Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

হোমনায় ঝড়ে লণ্ডভণ্ড বিদ্যুৎ ব্যবস্থা; রবি ফসলের ক্ষতি

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ২০১জন দেখেছেন

Image
মোর্শেদুল ইসলাম শাজ,হোমনা (কুমিল্লা)  প্রতিনিধি: বছরের প্রথম কালবৈশাখী ঝড়ে কুমিল্লার হোমনায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুতের ব্যাপক বিপর্যয়ের ফল উপজেলার প্রায় পুরো এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। রবি ফসলেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।  ঝড়়ে কাঁচা ঘরবাড়ি, গাছপালা ভেঙে গেছে রাস্তাঘাটে যান চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়েছে।  বিদ্যুত বিভাগের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ রাস্তাঘাট পরিষ্কারে কাজ করেছেন।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-০৩ এর ডিজিএম শওকাতুল আলম জানান, গতকাল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীর ঝড়ে বিদ্যুতের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। আমাদের ৭০ হাজার গ্ৰাহক রয়েছে। বিদ্যুতের তার, খুঁটি ভেঙে গিয়ে অন্তত ষাট শতাংশ ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে বিদ্যুতের ১৪টি খুঁটি, ১০ টি ইনস্যুলেটর, ৬টি ক্রস আর্ম এবং অন্তত ৩০টি স্পটে তার ছিড়ে গেছে।পৌরসভা, ঘারমোড়া ও কৃষ্ণপুরসহ কয়েকটি এলাকা ব্যতীত উপজেলার সব জায়গা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয় পড়ে। 

তিনি বলেন, আশা করছি- দ্রুতই সকল কাজ সম্পন্ন করে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে পারবো।উপজেলার দড়িচর গ্ৰামের কৃষক মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি এবার আট বিঘা ভুট্টা চাষ করেছি। কালবৈশাখীর ঝড়ে জমিতে পানি জমে প্রায় এক বিঘা জমির ভুট্টার ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, শুক্রবারের কালবৈশাখী ঝড়ে জমিতে পানি জমে এবং হেলে গিয়ে অন্তত ৮ থেকে ১০ ভাগ ভুট্টার ক্ষতি হতে পারে। এছাড়া মাঠে রবি ফসল তেমন নেই।
আমাদের উপজেলায় ৬শ' হেক্টর ভুট্টার আবাদ হয়েছে। কিছু কাঁচা ঘরবাড়ি এবং অনেক আম, জাম, লিচু, কাঁঠালের গাছ ভেঙ্গে গেছে। প্রকৃত তথ্য এখনও নিরূপণ করতে পারিনি। উপজেলায় বোরো আবাদ হয়েছে ৫ হাজার ৪৪২ হেক্টর। এর মধ্যে কিছু জায়গায় বোরো ক্ষেতের ধানের চারা হেলে গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ক্ষেমালিকা চাকমা বলেন, এখনো পুরো তথ্য পাইনি। খোঁজ খবর নিচ্ছি।


মোবাইল -01817526906
তারিখ : 25-03-2023

আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




বীরগঞ্জে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সম্প্রতি মেলা ও শিক্ষাবৃত্তি, বাইসাইকেল বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

নাজমুল ইসলাম (মিলন) দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মানব কল্যান পরিষদ এর উদ্যোগে বীরগঞ্জে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষাবৃত্তি, বাইসাইকেল বিতরণ ও স¤প্রীতি মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ মাঠে ২৮ মে মঙ্গলবার সকাল ১১ টা বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ফজলে এলাহীর সভাপতিত্বে সিভিল সোসাইটি অর্গানাইজেশন (সিএও) এর আয়োজনে অহিংসা প্রকল্প, মানব কল্যাণ পরিষদ এর সহযোগিতায় ১৬৭ জনকে শিক্ষাবৃত্তির চেক ও ১৮ জনকে বাইসাইকেল বিতরণ অনুষ্ঠান হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বীরগঞ্জ উপজেলার নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আবু হুসাইন বিপু, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো: তরিকুল ইসলাম, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক নুরিয়ার সাইদ সরকার প্রমুখ।

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নের লক্ষে “বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা” কর্মসূচির আওতায় শিক্ষা বৃত্তির প্রাইমারি ১০০ জন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শিক্ষার্থীকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, মাধ্যমিক ৪৫ জন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শিক্ষার্থীকে ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ও উচ্চ মাধ্যমিক ২২ জন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শিক্ষার্থীকে ২ লক্ষ ০৯ হাজার টাকার বৃত্তির চেক ও ১৮ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ১৮টি বাইসাইকেল বিতরণ করেন।

