Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

ইসলামি বক্তার জিহ্বা কাটল দুর্বৃত্তরা

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৫৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় মাওলানা শরিফুল ইসলাম ভূঁইয়া (৩৬) নামে এক ইসলামি বক্তার জিহ্বা কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার রাতে উপজেলার আজমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শরিফুল ইসলাম বিজয়নগর উপজেলার শ্রীপুর ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আরবি বিভাগের প্রভাষক। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার চাপুইর গ্রামের মাওলানা আব্দুর রশিদ ভূঁইয়ার ছেলে।

বিজয়নগর উপজেলার শ্রীপুর ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার সহকারী অধ্যাপক (আরবি) মাওলানা আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের জানান, শনিবার রাতে বিজয়নগরের দৌলতবাড়ি এলাকায় মাহফিলে অংশ নেন মাওলানা শরিফুল। মাহফিলে তিনি শিয়াদের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন তিনি। মাহফিল শেষে মধ্যরাতে ভাগ্নের মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে আখাউড়া উপজেলার আজমপুর রেলস্টেশন এলাকায় পৌঁছালে অজ্ঞাত কয়েকজন যুবক তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় শরিফুলের জিহ্বা ও ঠোঁটের অনেকটা অংশ কেটে যায়। এ সময় মোটরসাইকেলে শরিফুলের সঙ্গে থাকা ওবায়দুল্লাহ (৩৪) নামে একজন আহত  হন। তাদের চিৎকারে আশপাশ থেকে মানুষ চলে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ রোববার শ্রীপুর ইসলামিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা জোহরের নামাজের আগে মানববন্ধন করেছেন।

আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘শরিফুল ইসলামের ওপর হামলার খবর আমরা শুনেছি। তবে এখনো থানায় কোনো লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়নি। তবে আমি তার স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে থানায় অভিযোগ দেওয়ার কথা বলেছি।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) বলেন, ‘ঘটনাটি আমি শুনেছি। ওই বক্তাকে একদল যুবক চড়-থাপ্পড় মেরেছে। এ সময় তার জিহ্বা কেটে গেছে। কী কারণে মেরেছে, বিষয়টি আমরা ক্ষতিয়ে দেখছি। অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’


আরও খবর



কালিয়াকৈরে বিদ্যুৎ অফিসের গাফিলতি বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে নারীসহ দুটি কুকুরের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২৫জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিদ্যুৎ অফিসের গাফিলতিতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে এক নারী পোশাক শ্রমিকসহ দুটি কুকুরের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার উলুসারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের অভিযোগ, ওই তারে আগে থেকে স্পার্কিং হলে স্থানীয় পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে জানালেও কোনো কর্ণপাত করেনি।

মূলত তাদের গাফিলতিতে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।নিহত হলেন, নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা থানার বিকালিকা এলাকার ইছামদ্দীনের মেয়ে আল্পনা আক্তার (২৫)। তিনি উপজেলার উলুসাড়া এলাকার এখলাসের বাড়িতে ভাড়া থেকে স্থানীয় পোষাক কারখানায় কাজ করতেন।

এলাকাবাসী, পল্লীবিদ্যুৎ অফিস ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,আল্পনা কারখানার নাইট ডিউটি শেষে উপজেলার উলুসারা এলাকায় তার ভাড়া বাসায় যাচ্ছিলেন। যাওয়ার পথে মঙ্গলবার ভোরে বিদ্যুতের খুঁটির সাথে থাকা গ্রাউন্ডিং তারের স্পর্শে এলে বিদ্যুৎ পৃষ্টে আল্পনা নামে ওই নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত নারী শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে। পরে আবেদনের প্রেক্ষিতে নিহতের লাশ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ। এদিকে ওই নারী শ্রমিক আল্পনার লাশের পাশে জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে আরো দুটি কুকুরের মৃতদেহ পড়ে ছিল। এ কারণে স্থানীয়দের ধারণা, ওই কুকুর দুটোও বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারা গেছে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। তাদের অভিযোগ, যে তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আল্পনা মারা যান, সে তারে আগে থেকেই স্পার্কিং হতো। বিষয়টি ঢাকা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির -১ এর চন্দ্রা জোনাল অফিসে জানানো হলেও তারা কোনো কর্ণপাত করেনি। মূলত বিদ্যুৎ অফিসের গাফিলতিতে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

কালিয়াকৈর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজিদ আহম্মেদ জানান, খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে আবেদনের প্রেক্ষিতে তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়।

এব্যাপারে ঢাকা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির -১ এর চন্দ্রা জোনাল অফিসের ডিপুটি জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী জসীম উদ্দীন বলেন, শুনেছি বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে একজন মানুষ মারা গেছেন। ঘূর্ণিঝড় রেমালের তা-বে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।তবে এ বিষয়ে পূর্বে কেউ আমাদের অবহিত করেননি।


