Logo
আজঃ শনিবার ২৫ মে ২০২৪
শিরোনাম

এডিসি হারুন ও সানজিদার দায় পেয়েছে তদন্ত কমিটি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ১৯৩জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :রাজধানীর শাহবাগ থানায় নিয়ে ছাত্রলীগের দুই কেন্দ্রীয় নেতাকে বেধড়ক পেটানোর ঘটনায় এডিসি হারুনের দায় পেয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তদন্ত কমিটি। এছাড়া এডিসি সানজিদা আফরিন, তার স্বামী রাষ্ট্রপতির এপিএস আজিজুল হক এবং ছাত্রলীগ নেতাদেরও দায় পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে তদন্ত কমিটি। 

ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জেরেই এমন ঘটনা ঘটেছে। যা পুলিশ ও প্রশাসনের সুনাম ক্ষুণ্ন করেছে বলে করছে তদন্ত কমিটি। 

গত ৯ সেপ্টেম্বর রাতে বারডেম হাসপাতাল থেকে তুলে নিয়ে শাহবাগ থানা হেফাজতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতাদের নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে পুলিশের রমনা বিভাগের তখনকার অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (এডিসি) হারুন অর রশিদের বিরুদ্ধে।

এই ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি করে ডিএমপি। কমিটির সভাপতি ডিএমপি সদর দফতরের উপপুলিশ কমিশনার (অপারেশনস) আবু ইউসুফ। অপর দুই সদস্য হলেন রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (নিউমার্কেট জোন) শাহেন শাহ এবং অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা-মতিঝিল বিভাগ) মো. রফিকুল ইসলাম।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, হাসপাতাল থেকে নেয়ার পর শাহবাগ থানার ওসির কক্ষে আটকে ছাত্রলীগের তিন নেতাকে মারধর করে পুলিশ। এডিসি হারুনের নেতৃত্বে শাহবাগ থানার পরিদর্শক গোলাম মোস্তফাসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য ছাত্রলীগ নেতাদের মারধর করেন। কমিটি এরইমধ্যে সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষ করেছে। ঘটনাস্থল বারডেম হাসপাতালের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজও সংগ্রহ করেছে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এ ঘটনায় যাদের যতটুকু দায় পাওয়া গেছে, তদন্ত প্রতিবেদনে তা উল্লেখ করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে ঘটনার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব উল্লেখ করা হয়েছে। কাউকে ছাড় দেয়া হয়নি। ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

এই তদন্ত কমিটির ১৩ সেপ্টেম্বর প্রতিবেদন দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ওই দিন তদন্ত শেষ করতে না পারায় ডিএমপি কমিশনারের কাছে আরও পাঁচ দিন সময় চায় কমিটি। পরে তাদের পাঁচ দিন সময় দেওয়া হয়। মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য আরও সাত দিন সময় বাড়ানো হয়েছে।


আরও খবর



বিডিইউ’তে অতিরিক্ত ফি আদায় শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন, বিক্ষোভ

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মে ২০24 | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ২১জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটিতে (বিডিইউ) শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত সেমিস্টার ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ওই অতিরিক্ত ফি  কমানোর দাবিতে ক্লাস বর্জন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা। রোববার সকালে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিডিইউ’র একাডেমি ক্যাম্পাসের সামনে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। 

এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থী সূত্রে জানা গেছে, গাজীপুরের কালিয়াকৈরে দেশের প্রথম ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থান করে আওয়ামী সরকার। নামকরণ করা হয় বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি। কিন্তু শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তাদের সেমিস্টার ফি অতিরিক্ত টাকা আদায় করে নিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ওই অতিরিক্ত ফি কমানোর দাবীতে রোববার সকালে ক্লাস বর্জন করে শিক্ষার্থীরা। পরে তারা সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচী পালন করে। এসময় অতিরিক্ত ফি কমানো, শিক্ষার্থী বান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতসহ বিভিন্ন দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করে বিক্ষুব্দ শিক্ষার্থীরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের অলিউর রহমান, শাহরিয়ার কবির  সজীব, সাজিদ আমিন, মাহমুদুল ইসলাম, ফখরুল হাসান ফয়সাল, প্রীতম ভৌমিক, প্রতিভা সাহা, আশুরা জাহান, জিন্না জামান মাহি, নায়লা তাবাসসুম, জান্নাতুল ফেরদৌস রাত্রিসহ প্রায় ১৭৪ জন শিক্ষার্থী।  