সম্প্রতি মেলায় বিভিন্ন স্টলের মাধ্যমে বাঙ্গালি, আদিবাসী ও অন্যন্য সকল জাতিসত্তা জীবনধারা, মৌলিক অধিকার, মানবধিকার, ভাষা ও সংষ্কৃতি সর্ম্পকে আলোচনা কালে বীরগঞ্জ থানা আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি শীতল মার্ডী, বীরগঞ্জ মানব কল্যাণ পরিষদের পরিচালক রবিউল আজম উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ভোট গণনায় অনিয়ম ও সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়ার অভিযোগ; যৌক্তিক দাবির সমাধান চান তিনি

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:ভোট গণনায় অনিয়ম ও সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে নওগাঁর আত্রাইয়ে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদের ৩য় ধাপের অনুষ্ঠিত নির্বাচনে। অভিযোগ তুলেছেন আফছার আলী প্রামানিক নামে এক ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি ওই নির্বাচনে তালা প্রতিকে নির্বাচন করে হেরে গিয়েছেন। তার অভিযোগ সুকৌশলে তাকে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর আগে একাধিক অনিয়ম তুলে তিনি গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন। এছাড়া পরের দিন শুক্রবার (৩১ মে) সকালে ভূক্তভোগী আফছার আলী প্রামানিক তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ ও সংবাদ সন্মেলন করেও তিনি কোনো সমাধান বা আশ^াস পাননি। তাই হতাশ হয়ে গণমাধ্যমকর্মীর কাছে আবারও অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি।

প্রার্থী আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আফছার আলী দাবি করে বলেন, গত ২৯মে আত্রাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই নির্বাচনে উপজেলার জনগণ স্বত:স্ফূর্ত ভাবে আমাকে ভোট প্রদান করেছেন। কিন্তু ৬৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ছয়টি কেন্দ্রে ভোট গণনায় তার প্রতি চরম অন্যায় এবং অবিচার করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় তিন হাজার ৮১০ভোট বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যায় এবং শতকরা হারে গড়মিল রয়েছে। তিনি বলেন, একজন ভোটার যখন ভোট দিতে যায় তখন তাকে তিনটি পদে তিনটি ব্যালট পেপার দেয়া হয়। এতে তিনটি পদেই প্রদেয় ভোটের সংখ্যা একই রকম হওয়ার কথা। অথচ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষিত প্রাথমিক বেসরকারী ফলাফল সিটে চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যা ৭৩হাজার ২৪৮, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৩১এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৬৮প্রদেয় ভোট দেখানো হয়েছে। এতে কোনো পদের সাথে কোনো পদের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যার মিল নেই। যা অনিয়মের নজির। তিনি বলেন, ঘোষিত বেসরকারী ফলাফলে নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুল শেখ এর ভোট দেখানো হয়েছে ৩৩হাজার ৫১৮এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আমাকে তালা প্রতিকে দেখানো হয়েছে ৩২হাজার ২৭৪ভোট। এতে ভোটের ব্যবধান দেখানো হয়েছে এক হাজার ২৪৪ভোট। অথচ বাতিল ভোটের সংখ্যা দেখানো  হয়েছে তিন হাজার ৮১০ভোট। তিনি দাবি করে বলেন, আমাকে সুকৌশলে অনিয়ম করে হারানো হয়েছে। মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ৬টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনা করলে আমিই জয়লাভ করব। এঘটনায় মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ছয়টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনার দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

ভূক্তভোগী আফছার আলীর দাবি তার প্রতীকে সিল মারা একাধিক ব্যালট বাহিরে পাওয়া গিয়েছে। যেটা কোনো ভাবেই কাম্য নয়। তাই তিনি পুনরায় বাতিলকৃত ভোট ও ছয়টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ভোট গণনা চান। তিনি বলেন, প্রধানমনত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক সারাদেশে নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। আমার এখানেও নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কিছু কর্মকর্তা আমাকে সুকৌশলে হারিয়ে দিয়েছে। আমার প্রতি অন্যায় করা হয়েছে। আমাকে যারা ভালোবাসেন এবং ভোট দিয়েছেন তারা আমার এই পরাজয়কে মেনে নিতে পারছেনা। সেই জন্য আমি উচ্চ আদালতে যাবো। এর শেষ দেখে ছাড়বো। 

