Logo
আজঃ শনিবার ২৫ মে ২০২৪
শিরোনাম

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির বিরোদ্ধে নারী কেলেংকারীর অভিযোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ২৪০জন দেখেছেন

Image

বিশেষ প্রতিনিধিঃ-

চুনারুঘাট থেকে ফিরেঃ- হবিগঞ্জজেলার চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হুমায়ূন কবির খানের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারীর বিষয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।অভিযোগটি দায়ের করেন একই ইউনিয়নের বিলপাড় গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে দিন মজুর মোঃ আবুল মিয়া।আবুল তার অভিযোগে উল্লেখ করেন যে,তার স্ত্রী হালেমা বেগম (৩৪) সুন্দরী হওয়ায় বিগত প্রায় ২ বছর যাবৎ সভাপতি হুমায়ুন কবিরের সাথে পরকীয়া আসক্ত হয়ে অবৈধ ভাবে মেলামেশা করে আসছে।


তিনি বলেন আমার স্ত্রীর সাথে হুমায়ূন কবিরের পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পেরে,হুমায়ুন কবির কে আমার বাড়িতে আসতে বিভিন্ন সময় বাধা প্রদান করি।আমার বাড়িতে আসা বাধাঁ দেওয়া আমার স্ত্রী হালেমা বেগম কে সে টাকার লোভ দেখিয়ে আমার সংসার ভাঙ্গার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আমি বিষয়টি স্হানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ গন্য মান্য ব্যক্তিগনকে  জানালে, হুমায়ুন কবির খান আমার উপর আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন।হুমায়ুন কবির আওয়ামীলীগের সভাপতি হওয়া দলীয় প্রভাব কাটিয়ে আমাকে নিজের লাইসেন্স কৃত বন্দুক দিয়ে গুলি করে হত্যা করা হুমকি দেন।  আমার স্ত্রী হালেমা কে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমাকে ডিভোর্স দেওয়ান হুমায়ুন।এখন আমার সুন্দর একটি সংসার ভাঙ্গার পথে।


গত ৩০ জানুয়ারী ২০২৩  দুপুর অনুমান ২ ঘটিকায় সময় গাজীপুর গ্রামে  আমার স্ত্রী হালেমার ঘরে প্রবেশ করে হুমায়ুন কবির খান।তখন আমি বাড়িতে ছিলাম না। বিষয়টি হুমায়ূন কবিরের স্ত্রী সন্তান জানতে পেরে আমার ঘরে প্রবেশ করে দেখেন  হালেমাকে নিয়ে হুমায়ুন কবির  আমার বিচানায় শোয়ে রয়েছেন। এমন অবস্থা দেখে,হুমায়ুন কবিরের স্ত্রী,তার স্বামী হুমায়ুন কবির আর আমার স্ত্রী হালেমাকে  মারধর করে। এতে এলাকার লোকজন এগিয়ে এসে হালেমাকে রক্ষা করে,।পরে এলাকার স্হানীয় গন্য মান্য ব্যাক্তিদের সহযোগিতায় আমার বাড়ি থেকে হুমায়ুন কবির খান পালিয়ে যান। 

অভিযোগের বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এডঃ আবু জাহির  এমপি বলেন আমি বিষয়টি অবগত নই। লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে।


চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডঃ আকবর হোসেন জিতু মিয়া বলেন বিষয়টি শুনেছি, কোন অভিযোগ হলে জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে তার বিরোদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে।


হুমায়ূন কবির খানের এমন নারী কেলেংকারীর কার্যক্রম  নিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক সমালোচনা ঝড় বইছে।


মুঠোফোনে হালেমা বেগমের সাথে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি বলেন হুমায়ুন কবির একজন সম্মানী মানুষ।হুমায়ুন কবিরের স্ত্রীর প্রত্যক্ষ মদদেআবুল হুমায়ুন কবিরের মান-সম্মান নষ্ট করার জন্য এমন করছে।তাছাড়াও হালেমা আরো বলেন,প্রায় এক বছর পূর্বে আমি আবুল কে ডিভোর্স দিয়েছি।আবুলের বিরোদ্ধে আদালতে দেনমোহরের মামলা চলছে।মামলাটি রায়ের পথে।আবুল আমার দেনমোহরের ৫ লক্ষ টাকা দেয়ার ভয়ে এখন আমার ও হুমায়ুন কবিরের বিরোদ্ধে এমন মিথ্যা অভিযোগকরছে। 