এসময় শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের দোহাই দিয়ে শুরু থেকেই অতিরিক্ত বিভিন্ন ফিসহ সেমিস্টার ফি নেওয়া হচ্ছে। এসব বিষয়ে এর আগেও আন্দোলন করা হয়েছিল। তখন কর্তৃপক্ষ আমাদের আশ^াস দেওয়া হয়েছিল, ফাইনাল পরিক্ষার আগেই ফি কমানোর বিষয়ে একটা সিদ্ধান্ত আসবে। কিন্তু আট বছর অতিবাহিত হলেও সেশন ফি কমানো হয়নি। আগামী সপ্তাহে আমাদের পরিক্ষা। অতিরিক্ত ফি কমানোর বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। এছাড়াও আমাদের ৬ মাসের জন যে সেমিস্টার ফি নেওয়া হচ্ছে। সেটা ১০ হাজার টাকা। আমরা জানি অন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএনসি শেষ করতে মোট এত বেিিশ টাকা দিয়ে থাকে। আমরা বছরে যে টাকা দিচ্ছি, অন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চার বছরেও ওই টাকা দিচ্ছে না। আর আমাদের অতিরিক্ত যে পাঁচ হাজার টাকার হিসাবও দেওয়া হচ্ছে না। তাই আমরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যতক্ষন পযন্ত আমাদের সেমিস্টার ফি কমানো হচ্ছে এবং সে বিষয়ে লিখিত কোনো সিদ্ধান্ত না আসছে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা সকল ধরণের ক্লাস বর্জন করে এখানে অবস্থান কর্মসূচী পালন করবো। অপর দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে স্ট্রাকচার অনলাইনে গেলে দেখা যাবে সুন্দর স্ট্রাকচার করা হয়েছে। এটা আট বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ করা হয়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৌহিত্র সজিব ওয়াজেদ জয় সাহেবের স্বপ্নের বিশ্ববিদ্যালয়। বঙ্গবন্ধুর নামে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এই রকম প্রহশন চলতেছে। যেগুলো বাস্তবায়ন হতে আমরা এখনো দেখছি না। আমাদের ক্যাম্পাসের যে স্থানটা বর্তমানে সেখানে ময়লা ফেলা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যায় এগুলো বিরুদ্ধে কোনো হস্তক্ষেপ গ্রহণ করেনি। বিদ্যুতের সমস্যা জেনারেটর ঠিকমতো থাকে না। ক্লাসে গরমে খুব সমস্যা হচ্ছে। এসব বিষয়ে এটা আমাদের নায্য আন্দোলন।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি’র জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম জানান, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে মিল রেখে এই ফি ধরা হয়েছে। তারপরও এ সমস্যা সৃষ্টি কারণে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ওই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন পেলে মাননীয় উপচার্য এই সমস্যার সমাধান করবেন।


আরও খবর



কলারোয়ায় স্থানীয় সম্পদ আহরণ ও বাজেট ব্যবস্থাপনা কোর্স সমাপ্তি,সনদপত্র বিতরণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | ৫১জন দেখেছেন

Image
কলারোয়া(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি:সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউট (এনআইএলজি)র উদ্যোগে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, সদস্য, সচিবগণের ২দিনব্যাপি স্থানীয় সম্পদ আহরণ ও বাজেট ব্যবস্থাপনা কোর্স সমাপ্তি হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৯মে) বিকেলে সমাপনি অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কৃষ্ণা রায় ওই সনদপত্র বিতরণ করেন। উপজেলা প্রশিক্ষণ সেন্টারে বুধবার থেকে ওই কোর্স অনুষ্ঠিত হয় আর বৃহস্পতিবার শেষ হয়। উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ১৬৮জন চেয়ারম্যান, সদস্য, সচিব ওই কোর্সে অংশ গ্রহন করেন। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কৃষ্ণা রায় বলেন-স্থানীয় সরকারের অধিনে চেয়ারম্যান, সদস্য, সচিবগণদের দক্ষতা বৃদ্ধি, ইউনিয়ন পরিষদের রাজস্ব আয়, আহারণ ও বাজেট ব্যবস্থাপনা সহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর ওই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। তিনি আরো বলেন-সঠিকভাবে বৈধ খাত থেকে আয়  যেমন-কর, ইজারা  থেকে  আয় দ্বারা  সকল নাগরিকের  সমান  সেবা প্রদান করা  ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্ব এবং কর্তব্য। এজন্য জনগণের সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া আপনাদের কর্তব্য।

আরও খবর



৫ জেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ সোমবার

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ১৬৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আগামীকাল (সোমবার) দেশজুড়ে চলমান তাপদাহের কারণে পাঁচ জেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

রোববার (২৮ এপ্রিল) রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের এক বার্তায় এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, চলমান তাপদাহের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং আবহাওয়া অধিদপ্তরের সঙ্গে পরামর্শক্রমে ঢাকা, চুয়াডাঙ্গা, খুলনা, যশোর ও রাজশাহী জেলার সকল মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামীকাল সোমবার (২৯ এপ্রিল) বন্ধ থাকবে।