এদিকে তিনি সংবাদ সন্মেলনেও একই দাবি তোলেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য স্বপন কুমার সাহা, আত্রাই উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাফিউল ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্র নেতা আমানুল্লাহ ফারুক বাচ্চু, পাঁচুপুর ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন, সমাজ সেবক রতন প্রামানিকসহ দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।

সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়া ও অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে আত্রাই নির্বাচন কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম অস্বীকার করে বলেন, সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। আর প্রদেয় ভোটের শতকরা হার এক না হওয়ার কারণ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা যেকোনো কারণে হতে পারে। দুই এক ভোটের গড়মিল হতেই পারে বলে জানান তিনি। এছাড়া দুই তিন ভোট কোনো প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করেনা। তবে তার সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণ থাকলে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করতে পারে। এতে বিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যানের গেজেট স্থগিত হয়ে যাবে।

একইভাবে প্রদেয় ভোটের শতকরা হারের যে ব্যবধান রয়েছে তা অনেক কারণে হতে পারে জানিয়ে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্চিতা বিশ্বাস বলেন, তার অভিযোগ সত্য নয়। ভোটে বা ভোট গণনায় কোন অনিয়ম হয়নি। আমরা শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে নির্বাচন উপহার দিতে সক্ষম হয়েছি। আফছার আলী প্রামানিক যে লিখিত আবেদন করেছিলেন তা আমাদের এখতিয়ার ভুক্ত না হওয়ায় তাকে নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তার যদি কোনো অভিযোগ থাকে, সেটা এখন নির্বাচন কমিশন দেখবেন। 


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




ঈদ উপলক্ষে জয়পুরহাটে তরুনদের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন "শুকরিয়া"এর নগদ অর্থ প্রদান

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ"এখন যৌবন যার, সমাজ সেবা করার সুবর্ণ সুযোগ তার " এই শ্লোগানকে সামনে রেখে জয়পুরহাট পৌর এলাকার দেওয়ান পাড়ার কয়েকজন যুবক নিজেদের আয়ের টাকায় গরীব, অসহায়,দুস্থ পরিবারকে ঈদ উপলক্ষে নগদ অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছেন।শুক্রবার  (১৪ জুন) বিকেলে দেওয়ানপাড়া জুবিলি হল মাঠে  অসহায়দের হাতে নগদ অর্থ  তুলে দেন শুকরিয়া নামের এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। 

এটি একটি স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী উন্নয়ন সংগঠন, এই সংগঠনের উদ্দেশ্য হচ্ছে এলাকাবাসীর জীবনমান উন্নয়ন, সৌহার্দ্য সম্প্রীতি বাড়ানো এবং একটি অনুকরণীয় নিরাপদ এলাকা হিসেবে নিজেদের সু-প্রতিষ্ঠিত করা। এছাড়া এলাকাটি যেন মাদক মুক্ত থাকে সেলক্ষ্যে কাজ করা।

পাশাপাশি এলাকার দরিদ্র, বঞ্চিত, অবহেলিত মানুষের কল্যাণ ও উন্নয়নে কাজ করা। তাদের ভাগ্যোন্নয়নে ও পরিবর্তনে তাদের সঙ্গে একযোগে কাজ করা।সদস্য খুরশিদ আলম নয়ন মুঠোফোনে বলেন, যুব সমাজকে মাদক, সন্ত্রাস,এবং দুর্নীতি থেকে দূরে রাখতে আমরা কয়েকজন যুবক ২০২২ সালে এই সংগঠনের শুরু করেছিলাম।আমরা এই সংগঠনের পক্ষ থেকে ৫০ জন পরিবারকে সহায়তা প্রদান করতে পেরে আমরা খুঁশি।আল্লাহতালা সহায়তা করলে সামনের দিনে আরও ব্যাপকভাবে সহায়তা প্রদান করার ইচ্ছে আছে।

