Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ফখরুল-আব্বাসসহ বিএনপির ২২৪ নেতাকর্মী জামিন পেলেন না

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৮৫জন দেখেছেন

Image

আদালত প্রতিবেদক; বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসসহ ২২৪ নেতাকর্মীর জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফিউদ্দিন শুনানি শেষে তাদের জামিন নামঞ্জুর করেন।

জামিন নামঞ্জুর হওয়া উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন- ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক মো. আব্দুস ছালাম,বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, সাবেক এমপি মো. ফজলুল হক মিলন, যুগ্ম মহাসচিব খাইরুল কবির খোকন ও সাবেক এমপি সেলিম রেজা হাবিব।

গতকাল রোববার তাদের আইনজীবী ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) রেজাউল করিমের আদালতে জামিন আবেদন করেন। আদালত শুনানির জন্য সোমবার দিন ধার্য করেন।

মির্জা ফখরুলের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ জামিন আবেদন করেন। তাকে সহযোগিতা করেন জাকির হোসেন জুয়েল, শেখ শাকিল আহম্মেদ রিপন। এছাড়া মির্জা আব্বাসের জামিনের আবেদন করেন মহিউদ্দিন চৌধুরী।

এর আগে গত শুক্রবার মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও মির্জা আব্বাসকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক তরিকুল ইসলাম। অপরদিকে, আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জামিন আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম জামিন আবেদন নানামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগেরদিন মির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাসকে গ্রেপ্তার দেখায় ডিবি। এ বিষয়ে ডিবি প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও মির্জা আব্বাসকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ৭ ডিসেম্বরের ঘটনায় তাদের নির্দেশদাতা হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এদিকে ৭ ডিসেম্বর বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের ঘটনায় ৪৭৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় দেড় থেকে দুই হাজার বিএনপি নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলা করা হয়। রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় পুলিশ বাদী হয়ে এ মামলা করে।


আরও খবর



সুন্দরগঞ্জে বয়স্কভাতা ভুগিদের টাকা চুরি,প্রতিকারের দাবিতে অবস্হান

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৮জন দেখেছেন

Image

সুন্দরগঞ্জ( গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃসুন্দরগঞ্জ উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নে সমাজসেবা অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রনাধীন সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির আওতায় বয়স্ক,-বিধুবা,-প্রতিবন্ধি ভাতা-ভূগিদের ভাতার টাকা  একাউন্টে ঢোকার সাথে সাথেই ভাতার টাকা অভিনব কায়দায় চুরি হচ্ছে। ফলে সরকার যে উদ্দ্যেশে গরীব--অসহায়,,ভূখা-দের সাহায্যকরছে, সে উদ্দেশ্য ব্যাহত হয়ে টাকা যাচ্ছে মোবাইল হ্যাকারদের পকেটে। এব্যাপারে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার মোঃ রফিকুজ্জামান খাঁন বলেন,, ভাতা-ভূগিদের টাকার ব্যাপারে আমাদের করার কিছুই নেই।তিনি বলেন,,ভাতা-ভূগিদের সব বিষয় ট্যেককেয়ার করেন সমাজ সেবা অধিদপ্তর,বাংলাদেশ ব্যাংক,ও নগদ মোবাইল ব্যাংকিং কতৃপক্ষ।সচেতন মহলের অভিযোগ,নগদ কোম্পানির লোকজনই হ্যাকারের কাছ করে টাকাগুলো তুলে নিচ্ছে।তা ছারা যখনই টাকা ঢুকছে তখনই কিংবা টাকা মোবাইলে ঢুকার পূর্বমহুর্তে ফোন করেই টাকা দিয়ে তুলে নিচ্ছেন।তাই ভাতা প্রদান পদ্ধতি পরিবর্তন করে পূবের ন্যায় ব্যাংকিং পদ্ধতিতে টাকা প্রদান করার জোর দাবি জানান।গাইবান্ধা জেলা পরিষদ সদস্য এমদাদুল হক নাদীম বলেন,,ভাতা-চোর মোবাইল হ্যাকারদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবি করেন।ভাতা-ভূগি  তারাপুর ইউনিয়নের খোদ্দাগ্রামের,,ইসমাঈল হোঃ,(৮৫) নিজাম খাঁ গ্রামের ইসলাম উদ্দিন(৯২) বিধুবা ভাতা ভূগি,ঘঘোয়া গ্রামের গুলজান বেওয়া(৭৭),তারাপুর গ্রামের রেজিয়া বেওয়(৮৭)তাদের ভাতার টাকা ফেরতের দাবীতে  উপজেলা নির্বাহী অফিসের গেটে অবস্হান কর্মসুচী পালন করেন।


আরও খবর



ভারত থেকে রোজার আগেই চিনি-পেঁয়াজ আমদানি করা হবে: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ভারত থেকে রোজার আগেই দেড় লাখ টন চিনি-পেঁয়াজ আমদানি করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম।

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ কক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন তিনি।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে দেশের মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে জার্মানিতে অবস্থান করছেন। এ কারণে মিটিংয়ের তারিখ পিছিয়ে গেছে। তবে সেটি এই সপ্তাহের মধ্যেই চূড়ান্ত হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আসন্ন রমজান মাসে কোনো পণ্যেরই ঘাটতি হবে না। রোজার আগেই ভারত থেকে এক লাখ টন পরিশোধিত চিনি ও ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ আনা হবে। আগামী মঙ্গলবার তেল ও চিনির দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশে বিচারাধীন মাদক মামলা ৮২ হাজারের বেশি

