Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
চার শতাধিক বাড়িতে অভিযান

গাজীপুরে তিতাসের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযান,৪ লক্ষ টাকা জরিমানা

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১২৩জন দেখেছেন
Image

নাজমুল হাসানঃ 

গাজীপুরের কুনিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে  অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। 


শনিবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে গাজীপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থান্ডার কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।


 এসময় অবৈধ গ্যাস সংযোগ, অবৈধ ভাবে বেশি চুলা ব্যবহারের জন্য প্রায় ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া অবৈধ চুলা, বিপুল পরিমাণ পাইপ, রাইজার ও সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।



তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির গাজীপুর জোনের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী  নৃপেন্দ্রনাথ    বিশ্বাস জানান, সিটি কর্পোরেশনের কুনিয়া এলাকায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ রয়েছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় অবৈধ গ্যাস সংযোগ এবং অবৈধ ভাবে অতিরিক্ত চুলা ব্যবহারের দায়ে সাতজনকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। 


এছাড়া অভিযানে বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে  চার শতাধিক বাড়ির ৮শ’ গ্যাসের চুলার সংযোগ বিচ্ছিন্ন সহ বিপুল পরিমাণ পাইপ, রাইজার ও অন্যান্য সরঞ্জাম জব্দ করা হয়েছে। অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



যেদিকে তাকাবেন সেদিকেই উন্নয়ন আর উন্নয়ন: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
Image

শেখ হাসিনার সরকারের যেদিকে তাকাবেন সেদিকেই উন্নয়ন আর উন্নয়ন। পদ্মা সেতু সরকার বিরোধী সব ষড়যন্ত্রের জবাব। মেট্রোরেল, কর্ণফুলী টানেলসহ দেশের নানান প্রান্তে নির্মিত তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো কয়েক বছরের মধ্যেই দেশকে বদলে দেবে।

শনিবার (১৮ জুন) সকালে প্রবীণ প্রকৌশলীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এ মন্তব্য করেন। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশের (আইইবি) উদ্যোগে সংগঠনটির মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশে-বিদেশে সরকারের বিরুদ্ধে নানান ষড়যন্ত্র হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেসব ষড়যন্ত্র সফলতার সঙ্গে মোকাবিলা করেছেন। ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হবে সব ষড়যন্ত্রের মুখ্য জবাব। বাঙালি জাতির অহংকারের মতো আরেকটি বিষয় হলো পদ্মা সেতু। এর মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ও আইইবির সাবেক সভাপতি মো. আবদুস সবুর, আইইবির বর্তমান সভাপতি মো. নূরুল হুদা, সহ-সভাপতি (এইচআরডি) মো. নূরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু) প্রমুখ।

আরও উপস্থিত ছিলেন আইইবির সাবেক সভাপতি ও পদ্মা সেতু তৈরির বিশেষজ্ঞ কারিগরি কমিটির প্রধান অধ্যাপক ড. এম. শামীম-উজ-জামান বসুনিয়া। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আইইবি, ঢাকা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান মোল্লা মোহাম্মদ আবুল হোসেন। সঞ্চালনায় ছিলেন আইইবি, ঢাকা কেন্দ্রের সম্পাদক কাজী খায়রুল বাশার।


আরও খবর



মাধববাটীতে লিচু বিপ্লবের ইতিহাস

প্রকাশিত:Friday ০৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৯৮জন দেখেছেন
Image

গ্রীষ্মের সবচেয়ে লোভনীয় ও স্বল্পমেয়াদী ফল লিচু। লিচুর জন্য দিনাজপুর জেলার বিশেষ সুনাম আছে। দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলার মাধববাটী গ্রামে লিচু চাষের গোড়াপত্তন করেন মৃত আলহাজ শামসুদ্দীন আহমেদ। তারই হাত ধরে বিরল উপজেলা এবং পরে দিনাজপুর জেলায় লিচু চাষের বিপ্লব ঘটেছে বলে জানা যায়।

শামসুদ্দীন আহমেদের ছোট ছেলে আফ্রাহিম বাদশা মানিকের সঙ্গে আমার সখ্য দীর্ঘদিনের। তিনি লিচু বাগান ঘুরতে যাওয়ার অনুরোধ করে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে। তবে আমার সময়-সুযোগ হয়ে ওঠেনি এতদিন। এবার লিচু বাগান ভ্রমণের সেই সুযোগ ধরা দিয়েছে।

