Logo
আজঃ রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩
শিরোনাম

হজ প্যাকেজ ৩০ জানুয়ারির মধ্যে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩ | ১১২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী ২৫ থেকে ৩০ জানুয়ারির মধ্যে চলতি বছরের হজ প্যাকেজ ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন ধর্মবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তি নিয়ে আজ রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর বেইলি রোডের বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান।

ফরিদুল হক বলেন, ‘বিমানের (বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স) সঙ্গে আমাদের মিটিং আছে, সেই মিটিং আমরা করবো। সৌদি আরবে আমরা যে কোম্পানিগুলোর সঙ্গে চুক্তি করে আসলাম তাদের সঙ্গে রেট নিয়ে আমাদের আলোচনা হচ্ছে। আমরা একটা রেট বলেছি, তারা একটা রেট বলেছে, তাদের সঙ্গে আমাদের নেগোসিয়েশন চলছে, ওরা যেটা চেয়েছে সেটা যাতে না হয়। যদি ৫ শতাংশও রেট কমে সেটা বাংলাদেশের জন্য উপকার। সেই রেটগুলো আমরা হয়তো ২০-২২ জানুয়ারির মধ্যে পেয়ে যাবো।


প্রতিমন্ত্রী বলেন, আগামী ২২ জানুয়ারি বিমানের সঙ্গে আমাদের কথা হয়ে গেলে আশা করছি ২৫ থেকে ৩০ জানুয়ারির মধ্যে আমরা হজ প্যাকেজ ঘোষণা করে দেবো ইনশাআল্লাহ।

হজ প্যাকেজের মূল্য গত বছরের মতো রাখার চেষ্টা করা হবে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তবে রিয়ালের মূল্য বাড়ায় খরচ কিছুটা বাড়তে পারে।