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন দেশের আদালতগুলোতে বর্তমানে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের দায়েন করা মাদক সংক্রান্ত বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৮২ হাজার ৫০৭টি বলে। তবে গত ৫ বছরে এ সংক্রান্ত ১০ হাজার ২৫৯টি মামলা নিষ্পন্ন হয়েছে বলেও তিনি জানান।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদ অধিবেশনে স্বতন্ত্র সদস্য মুহাম্মদ সাইফুল ইসলামের এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে এ তথ্য জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ সময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন বিচারিক আদালতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মাদক সংক্রান্ত বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৮২ হাজার ৫০৭টি।

তিনি জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ (সংশোধিত-২০২০) অনুসারে মাদকসহ আটক হওয়ার তারিখ থেকে ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে মামলার তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করার বিধান রয়েছে।

যার আলোকে অধিদপ্তরের দায়ের করা মামলাগুলোর তদন্ত নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করে বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জিরো টলারেন্স বাস্তবায়নে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরসহ সকল আইন-প্রয়োগকারী সংস্থাসমূহ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বিগত ৫ বছরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের দায়ের করা মামলার মধ্যে ১০ হাজার ২৫৯টি মামলা বিচারিক আদালতে নিষ্পন্ন হয়েছে।

তিনি আরও জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ (সংশোধিত-২০২০) এর আলোকে মহানগর দায়রা জজ, দায়রা জজ, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের এখতিয়ারাধীন এলাকার জন্য এক বা একাধিক এখতিয়ার সম্পন্ন আদালত নির্দিষ্ট করার বিধান রাখা হয়। এ বিধানের আলোকেই বর্তমানে মাদক মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলমান রয়েছে।


আরও খবর



মাগুরা হাসপাতালের লাশঘর থেকে মৃত বধুর গহনা চুরির অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরায় সদর হাসপাতালের অস্থায়ী লাশ ঘরে থাকা নববধূর গলা থেকে গহনা চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে।নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে অভিযোগ জানানো হলেও  চুরির কোনো কূলকিনারা এখনও হয়নি।

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার কাদিরপাড়া ইউনিয়নের সোনাতুন্দি গ্রামের রিয়াজুল ইসলাম জানান, তার মেয়ে বৃষ্টি (১৯) জেলার শ্রীপুর উপজেলার দারিয়াপুর ডিগ্রি কলেজে পড়াশোনা করছে। গত বছরের মার্চ মাসে মাগুরার সদর উপজেলার কুচিয়ামোড়া ইউনিয়নের চাপড়া গ্রামের কসমেটিক ব্যবসায়ী সাদাত রহমান সর্বুর সঙ্গে মেয়ের বিয়ে হয়। লেখাপড়ার পাশাপাশি মেয়ে খুশি মনে সংসার করছিল; কিন্তু রাতে খবর পাই তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে শ্বশুরবাড়ির একটি ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে বৃষ্টি আত্মহত্যা করেছে। 

খবর পেয়ে আমরা হাসপাতালে গেলে বৃষ্টির নাক, কান এবং গলায় স্বর্ণের গহনা দেখতে পাই। পুলিশ রাতেই সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে লাশ হাসপাতালের নীচতলায় অস্থায়ী লাশঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে।

তিনি জানান, বুধবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য বের করার সময় গলায় থাকা স্বর্ণের গহনা দেখতে না পেয়ে পুলিশকে জানানো হয়। তারা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে গহনা উদ্ধারের চেষ্টা করবে বললেও তারা আমাদের আর কিছুই জানায়নি।

মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার বিকাশ কুমার শিকদার বলেন, হাসপাতালে কোনো রোগীর মৃত্যু হলে তাৎক্ষণিকভাবে যেখানে রাখা হয় সেই ঘরটির তালা চাবি নিয়ন্ত্রণ করে হাসপাতালের পুলিশ ব্যারাকের সদস্যরা। 

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বৃষ্টি (১৯) নামের মেয়েটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক এহসানুল হক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে ব্যারাকের পুলিশ সদস্যরাই মরদেহটি লাশঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন। কিন্তু সেখান থেকে কিভাবে গহনা হারিয়ে গেছে সেটি আমাদের জানার বিষয় নয়।

হাসপাতালের পুলিশ ব্যারাকের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা এ বিষয়ে কিছু বলতে রাজি হননি। তবে মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদী রাসেল বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে গহনা চুরির বিষয়টি জানানো হলেও এ বিষয়ে লিখিত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। রাতে সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করার সময় সেখানে নিহতের পরিবারের অনেক সদস্য উপস্থিত ছিলেন।কখন কিভাবে স্বর্ণের গহনাটি খোয়া গেছে সেটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

আরও খবর



বিকেলে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেওয়া হবে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১০৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জরুরি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৪টায় গুলশানের বাসা ফিরোজা থেকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতাল নেওয়া হবে তাকে।বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ম্যাডামের ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন এবং চেয়ারপার্সনের একান্ত সচিব এ বি এম আব্দুস সাত্তার জানিয়েছেন, জরুরি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ম্যাডামকে বিকেলে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতাল নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ৭৯ বছর বয়সী খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি, লিভার সিরোসিসসহ নানা রোগে ভুগছেন। এর মধ্যে বিদেশ থেকে তিনজন চিকিৎসক তার চিকিৎসা করে গেছেন। তখন থেকে কিছুটা ভালো আছেন খালেদা জিয়া। তার আগে ২০২২ সালের জুনে খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে তিনটি ব্লক ধরা পড়লে একটিতে রিং পরানো হয়। এরপর থেকে কয়েক দফায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী।


আরও খবর