Logo
আজঃ Tuesday ২৪ May ২০২২
শিরোনাম

এফডিসির দৃষ্টিনন্দন মসজিদে প্রথম জামাত আজ

প্রকাশিত:Thursday ২০ January ২০22 | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ২৪২জন দেখেছেন
Image

বিনোদন প্রতিবেদক: প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএফডিসি) অভ্যন্তরে নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ। আজ বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হতে যাচ্ছে দুটি সুউচ্চ মিনারবিশিষ্ট দুতলাবিশিষ্ট এই মসজিদটি। মাঝখানের গম্বুজের কারুকার্য মসজিদটির সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

ঝর্ণা স্পটের যেখানে আগের মসজিটটি ছিল সেখানেই নতুন এই মসজিদটি পুনঃনির্মিত হয়েছে। এতে একসঙ্গে প্রায় পাঁচ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবে বলে জানা গেছে।

অভিনেতা সনি রহমানের উদ্যোগে থার্মেক্স গ্রুপের এমডি নরসিংদীর আবদুল কাদির মোল্লার অর্থায়নে মসজিটটি পুনঃনির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আজ বিকেলে আবদুল কাদির মোল্লা নিজে উপস্থিত থেকে এর উদ্বোধন করবেন বলে জানান সনি রহমান। এ ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন, প্রযোজক, পরিচালক সমিতির নেতারা এবং শিল্পীদের প্রতিনিধিরা।

নান্দনিক এই মসজিদ নির্মাণের নেপথ্যে রয়েছেন- অভিনেতা সনি রহমান। তার ভাষ্য, ‘পুরনো মসজিদটি সংস্কারের জন্য কিভাবে সহায়তা পাওয়া যেতে পারে সে বিষয়ে একদিন আমার সঙ্গে কথা বলেন নির্মাতা বদিউল আলম খোকন ভাই। তিনি আগেই জানতেন আমি নরসিংদীর ছেলে, আর সেখানের কাদির মোল্লাহ সাহেব এসব কাজে সহায়তা করেন। নরসিংদীতে আমাদের জমিতে কাদির মোল্লাহ সাহেবের ট্রাস্ট থেকে মসজিদ বানানো হয়েছে। কাদির সাহেবের কাছে সব খুলে বললাম। তিনি রাজি হলেন, আমাদেরকে পুরো মসজিদই করে দিতে চাইলেন।’

সনি রহমান আরও বলেন, ‘থার্মেক্স গ্রুপের এমডি নরসিংদীর আবদুল কাদির মোল্লার আঙ্কেলের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। মসজিদ নির্মাণের ব্যয় এখনো পূর্ণাঙ্গ হিসাব হয়নি, তবে পৌনে তিন কোটি টাকার মতো খরচ হয়েছে।’

এর আগে ২০১৮ সালে মসজিদটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। মাঝখানে করোনার কারণে কিছুদিন কাজ থেমে ছিল। পরে টানা কাজ করে নির্মাণকাজ সম্পন্ন করা হয়।


আরও খবর



বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমেছে

প্রকাশিত:Saturday ১৪ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৭৯জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন হয়েছে। এ সময়ে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম প্রায় চার শতাংশ কমেছে। ফলে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৭০ ডলারেরও বেশি কমে বর্তমানে ১৮৫০ ডলারের নিচে নেমে এসেছে। সেই সঙ্গে কমেছে রুপা ও প্লাটিনামের দাম।


বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমায় এরই মধ্যে দেশের বাজারেও এর দাম কমানো হয়েছে। বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) গত ১১ মে (বুধবার) থেকে দেশের বাজারে স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করেছে।



নতুন দাম অনুযায়ী, সবচেয়ে ভালো মান বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৭৬ হাজার ৫১৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৭৩ হাজার ১৭ টাকা করা হয়েছে। ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা কমিয়ে ৬২ হাজার ৬৩৬ টাকা করা হয়েছে। আর সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮৭৬ টাকা কমিয়ে করা হয়েছে ৫২ হাজার ১৯৬ টাকা।



বাজুস দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানোর ঘোষণা দেওয়ার সময় বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১ হাজার ৮৬০ ডলারের ওপরে। এরপর বিশ্ববাজারে লেনদেন হওয়া প্রতি কার্যদিবসেই স্বর্ণের দাম কমেছে। এতে গত চার সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে এসেছে।


গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৩ দশমিক ৮১ শতাংশ বা ৭১ দশমিক ৭৪ ডলার কমেছে। এর মধ্যে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসেই কমেছে ১০ দশমিক ৪৪ ডলার বা দশমিক ৫৭ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮১১ ডলার। আর মাসের ব্যবধানে স্বর্ণের দাম কমেছে ৮ দশমিক ২২ শতাংশ।




স্বর্ণের পাশাপাশি গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে রূপা ও প্লাটিনামের দামেও বড় পতন হয়েছে। এ সময়ে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ কমে প্রতি আউন্স রূপার দাম দাঁড়িয়েছে ২১ দশমিক শূন্য ৯ ডলারে। মাসের ব্যবধানে এই ধাতুটির দাম কমেছে ১৭ দশমিক ৭০ শতাংশ।


আরেক দামি ধাতু প্লাটিনামের দাম গত সপ্তাহজুড়ে কমেছে ২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স প্লাটিনামের দাম দাঁড়িয়েছে ৯৩৮ দশমিক ৫০ ডলারে। মাসের ব্যবধানে দামি এই ধাতুটির দাম কমেছে ৫ দশমিক ২১ শতাংশ।


এদিকে, রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করার পর থেকেই বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে ব্যাপক অস্থিরতা দেখা গেছে। হুট করে স্বর্ণের দামে বড় উত্থান, এরপর আবার বড় দরপতনের ঘটনা ঘটছে গত তিন মাস ধরেই।


গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু করে রাশিয়া। হামলা শুরুর পর প্রথম সপ্তাহেই বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ বা ৮২ দশমিক ৪৮ ডলার বেড়ে যায়। এতে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৯৭০ দশমিক শূন্য ৭ ডলারে উঠে যায়।


এরই প্রেক্ষিতে গত ৩ মার্চ বাংলাদেশে স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়। সে সময় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৩ হাজার ২৬৫ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৭৮ হাজার ২৬৫ হাজার টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৩ হাজার ৯১ টাকা বাড়িয়ে ৭৪ হাজার ৭৬৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ১৫২ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ২ হাজার ২১৬ টাকা বাড়িয়ে ৫৩ হাজার ৪২১ টাকা করা হয়।


দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর পর এক সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম বেড়ে দুই হাজার ডলার ছাড়িয়ে যায়। ফলে ৯ মার্চ দেশের বাজারে আবারও বাড়ানো হয় স্বর্ণের দাম। এ দফায় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫০ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৭৯ হাজার ৩১৫ টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৭৫ হাজার ৬৯৯ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৮১৬ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ৯৬৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৬৪২ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৫৪ হাজার ৬২ টাকা।


অবশ্য এরপর বিশ্ববাজারে টানা দরপতনের মধ্যে পড়ে স্বর্ণ। ফলে ১৬ মার্চ ও ২২ মার্চ দুই দফায় দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানো হয়। এর মধ্যে ২২ মার্চ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫০ টাকা কমিয়ে করা হয় ৭৭ হাজার ৯৯ টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ৫০ টাকা কমিয়ে ৭৩ হাজার ৬০০ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা কমিয়ে ৬৩ হাজার ১০২ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৪৫৮ টাকা কমিয়ে ৫২ হাজার ৬০৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়।


এরপর রোজা শুরু হলে দেশের বাজারে ঈদকেন্দ্রিক স্বর্ণালঙ্কারের বিক্রি কিছুটা বেড়ে যায়। যার প্রভাব পড়ে দামেও। বিশ্ববাজারে খুব একটা দাম না বাড়লেও ১২ এপ্রিল ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৮৪৯ টাকা নির্ধারণ করে বাজুস।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ৭৪৯ টাকা বাড়িয়ে ৭৫ হাজার ৩৪৯ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৪৫৮ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ৫৬০ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ২২৪ টাকা বাড়িয়ে ৫৩ হাজার ৮২৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়।


তবে বিশ্ববাজারে দাম কমার প্রবণতা দেখা দিলে ২৬ এপ্রিল আবারও দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানো হয়। সে সময় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৭ টাকা, ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৯১ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৭৫৮ টাকা কমানো হয়। আর ঈদের পর এক সপ্তাহ না যেতেই ১১ মে আরেক দফা স্বর্ণের দাম কমানো হয়।



আরও খবর



মোবাইল ফোন সেট জব্দ

মিরপুর থেকে অনুমোদনবিহীন ২১৩ টি মোবাইল ফোন সেট জব্দ

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৯০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রাজধানীর মিরপুর-২ এলাকার মিরপুর শপিং কমপ্লেক্সের সাতটি দোকান থেকে অনুমোদনবিহীন ২১৩টি মোবাইল সেট জব্দসহ ছয়জনকে আটক করা হয়েছে।


বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এনফোর্সমেন্ট অ্যান্ড ইন্সপেকশন টিম ও রাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব-৪) যৌথ অভিযানে তাদের আটক করা হয়।



মঙ্গলবার (১৮ মে) এই অভিযান চালানো হয়।



অভিযান চালানো দোকানগুলোর মধ্যে মোবাইল ল্যাব থেকে ৩৪টি, মোবাইল অ্যান্ড গেজেট থেকে ৩১টি, টেক ফ্যাক্টরি থেকে নয়টি, গ্যাজেট ভিলা-৬৩৯ থেকে ৩৩টি, গ্যাজেট ভিলা-৬৬২ থেকে ৩১টি, গ্যাজেট ভিলা-৬৭১ থেকে ৩৩টি ও কোরাস থেকে ৪২টি বিভিন্ন মডেলের মোবাইল সেট জব্দ করা হয়।



বিটিআরসি ও র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আটকরা দীর্ঘদিন ধরে অনুমোদনবিহীন মোবাইল সেটের ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন- ২০০১, (সংশোধিত-২০১০) অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।



আরও খবর



সাংবাদিক ও বিশিষ্ট নাগরিকদের সম্মানে মধ্যাহ্ন ভোজ

দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার সাংবাদিক ও বিশিষ্ট নাগরিকদের সম্মানে মধ্যাহ্ন ভোজ

প্রকাশিত:Wednesday ১৮ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১৮৭জন দেখেছেন
Image
সোহরাওয়ার্দীঃ

দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার সম্পাদক প্রয়াত অধ্যাপক দীন মোহাম্মদ ভুঁইয়ার বাসভবনে পত্রিকার সাংবাদিক ও বিশিষ্ট জনদের সম্মানে মধ্যাহ্ন ভোজের আয়োজন করা হয়।

সকলের উপস্থিতিতে রাজা খালির বাসভবন এক মিলন মেলায় পরিণত হয়। 

দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক শরফ উদ্দিন ভূঁইয়া রাব্বির নিমন্ত্রণে আয়োজিত গণভোজে অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক রেজাউল করিম রাজু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ নজরুল ইসলাম মুক্তি। 

এতে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি নাজমুল হাসান,বিশেষ সংবাদ দাতা মো:আবদুস সবুর রবিন, বিশেষ সংবাদ দাতা মো: সেলিম হোসেন রনি, সটাফ রিপোর্টার মাজহারুল ইসলাম বাপ্পি,স্টাফ রিপোর্টার মোঃ আলমগির, শেফরান আহমেদ, দৈনিক মুক্ত খবর পত্রিকার সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার এ আর হানিফ,দৈনিক আমাদের কন্ঠ পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার বজলুর রহমান।

দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার প্রকাশক রেশমি ভূইয়া আমন্ত্রিত সব অতিথিদের স্বাগত জানান।

আগামী দিনগুলোতে দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার সকল কার্যক্রম আরো বেগবান করার লক্ষ্যে সবাইকে একযোগে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান রেশমি ভূঁইয়া

আরও খবর



কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন

শ্রমিক সংকটে কৃষকের ভরসা কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন

প্রকাশিত:Thursday ১২ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১২০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার কৃষকদের মধ্যে আশার আলো হয়ে এসেছে অত্যাধুনিক ধান কাটা ও মাড়াইয়ের মেশিন কম্বাইন্ড হারভেস্টার।


চলতি বোরো মৌসুমে পুরোদমে ধান কাটা শুরু হলেও অতিবৃষ্টি আর শ্রমিক সংকটে বিপাকে পড়েন এ অঞ্চলের কৃষকরা।


অতিরিক্ত মূল্য দিয়েও মিলছে না শ্রমিক। তার ওপর পাকা ধানের জমিতে জমে আছে পানি।


অবশেষে হারভেস্টার মেশিনের সাহায্যে এ অঞ্চলের কৃষকরা রাত-দিনে ধান কেটে ঘরে তুলছেন। এতে শ্রমিক সংকট মেটানোর পাশাপাশি ধান উৎপাদন খরচও কমে এসেছে।


জানা গেছে, প্রতিবছর ইরি ও বোরো ধান কাটার মৌসুমে রায়গঞ্জের তাড়াশ অঞ্চলে শ্রমিকের চাহিদা বেড়ে যায়। চাহিদার পাশাপাশি বেড়ে যায় পারিশ্রমিকও।