এ বিষয়ে হুমায়ুন কবিরের স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আপনারা হুমায়ুন কবির আর হালেমার মোবাইল ফোন যাচাই করে সত্যতা বের করুন। আর না পারলে আমার কাছে আসুন আমি আপনাদের সব বলে দেব।


মুঠোফোনে গাজীপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ হুমায়ুন কবিরের সাথে যোগাযোগ করে অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে,তিনি বলেন আমি অসুস্থ মানুষ।কিছু আগে আমার বাইপাস অপারেশন হয়েছে।তিনি বলেন আমি হালেমাদের বিভিন্ন বিচার শালীস করেছি।আমি রাজনীতি করি।আমার বিভিন্ন শত্রু রয়েছে।আমার মান সম্নান নষ্ট করার জন্য আমার বিরোদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা


আরও খবর



হজযাত্রীদের থেকে কুরবানির টাকা নিতে পারবে না এজেন্সি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কোরবানির অর্থ হজযাত্রীদের কাছে থেকে নেওয়া যাবে না। পাশাপাশি হজ এজেন্সিগুলোকে ফ্লাইট ডাটা সঠিকভাবে ও নিয়মিত সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি দিতে হবে। এছাড়া হজযাত্রীর মাধ্যমে জর্দার কার্টুন না পাঠানোসহ কতিপয় বিষয়ে হজ এজেন্সিগুলোকে হুঁশিয়ার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ মে) মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, হজ প্যাকেজে উল্লেখ থাকা সত্ত্বেও অনেক এজেন্সি হজযাত্রীদের নিকট হতে হজে গমনের পূর্বে কোরবানি বাবদ অর্থ নিচ্ছেন। হজযাত্রী তার ইচ্ছা মাফিক সৌদি সরকারের ব্যাংকের কুপন ক্রয় করে বা তার নিজের ব্যবস্থাপনায় কোরবানি সম্পন্ন করবেন। এজেন্সি কোনোভাবেই কোরবানির টাকা নিতে পারবে না। এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট এজেন্সির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গত ১২ মে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জুম প্ল্যাটফর্মে সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের জেদ্দা এয়ারপোর্ট সার্ভিসের মহাপরিচালক আব্দুর রহমান ঘ্যানামের সঙ্গে সভা শেষে এ নির্দেশনাসমূহ জারি করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

সভায় আরও জানানো হয়-সৌদি আরবের পক্ষ হতে হজ এজেন্সি কর্তৃক ফ্লাইট ডাটা সঠিকভাবে ও নিয়মিত সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি না দেওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়। এতে বলা হয়, হজ ফ্লাইট ডাটা এন্ট্রি না দেওয়ার কারণে মদিনা ও জেদ্দা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ হজযাত্রীদের প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে পারছে না সৌদি কর্তৃপক্ষ। ফলে কোন ফ্লাইটে কতজন হজযাত্রী আসছে, তারা কোন মোয়াল্লেমের হজযাত্রী এবং কোন হোটেল বা বাড়িতে তাদের আবাসন ইত্যাদি বিষয়ে সমস্যা হচ্ছে। এছাড়া, হজযাত্রী ও তাদের লাগেজ পরিবহনের ক্ষেত্রেও সমস্যা হচ্ছে। মোয়াল্লেমের প্রতিনিধিও হোটেল বা বাড়িতে সার্ভিস দেওয়ার জন্য উপস্থিত থাকছে না। এ কারণে হজযাত্রীদের কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়া যাচ্ছে না এবং রুট-টু-মক্কার সুবিধা থেকে হজযাত্রীরা বঞ্চিত হচ্ছেন।

