধরতে এসেছি।

টাঙ্গাইলের বাছের উদ্দীন বলেন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মাছ ধরার খবর পেয়ে তারা একাধিক বাস রিজার্ভ করে পলো ও মাছ ধরার উপকরণ নিয়ে কয়েকশ শৌখিন মাৎস শিকারি মাছ ধরতে এসেছেন।

 

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ভর্তুকি কার্যক্রমে কৃষি যন্ত্র বিতরণ

ভর্তুকি কার্যক্রমে কৃষি যন্ত্র বিতরণ

প্রকাশিত:Monday ০৬ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলায় সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের আওতায় উন্নয়ন সহায়তা (ভর্তুকি) কার্যক্রমের কৃষি যন্ত্র বিতরণের উদ্বোধন করা হয়েছে।


৫ ডিসেম্বর ২০২১রোজ রবিবার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্বরে জাপানি কুবোতা ' হেড ফিডিং ' কম্বাইন হারভেষ্টার বিতরণের শুভ উদ্বোধন করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া -১ সংসদীয় ২৪৩ নাসিরনগর আসনের মাননীয় স্যসদ সদস্য বি,এম,ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম এম,পি। 


 উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রাফি উদ্দিন আহম্মদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হালিমা খাতুন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সাঈদ তারেক, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, সাংবাদিক,সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা,কৃষক প্রতিনিধিসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা।


  কৃষি যন্ত্রপাতির মাঝে ছিল, জাপানি কুবোতা ' হেড ফিডিং ' কম্বাইন হারভেষ্টার ২টি ( ধান কর্তন ) পাওয়ার ফ্রেসার ২ টি ধান মারাই যন্ত্র ।

উল্লেখ্য, জাপানি কুবোতা কম্বাইন হারভেষ্টারে প্রতি ঘন্টায় ৩ ( তিন) বিঘা জমির ধান কর্তন করা যায় বলে জানা গেছে।


আরও খবর



গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩২৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

 

 

 গাজীপুরে মা-মেয়েকে গলা কেটে হত্যার রহস্য ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে উদঘাটন করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে দুই খুনিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ডেই মা-মেয়েকে হত্যা করা হয় বলে জানিয়েছেন তারা।

 

জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার সালদিয়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা হলেন- একই গ্রামের সাত্তার খানের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও মনির হোসেনের ছেলে মহিউদ্দিন ওরফে বাবু।

শনিবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর দফতরে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মো. জাকির হাসান।

তিনি জানান, ১২ বছর আগে রাজশাহী জেলার বাসিন্দা জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে ফেরদৌসীর বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ১১ বছরের মেয়ে হাফসা ও চার বছরের তাসমিয়া রয়েছে। কিন্তু বনিবনা না হওয়ায় স্বামীকে তালাক দিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন ফেরদৌসী। এরপর মোবাইল ফোনে পরিচয়ের মাধ্যমে তিন বছর আগে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রবিউল ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। রবিউলেরও আরেক সংসার ছিল। কিন্তু দুই বছর আগে তার সঙ্গেও ফেরদৌসীর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

 

এরপর দুই মেয়েকে নিয়ে হাড়িনাল এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডে চাকরি করেন। এছাড়া তিন মাস আগে স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয় বাবুর। পরে ফেরদৌসীর সহায়তায় একই কোম্পানিতে চাকরি নেন বাবু। কিন্তু বিচ্ছেদের ঘটনায় ফেরদৌসীকেই দায়ী মনে করেন তিনি। আর এ প্রতিশোধ নিতেই হত্যার পরিকল্পনা।

 

পরিকল্পনা অনুযায়ী বুধবার সন্ধ্যায় ইনস্যুরেন্সের টাকা দেওয়ার কথা বলে মোবাইল ফোনে ফেরদৌসীকে ডাকেন বাবুর বন্ধু জাহিদুল। ফোন পেয়ে মেয়ে তাসমিয়াকে নিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দেশীপাড়া এলাকায় যান ফেরদৌসী। সেখানে যেতেই তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে গলা কাটেন জাহিদুল ও বাবু। মাকে রক্তাক্ত দেখে চিৎকার করলে মেয়েকেও গলা কেটে হত্যা করেন তারা। দুটি খুন করতে তারা সময় নেন মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ড। এরপর তারা মোটরসাইকেলে পালিয়ে যান।