এতে বোরো ধান উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। এজন্য কৃষকের দুশ্চিন্তা লাঘবে রায়গঞ্জে আনা হয়েছে কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন।


মেশিনটি অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে ধান কাটা ও মাড়াই করতে পারে। শুধু রোদে শুকিয়ে ধান ঘরে তুলতে হয়।


এ মেশিন দিয়ে খুব সহজেই এখন ধান ঘরে তুলতে পারছেন কৃষকরা। প্রতি ঘণ্টায় দুই থেকে তিন বিঘা জমির ধান কাটা যাচ্ছে। এতে ঘণ্টায় ৮ থেকে ১০ লিটার তেল খরচ হচ্ছে।


দুই বিঘা জমির ধান কাটতে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা খরচ হয়। অথচ শ্রমিক দিয়ে ধান কাটালে পাঁচ থেকে সাতজন শ্রমিক সারা দিনে এক বিঘা জমির ধান কাটতে পারেন। তাতে বিঘা প্রতি খরচ হয় তিন থেকে চার হাজার টাকা।


রায়গঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, উপজেলায় ১২টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি মেশিনের দাম ৩০-৩২ লাখ টাকা। সরকার প্রতিটি মেশিনের ওপর ১৪ লাখ টাকা ভর্তুকি দিয়েছে।


মেশিনের সাহায্যে ধান কেটে ও মাড়াই করে শুধুমাত্র রোদে শুকিয়ে ঘরে তুলতে হয়। চালক অভিজ্ঞ হলে ঘণ্টায় এক একর জমির ধানও কাটা সম্ভব। কিন্তু রায়গঞ্জে এখনও অভিজ্ঞ চালক না থাকায় ঘণ্টায় দেড় থেকে দুই বিঘা জমির ধান কাটতে পারছেন কৃষকরা। এছাড়া জমিগুলো সমতল হলে আরও বেশি ধান কাটা যেত।


প্রতিবছরই বোরো ধান কাটার সময় শ্রমিক সংকট তীব্র আকার ধারণ করে। এ কারণে সময় মতো ধান ঘরে তুলতে না পেরে বৃষ্টি ও অকাল বন্যাতে কৃষকের ধান নষ্ট হয়ে যায়। এখন কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন দিয়ে স্বল্প খরচে ধান ঘরে তোলা যাচ্ছে। এছাড়া আরও পাঁচটি রিপার মেশিন আনার চেষ্টা চলছে। তবে ওই মেশিন দিয়ে ধান কাটা যাবে কিন্তু মাড়াই করতে শ্রমিক লাগবে।


আরও খবর



নাসিরনগরে ইউপি চেয়ারম্যানকে কটুক্তি করার প্রতিবাদে দুই দল গ্রামবাসীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ

প্রকাশিত:Monday ০২ May 2০২2 | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৩১০জন দেখেছেন
Image


নিজস্ব প্রতিনিধিঃ-

৩০ এপ্রিল ২০২২ রোজ শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও শ্রীঘর গ্রামের সরদার গোষ্ঠীর মহরম আলীর ছেলে আনু মিয়া (৩৩) বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল চৌধুরীকে নিয়ে কটুক্তি করলে একই গ্রামের মাঝিবাড়ি গোষ্ঠীর ইদ্দিস আলী সরদারের ছেলে  রফিক মিয়া প্রতিবাদ করলে দুইজনের মাঝে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়।


 পরে এ নিয়ে দুপুর অনুমানিক আড়াই ঘটিকা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ ঘটিকা পর্যন্ত শ্রীঘর গ্রামের বইলার বাড়ি সংলগ্ন পুকুর পাড়ে সরদার গোষ্ঠী ও মাঝিবাড়ির লোকজনের মাঝে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ চলে। সংঘর্ষে মাঝিবাড়ি গোষ্ঠীর ১৫/২০ জন ও সরদার গোষ্ঠীর প্রায় ৬০/৭০ জন লোক আহত হয়,আহতদেন মাঝে ২/৩ জনের অবস্থা আশংকাজনক। 


সংঘর্ষের খবর পেয়ে নাসিরনগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে।


আহতদের কিছু অংশ পার্শ্ববর্তী হবিগঞ্জ জেলা সরকারি হাসপাতালে এবং কিছু অংশ নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন।


নাসিরনগর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল্লাহ সরকার জানান, পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।


আরও খবর