এ সভায় হজ ফ্লাইট যাত্রা শুরুর পূর্বেই সঠিকভাবে ফ্লাইট ডাটা সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি করার অনুরোধ করা হয়। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট এজেন্সির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে জানানো হয়।

হজযাত্রীর মাধ্যমে জেদ্দায় জর্দা পাঠাচ্ছে এজেন্সি, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সতর্কতা হজযাত্রীর মাধ্যমে জেদ্দায় জর্দা পাঠাচ্ছে এজেন্সি, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সতর্কতা

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় হজ এজেন্সিগুলোকে আরও কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি সম্পর্কে সতর্ক করেছে। কিছু এজেন্সি তাদের হজযাত্রীদের মাধ্যমে জর্দার কার্টুন পাঠিয়েছে যা জেদ্দা বিমানবন্দরে আটক হয়েছে। এতে দেশের সম্মান নষ্ট হচ্ছে। অনেক এজেন্সি হজযাত্রীদের সঙ্গে হজ গাইড বা প্রতিনিধি না পাঠানোর কারণে হজযাত্রীরা বিড়ম্বনায় পড়ছেন।


আরও খবর



মধুপুরে বদলি হওয়া তিন শিক্ষককে সদর ক্লাস্টারে ফুলেল শুভেচ্ছা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ৩৮০জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃটাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয় থেকে বদলি হয়ে আসা তিনজন প্রতিভাবান শিক্ষককে সদর ক্লাস্টারে ফুল দিয়ে বরণ করে নিলেন সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার সহ বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৫জন প্রধান শিক্ষকগন।

বৃহস্পতিবার (২মে) বিকেলে সদর ক্লাস্টারে এ বরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। 

উক্ত বরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার রুনা লায়লা, মো. জহিরুল ইসলাম, মোঃ রমজান আলী, মো. আসলাম উদ্দিন সহ সদর ক্লাস্টারের ১৫ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগন।

এই গুণী ৩জন শিক্ষককের মধ্যে নাসরিন বেগমকে জাঙ্গালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে উপজেলার দামপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, মৌসুমিকে ব্রাহ্মনবাড়ী থেকে হাসনই এবং আঃ জব্বার রাজুকে মলকা থেকে আকাশী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি করা হয়। 

এ বরণ অনুষ্ঠানে আরও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগনও উপস্থিত থেকে এই অনুষ্ঠানকে আরও প্রানবন্ত করে তোলেন।

  -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



ফিলিস্তিনকে জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য করার পক্ষে প্রস্তাব পাস

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ১৪১জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:শুক্রবার (১০ মে) ফিলিস্তিনকে জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্যপদ দেওয়ার প্রস্তাব পাস হয়েছে সাধারণ পরিষদে। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে প্রস্তাবটি উত্থাপিত হয়। পরে বিপুল ভোটে এটি পাস হয়।

এদিন প্রস্তাবের পক্ষে সদস্যভুক্ত ১৯৩টি দেশের মধ্যে পক্ষে ভোট দিয়েছে ১৪৩টি দেশ। বিপক্ষে ভোট দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলসহ ৯টি। আর ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিল ২৫টি দেশ।

বিপুল ভোটে প্রস্তাব পাস হওয়ায় ফিলিস্তিনের জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্যপদ পাওয়ার দাবি আরও জোরালো হলো। বিষয়টি পুনর্বিবেচনার জন্য এখন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে পাঠানো হবে বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে গত মাসে ১৫ সদস্যের জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ফিলিস্তিনের সদস্যপদ দেওয়ার প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। এরপরই সেই আবেদন নবায়ন করে পুনরায় জমা দেয় ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ। সেই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতেই আজ ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সাধারণ পরিষদে প্রস্তাব হওয়ায় ২০২৪ সালের সেপ্টেম্বর থেকে কিছু অতিরিক্ত অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবে ফিলিস্তিন। যেমন, সাধারণ পরিষদের অ্যাসেম্বলি হলে জাতিসংঘের অন্য সদস্যদের মতো একটি আসন পাবে তারা। তবে ভোট প্রয়োগের কোনো ক্ষমতা তাদের হাতে থাকবে না।

