Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

গাজীপুরের মতো সব নির্বাচন সুষ্ঠু হবে: ইসি আলমগীর

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৯২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদকগাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনও সুষ্ঠু হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর।

আজ রোববার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন তিনি

আলমগীর বলেন, ‘আমরা বলেছিলাম নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। সামনে আরও চারটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন রয়েছে। সিটি করপোরেশন নির্বাচনসহ আগামী জাতীয় নির্বাচন গাজীপুরের মতো সুষ্ঠু হবে।

বর্তমান কমিশনের অধীনে ‘সব নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে’দাবি করে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন করার মতো আমাদের সক্ষমতা সব সময় ছিল এবং এখনো আছে।

গাজীপুরে ‘সুষ্ঠু নির্বাচন’অনুষ্ঠানের পেছনে বাংলাদেশিদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষিত নতুন ভিসানীতির প্রভাব আছে কি না, জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার আলমগীর বলেন, এই নির্বাচনের সঙ্গে মার্কিনভিসা নীতির সম্পর্ক নেই।

তিনি আরও বলেন, ‘এমনিতেই সব নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে এবং আগামী দিনেও হবে। আমাদের কাজ হলো যেকোনো পরিস্থিতিতে সুষ্ঠু নির্বাচন করা। নির্বাচনের আইন অনুযায়ী সুষ্ঠু নির্বাচন করব আমরা।’

ইভিএমে নেওয়া ভোটের ফলাফল দেরিতে প্রকাশের কারণ ব্যাখ্যা করে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘অনেক প্রার্থী ছিলেন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে। এ জন্যই নির্বাচনে ফলাফল দিতে সময় লেগেছে।


আরও খবর



শুল্ক ফাঁকি দিতে কোড জালিয়াতি পশুখাদ্য বলে খাবার গুড় আমদানি 

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৯৬জন দেখেছেন

Image

আব্দুস সবুর তানোর থেকে:দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে হঠাৎ ভারতীয় গুড় আমদানি বেড়ে গেছে। চলতি অর্থবছরে এ স্থলবন্দর দিয়ে গুড় এসেছে ১৩১ টন। তবে গুরুতর অভিযোগ হলো মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে মানুষের খাওয়ার গুড়কে কাগজেকলমে পশুখাদ্য দেখিয়ে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও কোড জালিয়াতির মাধ্যমেও দেয়া হয়েছে রাজস্ব ফাঁকি। এসব অনিয়মের তীর গোদাগাড়ী উপজেলা পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেল ও তার প্রতিনিধি জুয়েলের বিরুদ্ধে বলেও একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেন।  

 
সংশ্লিষ্টরা এ অভিযোগ অস্বীকার করলেও গুড় আমদানি বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা অবাক কাস্টমস কর্মকর্তারাও। তারা বলছেন, এর আগের বছরগুলোয় এ স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে গুড় আমদানির রেকর্ড নেই। অন্যদিকে গত সপ্তাহে মিথ্যা ঘোষণায় আনা ফেব্রিক্সসহ বিভিন্ন শৌখিন পণ্য ধরা পড়ায় আমদানি কারক এক প্রতিষ্ঠানকে ৪৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।  
 
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে মানুষের খাওয়ার গুড়কে পশুখাদ্য চিটাগুড় হিসাবে দেখিয়ে আমদানি করে রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার বিষয়ে গত বছরের শেষদিকে দুর্নীতি দমন কমিশন থেকে এনবিআর চেয়ারম্যানকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। দুদক কোড জালিয়াতি করে শুল্ক ফাঁকি রোধে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছিল। 
 
ওই চিঠিতে বলা হয়েছিল, আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স এসবি ট্রেডার্স ও মেসার্স ন্যাশনাল কনসালটেন্ট অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন যোগসাজশে মিথ্যা তথ্য ও ঘোষণা দিয়ে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে। দুদক প্রাথমিক অনুসন্ধানেও এমন অভিযোগের সত্যতা পায়।
 
এদিকে সোনামসজিদ কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা ইব্রাহিম হোসেন দাবি করেছেন, ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে লিকুইড গুড় মানুষের খাওয়ার যোগ্য হিসাবে যথাযথ ঘোষণা দিয়ে আমদানি করা হয়। মিথ্যা ঘোষণায় আমদানির বিষয়টি তার জানা নেই। তবে এ ধরনের অভিযোগ ওঠার পর কাস্টমসের পক্ষ থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে গুড়ের নমুনা পাঠানো হয়েছিল। তারা জানিয়েছেন, এগুলো মানুষের খাওয়ার উপযোগী। কিন্তু আমদানিকারক চিটাগুড়ের শুল্ক দিয়েছেন বলে জানা গেছে। যাকে বলে শুভঙ্করের ফাঁকি।  
 
