Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

ফেন্সিডিলসহ ২ যুবক আটক হোমনায়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২3 | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ২৫৬জন দেখেছেন

Image

মোর্শেদুল ইসলাম শাজু, হোমনা : কুমিল্লার হোমনায় পঞ্চান্ন বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই যুবককে আটক করে জেলে পাঠিয়েছে পুলিশ। এসময় তাদের ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কার (ঢাকা-মেট্রো-গ-৪৯-২২৯২) জব্দ করা হয়। আটকরা হলেন- মুরাদনগর উপজেলার চাপিতলা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের মো. রুপ মিয়ার ছেলে মো. রুবেল (৩৬) ও নোয়াখালী জেলার সুধরাম উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের (দেওয়ান বাড়ি) আব্দুল খালেকের ছেলে মো. রাজু (২২)। বুধবার উপজেলার কাঠালিয়া ব্রীজের পূর্ব পাশে জয়দেবপুর মাথাভাঙ্গা সাদ্দাম মার্কেটর সামনের সড়কে পুলিশের বিশেষ অভিযানে তাদের আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার মাথাভাঙা এলাকা থেকে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মহিলাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

হোমনায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, গ্রেফতারী পরোয়ানা তামিল ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযান পরিচালনাকালে ৫৫ বোতল ফেন্সিডিলসহ তাদের আটক ও একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়। ফেন্সিডিলগুলো তারা বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিয়ে যা”িছল। তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করে বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠানো হয়েছে। আজও (বৃহস্পতিবার) অভিযান চালিয়ে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  




আরও খবর



দেশ ও জাতির কল্যাণে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: এমপি সুমন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:নওগাঁ-৬ (আত্রাই- রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য জেলা তথ্য ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. ওমর ফারুক সমুন বলেছেন, সাংবাদিকরা হলেন জাতির বিবেক, সমাজের দর্পণ। সাংবাদিকরা সমাজের সব অনাচার, অনিয়ম, অভাব, অভিযোগ, উন্নয়ন ও সম্ভাবনা তুলে ধরার মাধ্যমে দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করে এগিয়ে নিতে সাহায্য করেন। দেশ ও জাতির কল্যাণে সাংবাদিকদের ভ’মিকা গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সেই সাংবাদিকতাই দেখতে চাই।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আত্রাই প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক কর্তৃক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, সাংবাদিকরা সমাজের আয়না হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন। সমাজ থেকে অনিয়ম দুর করে দেশকে উন্নত দেশের কাতারে নিয়ে যেতে সাংবাদিকদের কাছে তথ্য এড়িয়ে যাওয়া বা সাংবাদিকদের তথ্য প্রদানে অসহযোগিতা করার কোনো অবকাশ নাই। দেশ ও সমাজ থেকে সব ধরনের অপকর্ম, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ, সন্ত্রাস দমন, সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের ভূমিকার ভূয়সী প্রসংশা করেন। পাশাপাশি সাধারণ জনগণ যাতে অপসাংবাদিকতার স্বীকার না হন, সেদিকে লক্ষ্য রেখে সততার সাথে সাংবাদিকদের কাজ করে যাবার আহবান জানান।

আত্রাই প্রেস ক্লাব সভাপতি তপন কুমারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আবু হেনা মোস্তফা কামালের পরিচালনায় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের নব-নির্বাচিত সংসদ সদস্য জেলা তথ্য ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. ওমর ফারুক সমুন অনুষ্ঠানে প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি রুহুল আমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল হক নাহিদ, সাংবাদিক নাজমুল হোসাইন সেন্টু,অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান রিজভি, ফিরোজ হোসেন, এমরান মাহমুদ প্রত্যয়,খালেক হাসান, হারুন অর রশিদ, রফিকুজ্জামান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