তবে যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা আছে সেসব প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ চাইলে তাদের স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা খোলা রাখতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

জানা যায়, দেশজুড়ে চলমান তাপদাহের কারণে রোববার (২৮ এপ্রিল) থেকে নতুন করে ৭২ ঘণ্টা বা তিন দিনের হিট অ্যালার্ট (তাপপ্রবাহ) জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সতর্কবার্তায় বলা হয়, দেশের ওপর দিয়ে চলমান তাপপ্রবাহ আজ ২৮ এপ্রিল থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা অর্থাৎ ১ মে সকাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। এই সময়ে জলীয়বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বাড়তে পারে বলে জানায় আবহাওয়া অফিস।

এর আগে, গত ১৯ এপ্রিল থেকে তিন দফা ৭২ ঘণ্টা করে তাপপ্রবাহের সতর্কতা জারি করে আবহাওয়া অফিস।

এদিকে গরমের কারণে ঈদের ছুটির পর থেকে বন্ধ ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে রোববার (২৮ এপ্রিল) থেকে প্রাক-প্রাথমিক ছাড়া বাকি সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়। তবে তাপপ্রবাহ সহনীয় পর্যায়ে না আসা পর্যন্ত অ্যাসেম্বলি বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়।


আরও খবর



গাংনীতে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের সমাপনী ঘোষণা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃমেহেরপুরের গাংনীতে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের সমাপনী ঘোষণা করা হয়েছে। আজ বৃহষ্পতিবার দুপুরে প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত থেকে পুষ্টি সপ্তাহের সমাপ্তি ঘোষণা করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথী গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রীতম সাহা।

গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার সুপ্রভা রাণীর সভাপতিত্বে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথী ছিলেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুর রউফ ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাসিমা খাতুন।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার আব্দুল আল মারুফ, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুর রউফ, গাংনী প্রেসক্লাব সহ- সভাপতি মজনুর রহমান আকাশ, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলম প্রমূখ। 

অনুষ্ঠানে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক, সিএইচসিপিসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীগন উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



রাজধানীর বাড্ডায় ঘিরে রাখা বাড়ি থেকে ৬৫ হাতবোমাসহ আটক ৩

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | ৬৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:৬৫টি হাতবোমা উদ্ধার ও তিনজনকে রাজধানীর পূর্ব বাড্ডার টেকপাড়া এলাকায় ঘিরে রাখা বাড়ি থেকে আটক করেছে করেছে র‌্যাব।

সেখানে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে আটকও করা হয়েছে। তারা হলেন- ফাহিম, লিমন ও আকুল।

বুধবার (২২ মে) রাতে ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফিরোজ কবীর।

এর আগে রাত ৯টার দিকে বোমা তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়ে বাড়িটি ঘিরে রাখে র‌্যাব।

র‌্যাবের অধিনায়ক জানান, আটকদের সবাই জুতার কারখানায় কাজ করেন। বোমা তৈরির জন্য সজীব নামে একজনের মাধ্যমে ২৬ হাজার টাকার বিনিময়ে তাদের চুক্তি হয়। অনাবিল বাসে করে বুধবার রাতেই বোমাগুলো গাজীপুর পাঠানোর কথা ছিল। তাদের কাছে শুধু তথ্য ছিল এ বোমাগুলো মাছুম নামে একজন সংগ্রহ করবে। মাছুমই ক্রেতা ঠিক করে দেয়। এর আগেও ডেমরা, সাভার ও বাড্ডায় বোমা তৈরির চেষ্টা করেছিলেন সজীব। এসব বোমা তারা সারাদেশে সরবরাহ করেন।

তিনি বলেন, বোমার গঠন, আকার, ওজন বিবেচনা করে বোম্ব ডিস্পোজাল ইউনিট বুঝতে পেরেছে এগুলো ককটেলের মতো নয়। এসব বোমা অনেক শক্তিশালী। ট্রিগার মেকানিজমের বোমা এগুলো। হাওয়াতেই ব্লাস্ট করা সম্ভব। প্রায় ৩০ মিটার জায়গায় প্রভাব বিস্তার করতে পারতো এগুলো, যা অত্যন্ত বিপজ্জনক।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফিরোজ কবীর বলেন, ধারণা করা হচ্ছে উপজেলা নির্বাচন ও ঈদ ঘিরে নাশকতার পরিকল্পনা ছিল। সজীবকে খুঁজে বের করা হবে। এছাড়া বাড়ির মালিককে খোঁজা হচ্ছে।


আরও খবর