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানকে দেওয়া দুদকের ওই চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, গত বছরের ১৮ জানুয়ারি সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে ২ হাজার ৬১০ কার্টন গুড় আমদানি করে মেসার্স এসবি ট্রেডার্স। যার শুল্কায়ন মূল্য প্রতি টন ৩১০ ডলার। ওই বছরেরই ২১ জানুয়ারি আরেকটি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ২ হাজার ৭৬০ কার্টন গুড় আমদানি করে মেসার্স ন্যাশনাল কনসালটেন্ট অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন। যার শুল্কায়ন মূল্য টনপ্রতি ধরা হয় ২০০ ডলার। তবে যে কোডে শুল্কায়ন করে গুড় খালাস করা হয়, তা পশুখাদ্য চিটাগুড়ের কোড। এত বড় জালিয়াতি হলেও রহস্য জনক ভাবে কর্তৃপক্ষ নিরব ভূমিকায়।  
 
উল্লেখ্য,  চিটাগুড় আমদানিতে টনপ্রতি শুল্ক দিতে হয় ২০০ মার্কিন ডলার। আর মানুষের খাওয়ার গুড় টনপ্রতি শুল্কের পরিমাণ ৪৫০ ডলার। এভাবেই কোড জালিয়াতি করে গুড় আমদানি করার ফলে টনপ্রতি ২৫০ ডলার বা ৩০ হাজার টাকা শুল্ক ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। এ গুড় আমদানির সঙ্গে একটি শক্তিশালী চক্র জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। 
 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আমদানিকারক বলেছেন, গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেল ও তার এক ভাই বিভিন্ন আমদানিকারকের লাইন্সেস ব্যবহার করে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণে বিভিন্ন পণ্য আমদানি করছেন। তারা সোনামসজিদ ছাড়াও বেনাপোল বন্দরও ব্যবহার করেন এবং শুল্ক ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানা ধরনের পণ্য বিশেষ করে কোড জালিয়াতি করে এক পণ্যকে আরেক পণ্য দেখিয়ে আনছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। আবার বেশি পণ্য এনে কম ঘোষণা দিয়েও তারা বিপুল রাজস্ব ফাঁকির সঙ্গে জড়িত। এমনকি ঢাকার ইসলামপুরের বিভিন্ন ব্যবসায়ীর নামেও তারা ফেব্রিক্সসহ বিভিন্ন দামি বস্ত্রসামগ্রী আমদানি করেন। সোহেল-জুয়েল ভাইদের দাপটে অনেকটা অসহায় সাধারণ আমদানিকারকরা। এ চক্রের সঙ্গে শুল্ক বিভাগের কতিপয় কর্মকর্তার রয়েছে অলিখিত গভীর সম্পর্ক। যার কারনে দাপটের সাথে কোড জালিয়াতি করে এধরণের পণ্য আমদানি করে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছেন চক্রটি। 
 
সোনামসজিদ আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ বলেন, এ স্থলবন্দর দিয়ে অনেকেই নামে-বেনামে ব্যবসা করেন বলে জানি। হঠাৎ কেন গুড়ের আমদানি বেড়েছে বোঝা যাচ্ছে না।
 
এদিকে জানা যায়, কয়েকদিন আগে মিথ্যা ঘোষণায় অতিরিক্ত পণ্য আমদানির অভিযোগে পরিমা ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে প্রায় অর্ধকোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে। রাজশাহী বিভাগীয় কাস্টমসের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব হাসান ওই প্রতিষ্ঠানটিকে ৪৫ লাখ টাকা জরিমানা করেন। পণ্যগুলোর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট হিসাবে কাজ করেছে সানিট্রান্স ইন্টারন্যাশনাল। তবে অভিযোগ রয়েছে, গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার ভাই জুয়েল মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার উদ্দেশ্যে অতিরিক্ত পণ্য আমদানি করে আসছেন। কিন্তু ওজন স্কেলে ধরা পড়ায় তারাই তড়িঘড়ি করে জরিমানা পরিশোধ করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেন। চেয়ারম্যান সোহেলের প্রতিনিধি জুয়েল যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তার দাবি, তারা এই চালানের সঙ্গে জড়িত নন।

আরও খবর



নবীনগর ব্রাহ্মণহাতা নারুই গ্রামে অসহায়দের মাঝে মাংস দিলেন রিপন মুন্সি

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫৫জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি:মুসলিম সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা কোরবানির ঈদ , আর এই  ঈদের সবচেয়ে বড় আয়োজন পশুকে ঘিরে। আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় ঈদের দিন নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা তাদের পশু কোরবানি করে আনন্দ উপভোগ করেন , আর এই আনন্দ উপভোগ টাকে প্রতিবেশী ও গ্রামবাসীকে নিয়ে  ই করে আসছেন বিশিষ্ট শিল্পপতী মোঃ রিপন মুন্সী।

