Logo
আজঃ Wednesday ২৬ January ২০২২
শিরোনাম
অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে সহ-শিল্পীদের নগ্ন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিদেশের মাটিতে কৃষিপণ্য সরবরাহ বাড়াণোর লক্ষ্যে : ইরান রাজনৈতিক কঠিন চাপে রয়েছেন মেয়র আরিফুল স্বপ্নের মেট্রোরেল রওনা হলো আগারগাঁওয়ের উদ্দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণে ভারতে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ মুরাদ হাসান এমিরেটসের ফ্লাইটে কানাডা গেলেন সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আগামী বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের উন্নতি দেখতে চান করোনাভাইরাসে আরও ছয়জনের মৃত্যু বিশ্বের ৪৩তম ক্ষমতাধর নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
একই রুমের ফেনে ঝুলছিল নারী-পুরুষের মরদেহ

একই রুমের ফেনে ঝুলছিল নারী-পুরুষের মরদেহ

প্রকাশিত:Sunday ০৯ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১০৯জন দেখেছেন
Image


গাজীপুর প্রতিনিধিঃ

গাজীপুরের গাছা এলাকার একটি বাড়ি থেকে গলায় ফাঁস লাগানো দুই নারী-পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে জাঝর উত্তর পাড়া এলাকার শাহীন মিয়ার বাড়ির দ্বিতীয় তলার রুম থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।


নিহতরা হলেন, গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ থানার বেতয়া গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে লিমা রহমান (২৫) ও সিলেট সদর এলাকার বোরাইয়া এলাকার রঞ্জিত চৌধুরীর ছেলে রজত কান্তি চৌধুরী । লিমা মোটেক সোয়েটার কারখানার মেডিকেল এসিস্ট্যান্ট হিসেবে চাকুরি করতেন এবং রজত গাজীপুর সদর এলাকার সিগমা ডায়েগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক। 


বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের গাছা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নন্দলাল চৌধুরী।


তিনি জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে কর্মস্থল মোটেক সোয়েটার কারখানা থেকে বাসায় ফিরে লিমা রহমান। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় শনিবার কর্মস্থলে যাওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু শনিবার কর্মস্থলে না যাওয়ায় কারখানার মালিক পক্ষ দুপুরের খাবারের বিরতিতে লিমার বাসায় লোক পাঠায়।

বাসায় ডাকাডাকি করে কোন সারাশব্দ না পেয়ে দরজা ধাক্কা দিয়ে দেখতে পান লিমা রহমান ও রজত কান্তি চৌধুরী গলায় ওরনা পেঁচিয়ে সিলিং ফ্যানের হুকের সাথে ঝুলে আছে। পরে গাছা থানা পুলিশকে খবর দিলে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়।


গাছা জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার আহসানুল হক জানান, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে পূর্বে সিগমা ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে মেডিকেল এসিস্ট্যান্ট পদে চাকুরী করতেন লিমা। চাকুরীর সুবাদে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রজত কান্তি চৌধুরীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় তার।


মাস দুয়েক আগে লিমা চাকুরী ছেড়ে সোয়েটার কারখানায় চাকুরী নেন। লিমা ওই বাড়িতে একাই ভাড়া থাকতেন। পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে রজত ওই বাড়িতে নিয়মিত যাতায়ত করতেন। তবে তাদের মধ্যে কি সম্পর্ক এবং কেন আত্মহত্যা করেছে সেটি জানা যায়নি।



আরও খবর



নাসিরনগরে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত- ১

প্রকাশিত:Thursday ০৬ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৫০জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

নিজেদের আধিপত্য বিস্তার কে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অরুন জ্যোতি ভট্রাচার্য্য আহত হয়ে নাসিরনগর হাসপাতালে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।


জানা গেছে সন্ধ্যা ৫ জানুয়ারী ২০২২রোজ বুধবার নাসিরনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসে অরুণ জ্যােতি ও সাবেক উপজেলা যুবলীগ সভাপতি  অঞ্জন কুমার দেবের মাঝে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে একটি প্রস্তাবিত রাস্তা নির্মাণ নিয়ে  তুমুল বাক বিতন্ডা হয়।


জানা গেছে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত সকলের সামনে অঞ্জন কুমার দেব কে প্রকাশ্যে হুমকি প্রদান করেন অরুন জ্যোতি ভট্রাচার্য্য।এক পর্যায়ে দুই জনের মধ্যে হাতাহাতির উপক্রম হয়।ঘটনাটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে অরুণ ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।


পরে বিষয়টি মিট করে দেয়ার কথা বলে অরুণকে ফোন দিলে আওয়ামীরীগের স্থানীয় ফোনে দলীয় নেতাদের সামনে অঞ্জন দেবের সমর্থকদের হামলার শিকার হয় আওয়ামী লীগ নেতা অরুন জ্যোতি ভট্রাচার্য্য। 