প্রথমবারের মতো রঙিন ফুলকপি চাষ করে সফল হয়েছে কৃষক গোলাম মোস্তফা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৮জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি;প্রথমবারের মতো দিনাজপুরের সীমান্তবর্তী হাকিমপুর উপজেলায় রঙিন ফুলকপি চাষ করে সাড়া ফেলেছেন গোলম মোস্তফা নামের এক কৃষক। কম খরচে অধিক লাভ ও পুষ্টিগুন সম্পন্ন হওয়ায় আগ্রহ দেখাচ্ছে অন্যান্য কৃষকেরাও। কৃষি বিভাগ বলছেন, পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ নতুন জাতের এ ফুলকপির আবাদ বাড়াতে সবধরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আগামীতে ব্যপক হারে এই বেগুনি রঙিন কপির আবাদ ছড়িয়ে দিতে মাঠ প্রদর্শণীসহ নানা ভাবে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলা কৃষি বিভাগ।

দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার খট্রামাধবপাড়া ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামে উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে ২০ শতক জমিতে রঙিন প্রজাতির ফুলকপি ভ্যালেনটিনা চাষে আগ্রহ প্রকাশ করেন উপজেলার কৃষক গোলাম মোস্তফা। এরপর থেকেই একজন কৃষি ইউনিয়ন ব্লক সুপার ভাইজারের সার্বক্ষণিক তত্বাবধানে তিনি এই রঙিন ফুলকপির চাষাবাদ করেন। নতুন জাতের এই দৃষ্টিনন্দন ফুলকপি দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন স্থানীয়রা। নতুন জাতের এই ফুলকপি আবাদ করে ভাগ্য বদলের স্বপ্ন দেখছেন তারা। এ ফুলকপি বাজারজাত শুরু হওয়ার পর থেকেই অনেকে আসছেন কিনতে। সেই সাথে এই ফুলকপিতে

এন্টিঅক্সিডেন্টের উপস্থিতি বেশি পরিমাণে থাকায় ক্যান্সার বিরোধী। তাই এ সবজির আবাদ বাড়াতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সচেতনাতার পাশাপাশি দিয়ে যাচ্ছেন প্রণোদণা। আগামীতে একটি পৌরসভা ও তিনটি ইউনিয়নে এই রঙিন ফুলকপি চাষাবাদ বৃদ্ধি করার লক্ষে উপজেলা কৃষি অফিসা সবধরণের সহযোগিতা দিয়ে যাবে। রঙিন ফুলকপি চাষী গোলাম মোস্তফা বলেন,উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্য বীজ সার দিয়েছে। ২০ শতক জমিতে প্রতি পিস ফুলকপি উৎপাদনে খরচে হয়েছে ১০ টাকা। এখন বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে।

হাকিমপুর উপজেলা নিবার্হী অফিসার অমিত রায় বলেন,এ উপজেলায় প্রদর্শণী খামারের মাধ্যমে প্রথম বারের মতো রঙিন ফুলকপি চাষ করা হচ্ছে। রঙিন হওয়ায় বাজারে এর দামও যেমন রয়েছে। বাজারে এর চাহিদায়ও বেশি। এ উপজেলায় রঙিন ফুলকপি চাষ বৃদ্ধি ও কৃষকদের উৎসাহীৎ করার লক্ষে উপজেলা প্রশাসন থেকে কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে।

হাকিমপুর উপজেলা কৃষি অফিসার আরজেনা বেগম বলেন,দিনাজপুর অঞ্চলে টেকসই কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রথম বারের মতো হাকিমপুর উপজেলার খট্টামাধবপাড়া এলাকার বলরামপুর গ্রামে বেগুনি রঙিন ফুলকপির একটি প্রদর্শনী স্থাপন করা হয়েছে।এই ফুলকপিতে এন্টিঅক্সিডেন্টের উপস্থিতি বেশি পরিমাণে থাকায় ক্যান্সার বিরোধী।

অত্যন্ত পুষ্টি সমৃদ্ধ, রঙিন বিদেশি সবজি,বাজারে এর চাহিদা বেশি। চাষাবাদে কম পরিমাণ কীটনাশক প্রয়োগ করা হয়। এই ফুলকপির আবাদ সম্প্রসারণ করা গেলে কৃষকরা লাভবান হবে। সাধারণ ভোক্তার নিটক পুষ্টি পুষ্টি সমৃদ্ধ সবজি সহজলভ্য হবে ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।


আরও খবর



সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণে সাংবাদিকদের দাবির সাথে সরকার একমত: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮১জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ  রিপোর্টার : সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণে সাংবাদিকদের দাবির সাথে সরকার একমত বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।
 
বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে বিসিএস প্রশাসন একাডেমি মিলনায়তনে 'স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে গণমাধ্যমের ভূমিকা' শীর্ষক কর্মশালার প্যানেল আলোচনা পর্বে অংশ নিয়ে প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

বিসিএস প্রশাসন একাডেমির সহযোগিতায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ কর্মশালা আয়োজন করে। বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের সদস্যগণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার প্যানেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। প্যানেল আলোচনা পর্বে মডারেটর ছিলেন বিসিএস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর (সচিব) ড. মো. ওমর ফারুক।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, সাংবাদিকদের দাবি অনুযায়ী সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণের কিছু একটা থাকা দরকার।  সরকার যখনই এটা বলবে তখনই বলা হবে সরকার নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। এজন্য এ বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদেরই আওয়াজ তুলতে হবে। দেশে ও বিদেশের সব জায়গায় এ বিষয়ে লিখতে হবে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে আপনাদের এ বক্তব্য তুলে ধরতে হবে যে এটা আপনারাই চান। সরকার সাংবাদিকদের দাবির সাথে একমত। সরকারের এ বিষয়ে কোনো অসুবিধা নেই। সরকার বিষয়টির সমাধান করবে।

তিনি এ সময় আরও জানান, সকল পেশাদার সাংবাদিকদের দাবি, সাংবাদিকদের একটা সংজ্ঞা নির্ধারণ করা হোক, একটা পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকুক, একটা সংজ্ঞায়ন থাকুক কে সাংবাদিক, কে সাংবাদিক না। সাংবাদিকরাই বলছেন সাংবাদিকদের তালিকা থাকা উচিত। কেন বলছেন, কারণ অনেক অপেশাদার ঢুকে পড়েছে এ কমিউনিটিতে। যার দ্বারা সাংবাদিকরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। কিন্তু যখনই সরকার বলবে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে, তখন আবার আরেক গোষ্ঠী বলে তালিকা কেন তৈরি হবে সাংবাদিকদের। 

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, অপতথ্যের বিপক্ষে তথ্যের লড়াইটা খুব জরুরি। তথ্য এবং অপতথ্যের লড়াই এখনও চলছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অপতথ্য রোধে সাংবাদিকদের ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে।

তিনি যোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের শক্তি বিভিন্ন সময়ে আক্রান্ত হয়েছে অপপ্রচার ও মিথ্যাচার দ্বারা। যেখানে সত্য থেমে যায়, সেখানে অসত্য ও মিথ্যাচার জায়গা করে নেয়। 

সাইবার নিরাপত্তা আইন প্রসঙ্গে এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুধু সাইবার নিরাপত্তা আইনই নয়, যে কোন আইনের অপব্যবহারের বিপক্ষে সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের দাঁড়াতে হবে। সরকার মোটেও চায় না কোন আইনের অপব্যবহারের মাধ্যমে নির্দোষ ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হোক।

আরও খবর



সাবেক সংসদ সদস্য শামসুল হক ভূঁইয়া আর নেই

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৭টা ৫৬ মিনিটে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়, চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ড. মুহাম্মদ শামসুল হক ভূঁইয়া মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

তিনি স্ত্রী বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. আনোয়ারা হক, এক ছেলে ও একমেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন এবং রাজনৈতিক সহযোদ্ধা ও শুভাকাঙ্ক্ষী রেখে গেছেন।

ড. মুহাম্মদ শামসুল হক ভূঁইয়া ১৯৪৮ সালের ১ জুলাই চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার রুপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের কাউনিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পড়াশোনা শেষে তিনি প্রকৌশলী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। রাজনৈতিক জীবনে তিনি ২০০৫ সালে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মনোনীত হয়ে এক যুগ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বঙ্গবন্ধু সমাজকল্যাণ পরিষদের প্রতিষ্ঠিাতা ও সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। একই সময়ে তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ২০১৪ সালে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চাঁদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০২৪ সালের নির্বাচনে চাঁদপুর-৩ এবং চাঁদপুর-৪ আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়ে দেশব্যাপী ব্যাপকভাবে আলোচিত হন শামসুল হক ভূঁইয়া।

ড. মুহাম্মদ শামসুল হক ভূঁইয়া স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান কাউনিয়া শহীদ হাবিব উল্যা উচ্চ বিদ্যালয় এবং উপজেলার একমাত্র অনার্স কলেজ গৃদকালিন্দিয়া হাজেরা হাসমত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের প্রতিষ্ঠাতা।


আরও খবর



রৌমারী-রাজিবপুরে ফসল উৎপাদন করে স্বাবলম্বী চরাঞ্চলের কৃষকরা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের রৌমারী- চর রাজিবপুরের চরাঞ্চলে ১২ মিশালী ফসল উৎপাদনে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। রৌমারী সাধারণত নদ-নদী খাল বিল হাওর বাওরে পরিপুর্ণ। উপজেলার পশ্চিম অংশে বন্দবেড় ইউনিয়ন ও যাদুরচর ইউনিয়নের ব্র্ধসঢ়;ক্ষপুত্র নদের ভাঙ্গনের তান্ডবে একূল ভেঙ্গে ওকুল গড়া চরে কৃষক মেতেছে নানা জাতের ফসল চাষে। প্রতি বছর বন্যায় নদীর বুকে জেগে উঠা চর কোথাও বালির স্তুপ, আবার কোথাও জেগে উঠা চরে পলি মাটির স্থর কৃষককে হাত ছানি দেয় ফসল ফলাতে।

চরের বুকে বসবাসরত কৃষক বেচেঁ থাকার তাগিদে রবিশস্য উৎপাদনে মনোনিবেশ করেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, চরের বুক জুড়ে স্থরে স্থরে সরিষা, ভূট্রা, গম, বাদাম, তিষি, মিষ্টি আলু, মশুর ডাল, মুগডাল, মাসকলাই, খেসারী কলাই, পিয়াজ, রসুন, মরিচ, ধনিয়া, বেগুনসহ নানা ধরনের ফসল চাষ করছে। এঅঞ্চলের মানুষের তরকারীর চাহিদা অনেকটা চরের মানুষের উৎপাদিত ফসল থেকে চাহিদা পূরণ হয়ে থাকে। সময়ের সাথে সাথে ফসল উৎপাদনে অনেকটা পরিবর্তণ দেখা দিয়েছে।

একসময় রৌমারীর গোটা এলাকা জুড়ে একই ধরনের ফসল উৎপাদন হতো। কিন্ত আধুনিকতার ছোওয়ায় বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে উন্নত জাতের স্বল্প সময়ে উচ্চ ফলনশীল জাতের নানা জাতের নানা নামীয় ইড়ি-বোর ধানের চাষ শুরু হয়েছে। যারফলে মাটির প্রকার ভেদে কাদা ও দোআশঁ মাটিতে ইড়ি-বোর ও চরাঞ্চলীয় বালি মাটিতে রবিশশ্য চাষ হচ্ছে।

এবিষয়ে রৌমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল কায়ুম চৌধুরী বলেন, রৌমারী’র চরাঞ্চলের জমি এখন আর পতিত নেই। জেগে উঠা চরে কৃষক সময় উপযোগী ফসল চাষ করে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনছে।

তবে এঅঞ্চলের মানুষের প্রধান সমস্যা ব্রক্ষপুত্র নদীর ভাঙ্গন। চরের কৃষককে বাচাতে নদী ভাঙ্গন রোধ অত্যান্ত জরুরী। এনিয়ে ওই অঞ্চলের কৃষকের সাথে কথা বললে তারা আক্ষেপ করে বলেন , আমরাতো সরকারের আওতাভূক্ত নই , কারণ যুগযুগ ধরে আমরা নদী ভাঙ্গনের শিকার জমিজিরাত বসত ভিটা হারিয়ে নিঃষ হয়ে পড়েছি কেই আমাদের খোজ রাখেনি। মরা চরের বুক জুড়ে যুদ্ধ করে বেচে আছি নানা জাতের ফসল উৎপাদন করে।

এবিষয় রৌমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কাইয়ুম চৌধরী জানায় চরাঞ্চলের কৃষকদের সবসময়ই সহযোগিতা করা হচ্ছে। এবংকি চরাঞ্চলে এখন আর চর নেই সবধরনের ফসল ফলিয়ে স্বাবলম্বী চরের কৃষকরা।


আরও খবর