তিনি প্রতি বছরের ন্যায় এবারও  ঈদ-উল- আযহা পবিত্র কোরবানী ঈদ উপলক্ষে ৩ হাজার অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে ৮ টি  মহিষ , ৪ টি গরুর সব মাংসসহ ঈদ উপহার সামগ্রী বিলিয়ে দিলেন বাংলাদেশ স্পাইডার গ্রুপের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ও হেলদি এগ্রো এন্ড ফিশারিজ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর বিশিষ্ট শিল্পপতী মোঃ রিপন মুন্সী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর উপজেলার কাইতলা উত্তর ইউনিয়ন ব্রাহ্মণহাতা নারুই গ্রামে তার নিজ বাড়িতে  ৮ টি মহিষ, ৪ টি গরু কোরবানি শেষে প্রতিবেশী ও গ্রামবাসী - সহ অত্র এলাকার ৩ হাজার অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে মাংস ও ঈদ সামগ্রী উপহার হিসেবে ২ কেজি তেল, ও ২ কেজি  পিয়াজ সহ ৫ কেজি করে মাংস বিলিয়ে দিলেন তিনি ৷

ঈদের দিন  সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়এই গ্রামের অসহায় অসচ্ছল কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবারকে নিয়ে কোরবানিমাংস দিয়ে দুপুরের খাবার খাওয়া শেষে সকলের মাঝে ঠান্ডা কোমল পানীয় বিতরণ করেন মাংস বিলিয়ে দিলেন তিনি ৷

এই মাংস ও ঈদ সামগ্রী পেয়ে এলাকার অসহায় মানুষগুলো জানান, কোরবানির মাংসসহ ঈদ উপহার পেয়ে তারা অনেক খুশি। এভাবে অসহায়দের পাশে যেন সারা জীবন শিল্পপতি রিপন মুন্সি  থাকতে পারেন সেই দোয়া করেন তারা।

শিল্পপতি রিপন মুন্সি জানান, অনেক অসহায় মানুষ সারা বছরে একবারও গরুর মাংস কিনে খেতে পারে না। সেদিক বিবেচনা করে গরু কোরবানি করে সেই মাংসসহ ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করছেন। 

ব্রাহ্মণ হাতা নারুই গ্রামের প্রত্যেক ওয়ার্ড  ওয়ার্ডের মেম্বারদের নিকট দায়িত্ব দিয়ে  দেওয়া হয়েছে, এবং প্রায় ১০ বছর ধরে এভাবে দিয়ে যাচ্ছেন এবং এ ধারা অব্যাহত রাখবেন তিনি ।

   -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



অর্থনেতিক সংকটকালে এই বাজেট গণমুখী ও বাস্তবসম্মত: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দাবি করেছেন,২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট গণমুখী ও বাস্তবসম্মত হয়েছে।

শনিবার (৮ জুন) দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, গত ৬ জুন জাতীয় সংসদে শেখ হাসিনা সরকারের অর্থমন্ত্রী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেছেন। অর্থনেতিক সংকটকালে এই বাজেট গণমুখী, বাস্তবসম্মত।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ৪০ শতাংশ লোককে দারিদ্র্যসীমার নিচে রেখে গেছে। শেখ হাসিনা সরকার ১৮ শতাংশে আর অতিদরিদ্র ৬ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। বাংলাদেশে এখন শুধু ডালে ভাতে নয়, পুষ্টি উন্নয়নে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

সিপিডি, সুজন, টিআইবি কী বললো তাতে আমাদের মাথাব্যথা নেই জানিয়ে কাদের বলেন, অনেকের গোপন টাকা আছে। বাজেটের মাধ্যমে ওই কালোটাকা সাদা করার সুযোগ আছে, কিন্তু অন্যায়ের শাস্তি কমানোর সুযোগ নেই। ১৫ শতাংশ কর দিয়ে আমরা তাদের অর্থনীতির মূল ধারায় আনার চেষ্টা করেছি। ‘বাজেটের একটাই চ্যালেঞ্জ, তা বাস্তবায়ন করা। তা বাস্তবায়নে সরকার এরইমধ্যে কাজ শুরু করেছে। ডলার সংকট নিয়ন্ত্রণ, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, সংকট মোকাবিলা করার জন্য আমরা কাজ করছি’, যোগ করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

এসময় বিএনপিকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দুর্নীতিতে তারা পাঁচবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। তারা বলছে, তারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেবেন। যাদের নেতারা দুর্নীতিবাজ তারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেবেন, এটা এই বছরের সেরা জোক।