দেশের সব ফলের বাজার এরই মধ্যে লিচুর রঙে রঙিন হতে শুরু করেছে। বাগানগুলোর গাছে গাছেও এখন থোকায় থোকায় পাকা লিচু। গাছ থেকে পেড়ে লিচু খাওয়ার ইচ্ছা এবং লিচু চাষের গোড়াপত্তন যে বাগান থেকে; সেই বিরল উপজেলার মাধববাটী গ্রামে যাওয়ার বাসনা থেকে ছুটে গেলাম গ্রীষ্মের তাপদাহ উপেক্ষা করে।

jagonews24

ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে রাতে আন্তঃনগর পঞ্চগড় এক্সপ্রেসে চড়ে ছুটে চললাম দিনাজপুর স্টেশনের দিকে।প্রায় দশ ঘণ্টা যাত্রা শেষে দিনাজপুর রেলওয়ে স্টেশন। সেখান থেকে অটোতে চড়ে বিরল উপজেলার মাধববাটী গ্রামে পৌঁছতে ঘড়ির কাটা সকাল ১০টা ছুঁইছুঁই করছে।

এ জেলার সব স্থানেই লিচু চাষ হয়। রেলওয়ে স্টেশন থেকে তিন-চার কিলোমিটার চলার পর সড়কের দুপাশে লিচুর গাছ চোখে পড়ে। মূল সড়ক ছেড়ে ছোট কোনো পার্শ্বসড়কে ঢুকে পড়লেই পাওয়া যায় পুরোনো গাছের বড় বড় লিচু বাগান। এ ছাড়া বিরল উপজেলায় দেখা যায়, বাড়িতে বাড়িতে লিচু গাছ এবং লিচু পাড়ার ব্যস্ততা। লিচুর বিভিন্ন জাতের মধ্যে মাদ্রাজি ও বোম্বাই জাতের লিচুর চাষ বেশি হয়ে থাকে।

আফ্রাহিম বাদশা মানিকের সঙ্গে তার লিচুর বাগানে ঢুকতেই চোখে পড়লো লিচু পাড়ার কর্মযজ্ঞ। নারী ও পুরুষ শ্রমিকরা চুক্তিভিত্তিক লিচু পেড়ে থাকে। গ্রামের বিভিন্ন বয়সী মানুষের অংশগ্রহণ রয়েছে এ কাজে। অনেকটা উৎসবমুখর পরিবেশে তারা কাজটি করে থাকেন। সরাসরি বাগান থেকে পাইকারি ক্রেতারা লিচু সংগ্রহ করে তা দেশের বিভিন্ন এলাকায় পাঠিয়ে থাকেন।

রসালো লিচু গাছ থেকে নিজ হাতে পেড়ে খাওয়ার মজাই একটু আলাদা। লিচু খেতে খেতে কথা হলো বাগানের মালিক আফ্রাহিম বাদশা মানিকের সঙ্গে। তিনি জানালেন, তার বাবা আলহাজ শামসুদ্দীন আহমেদ যখন লিচু চাষ শুরু করেন; তখন অনেকে বিষয়টিকে উদ্ভট আচরণ হিসেবে দেখেছেন। কেননা ধানের জমিতে লিচু চারা রোপণ বিষয়টি স্বাভাবিক বিষয় হিসেবে নিতে পারেননি এলাকার মানুষ।

jagonews24

তবে তার বাবার লিচু চাষের সফলতা একসময় অন্যদের উদ্বুদ্ধ করেছে। তিনি বিরল উপজেলাসহ দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলায় পরামর্শ এবং লিচু চারা দিয়ে মানুষকে সহযোগিতা এবং উদ্বুদ্ধ করেন। স্থানীয় জনগণের সঙ্গে আলাপকালেও তার বাবার লিচু বিপ্লবের বিষয়টি ফুটে ওঠে।

দিনাজপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দিনাজপুর জেলায় ৫ হাজার ৪৮১ হেক্টর জমিতে লিচু বাগান রয়েছে সাড়ে ৫ হাজার ৪১৮টি। এর মধ্যে বোম্বাই লিচু ৩ হাজার ১৭০ হেক্টর জমিতে, মাদ্রাজি ১ হাজার ১৬৬ হেক্টর, চায়না থ্রি ৭০২ দশমিক ৫ হেক্টর, বেদানা ২৯৪ দশমিক ৫ হেক্টর, কাঁঠালি ২১ হেক্টর এবং মোজাফফরপুরী লিচু ১ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। বসতবাড়ির উঠানসহ বাগানগুলোয় লিচু গাছ আছে সাত লক্ষাধিক। যা দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