গাজা উপত্যকায় ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনি জঙ্গি হামাসের মধ্যে যুদ্ধের সাত মাস পরে এবং ইসরায়েল অধিকৃত পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপনের প্রসার ঘটাচ্ছে, বিষয়টিকে জাতিসংঘ বেআইনি বলে মনে করে। তাই জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্যপদ পেতে বারবার চাপ দিচ্ছে ফিলিস্তিন।

ভোটের আগে জাতিসংঘে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত রিয়াদ মনসুর বলেন, আমরা শান্তি চাই, স্বাধীনতা চাই। ‘‘হ্যাঁ ভোট’’ ফিলিস্তিনের অস্তিত্বের পক্ষে একটি ভোট, এটি কোনো রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে নয়। এটি শান্তিতে বিনিয়োগ।

 খবর:রায়টার্সের।


আরও খবর



নবীনগরের সাতমোড়া বিদ্যালয়ের ছাদ ধসে ২ জন শিক্ষক আহত

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি:ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার সাতমোড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি বহুতল ভবনের ছাদের কয়েকটি অংশ ধসে ২ জন শিক্ষক আহত হয়েছেন। রবিবার সকাল ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহত দুই শিক্ষক হলেন অত্র বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক রফিকুল ইসলাম (৩৩) ও শরীর চর্চা শিক্ষক মোঃ আল আমিন (৩৫)। আহত দুইজন শিক্ষকের একজনের মাথায় এবং অপর একজন হাতে গুরুতর জখম হয়। তাদের উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের দক্ষিণ পশ্চিম পাশের বহুতল ভবনটির শিক্ষকদের অফিস কক্ষ সহ বেশ কয়েকটি ক্লাশ রুমের ছাদও ইতিমধ্যে ধসে পড়েছে। ভবনটি জরাজীর্ণ হওয়াই যেকোন মুহুর্তে ছাদ ধসে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে। যার ফলে বেশ উৎকন্ঠায় রয়েছেন অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। 

এব্যাপারে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ অলিউল্লাহ্ জানান, ১৯৯৫ সালে ভবনটি নির্মিত হলেও তা জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। অনেকদিন আগে ওই ভবনের ছাদে ফাটল ধরেছে। আজকে ছাদের কয়েকটি অংশ ধসে ২ জন শিক্ষক আহত হয়েছেন। যেকোন মুহুর্তে ছাদ ধসে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে। আমি বিষয়টি ইতিমধ্যে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল মান্নান ভবনটি দ্রুত সংস্কার বা ভবনটি দ্রুত অপসারণ করে নতুন ভবন নির্মাণ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

এব্যাপারে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জুলফিকার হোসেন জানান, ঐ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিষয়টি আমাকে অবগত করেছেন। আমি জরাজীর্ণ ভবনটি ব্যবহার না করতে নির্দেশ দিয়েছি এবং আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

       -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



জয়পুরহাটে আব্দুর রহমান হত্যা মামলায় ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | ১৭৫জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাটে আব্দুর রহমান হত্যা মামলায় প্রায় ২২ বছর পর ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়। 
সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত দায়রা জজ-২ আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম এ রায় দেন। 

দন্ডপ্রাপ্ত সকলের বাড়ির জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার হরেন্দা গ্রামে। এদের মধ্যে দুইজন পলাতক রয়েছেন। 

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০২ সালের ২২ নভেম্বর রাতে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার হরেন্দা গ্রামের সামসুদ্দিনের ছেলে আব্দুর রহমানকে ধানের জমি থেকে পূর্ব শত্রুতার জেড় ধরে আসামী আলামের বাড়িতে ধরে নিয়ে যায় অন্যান্য আসামীরা। এরপর সেখানে আটকে রেখে তাকে নির্মমভাবে বিভিন্ন অস্ত্র দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারপিট করে ও পা দিয়ে বুকে ও পেটে খুচিয়ে খুচিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই আব্দুল বারিক মুন্সী বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত আজ এ রায় দেন। 

সিংকঃ এ্যাড. নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল, পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি), জজ কোর্ট, জয়পুরহাট।

আরও খবর