আরও খবর



ঠাকুরগাঁওয়ে এক স্কুলেই পড়েন ১০ জোড়া যমজ ভাই-বোন

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩ | ৫৬জন দেখেছেন

Image

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি;ভাই-বোনের সম্পর্ক গুলো সবসময় মধুর হয়৷ একসাথে বেড়ে ওঠা আর খুনসুটি করেই পার হয়ে যায় পুরো সময়। তবে সে সম্পর্ক আরো মধুর হয়ে উঠে যমজ ভাই-বোনদের ক্ষেত্রে।
একই সময়ে পৃথিবীতে আলোর মুখ দেখা। আর জীবনের পথচলায় একই রকম দেখতে, একই ভাল লাগা আর খারাপ লাগা গুলো বেশ আকৃষ্ট করে সকলকে। একসাথে খাওয়া,খেলাধুলা করা ও পড়াশোনা করাসহ নিজেদের ভাল লাগার পাশাপাশি মুগ্ধতাও ছড়ায় আশপাশে। তেমনি একসাথে এক বিদ্যালয়ে ১০ জোড়া যমজ ভাই-বোন পড়াশোনা করছেন। একসাথে এক বিদ্যালয়ে এত যমজ ভাই-বোন পড়াশোনার বিষয়টি আলোড়ন ফেলেছে পুরো জেলাজুড়ে৷।
ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মথুরাপুর পাবলিক হাই স্কুলে এক সাথে বিভিন্ন শ্রেণীতে পড়াশোনা করেন ২০ জন যমজ ভাই-বোন। বিদ্যালয়টির ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে তাহসিন-তাসনিম ও সান-মুন, সপ্তম শ্রেণীতে পড়ে কার্তিক-গণেশ, হাবিব-হাফিজ ও সুমাইয়া-সাদিয়া, অষ্টম শ্রেণিতে শুভ-সৌরভ, নবম শ্রেণিতে হাসি-খুশি ও তাহবি-তাসবি এবং দশম শ্রেণীতে পড়াশোনা করেন আবিদ-অমিত ও রাহুল রাহা-চঞ্চল রাহা। তারা যমজ ভাই বোন।
যমজ ভাই-বোনদের চেহারায় মিল থাকায় তাদের নিশ্চিত করতে খানিকটা বিড়ম্বনা হলেও তাদের সাথে নিয়ে বেশ উপভোগ করেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সহপাঠীরা। দুইজন একসাথে বেড়ে ওঠাকে বেশ গর্বের সাথে দেখছেন যমজ ভাই-বোনেরা। 
ষষ্ঠ শ্রেণীর যমজ দুই ভাই সান ও মুন বলেন, আমরা দুই ভাই একসাথে খাওয়া, খেলাধুলা ও স্কুলে আসা যাওয়া একসাথে করি৷ আমাদের দুজনের পছন্দ মাংস ভাত৷ শুধু দুজনের দুই রঙ পছন্দ ৷ একজনের লাল আরেকজনের নীল ৷ আমরা একই পোশাক পরে বিভিন্ন জায়গায় যায় ৷ শুধু পোশাক না আমাদের জুতা, চশমা, প্যান্ট সব একরকম। এসব আমাদের খুব ভালো লাগে৷ তবে আমরা কে কোনটা তা অনেক চিনতে পারেন না। আমরা এ বিষয়টাকে আরো বেশী উপভোগ করি। 
সপ্তম শ্রেণীর যমজ দুই বোন সুমাইয়া ও সাদিয়া বলেন, আমাদের সবকাজগুলো আমরা একসাথে করি। আমাদের দুজনের প্রিয় রঙ হল নীল ৷ আমরা একসাথে স্কুলে আসি। একসাথে ক্লাশে বসি৷ টিফিনের সময় আবার একসাথে খেলাধুলা করে থাকি। সব কাজগুলো আমরা একসাথে করি৷ ক্লাসের সময় একজনকে বকা দিলে আমাদের আরেকজনকে খুব খারাপ লাগে৷ আবার কেউ যদি আমরা ভালো কিছু করি তাহলে মন থেকে ভালো লাগা কাজ করে৷ স্কুলের শিক্ষক ও সহপাঠীরা আমাদের চিনতে পারেনা৷ তখন একসাথে দুজনকে ডাকে তখন আমাদের খুব ভালো লাগে। 
নবম শ্রেণির যমজ দুই বোন হাসি ও খুশি বলেন, আমাদের একটা বড় সুবিধা হল কেউ কোন ভুল করলে একজন আরেক জনকে চাপিয়ে দেওয়া যায়৷ পরে আবার আমরা একসাথে মিলে যায়৷ আর পরিবারের কাছে, আত্নীয় স্বজনদের কাছে ও শিক্ষকদের কাছেও আমরা বেশ আদর পায়৷ আমরা আমাদের পুরো সময়টা একসাথে কাঁটায়। আমরা জমজ হয়ে অনেক খুশি৷
এছাড়াও সুমাইয়া-সাদিয়া, হাবিব-হাফিজ, তাহবি-তাসবি সহ অন্যান্য যমজ ছাত্র ছাত্রীরা একই কথা ব্যক্ত করেন। 
বিদ্যালয়টির সহকারী শিক্ষিকা আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, যমজ বিষয়টি আমি বেশ উপভোগ করি৷ তারা যখন পাশাপাশি বসে তখন তাদের দেখতেও ভালো লাগে। তাদের পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ অনেক বেশী। তারা যাতে ভালো কিছু করে সেই বিষয়ে আমরা তাদের উৎসাহিত করি৷ 
মথুরাপুর পাবলিক হাই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠানে ২০ জন যমজ ভাই-বোন পড়াশোনা করেন৷ তাদের নাম গুলো প্রায় একই রকম ও চেহারার মিলও দেখা যায়। সে কারণে কোনটা কে সেটা বুঝতে মাঝে মাঝে বিড়ম্বনায় পরতে হয়। তবুও আমরা যমজ বিষয়টি বেশ উপভোগ করছি ৷ এ ছাড়াও আমি লক্ষ করেছি তাদের মেধাও প্রায় সমান হয়৷ একজনের শ্রেণীর রোল নাম্বার দুই হলে অপরজনের তিন হয়। তাদের আচার-আচরণ, পোশাক পরিচ্ছদ একই রকম৷ তারা একসাথে থাকতে বেশ স্বাচ্ছন্দ বোধ করে। আমার আশা করছি তারা সকলে ভালো কিছু করবে।