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় এ সময় অরুণ জ্যােতিকে বেদম মার ধর করা হয় ।অরুণের মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।অরুন কে রাতেই নাসিরনগর উপজেলা সাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হসপিটালের আই সি ইউতে রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। 


এই সময় অরুনকে দেখতে হাসপাতালে যান উপজেলা চেয়ারম্যান রাফিউদ্দিন আহমেদ,নাসিরনগর সদর ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান পুতুল রানী দাস,গুনিয়াউক ইউপির চেয়ারম্যান মোঃ জিতু মিয়া,সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান প্রদীপ কুমার রায়,ছাত্র লীগ আহবায়ক নাসিরুদ্দিন রানা, আওয়ামীলীগ নেতা হাকিম রাজা, যুব লীগ নেতা অবিদ খান সহ আরো অনেকে। এ সময় সকলেই ওই অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।তবে সর্বশেষ খবর অনুযায়ী অরুন জ্যোতি বর্তমানে  অনেকটা সুস্থ্য আছেন বলে হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে।



আরও খবর



জাতীয় বা স্থানীয় কোনো নির্বাচনেই অংশ নেবে না বিএনপি

প্রকাশিত:Friday ০৭ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১১২জন দেখেছেন
Image

বর্তমান সরকারের অধীনে জাতীয় বা স্থানীয় কোনো নির্বাচনেই অংশ নেবে না বিএনপি- এ সিদ্ধান্ত আগেই নেওয়া ছিল। তবে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় ছিল- দলের কেউ চাইলে স্বতন্ত্র প্রার্থিতা করতে পারবে। কিন্তু এবার সেই পথও বন্ধ করে দিয়েছে বিএনপি। দল থেকে জানানো হয়েছে, সিদ্ধান্ত অমান্য করে গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কোনো নেতা স্বতন্ত্র হিসেবে ভোট করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দলের এ সিদ্ধান্তের কথা গতকাল বৃহস্পতিবার আমাদের সময়কে জানান বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেবেন তারাও ছাড় পাবেন না। এ সিদ্ধান্ত অমান্য করলে তা শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড বলে গণ্য হবে।

বিএনপির দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় গতকাল পর্যন্ত পাঁচ নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। নোয়াখালী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ায় দুই নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ ও নোয়াখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আবু নাছের এবং জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম। গত বুধবার রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে এ আদেশ দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে শহিদুল ইসলাম বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া যাবে বলে দলের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে ঘোষণা দেওয়ার কারণেই তিনি প্রার্থী হয়েছেন। এর মধ্যে দলীয় সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয়েছে কিনা, তা জানি না। সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হলে আগেই আমাদের জানানো উচিত ছিল। এখন এমন সময় অব্যাহতির সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছে, এ সময় পিছু হটার কোনো সুযোগ নেই। আর আবু নাছের বলেন, বিএনপি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রথমে অংশ নিয়েছিল। এর পর অনিয়মের কারণে সিদ্ধান্ত নেয়, এ সরকারের অধীনে আর কোনো স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশ নেবে না। এর পর ঘোষণা দেওয়া হয় স্থানীয় পর্যায়ের কোনো নেতা চাইলে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হতে পারবেন। দলের এ সিদ্ধান্তে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। কিন্তু কোনো ধরনের কারণ দর্শানো ছাড়াই সরাসরি দলের পদ থেকে অব্যাহতির চিঠিতে হতবাক হয়েছি।

এ ছাড়া নাটোরের বাগাতিপাড়া পৌরসভায় মেয়র পদে নির্বাচন করায় পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আমিরুল ইসলাম জামাল এবং স্থানীয় একটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হওয়ায় বাগাতিপাড়া উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলামকে তাদের পদ থেকে গতকাল অব্যাহতি দেওয়া হয়। যদিও দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ওই দুই প্রার্থী আগেই দলের কাছে অব্যাহতি চেয়েছিলেন। এর আগে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থিতা করা তৈমূর আলম খন্দকারকে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টার পদ ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়কের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

সরকারবিরোধী আন্দোলন জোরদার করতেই দলটি এ কঠোর অবস্থান নিয়েছে। বিএনপি নেতারা মনে করেন, দেশে-বিদেশে চাপে থাকা সরকার এখন সুষ্ঠু নির্বাচন করে ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করবে। আবার দলের নেতাকর্মীরা নির্বাচনের দিকে মনোযোগ দিলে চলমান আন্দোলনের গতি মন্থর হয়ে পড়বে। সে ক্ষেত্রে একটা বার্তা নিয়ে সক্রিয় থাকতে চায় বিএনপি। সেটা হলো নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা।