আফ্রাহিম বাদশা মানিকের সঙ্গে আলাপে উঠে আসে লিচুচাষিদের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। লিচু চাষে আধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয় প্রয়োজন। একইসঙ্গে সরকার হিমাগার তৈরি করলে লিচু সংরক্ষণে চাষিদের সুবিধা হয়। লিচুচাষিদের সহজ শর্তে লোনের ব্যবস্থার পাশাপাশি এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হলে কৃষকদের অর্থনৈতিক সংকট যেমন কমে আসবে, একইসঙ্গে সহজ হবে লিচু বাজারজাতকরণ।

লিচুর বাগানে মধ্যদুপুরে সূর্যের উত্তাপ যেমন আছে, একইসঙ্গে আছে শতাধিক শ্রমিকের লিচু সংগ্রহের কর্মব্যস্ততা। তাদের সাথে লিচু সংগ্রহ এবং লিচুর রসালো স্বাদ উপভোগ করতে করতে সময় কেটে অপরাহ্ন। দিনব্যাপী লিচু বাগানের কর্মব্যস্ততা এবং লিচুর স্বাদ গ্রহণে নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চার হলো লিচুর রাজ্য দিনাজপুরের মাধববাটীতে।


আরও খবর



পদ্মা ব্যাংক সিকিউরিটিজে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার পদে চাকরি

প্রকাশিত:Saturday ০৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৭৭জন দেখেছেন
Image

পদ্মা ব্যাংক সিকিউরিটিজ লিমিটেডে ‘ব্রাঞ্চ ম্যানেজার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: পদ্মা ব্যাংক সিকিউরিটিজ লিমিটেড

পদের নাম: ব্রাঞ্চ ম্যানেজার
পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা: ফিন্যান্স, অ্যাকাউন্টিং, মার্কেটিং/সমমানের স্নাতক/স্নাতকোত্তর
অভিজ্ঞতা: ০৮-১২ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ১৫ জুন ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



চালকের চোখে লেজার লাইট ফেলে মহাসড়কে ডাকাতি করতেন তারা

প্রকাশিত:Saturday ০৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৯০জন দেখেছেন
Image

মহাসড়কে ডাকাতির করতে একটি ডাকাত চক্রের সদস্যরা অন্ধকার রাস্তায় ওঁৎ পেতে থাকতো। পূর্ব পরিকল্পিত নির্ধারিত স্থানের নিকটবর্তী স্টেশনে ডাকাত দলের সদস্য টার্গেট বাস, ট্রাক ও মাইক্রোবাস সম্পর্কে সংকেত দিতো। সংকেত পাওয়া মাত্রই দ্রুত গাছ কেটে রাস্তায় ফেলা হতো। অন্যদিকে ডাকাত দলের অপর সদস্যরা বাস, ট্রাক ও মাইক্রোবাসের চালক ও যাত্রীদের অস্ত্র প্রদর্শন করে ভয়ভীতি দেখিয়ে সর্বস্ব লুটে নিয়ে পালিয়ে যেতো। যেখানে গাছ কাটার সুযোগ থাকতো না সেখানে তারা চালকের চোখে লেজার লাইটের তীব্র আলো ফেলে গাড়ি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডাকাতি করতো।

এমন অভিযোগে শুক্রবার (৩ জন) দিবাগত রাতে ঢাকার সাভার থানাধীন বালিয়ারপুর মহাসড়কে ডাকাতি প্রস্তুতিকালীন সময়ে দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত চক্র ‘ঠান্ডা-শামীম বাহিনী’র ডাকাত সর্দারসহ ১১ জনকে দেশি ও বিদেশি অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

গ্রেফতাররা হলেন- ‘ঠান্ডা-শামীম বাহিনী’র মূলহোতা মো. শামিম ওরফে সব্দুল (৩০), মো. আনিসুর রহমান ওরফে ঠান্ডা (৪৫), মো. সালাউদ্দিন (২৩), মো. ইখতিয়ার উদ্দিন (৩১), মো. সাইফুল ইসলাম (৩৫), মো. জাহাঙ্গীর সরকার (৪০), মো. সজিব ইসলাম (২৫), মো. জীবন সরকার (৩৪), শ্রী স্বপন চন্দ্র রায় (২১), মো. মিনহাজুর ইসলাম (২০) ও শ্রী মাধব চন্দ্র সরকার (২৬)।