আরও খবর



'৭০০' পর্বে ধারাবাহিক নাটক ‘মাশরাফি জুনিয়র’

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ | ৭০জন দেখেছেন

Image

‘সব বাধা ডিঙিয়ে এক অসম্ভব স্বপ্নছোঁয়ার গল্প’ বলে যাওয়া 'মাশরাফি জুনিয়র’ স্বপ্নপূরণের পথে হাঁটতে হাঁটতে পৌছে গেছে অনন্য এক উ”চতায়। দীপ্ত টিভির এই জনপ্রিয় ধারাবাহিকটির ৭০০ তম পর্ব প্রচার হতে যা”েছ আগামী ২৫ মার্চ শনিবার রাত ৮টা ৩০মিনিটে।

প্রত্যন্ত এক গ্রামে মায়া আর ভালবাসায় জড়িয়ে থাকা ভাইবোন মণি আর মন্ডা নানা চড়াই উতরাই পেরিয়ে আবার ফিরে এসেছে ভিন্ন এক গ্রামে, যেখানে বদলে গেছে তাদের স্বপ্ন। শহরে হারানো মন্ডাকে খুঁজতে গিয়ে মণি পেয়েছিলো রুনার ভালবাসা, আয়ানের বন্ধুত্ব আর নামকরা ক্রিকেটার হবার সুযোগ। তবে জীবনযুদ্ধের জটিলতায় একসময় পরাজিত মণি আর মন্ডাকে ফিরে আসতে হয় গ্রামে। এরপর আটবছর সময়ের ব্যবধানে বয়সের সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়েছে ক্রিকেটার মাশরাফি জুনিয়রের জীবন ও চারপাশ। তবে পুরনো বন্ধুকে খুঁজে পেতে মরিয়া আয়ান। আয়ান মণিকে কি খুঁজে পাবে, বাড়ি ছেড়ে আসা মণি আবার রুনার কাছে ফিরবে কী না কিংবা ফেলে আসা ক্রিকেটার হবার স্বপ্ন মণি আবার জাগিয়ে তুলবে কী না  - সেসব প্রশ্নের উত্তর মিলবে নাটকের আগামী পর্বগুলোতে।

আহমেদ খান হীরকের গল্পে ‘মাশরাফি জুনিয়র’ এর চিত্রনাট্য করেছেন আসফিদুল হক আর সংলাপ লিখেছেন মোঃ মারুফ হাসান। সাজ্জাদ সুমনের পরিচালনায় দর্শকনন্দিত মণি চরিত্রে সাফানা নমনিসহ অভিনয় করেছেন শতাব্দী ওয়াদুদ, গোলাম ফরিদা ছন্দা, চিত্রলেখা গুহ, সমু চৌধুরী, শহিদুল আলম সা”চু, রোজি সিদ্দিকী, মিতুল রহমান, মাইশা মাশফিকা তানিশা, আফ্রি সেলিনা, জুয়েল জহুর, সোমা, শেহজাদ ওমর সহ আরো অনেকে। নাটকটির লাইন প্রডিউসার কিশোর খন্দকার।  প্রতিদিন রাত ৮টা ৩০ মিনিটে দীপ্ত টিভিতে প্রচারের আগেই 'মাশরাফি জুনিয়র' এর অগ্রিম পর্বগুলো দেখা যা”েছ দীপ্ত প্লেতে, সাথে ইউটিউব আর ফেসবুকে তো থাকছেই।



আরও খবর



শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তির সংগ্রাম চলছে: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩ | ১০০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। এখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তির সংগ্রাম চলছে। তার নেতৃত্বে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার পথে এগিয়ে যাচ্ছি।