আরেক সদস্য ওমর নাসিফ বলেন,এটা আমাদের স্বেচ্ছাসেবী উন্নয়ন সংগঠন, এই সংগঠনের উদ্দেশ্য হচ্ছে এলাকাবাসীর জীবনমান উন্নয়ন করার চেষ্টা করা।আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবেন, আমরা যেনো আপনাদের পাশে সব সময় থাকতে পারি।এই সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সদস্য  আলী আসলাম,ওহেদুর রহমান বকুল,আলী আসলাম,বুলবুল আহম্মেদ, সাংবাদিক জনি সরকার ও মিনহাজুর রহমান ছোটন।

আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




বিশ্ব শান্তি নিশ্চিত করা এখন অতীতের চেয়ে কঠিন: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,বিশ্বশান্তি নিশ্চিত করা এখন অতীতের চেয়ে কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে  প্রযুক্তির সাম্প্রতিক প্রসার ও অগ্রযাত্রার সঙ্গে বাড়ছে নতুন নতুন হুমকি। ফলে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনগুলোর শান্তিরক্ষীদের বহুমাত্রিক জটিল পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হচ্ছে।

বুধবার (২৯ মে) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে ‘আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ দিবস-২০২৪’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা বিশ্বের সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং ও বিপজ্জনক অঞ্চলে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারে, সেজন্য তাদের সময়োপযোগী প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সরকারপ্রধান বলেন, নারীর অধিকার ও জেন্ডার সমতা নিশ্চিত করতে আমাদের পদক্ষেপ ‘উইমেন স্পিচ অ্যান্ড সিকিউরিটি অ্যাজেন্ডা’ তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছে। বাংলাদেশ অন্যতম বৃহৎ নারী শান্তিরক্ষী দেশ হিসেবেও পরিচিতি লাভ করছে। এ পর্যন্ত বাংলাদেশের ৩ হাজার ৩৮ জন নারী শান্তিরক্ষী অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে জাতিসংঘের শান্তি মিশন সম্পন্ন করেছেন। এখন দাবি আসছে, আরও নারী শান্তিরক্ষী প্রেরণ করার।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল নিজেই আমাকে বলেছেন- আমরা যেন আরও বেশি করে নারী শান্তিরক্ষী প্রেরণ করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে দ্বন্দ্ব সংঘাত যুদ্ধ আজ বিশ্বশান্তি বিঘ্নিত করছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, গাজায় ইসরাইলের হামলায় হাজার হাজার নিরীহ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত করা ইত্যাদি মানবজাতির জন্য এক ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতার আদর্শ অনুসরণ করে আমরা বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছি। শান্তিরক্ষা মিশন ছাড়াও আমরা অন্য আন্তর্জাতিক ফোরামগুলোতে অবদান রেখে যাচ্ছি।


আরও খবর



দুই-তিন মাস ধরে এমপি আনারকে খুনের পরিকল্পনা হয়: ডিবিপ্রধান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৫৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারকে হত্যার পরিকল্পনা হয় দুই থেকে তিন মাস আগে, বলেছেন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ । ঢাকায় পুলিশের নজরদারির কারণে হত্যার স্থান হিসেবে বেছে নেওয়া হয় কলকাতাকে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান তিনি।

ডিবিপ্রধান বলেন, রাজধানীর গুলশান ও বসুন্ধরার দুই বাসায় এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয় দুই-তিন মাস আগে। তারা পরিকল্পনা করেছিল ঢাকায় হত্যা করবে। কিন্তু বাংলাদেশ পুলিশের নজরদারি ও ঢাকায় হত্যাকাণ্ডের পরে সব হত্যার ক্লু পুলিশ বের করেছে বলেই হত্যাকারীরা কলকাতায় এমপিকে হত্যা করেছে।

হারুন অর রশীদ বলেন, বিদেশের মাটিতে অপরাধ করলে বাংলাদেশ পুলিশের নজরে আসবে না বলেই অপরাধীরা কলকাতা বেছে নেয়। বাংলাদেশের মাটিতে অপরাধ করার সাহস পায়নি। তবে এ হত্যাকাণ্ডের পর তারা পালিয়ে থাকতে পারেনি। আমরা তিনজকে গ্রেপ্তার করেছি। আরও কয়েকজনকে নজরাদিতে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, হত্যাকারীরা এমনভাবে লাশ গুমের চেষ্টা করেছে যাতে কোনো হদিস না মেলে। লাশ গুমের জন্য হাড্ডি থেকে মাংস আলাদা করে পৃথক পৃথক ট্রলিতে করে বিভিন্ন জায়গায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। মরদেহ উদ্ধারের কাজ চলছে।


আরও খবর