আরও খবর



জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করবেন রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৭২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন রাজধানীর হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহে প্রধান ঈদের জামাতে সর্বস্তরের শত শত মুসল্লির সঙ্গে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করবেন।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন জানান, রাষ্ট্রপতি তার পরিবারের সদস্য ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহার নামাজ জাতীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৭টায় আদায় করবেন।

রাষ্ট্রপতি ঈদগাহে পৌঁছলে প্রধান বিচারপতি, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়রসহ সংশ্লিষ্টরা তাকে অভ্যর্থনা জানাবেন।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র, সংসদ সদস্য, সিনিয়র রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং উচ্চপদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ঈদের নামাজ আদায় করবেন।

নামাজ শেষে রাষ্ট্রপ্রধান ঈদগাহে মুসল্লিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। তবে প্রতিকূল আবহাওয়া বা অন্য কোনো কারণে জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করা সম্ভব না হলে রাষ্ট্রপতি সকাল ৮টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদের নামাজ আদায় করবেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ব্যবস্থাপনায় জাতীয় ঈদগাহে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় ঈদগাহে মহিলাদেরও ও ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে।

সূত্র: বাসস।


আরও খবর



নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ মারা গেছেন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০০জন দেখেছেন

Image
অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ (ফাইল ছবি)

নিজস্ব প্রতিবেদক:শুক্রবার (১৪ জুন) ভোরে ঢাকা সেনানিবাসের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায়, নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে গিয়েছেন। আজ বাদ জুমা মিরপুর ডিওএইচএস কেন্দ্রীয় মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে আর্মি কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

পরিবারের সদস্যরা জানায়, গত দুমাস ধরে মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ সিএমএইচে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর আগে তিনি চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যান। সেখান থেকে দেশে ফেরার পর তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটলে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়।

উল্লেখ্য, সেনাবাহিনীতে চাকরির সময় অতি মেধাবী অফিসার হিসেবে পরিচিত মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ। বিভিন্ন টকশোতে একজন স্পষ্টভাষী ও নির্ভীক বক্তা হিসেবে অংশ নেন এবং তার লেখা কলাম বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত প্রকাশিত হয়।


আরও খবর



সৈয়দপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থান কর্মসূচি পালিত

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image
সৈয়দপুর (নীলফামারী ) প্রতিনিধি:কুখ্যাত রাজাকর নঈম খান ওরফে নঈম গুন্ডাকে এক মামলায় স্বাধীনতার পক্ষের ব্যক্তি উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদে নীলফামারীর সৈয়দপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে ওই প্রতিবেদন দাখিলকারী পুলিশ কর্মকর্তার অপসারনের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়। রোববার (৯ জুন) দুপুরে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে পালন করা হয়।

এদিন দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সদস্যরা অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন। প্রায় ২ ঘন্টাব্যাপী চলা এ অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মির্জা সালাউদ্দিন বেগ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউনুস আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল হক সরকার, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শাহনাজ পারভীন, মাহফুজা আক্তার, মো: মিজানুর, বীর মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী রোকেয়া ও আলম আরা প্রমুখ।
 
বক্তারা বলেন, কুখ্যাত রাজাকার নঈম খান ওরফে নঈম গুন্ডা একজন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী। ওই ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধের সময় বাঙ্গালী নিধন, ধর্ষণ, বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের সঙ্গে জড়িত। অথচ স্বাধীনতার ৫৩ বছর পর সম্প্রতি রংপুর সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতে দায়ের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে রাজাকার নঈম খানকে স্বাধীনতার স্বপক্ষে ব্যক্তি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এই ইতিহাস বিকৃতি প্রতিবেদনটি আদালতে দাখিল করেছেন পুলিশ কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক রেজাউল করিম। বক্তারা ওই প্রতিবেদন দাখিলকারী পুলিশ কর্মকর্তার অবিলম্বে অপসারণ ও শাস্তির দাবি জানান। পরে অবস্থান কর্মসূচি শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-ই-আলম সিদ্দিকীর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি তুলে দেওয়া হয়। স্মারকলিপিতে ওই পুলিশ কর্মকর্তার ইতিহাস বিকৃতির অপকর্ম তুলে তার অপসারণ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে।

আরও খবর



হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি শুরু

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৩জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:মুসলিম সম্প্রদায়ের পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে টানা ৮ দিন ছুটি শেষে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানিসহ বন্দরের সকল কার্যক্রম চালু হয়েছে। এদিকে ফিরেছে বন্দরে কর্মচাঞ্চল্যতা। তবে স্বাভাবিক ছিল হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় বিষয়টি জানিয়েছেন হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান।

তিনি জানান,পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ১৪ জুন থেকে ২১ জুন পর্যন্ত হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ছিল। আজ শনিবার (২২ জুন) সকাল সাড়ে ১১ টা থেকে হিলি বন্দরে আমদানি-রপ্তানি পুনরায় চালু হয়েছে।

এদিকে হিলি ইমিগ্রেশনের ওসি শেখ আশরাফুল ইসলাম জানান, কোরবানির ঈদ উপলক্ষে হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার স্বাভাবিক ছিল।


আরও খবর