আজ শুক্রবার সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি সরকার সংবিধানের ওপর আঘাত এনেছে, কলঙ্কিত করেছে। আওয়ামী লীগ সংবিধানের মর্যাদা রক্ষা করে সে আলোকে আগামী নির্বাচনে যেতে চায়। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানের পথের বাধা সাম্প্রদায়িক শক্তির বিষবৃক্ষকে উপড়ে ফেলা হবে।

এর আগে, সকাল ৭টার দিকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সেখানে দাঁড়িয়ে দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন তিনি।

এরপর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতারা ফুল দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান।


আরও খবর



ঢাকা আজ দ্বিতীয় দূষিত শহরের তালিকায়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: দীর্ঘদিন ধরে বায়ু দূষণে ভুগছে ঢাকা। নির্মাণাধীন স্থাপনা, ভাঙাচোরা রাস্তা, ইটভাটা এবং অন্যান্য উৎস থেকে দূষিত কণা প্রচুর পরিমাণে ঢাকার বাতাসে মিশে যাচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় রাজধানী ঢাকা দ্বিতীয়। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) স্কোর ১৮৭ রেকর্ড করা হয়েছে। যার অর্থ হলো- জনবহুল এ শহরের বাতাসের মান ‘অস্বাস্থ্যকর’ পর্যায়ে রয়েছে।

১৫০ থেকে ২০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোর ‘অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়। ২০১ থেকে ৩০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোর ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়, যেখানে ৩০১ থেকে ৪০০ এর স্কোর ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বলে বিবেচিত হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে পরিবেশ অধিদফতর ও বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ঢাকার বায়ুদূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো- ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলা।

অপরদিকে ১৯১ স্কোর নিয়ে বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে পাকিস্তানের করাচি শহর।


আরও খবর



গ্রিসে দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২৬

প্রকাশিত:বুধবার ০১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক; গ্রিসের উত্তরাঞ্চলে দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও ৮৫ জন। দেশটির ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে আজ বুধবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গ্রিসের লরিসা শহরের কাছে একটি মালবাহী ট্রেনের সঙ্গে আরেকটি যাত্রীবাহী ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে আগুন ধরে যায়। খবর পেয়ে আহতদের উদ্ধারে এবং আগুন নেভাতে সেখানে দ্রুত ছুটে যান জরুরি পরিষেবা সংস্থার সদস্যরা।

এ সময় যাত্রীবাহী ট্রেনটিতে কমপক্ষে সাড়ে ৩শ যাত্রী ছিল। ওই ট্রেন দুটি থেসালোনিকি এবং লারিসার মধ্যে চলাচল করছিল।

দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ফুটেজে সংঘর্ষে লাইনচ্যুত হয়ে যাওয়া বগিগুলো থেকে আগুনের শিখা এবং কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলি বের হতে দেখা গেছে। ফায়ার সার্ভিস বলছে, ঘটনাস্থলে তাদের ১৭টি গাড়ি আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে।

তবে কী কারণে এই সংঘর্ষ হয়েছে তা এখনো জানা যায়নি। 

ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নেওয়া এক অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছেন, গাড়িতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল, লোকজন চিৎকার করছিল।

অ্যাঞ্জেলোস সিমাউরাস নামের আরেক যাত্রী স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘এটি একটি ভূমিকম্পের মতো ছিল।

লাজোস নামে আরেক যাত্রী বলেছেন, অভিজ্ঞতাটি ছিল খুবই মর্মান্তিক। তিনি বলেন, ‘আমি আহত হইনি, কিন্তু আমার কাছের অন্যান্য লোকেদের রক্তে রঞ্জিত ছিলাম।

সেন্ট্রাল থেসালির আঞ্চলিক গভর্নর কস্টাস অ্যাগোরাসটোস রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে বলেছেন, ‘এটি খুবই শক্তিশালী সংঘর্ষ ছিল। এ ছিল এক ভয়াবহ রাত... দৃশ্যটি বর্ণনা করা কঠিন।’


আরও খবর