এসময় তাদের কাছ থেকে বিদেশি পিস্তল একটি, পাইপগান একটি, ওয়ান শুটারগান দুটি, গুলি ছয় রাউন্ড, ম্যাগাজিন একটি, শাবল একটি, রশি তিনটি, লোহার রড একটি, চাপাতি একটি, রামদা দুটি, চাইনিজ কুড়াল একটি, হাউজ কাটার একটি, ছুরি দুটি, টর্চ লাইট দুটি, ব্যাগ ১১টি, হ্যাক্সো ব্লেড দুটি, দা একটি, লেজার লাইট দুটি, দেশি কুড়াল একটি ও একটি হাতুড়ি উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (৪ জুন) দুপুরে কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানা র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

বিস্তারিত আসছে...


আরও খবর



পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফ কি মারা গেছেন?

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
Image

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফের বেঁচে থাকা না থাকা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। শুক্রবার (৯ জুন) নাম অনুল্লেখিত পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যমের সূত্রে ভারতের বেশ কিছু গণমাধ্যমে মোশাররফের মৃত্যুর খবর প্রকাশ হয়েছে। বলা হচ্ছে, দুবাইয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন পাকিস্তানের সাবেক সামরিক শাসক।

তবে পাকিস্তানের কোনো সুপরিচিত গণমাধ্যমে পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। জিও টিভি এক প্রতিবেদনে সাবেক সেনাপ্রধানকে ভেন্টিলেটরে রাখার খবর জানিয়েছিল। কিন্তু সেই প্রতিবেদনও পরে মুছে ফেলা হয়েছে।

২০১৬ সাল থেকেই সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থান করছেন ৭৮ বছর বয়সী এ নেতা। সেখানকার কোনো সংবাদমাধ্যমেও এখন পর্যন্ত তার মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

২০০৭ সালে প্রেসিডেন্ট থাকার সময় বেআইনিভাবে সংবিধান বাতিল ও জরুরি অবস্থা জারির দায়ে ২০১৩ সালে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়। ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ মোশাররফকে অভিযুক্ত করা হয়। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে বিশেষ আদালতের কাছে বিচারের জন্য সব তথ্যপ্রমাণ পেশ করা হয়। তবে আপিল ফোরামে মামলাটি তোলার পর বিচারকাজ দীর্ঘায়িত হয়ে পড়ে এবং মোশাররফ ২০১৬ সালের মার্চ মাসে পাকিস্তান ছেড়ে চলে যান। চিকিৎসার জন্য তাকে দেশত্যাগের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

তবে দুবাইয়ে যাওয়ার পর থেকে তিনি আর স্বদেশে ফেরেননি। তার কয়েক মাস পরেই পাকিস্তানের একটি বিশেষ আদালত তাকে অপরাধী ঘোষণা করে। বারবার আদালতে হাজির না হওয়ায় পাকিস্তানে থাকা তার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন আদালত। বাতিল হয় তার পাসপোর্ট এবং পরিচয়পত্রও।

রাষ্ট্রদোহের ওই মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে ২০১৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর ইসলামাবাদের বিশেষ আদালত পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। পাকিস্তানের ইতিহাসে এ ধরনের রায়ের ঘটনা ছিল এটিই প্রথম।

তবে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে পাকিস্তানের সাবেক সামরিক শাসকের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করেন দেশটির একটি আদালত। যে প্রক্রিয়ায় পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছিল, তাকে অসাংবিধানিক উল্লেখ দিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়।

নওয়াজ শরিফকে হটিয়ে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ১৯৯৯ সালে ক্ষমতা দখল করেন পারভেজ মোশাররফ। ২০০১ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। ২০০৭ সালের নভেম্বরে তিনি পাকিস্তানের সংবিধান বাতিল করে জরুরি অবস্থা জারি করেন। এর বিরুদ্ধে ওই সময় ব্যাপক বিক্ষোভ হয়। অভিশংসনের ঝুঁকি এড়াতে তিনি ২০০৮ সালে পদত্যাগ করেন।


আরও খবর