আরও খবর



পদ্মা সেতুতে হাঁটলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:Friday ৩১ December ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৪ January ২০২২ | ১১৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: হঠাৎ করেই স্বপ্নের পদ্মা সেতু ঘুরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শুক্রবার সড়কপথে সকাল ৭টা ২৩ মিনিটে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছী পদ্মা সেতু সার্ভিস এরিয়া-১-এ পৌঁছান তিনি। সার্ভিস এরিয়া পরিদর্শন শেষে তিনি গাড়িতে করে পদ্মা সেতু পরিদর্শনে যান। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ছোট বোন শেখ রেহানা।

পদ্মা সেতুর ওপরে ৭ নম্বর পিলারের কাছ থেকে পায়ে হেঁটে দুটি মডিউল ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী। অর্থাৎ, ৭ নম্বর পিলার হতে তিনি পায়ে হেঁটে ১৮ নম্বর পিলার পর্যন্ত যান। এরপর আবার গাড়িতে করে তিনি পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে ওপারে জাজিরার পদ্মা সেতু সার্ভিস এরিয়া-২ এ যান। সেখানে তিনি তার সঙ্গে থাকা বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে নাস্তা করেন। এরপর সেখানে ঘুরে দেখে সকাল ১০টার পর তিনি ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। এসময় তিনি আবারো পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে গাড়ি নিয়ে ঢাকায় ফেরেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছে সেতু সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র।

এসময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আরও ছিলেন কেবিনেট সেক্রেটারি খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক কানী নাহিদ রসুল ও পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের।

চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া থেকে ঢাকায় ফেরার সময় আকাশ পথে পদ্মা সেতু দেখেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তখন হেলিকপ্টার থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যার সেতু দর্শনের ভিডিও ধারণ হয়েছিল মোবাইল ক্যামেরায়।


আরও খবর



নাসিরনগরে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রার্থীকে ভোট না দেয়া শিক্ষকদের থাকার রুমে তালা

প্রকাশিত:Wednesday ০৫ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ১৬৮জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

স্কুল কমিটির সভাপতি প্রার্থীকে স্কুলের শিক্ষক প্রতিনিধিরা ভোট না দেয়া তিন শিক্ষকের রুমে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে ওই প্রার্থীর লোকেরা।ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার গোয়াল নগর ইউনিয়নের গোয়ালনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে।


জানা গেছে গত ২ রা জানুয়ারী ২০২২ রোজ রবিবার সকাল ১১ ঘটিকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার অন্তর্গত গোয়ালনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটে নাসিরনগর মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় স্কুল কমিটির সভাপতি  নির্বাচন। 


নির্বাচনে সভাপতি পদে বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আজহারুল হক চৌধুরী ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ কিরণ মিয়া প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।


নির্বাচনে  গোয়ালনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪  জন  নির্বাচিত অভিভাবক প্রতিনিধি,১ জন নির্বাচিত সংরক্ষিত নারী প্রতিনিধি,১ জন দাতা সদস্য, ১ জন বিদ্যোৎসাহী ও ৩ জন শিক্ষক প্রতিনিধি তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।


মোট ১০টি ভোটের মাঝে ৭ ভোট পেয়ে  গোয়ালনগর ইউনিয়ন অাওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ কিরণ মিয়া সভাপতি নির্বাচিত হন। অপরদিকে প্রতিদ্ধন্দ্বী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ অাজহারুল হক চৌধুরী  ৩ ভোট পেয়ে পরাজয় বরণ করেন। 


কিন্তু আজহারুল হক পরাজয়ের গ্লানি সহ্য করতে না পেরে তাকে ভোট ও সর্মতন  না করার কারনে এলাকায় গিয়ে ২জন শিক্ষক প্রতিনিধি মোঃ মলাই মিয়া,মোঃ আমান উল্লাহ ও ১ জন অফিস সহকারী অরবিন্দ থাকার রুমে তালাবদ্ধ করে দেন।এখনো ওই রুমে  তাদের দেয়া তালা ঝুলছে বলে জানা কিরণ মিয়া ও শিক্ষকরা। ফলে এলাকায় দেখা দিয়েছে চরম উত্তেজনা।


গোয়াল নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ মলাই মিয়া মোবাইল ফোনে এ প্রতিনিধিকে জানান,নির্বাচনের আগে বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আজহারুল হক চৌধুরী আমাদের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে নিয়ে তাকে ভোট দেয়ার জন্য আমাদের অনেক চাপ প্রয়োগ করে ও প্রশাসেনর ভয় দেখিয়ে হুমকি দেয়।তিনি বলেন আমরা তার কথামত তাকে ভােট না দেয়া এমন করেছে।আমরা তার হুমকিকে উপেক্ষা করে একজন সৎ ও ভাল মানুষকে নির্বাচিত করে আমাদের আর্দশেকে অটুট রেখেছি।