আওয়ামী লীগের মধ্যে যারা দুর্নীতিবাজ আছেন, তাদের বিরুদ্ধে দল কী ব্যবস্থা নেবে-এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের কাছে তালিকা চাইলেন কাদের। তিনি বলেন, আপনারা আমাদের তালিকা দেন, আমরা তা দুদককে দেব।


আরও খবর



ক্লোরোফর্ম দিয়ে অজ্ঞান করে এমপি আনারকে হত্যা: ডিবি

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৪৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রথমে ক্লোরোফর্ম দিয়ে অজ্ঞান করা হয়,ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারকে কিন্তু জ্ঞান না ফেরায় তাকে হত্যা করে গুম করে হত্যাকারীরা।

শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, এমপি আনারকে হত্যার পরিকল্পনা আগেও হয়েছে। নির্বাচনের আগে এবং জানুয়ারির মাঝামাঝি দেশে তাকে হত্যার পরিকল্পনা হয়। দুবার ব্যর্থ হওয়ার পর তৃতীয় দফায় তাকে হত্যা করতে সক্ষম হয় হত্যাকারীরা।

হত্যাকাণ্ডের মোটিভ কী হতে পারে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ডিবিপ্রধান বলেন, স্পেসিফিক রিজন বলতে পারছি না। অনেক মোটিভ হতে পারে। পূর্বশত্রুতার জেরে হতে পারে, আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত হতে পারে, রাজনীতিক বিষয়ও থাকতে পারে। এসব বিষয় জানতে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, আমরা সবকিছুই বিচার-বিশ্লেষণ করব। আসামিরা অনেক কথাই বলছে, তদন্তের স্বার্থে বলছি না। হত্যাকারীরা অপহরণের পর প্রথমে তাকে ফ্ল্যাটে নেয়। এরপর তার একটি ফোন নিয়ে অন্য জায়গায় চলে যায়। যাতে বোঝা যায় তিনি অন্য জায়গায় ছিলেন। এ ছাড়াও হত্যাকারীরা তাকে হত্যার পর চারটি মোবাইল নিয়ে বেনাপোল সীমান্তে আসে। এরপর তারা হত্যায় আনারের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে তাদের কলও করে।

ভারতে ডিবির টিম যাওয়ার ব্যাপারে ডিবিপ্রধান বলেন, এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। তারা বলেছেন, ডিবির একটি টিম যেন ভারতে যায়। এ জন্য আমাদের জিও হয়েছে। রাতে অথবা আগামীকাল ভোরে ডিবির তিন সদস্যের টিম ভারতের উদ্দেশে রওনা হবে।

হারুন অর রশীদ আরও বলেন, হত্যার তদন্তে আমাদের পাশাপাশি কলকাতার টিমও কাজ করছে। তবে, বাংলাদেশে যারা এসেছেন তাদের কাজ এখনও শেষ হয়নি। তাদের কাজ শেষ হলে আমরা রওনা হব। তারা আজ ৩টার দিকে আবারও ডিবিতে আসবেন। এরপর পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলব, তারপর আমরা যাব। সেটি রাতেও হতে পারে আগামীকাল ভোরের মধ্যেও হতে পারে।


আরও খবর



রাণীশংকৈলে দোকানে বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে আগুন ৪ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৮জন দেখেছেন

Image
আলম রাণীশংকৈল( ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি:ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলায় নেকমরদ বাজার এলাকায় বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে আনুমানিক ৪ লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন ধরনের মালামাল পুড়ে গেছে।

রবিবার (২৩ জুন) সকালে উপজেলার নেকমরদ বাজার এলাকার মেসার্স একতা হার্ডওয়ার এন্ড ভ্যারাইটিস স্টোর এবং পশবর্তী একটি কসমেটিকস দোকানে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার বর্ননা দিয়ে রাণীশংকৈল ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ইনচার্জ নাসিম ইকবাল জানান, বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটিতে আগুন লাগতে পারে। খবর পেয়েই ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে উপজেলার উত্তর বনগাঁও গ্রামের মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে জবাইদুর রহমান (৫৫) এর মেসার্স একতা হার্ডওয়ার এন্ড ভ্যারাইটিস স্টোর এবং নেকমরদের গন্ডগ্রাম, আমপাতারি মৃত নূর মোহাম্মদ (৫০)এর ছেলের নিজাম এর কসমেটিক দোকানের আগুন নেভায়। এতে দোকানে থাকা বিভিন্ন মালামাল পুড়ে যায় এবং প্রায় আনুমানিক ৪ লক্ষাধিক টাকার মত ক্ষতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরও খবর