Logo
আজঃ Tuesday ২৪ May ২০২২
শিরোনাম

একশ রান করার আগে ৩ উইকেট তুলে নিলো বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Sunday ১০ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১৮৭জন দেখেছেন
Image

স্পোর্টস ডেস্কঃ

প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার ৪৫৩ রানের জবাবে ২১৭ রানেই গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশ। ব্যাটারদের ব্যর্থতায় এই টেস্টে বেশ পিছিয়েই গেছে টাইগাররা। তবে বোলাররা দলকে লড়াইয়ে ফেরাতে যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন।


ফলোঅন না করিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামা দক্ষিণ আফ্রিকা একশ রান তোলার আগে হারিয়েছে ৩ উইকেট। ৯০ রানের মধ্যে সাজঘরে ফিরেছেন টপঅর্ডারের ডিন এলগার, কেগান পিটারসেন আর সারেল এরউই।


এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২৬ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১০৯ রান। রায়ান রিকেলটন ১১ আর টেম্বা বাভুমা ১৩ রানে অপরাজিত আছেন। প্রোটিয়াদের লিড ৩৪৫ রানের।


প্রথম ইনিংসে একাই ৬ উইকেট নিয়েছিলেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। দ্বিতীয় ইনিংসেও দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং লাইনআপে প্রথম আঘাত হানেন তিনি। তাইজুলের বলে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে সাজঘরের পথ ধরেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ডিন এলগার (২৬)।


এরপর প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় উইকেটও তুলে নিয়েছেন তাইজুলই। এবার তিনি এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেছেন পিটারসেনকে। ডিফেন্স করেও উইকেট বাঁচাতে পারেননি প্রোটিয়া ব্যাটার। আম্পায়ার আউট দিলে অবশ্য রিভিউ নিয়েছিলেন পিটারসেন। কিন্তু আম্পায়ার্স কলে লেগ স্ট্যাম্প পেয়ে যাওয়ায় সাজঘরে ফিরতে হয় তাকে (১৪)।


তার পরের ওভারেই খালেদ আহমেদের আঘাত। সেট ব্যাটার সারেল এরউই ব্যক্তিগত ৪১ রানে শর্ট মিডঅনে মুমিনুল হককে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেছেন।


এর আগে বাংলাদেশকে ২১৭ রানে অলআউট করে ২৩৬ রানের বিশাল লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে আক্রমণাত্মক শুরু করেন দুই প্রোটিয়া ওপেনার এলগার ও এরউই। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ইনিংসের নবম ওভারেই দলীয় পঞ্চাশ পূরণ করে ফেলেন এ দুজন।


এর পেছনে অবশ্য বড় অবদান রয়েছে মেহেদি হাসান মিরাজের। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই সাজঘরে ফিরতে পারতেন এরউই। কিন্তু এবাদত হোসেনের বলে সোজা শরীর বরাবর আসা ক্যাচ দেখতেই পাননি মিরাজ। উল্টো বুকে আঘাত পেয়ে প্রায় ১৫ মিনিট মাঠের বাইরে থাকতে হয় তাকে।


উল্লেখ্য, আজকের দিনের শুরুটা বেশ ভালো করেছিলেন দুই অপরাজিত ব্যাটার ইয়াসির আলি রাব্বি ও মুশফিকুর রহিম। দুজনের জুটিতে বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু প্রথম সেশনে শেষ দিকে ইয়াসিরের বিদায়ের মাধ্যমে শুরু হয় দলীয় পতনের।



আরও খবর



নারীদের মুখ ঢাকা বোরকা পরার নির্দেশ দিয়েছে আফগান সরকার

প্রকাশিত:Tuesday ১০ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৮৭জন দেখেছেন
Image

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

জনসমক্ষে নারীদের মুখ ঢেকে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন আফগানিস্তানের সর্বোচ্চ নেতা। দেশটিতে এ সংক্রান্ত একটি ডিক্রি জারি করা হয়েছে।


সূত্র: আল জাজিরার।

তালেবান প্রধান হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদার জারি করা ওই ডিক্রিতে বলা হয়েছে- নারীদের একটি চাদোরি (মাথা থেকে পা পর্যন্ত বোরকা) পরা উচিত, কারণ এটি ঐতিহ্যবাহী এবং সম্মানজনক।


ধর্ম প্রচার ও অধর্ম প্রতিরোধ মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে শীর্ষনেতা হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদার ডিক্রিটি পড়ে শোনান।


ডিক্রিতে বলা হয়েছে- কোনো নারী বাড়ির বাইরে মুখ ঢেকে বের না হলে তার বাবা বা নিকটতম পুরুষ আত্মীয়ের সঙ্গে সরকারি কর্মকর্তারা সাক্ষাৎ করবেন এবং তাকে গ্রেফতার করা হতে পারে কিংবা তিনি সরকারি চাকরিজীবী হলে তাকে বরখাস্ত করা হবে।  


তালেবান জানিয়েছে, মুখ ঢেকে রাখার জন্য বোরকা হচ্ছে আদর্শ। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তালেবানের প্রথম দফা শাসনামলে আফগান নারীদের এ ধরনের বোরকা পরতে বাধ্য করা হতো। আফগানিস্তানে বেশিরভাগ নারীই মাথায় স্কার্প পরেন, কিন্তু কাবুলের মতো শহরাঞ্চলে অনেকেই তাদের ঢেকে রাখেন না।  


গত কয়েক মাস ধরে তালেবান নেতারা বিশেষ করে ধর্ম প্রচার এবং অধর্ম প্রতিরোধ মন্ত্রণালয় থেকে অনেক নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে। আর এসব কারণে তাদের বিরুদ্ধে সমালোচনা ও আন্তর্জাতিক চাপও বেড়েছে।


গত বছরের আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। ওই সময় গোষ্ঠীটি জানিয়েছিল, তারা প্রথমবারের মতো এবার কট্টরপন্থা অবলম্বন করবে না। অবশ্য গত মার্চে বালিকাদের উচ্চ বিদ্যালয় বন্ধ করে দিয়েছে তালেবান সরকার।


আরও খবর



তৃতীয় ধাপে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেল ৩৩ হাজার পরিবার

প্রকাশিত:Tuesday ২৬ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১১৬জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

দেশের ৩২ হাজার ৯০৪ গৃহ ও ভূমিহীন পরিবার আসন্ন ঈদের আগে তৃতীয় ধাপে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে ঘর পেয়েছেন।গণভবন থেকে মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) ভিডিও কনফারেন্সে এসব ঘর হস্তান্তর করেন শেখ হাসিনা।


প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দাদের হাতে ঘরের চাবি তুলে দেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।


তৃতীয় ধাপের এসব ঘর হস্তান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করে শেখ হাসিনা বলেন, আমার সবচেয়ে ভালো লাগে যখন দেখি একটা মানুষ ঘর পাওয়ার পর তার মুখের হাসি। জাতির পিতা দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চেয়েছিলেন।


সবার জন্য আবাসন নিশ্চিত করতে সরকারের কার্যক্রমের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাকি যে ঘরগুলো আছে সেগুলো আস্তে আস্তে তৈরি করে সব মানুষ যেন মানুষের মতো বাঁচতে পারে, সুন্দর জীবন পেতে পারে। সেটাই আমাদের লক্ষ্য। বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না, ভূমিহীন থাকবে না। এটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি।



শেখ হাসিনা মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঘোষণা দিয়েছেন যে, বাংলাদেশের কোনো মানুষ যাতে ভূমি ও গৃহহীন না থাকে। সেজন্য তিনি দুই শতক জমির উপর দুই রুম বিশিষ্ট একটি ঘর উপহার দিচ্ছেন। এসব ঘরের ডিজাইন প্রধানমন্ত্রী নিজেই প্রণয়ন করেছেন।


তৃতীয় ধাপে এসব ঘর দেওয়ার আগে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ঘর পেয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ৩২৯টি পরিবার। তৃতীয় ধাপের আরও ৩২ হাজার ৭৭০টি ঘর নির্মাণাধীন রয়েছে।


আশ্রয়ণের প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের চেয়ে তৃতীয় ধাপের ঘরগুলো অনেক বেশি টেকসই। তৃতীয় ধাপে একেকটি ঘর নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা। তৃতীয় ধাপের ঘরগুলোতে আরসিসি পিলার, গ্রেড ভিম, টানা লিংকটারসহ বেশ কিছু বিষয় সংযোজন করা হয়।  



এসব ঘর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের পোড়াদিয়া বালিয়া, বরগুনা সদর উপজেলার গৌরিচন্না ইউনিয়নের খাজুরতলা, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের খোকশাবাড়ী ও চট্টগ্রামের আনোয়ারার বারখাইন ইউনিয়নের হাজিগাঁওয়ে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হয়ে উপকারভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।


আরও খবর



যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানহাটনে বাংলাদেশী সিনেমার প্রিমিয়ার

প্রকাশিত:Monday ২৫ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১৮০জন দেখেছেন
Image

বিনোদন প্রতিবেদকঃ

নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরীর ‘রিকশা গার্ল’-এর প্রিমিয়ার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনে। আগামী ৫ মে শহরটির বিখ্যাত মুভি থিয়েটার ‘ভিলেজ ইস্ট বাই অ্যাঞ্জেলিকা’য় সিনেমাটি দেখানো হবে।


বায়োস্কোপ ফিল্মসের সৌজন্যে আয়োজিত এই প্রিমিয়ারে পরিচালক অমিতাভ রেজার সঙ্গে অংশ নেবেন ‘রিকশা গার্ল’র নির্বাহী প্রযোজক আসাদুজ্জামান সকাল, সহ-প্রযোজক মেহজাবিন রেজা, কেন্দ্রীয় চরিত্রের অভিনয়শিল্পী নভেরা রহমান, মোমেনা চৌধুরীসহ অন্যান্যরা।  


এ প্রসঙ্গে অমিতাভ রেজা বলেন, বাংলাদেশের সিনেমাকে বিশ্বমঞ্চে তুলে ধরতে ‘রিকশা গার্ল’ নিয়ে আমরা বড় বড় সব চলচ্চিত্র উৎসব ও শহরে হাজির হয়েছি। ম্যানহাটনের মতো বৈচিত্র্যময় শহরে এই সিনেমাটির প্রিমিয়ার করতে পেরে আমার ভিন্ন রকম অনুভূতি হচ্ছে।


যেহেতু ‘রিকশা গার্ল’র গল্পটি ভারতীয় বংশোদ্ভূত যুক্তরাষ্ট্রের লেখক মিতালি পারকিনসের কিশোরসাহিত্য থেকে নেওয়া, তাই সেখানকার বাসিন্দারা সিনেমাটি উপভোগ করবেন বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন ‘আয়নাবাজি’খ্যাত এই নির্মাতা।


‘রিকশা গার্ল’-এ নাইমা চরিত্রে অভিনয় করেছেন নভেরা রহমান। আরো রয়েছে- চম্পা, মোমেনা চৌধুরী, নরেশ ভূঁইয়া, অ্যালেন শুভ্র ও অন্যান্যরা। সিনেমাটির চিত্রনাট্য লিখেছেন নাসিফ ফারুক আমিন ও শর্বরী জোহরা আহমেদ।



আরও খবর



বেনাপোল স্থল বন্দর থেকে চারটি ওয়ান সুটার গান উদ্ধার

প্রকাশিত:Monday ০৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৩ May ২০২২ | ৮৬জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

বেনাপোল কাস্টম হাউজ থেকে অবৈধভাবে রাখা চারটি ওয়ান শুটার গান উদ্ধার করেছে পুলিশ।


রবিবার (৮ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে একটি তালাবদ্ধ রুমে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস একটি টিম কাস্টম হাউসে আসে। 


বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর পুড়ে যাওয়া মালামালের মধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় চারটি আগ্নেয়াস্ত্র দেখতে পায় পুলিশ।


সংশ্লিষ্টরা জানান, বেনাপোল কাস্টম হাউসে অ্যান্টি শাখার পাশে পুরনো একটি অফিস রুম রয়েছে। তবে সেটি ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় অব্যবহৃত কিছু মালামাল রেখে তালাবদ্ধ অবস্থায় ছিল। 


রবিবার সন্ধ্যায় ওই রুম থেকে আগুনের ধোঁয়া দেখতে পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অফিসে ফোন দেয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আধাঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।


 পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পায় পুড়ে যাওয়া পণ্যের মধ্যে চারটি ওয়ান শুটার গান রয়েছে। তবে কারা সেগুলো সেখানে রেখেছে তা জানা যায়নি।


এদিকে ব্যবসায়ীরা জানান, বেনাপোল কাস্টম হাউজ সম্পূর্ণ সিসি ক্যামেরা, অস্ত্রধারী আনসার ও আর্মড পুলিশ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।  কারা কী উদ্দেশ্যে এ আগ্নেয়াস্ত্র সেখানে মজুত রেখেছিল তা খতিয়ে দেখা জরুরি।


আরও খবর



ধুপখোলা মাঠকে মাঠ হিসেবে ব্যবস্থাপনা করতে হবে

প্রকাশিত:Saturday ১৪ May ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৩ May ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

পুরাতন ঢাকার গেন্ডারিয়ার ধুপখোলা মাঠকে সম্পূর্ণরূপে মাঠ হিসেবে ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আইনজীবী ও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।


তিনি বলেছেন, মাঠটিকে মাঠ হিসেবে ব্যবস্থাপনা করতে হবে। এখানে যত স্থাপনা আছে এগুলো সরিয়ে ফেলতে হবে।



শনিবার (১৪ মে) পরিবেশ ও সংস্কৃতি কর্মী এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা ধূপখোলা মাঠ পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন।


রেজওয়ান হাসান বলেন, ঢাকা শহরের মাস্টার প্ল্যান ও হাইকোর্টের রায়ে বলা আছে, মাঠের মধ্যে কোনো স্থাপনা হতে পারবে না। আর ধূপখোলা মাঠের মতো এরকম ঐতিহ্যবাহী মাঠ নেই। যে কোনো নির্মাণ কাজ করতে গেলে ওখানে একটা সাইনবোর্ড দিয়ে জনগণকে জানাতে হবে এই নির্মাণ কাজ কে করছে, অর্থায়ন কে করছে, ইঞ্জিনিয়ার কে, অনুমোদনের তারিখ কবে। এখানে এরকম কোনো সাইনবোর্ড আমরা দেখতে পাইনি।



তিনি আরও বলেন, ঢাকা শহরের বেশির ভাগ খেলার মাঠ ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে সিটি করপোরেশন। আর সিটি করপোরেশন যদি আইন ভঙ্গ ও হাইকোর্টের রায় উপেক্ষা করে মাঠের মধ্যে স্থাপনা করে তাহলে জনগণ যাবে কোথায়। এখানে ‘রক্ষকই ভক্ষক’ এই উদাহরণ সৃষ্টি করছে সিটি করপোরেশন।


পরিদর্শন শেষে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সহ-সভাপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, মহানগরী, বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরের এলাকাসহ দেশের সব পৌর এলাকার খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান ও প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন, ২০০০ অনুসারে মাঠে কোনো স্থাপনা করার সুযোগ নেই। এই আইনে বিজিএমইএ ভবন ভেঙে ফেলা হয়েছে। ধূপখোলা মাঠে যে সব অবৈধ নির্মাণ কাজ রয়েছে সেগুলো সরিয়ে ফেলতে হবে। আর এই কাজটি করতে সিটি করপোরেশনকে উদ্যোগ নিতে হবে।



নাগরিক উদ্যোগের প্রধান নির্বাহী জাকির হোসেন বলেন, দেশের আইন ও উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো মাঠে স্থাপনা তৈরি করা যায় না। খেলার মাঠ খেলার জন্যই উন্মুক্ত থাকবে। ধূপখোলা মাঠ ঢাকার মধ্যে সবচেয়ে বড় খেলার মাঠ। এছাড়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও এখানে খেলাধুলা করেন।


তিনি নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য সিটি করপোরেশনের প্রতি আহ্বান জানান।


প্রতিনিধি দলে আরও উপস্থিত ছিলেন- গ্রিন ভয়েসের প্রধান সমন্বয়ক আলমগীর কবির, কেন্দ্রীয় সহ-সমন্বয়ক হুমায়ুন কবির সুমন, ময়মনসিংহ বিভাগের সমন্বয়ক শাকিল কবির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক তারেক রহমান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান মিল্টন, পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দীন, ক্যামেলিয়াসহ অন্যান্য নেতারা।



আরও খবর