বুধবার রাতে দেশীপাড়া এলাকায় সড়কের পাশে মা-মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন এক কেয়ারটেকার। পরে লাশ দুটি উদ্ধার করে পুলিশ।

 

নিহতরা হলেন- গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের বড়াইয়া গ্রামের বাছির উদ্দিন বছুর মেয়ে ফেরদৌসী আক্তার ও তার চার বছর বয়সী মেয়ে তাসমিয়া আক্তার। ফেরদৌসী স্থানীয় চান্দনা চৌরাস্তার এলাকার গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডের মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা


আরও খবর



মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু

প্রকাশিত:Sunday ২৮ November ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ১৩৬জন দেখেছেন
Image


 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

রাজধানীর যাত্রাবাড়ি থানার মাতুয়াইল আদর্শবাগ আলী মোহাম্মদ খান রোড হতে পুর্ব কেরানীপাড়া পর্যন্ত এক কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি সড়ক উন্নয়ন কাজের শুভ উদ্ভোধন উপলক্ষে ফলক উম্মোচন করেন ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী মনিরুল ইসলাম মনু।

২৬ নভেম্বর ২০২১শনিবার দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে এই উন্নয়ন কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে মোনাজাতে অংশ নেন তিনি। উন্নয়ন কাজ শেষে হলে কয়েক হাজার মানুষের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘব হবে।ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে মাতুয়াইলের আলী মোহাম্মদ খান রোডে আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী মনিরুল ইসলাম মনু।সভাপতিত্ব করেন আদর্শবাগ মহল্রা উন্নয়ন কমিটির সাধারন সম্পাদক এলাহী বকস।

 

বিগত তেরো বছরে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ডের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বর্তমান সরকার বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করছে। এই উন্নয়ন কাজে সকল শ্রেণি-পেশার আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।স্থানীয়রা জানান, এই রাস্তাটি খারাপ থাকায় দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছিলেন আলী মোহাম্মদ খান রোড আদর্শ বাগের কয়েক হাজার মানুষ।১ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে এই রাস্তাটির উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করছে ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন।আগামী বছরের প্রথম দু মাসের মধ্যেই এর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার মধ্য দিয়ে দীর্ঘ দুর্ভোগের অবসান ঘটবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন এর ৬৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব শামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু।

 

এ সময় অন্যান্যর মাঝে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তৃতা করেন যাত্রাবাড়ি থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হারুনুর রশীদ মুন্না, ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন এর ৬৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর উন্নয়ন কাজের প্রধান সমন্বয়কারী আলহাজ্ব শামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু,ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন এর ৬৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম দিলু,সামসুল হক খান স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ডঃ মাহবুবুর রহমান মোল্লা,বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম আলো,বিশিষ্ট সমাজ সেবক দানবীর কাজী খায়রুল ইসলাম রনি,মনির হোসেন খান,জাহাঙ্গীর কবির,আক্তারুজ্জামান রুবেল,সহ অনেকে।

 

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



বাদী হলেন আসামী জালিয়াতি মামলায় যাত্রাবাড়ীর রিপন কারাগারে

প্রকাশিত:Tuesday ০৭ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩৭জন দেখেছেন
Image


নিজস্ব প্রতিবেদক

জাল কাগজপত্র দিয়ে দোকানের মালিকানা দাবি করে ফেঁসে গেলেন বাদী নিজেই। আদালত স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগে বাদী সেরা উদ্দিন রিপনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার সিএমএম আদালতে এ ঘটনা ঘটে।