এ বিষয়ে  মুঠুফোনে আজহারুল হকের সাথে কথা বলে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি পাজলামি এবং অযথা বলে দাবী করে উড়িয়ে দেন,তিনি বলেন আমিতো সভাপতি তারাতো এখনো পর্যন্ত আমাকে কিছু জানায়নি।


এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হাবিবুর রহমানের সাথে মুঠুফোনে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি বলেন,রুমে তালা ঝুলিয়ে রাখার কারনে তারা লেপতোষক, টাকা পয়সা ও প্রযোজনীয় কাপড় চোপড় বের করতে না পারায় এই তীব্রশীতের মাঝে তিনদিন যাবৎ আমার শিক্ষকরা খুষ্ট কষ্ট ভোগ করছে।প্রধান শিক্ষক বলেন আমি নিজে তিন দিন আগে বিষয়টি চেয়ারম্যানকর অবগত করলেও তিনি কোন কর্নপাত করেননি ও ব্যবস্থা নেননি।


 এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আজহারুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেননি বলে জানান।


আরও খবর



আইভীর জন্য মাঠে আ.লীগ ‘ভিন্ন কৌশলে’ তৈমূর

প্রকাশিত:Friday ০৭ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৩৮জন দেখেছেন
Image

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে মেয়র পদে লড়ছেন সাতজন। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং স্বতন্ত্র তৈমূর আলম খন্দকারের মধ্যেই মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে- বলছেন স্থানীয়রা। মাঠেও এ দুই প্রার্থীকে সমানতালে প্রচারে দেখা যাচ্ছে। এ দুই হেভিওয়েট প্রার্থীকে নিয়ে সিটিতে চলছে এখন আলাপ-আলোচনা। আগামীতে কে হচ্ছেন এই সিটির মেয়র, তারই অপেক্ষায় রয়েছেন নারায়ণগঞ্জের প্রায় সোয়া পাঁচ লাখ ভোটার।

নৌকার প্রার্থী ডা. আইভীকে জেতাতে মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা। তারা বিভিন্ন সময় নারায়ণগঞ্জে এসে সভাসমাবেশও করছেন। তাদের নির্দেশনায় নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ কাজ করছেন। অন্যদিকে স্বতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী তৈমূর আলমের প্রচার চলছে ভিন্ন কৌশলে। তার পাশে নেই বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। উপরন্তু একের পর এক দলীয় পদবি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হচ্ছে তাকে। নির্বাচনী প্রচারে দেখা যাচ্ছে না নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির শীর্ষ কোনো নেতাকেও। রাজনীতি পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যেহেতু বিএনপি বলছে- এই সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে তারা কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না। তাই ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে তৈমূর আলমকে সুযোগ করে দিয়েছেন তারা।

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে সবচেয়ে বড় সমাবেশটি হয়েছিল ২৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের শেখ রাসেল পার্কে। বিজয় সমাবেশের ব্যানারে ওই সমাবেশটি হলেও অনেকেই বলছেন- এটি আইভীর নির্বাচনী সমাবেশ। বিশাল ওই জনসমাবেশে ছিলেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এবং নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা। তবে ছিলেন না নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান। এর পর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বেশ কয়েকটি সভা করেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। এ ছাড়া যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দও নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন সময় আইভীর নির্বাচন ঘিরে সমাবেশ করেছে। সর্বশেষ কর্মী-সমাবেশ হয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জে গত বুধবার।

এদিকে তৈমূরকে একের পর এক দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। গত ২৬ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও ৩ জানুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। সবশেষ গত বুধবার জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যপদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। ফোরামের দপ্তরের দায়িত্বে থাকা সদস্য আব্দুল্লাহ আল মাহবুব স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। কেন একের পর এক পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হচ্ছে, তা জানতে গতকাল তৈমূর আলমকে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

গতকাল সিদ্ধিরগঞ্জ এবং বন্দরে প্রচার চালান আইভী ও তৈমূর। আইভী প্রচার চালান সিদ্ধিরগঞ্জের ১০নং ওয়ার্ডে এবং বন্দরের ২৫নং ওয়ার্ডে। অন্য তৈমূর সিদ্ধিরগঞ্জের ৭ ও ৮নং ওয়ার্ডে প্রচার চালান। ডা. আইভী তার অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার জন্য সুযোগ চান। পক্ষান্তরে তৈমূর আলম বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানান।


আরও খবর