মামলা সূত্রে জানা যায়, রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর দনিয়া এলাকায় শরীফ টাওয়ারের একটি দোকানের মালিকানা দাবি করে ওই টাওয়ারের মালিক এম এ আজীম শরীফের বিরুদ্ধে মামলা করেন দনিয়া এলাকার সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও দখলদার সেরা উদ্দিন রিপন। মামলার আরজিতে তিনি শরীফ টাওয়ারের দোকানের মালিকানা দাবি করে তিণশ’ টাকার স্ট্যাম্পে লিখিত একটি চুক্তিপত্র আদালতে দাখিল করেন। আদালত মালিকের স্বাক্ষর পরীক্ষার জন্য সিআইডির কাছে পাঠায়।


ল্যাবে সেই স্বাক্ষর জাল বলে প্রমানিত হয়। গতকাল সেই প্রতিবেদন আদালতে উত্থাপিত হলে আদালত বাদী সেরা উদ্দিন রিপনকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। সিআইডির প্রতিবেদনে বলা হয়, চুক্তিপত্রে শরীফ টাওয়ারের মালিক এম এ আজীম শরীফের স্বাক্ষরটি ‘স্ক্যানকৃত জাল’।আদালত সূত্রে

জানা যায়, দনিয়া এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী সেরা উদ্দিন রিপনের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি জাল জালিয়াতির মামলা রয়েছে। এর মধ্যে চেক ডিজঅনার মামলা নং ১৪০০০/২০১৮ইং এবং জাল জালিয়াতির মামলা নং ১৬৪/২০১৯ইং উল্লেখযোগ্য।


স্থানীয় সূত্র জানায়, এক সময়ের শিবিরের ক্যাডার সেরা উদ্দিন রিপনের বিরুদ্ধে কদমতলী ও যাত্রাবাড়ী থানায় চাঁদাবাজি, দখল ও হুমকী প্রদান ও ব্ল্যাক মেইলের অভিযোগে বহু মামলা ও জিডি রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেÑকদমতলী থানায় জিডি নং ২৪০, তাং ০৪/০৭/ ১৭, জিডি নং ১৮৫২, তাং ২৯/১২/১৬, জিডি নং ১২৭৬, তাং ২২/০৭/১৬, জিডি নং ১৩৮৭, তাং ২৪/০৭/ ১৭, ডিসি ওয়ারী বরাবর আবেদন স্মারক নং ২৩০৫/ডিসিওয়ারী, তাং ১৮/০৬/১৭, যাত্রাবাড়ী থানায় জিডি নং ১০০৬, তাং ১৩/৩/১৮, যাত্রাবাড়ী থানার প্রসিকিউশন স্মারক নং ১৯০৬, তাং ০৩/০৪/১৮।উল্লেখযোগ্য মামলা নং ৭৫, তাং ২৮/০৫/১৭ ধারা ৩৮৫, সিআর মামলানং ৮৬, তাং ২৮/০৫/১৭, ২০ লাখ টাকার চেক ডিজঅনারের মামলা, সিএম মামলা নং ২৫/ সিআর মো: নং ৭০/২০১৮, তাং ১৪/০১/১৮।


পুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করতে সিদ্ধহস্ত রিপন শিবির থেকে এখন যুবলীগের নেতা। তার অত্যাচারে এলাকার বহু মানুষ অতিষ্ঠ। জাল কাগজপত্র তৈরী করে রিপন সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে দিনে দুপুরে সে মানুষের ফ্ল্যাট, বাড়ি, দোকান দখল করে আসছিল। তার অপকর্মে কেউ বাধা দিলে সে থানা পুলিশকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলা ও জিডি করে মানুষকে হয়রানি করতো।


গত ৭ অক্টোবর সে কদমতলী থানার এসআই কাছেদকে ম্যানেজ করে মিথ্যা অভিযোগে একজন সিনিয়র ক্রাইম রিপোর্টারের বিরুদ্ধে জিডি করে (নং ৪৫০)। এসআই কাছেদ কোন যাচাই ছাড়াই সেই জিডিটি আদালতে পাঠায়। 

এ নিয়ে ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। উল্লেখ্য, এর আগেও চাঁদাবাজি মামলায় রিপন বেশ কয়েকদিন জেল হাজতে ছিল।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর