Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

দূষিত বাতাসের শহরের তালিকার শীর্ষে ঢাকা

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৬০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকার বাতাসের মান আজ শনিবার ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’। তবে দূষণের মাত্রা গতকালের শুক্রবার চেয়ে বেশি। আইকিউ এয়ারের সূচকে আজ ঢাকার স্কোর ২৫৫ যা গতকাল ছিল ২২১। ২০০-এর বেশি স্কোর নিয়ে গতকালের মতো আজও একই শ্রেণিতে রয়েছে ভারতের মুম্বাই।

সকাল সাড়ে ৮টায় এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের তালিকায় দেখা যায়, এর পরের স্থানগুলোতে রয়েছে যথাক্রমে চীনের বেইজিং ও উহান, থাইল্যান্ডের চিয়াংমাই, মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুন, নেপালের কাঠমান্ডু, পাকিস্তানের লাহোর, চীনের সেনইয়াং এবং হাংঝু।

আইকিউ এয়ারের ওই তালিকায় মোট ছয়টি শ্রেণিতে রাখা হয়েছে বিশ্বের ১০০টি শহরকে। ওই তালিকায় সবচেয়ে খারাপ অবস্থান হলো ‘বিপজ্জনক’। কোনো শহরের স্কোর ৩০১-এর বেশি হলে তাকে ‘বিপজ্জনক’ স্থানে রাখা হয়। আজ ওই অবস্থানেই নেই কোনো শহর।

এরপরের স্থানগুলো যথাক্রমে খুবই অস্বাস্থ্যকর (২০১-৩০০), অস্বাস্থ্যকর (১৫১-২০০), বিশেষ ব্যক্তিদের জন্য অস্বাস্থ্যকর (১০০-১৫০), সহনীয় (৫১-১০০) এবং ভালো বায়ু (০-৫০)।

তালিকা অনুযায়ী, ভালো বায়ুর তালিকায় চার স্কোর নিয়ে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সল্ট লেক সিটি।


আরও খবর



ভারী বৃষ্টিতে ডুবল সিলেট, ম্লান ঈদ আনন্দ

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঈদের দিন ভোর থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টার ভারী বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে মহানগরসহ সিলেট জেলার বিভিন্ন উপজেলার ঈদগাহ ও সড়ক। পাহাড়ি ঢলে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি। প্রায় ৬ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এতে ঈদুল আজহার আনন্দ অনেকটাই মাটি হয়েছে। বৃষ্টির পানিতে ঈদগাহ ও মসজিদ ভেসে যাওয়ায় অনেকে ঈদের নামাজ আদায় করতে পারেননি। এমনকি পশু কোরবানি করা নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

সোমবার দেশের বিভিন্ন জেলায় ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিল। এদিন সিলেটে ভোর ৪টা থেকে সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত টানা বর্ষণ চলে।

সরেজমিনে দেখা যায়, নগরীর প্রধান প্রধান সড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। অনেকের বাসাবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকেছে। আবার শুকনা স্থান না পাওয়ার ফলে অনেকেই কোরবানির গরু-ছাগল পানির মধ্যে বেঁধে রেখেছেন। এ ছাড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

ইতোমধ্যে বন্যা আক্রান্তদের জন্য ৪৪৯টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। জানা গেছে, আজ সকাল পর্যন্ত কোম্পানীগঞ্জ, গোয়ানঘাট, কানাইঘাটসহ কয়েকটি উপজেলায় ১০ হাজারের মতো মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছেন।

এদিকে সকাল ৮টায় ভারী বৃষ্টি মাথায় নিয়েই শাহী ঈদগাহে সিলেটে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবছর এই জামাতে লক্ষাধিক মুসল্লি অংশ নিলেও এবার ব্যতিক্রম ছিল। শুধু শাহী ঈদগাহ নয়, প্রতিটি মসজিদ ও ঈদগাহের একই অবস্থা ছিল। সকাল ৮টায় পুলিশ লাইন জামে মসজিদে পানি প্রবেশ করায় একাংশে নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে মুসল্লিদের।

একইভাবে মেজরটিলা, কদমতলী, বিমানবন্দর সড়ক, উপশহর, সুবহানিঘাটসহ বেশ কয়েকটি এলাকার ঈদগাহ ও মসজিদে পানি প্রবেশ করায় নামাজ আদায়ে ব্যাঘাত ঘটে।


আরও খবর



রূপগঞ্জের তিন চাকার পরিবহনের চালকদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৭৯জন দেখেছেন

Image

আবু কাওছার মিঠু রূপগঞ্জ(নারায়ণগঞ্জ)সংবাদদাতা:নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ইউনিয়নের রিক্সা, অটোরিক্সা, সিএনজি চালিত আটোরিক্সাসহ তিন চাকা বিশিষ্ট পরিবহনের ১ হাজার ৮শত চালকের মধ্যে গতকাল ৯জুন রবিবার এক হাজার টাকা করে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীকের নির্দেশনায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি গাজী গোলাম মূর্তজা পাপ্পার পক্ষে রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ ছালাউদ্দিন ভুঁইয়াএ সকল অর্থ বিতরণ করেন।

আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে পূর্বাচলের জনতা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এ বিতরণী সভায় সভাপতিত্ব করেন রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ ছালাউদ্দিন ভুঁইয়া। 

সভায় বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক, রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিব, ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসী আক্তার রিয়া, রূপগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এম এ মোমেন, রূপগঞ্জ উপজেলা প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাছুম চৌধুরী অপু, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আরিফ খাঁন জয়, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক লাকী আক্তার, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোন্তাজ উদ্দিন, জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোক্তার হোসেন, যুবলীগ নেতা ওসমান গনি, রিপন ভুঁইয়া, ইউপি সদস্য আলমীগর হোসেন, অটোচালক নিম্বর আলী, সেরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

পরে তিন চাকা বিশিষ্ট পরিবহনের চালকদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



কালিয়াকৈরে প্রকাশ্যে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা,আহত-১

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৫জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সরকারী এক কলেজের এইচএসসি পরিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের এক নেতাকে প্রকাশ্যে এলোপাথারি কুপিয়ে হত্যা করেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় কুপিয়ে অপর এক ছাত্রলীগ নেতাকে গুরুতর জখম করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার চন্দ্রা ডাইনকিনি এলাকায় ওই কলেজের পাশে এ ঘটনা ঘটে। নিহত হলো, কালিয়াকৈর উপজেলার বরিয়াবহ এলাকায় মোতালেব হোসেনের ছেলে আল আমিন হোসেন (১৯)। সে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সরকারী কলেজের ডিগ্রী ১ম বর্ষের ছাত্র ও ওই কলেজের দ্বাদশ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিল। অপর আহত হলো, ওই শাখা ছাত্রলীগের সদস্য কামরুল হাসান (১৯)। তাৎক্ষনিকভাবে তার ঠিকানা পাওয়া যায়নি।

এলাকাবাসী, সহকর্মী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার কালিয়াকৈর উপজেলার জাতির বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজের এইসএসসি পরিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ছিল। ওই বিদায় বেলার অনুষ্ঠানে সাউন সিস্টেমকে কেন্দ্র করে ওই সরকারী কলেজ শাখার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান গ্রুপের সঙ্গে দ্বাদশ শ্রেনী শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আল আমিন গ্রুপের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতৃ বৃন্দ ও কলেজ কর্তৃপক্ষ মিলে ওই দু-গ্রুপের মধ্যে বিষয়টি মিমাংসার কথা বলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ওই ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের দু- গ্রুপ নিয়ে বসার কথা ছিল। কিন্তু এর আগেই বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার চন্দ্রা ডাইনকিনি এলাকায় ওই কলেজের পাশে দ্বাদশ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আল আমিন ও কামরুলকে পেয়ে প্রকাশ্যে এলোপাথারী কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তাদের গ্রুপের সদস্যদের অভিযোগ, বিদায়ী অনুষ্ঠানের সংঘর্ষের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কালিয়াকৈর ছাত্রলীগের সভাপতি ও ওই কলেজের ডিগ্রি তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইমন খান ও ওই কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানের নেতৃত্বে সাকিব, হৃদয়, আকাশ, কাউসার, আলামিনসহ বেশকিছু ছাত্রলীগের নেতাকর্মী দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপারী কুপিয়ে তাদের জখম করে।

পরে আহতদের ফেলে রেখে হামলাকারী ছাত্রীলীগের নেতাকর্মীরা একটি বাসে উঠে সাভারের দিকে চলে যায়। এসময় ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে গিয়ে গুরুতর অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই ছাত্রলীগ নেতা আল আমিনকে মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়াও গুরুতর আহত কামরুল হাসানকে উন্নত চিকিৎসক জন্য টাঙ্গাইলের মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে নেওয়া হয়। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর থানার ওসি এএফএম নাসিম ও তদন্ত ওসি তরিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশ হাসপাতাল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। তবে এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

ওই সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সুফিয়া বেগম জানান, শিক্ষার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিদায় অনুষ্ঠান করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোন ধরণের র‌্যাগ-ডে পালনের অনুমতি দেওয়া হয়নি। সেই অনুষ্ঠানে কিছু অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনার জেরে একটি পক্ষ হামলা চালিয়ে এক ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়াও অপর এক ছাত্রকে আহত করা হয়।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম নাসিম ওই নিহতের লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চি করে জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সরকারী কলেজের এইএসসি পরিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে দুই গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে তাদের সিনিয়র ও কলেজের শিক্ষকরা বিষয়টি মিমাংসা করার কথা ছিল। তবে তদন্ত শেষে হত্যাকান্ডের প্রকৃত কারণ উদঘাটন হবে। এছাড়াও এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



ঈদুল আজহা কবে, জানাল আবহাওয়া অধিদপ্তর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পবিত্র ঈদুল আজহা মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব বা কুরবানির ঈদ। কবে ঈদ হতে পারে তা নিয়ে মানুষের আগ্রহের কমতি থাকে না। এর মধ্যে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, এবার ১৭ জুন ঈদুল আজহা উদযাপিত হতে পারে।

জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এ তারিখ জানায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। তবে এর আগে চাঁদের স্থানাঙ্ক জানাল বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সরকারি সংস্থাটির হিসাব অনুযায়ী, শুক্রবার বাংলাদেশের আকাশে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ার কথা। সেক্ষেত্রে দেশে আগামী ১৭ জুন ঈদুল আজহা উদযাপিত হতে পারে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে জানা যায়, ঈদুল আজহা উদযাপনের তারিখ নির্ধারণে আগামী শুক্রবার মাগরিবের নামাজের পর রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে সভায় বসবে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের সভায় সভাপতিত্ব করার কথা রয়েছে। সেখানে চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে ইসলামী শরিয়ত অনুযায়ী, চন্দ্র মাস শুরু হাওয়ার ক্ষেত্রে খালি চোখে চাঁদ দেখার শর্ত রয়েছে।

শুক্রবার চাঁদ দেখা গেলে শনিবার (৮ জুন) জিলহজ মাস শুরু হবে। এক্ষেত্রে আগামী ১৭ জুন (১০ জিলকদ, সোমবার) দেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। এক্ষেত্রে জিলকদ মাস ২৯ দিনেই শেষ হবে। শুক্রবার চাঁদ দেখা না গেলে শনিবার জিলকদ মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হবে। তখন জিলহজ মাস শুরু হবে রোববার (৯ জুন)। সেক্ষেত্রে ১৮ জুন (মঙ্গলবার) দেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে।


আরও খবর



তাহিরপুর সীমান্তের কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা: বেড়েছে চোরাচালান

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে সোর্স ও তাদের গডফাদার সিন্ডিকেডের মাধ্যমে প্রতিদিন ভারত থেকে ওপেন মাদকদ্রব্য, কয়লা, চুনাপাথর, চিনি, পেয়াজ, গরু, ঘোড়া, বাঁশ, কাঠ ও বিড়িসহ বিভিন্ন মালামাল পাচাঁরের পর সাংবাদিক, পুলিশ ও বিজিবির নাম ভাংগিয়ে চাঁদাবাজি করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সম্প্রতি পুলিশ অভিযান চালিয়ে পাচাঁরকৃত অবৈধ কয়লা বোঝাই ৫টি নৌকা আটককের পর ছেড়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে। তাই সীমান্ত চোরাকারবারীদের গডফাদার ও সোর্স বাহিনীকে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের উপরস্থ কর্মকর্তাদের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- গতকাল শনিবার (২২ জুন) ভোরে উপজেলার বীরেন্দ্রনগর সীমান্তের সুন্দরবন ও লামাকাটা এলাকা দিয়ে সোর্স মস্তোফা ও লেংড়া জামালগং ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা এলাকা দিয়ে সোর্স লেংড়া জামাল, জঙ্গলবাড়ি এলাকা দিয়ে সোর্স আইনাল মিয়া, রিপন মিয়া, সাইফুল মিয়া, কলাগাঁও এলাকা দিয়ে সোর্স রফ মিয়া,দীপক মিয়া, চারাগাঁও এলসি পয়েন্ট ও বাঁশতলা এলাকা দিয়ে সোর্স আনোয়ার হোসেন বাবলু, সোহেল মিয়া, বাবুল মিয়া ও লালঘাট এলাকা দিয়ে রুবেল মিয়াগং পৃথক ভাবে ১৫টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৪শ মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার ব্রিজের কাছে নিয়ে। এরআগে গত শুক্রবার (২১ জুন) রাত ২টায় একই ভাবে ওই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনী ১৮টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৫শ মেঃটন কয়লা, গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) ভোরে ২০টি নৌকা বোঝাই করে পাচাঁরকৃত ৬শ মেঃটন কয়লা ও চুনাপাথরসহ চিনি, পেয়াজ পাচাঁর করে নিয়ে যায়। তবে গত বুধবার (১৯ জুন) ভোরে একই ভাবে ওই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনী ৩০টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে পাচাঁরকৃত প্রায় ১হাজার মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫টি নৌকা আটক করে। এরপরে গডফাদার তোতলা আজাদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে আটককৃত কয়লা বোঝাই ইঞ্জিনের নৌকাগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। তার আগে গত মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাত ১টায় ২৫টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৭শ মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে গডফাদার ও তার সোর্সরা। একই ভাবে গত ৫দিনে পাশের বালিয়াঘাট সীমান্ত দিয়ে সোর্স জিয়াউর রহমান জিয়া, মনির মিয়া, ইয়াবা কালাম মিয়া, হোসেন আলী, রতন মহলদার, কামারুল মিয়াগং প্রায় ৫হাজার মেঃটন ও টেকেরঘাট সীমান্তের চুনাপাথর খনি প্রকল্প, নিলাদ্রী লেক, বুরুঙ্গাছড়া, রজনী লাইন ও বড়ছড়া এলাকা দিয়ে সোর্স আক্কল আলী, রুবেল মিয়া, মহিবুর মিয়া, সাইদুল মিয়া প্রায় ৭ হাজার মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করাসহ পাশের চাঁনপুর সীমান্তের নয়াছড়া, রাজাই, কড়ইগড়া ও বারেকটিলা এলাকা দিয়ে সোর্স জামাল মিয়া, নজরুল মিয়া, বুটকুন মিয়া, সাহিবুর মিয়াগং ১২হাজার মেঃটন কয়লা, চুনাপাথর, শতাধিক গরু, ঘোড়া ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করাসহ লাউড়গড় সীমান্তের যাদুকাটা নদী, সাহিদাবাদ, পুরান লাউড়, দশঘর এলাকা দিয়ে সোর্স বায়েজিদ মিয়া, জসিম মিয়া, রফিক মিয়া ও নুরু মিয়াগং বিপুল পরিমান কয়লা, পাথর, গরু, ঘোড়া, পেয়াজসহ বিভিন্ন মালামাল পাচাঁর করেছে বলে জানাগেছে। কিন্তু পাচাঁরকৃত অবৈধ মালামাল আটক করা কিংবা সোর্স ও তাদের গডফাদারকে গ্রেফতারের কোন খবর পাওয়া যায়নি। অথচ সুনামগঞ্জে পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ও তাহিরপুর থানায় ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার কর্মরত থাকাকালীন সময় সীমান্তে অভিযান চালিয়ে গডফাদার তোতলা আজাদের ছেলে কিশোর গ্যাংলিডার সিহাব সারোয়ার শিপুসহ তার অর্ধশতাধিক সোর্সকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানোসহ জব্দ করা হয়েছিল কয়েক কোটি টাকার অবৈধ কয়লা, চুনাপাথর, মোটর সাইকেল ও বালি বোঝাই ইঞ্জিনের নৌকা। এছাড়াও তোতলা আজাদের বাড়ি কামড়াবন্দসহ লাউড়গড়, শিমুলতলা, বিন্নাকুলি, বালিজুরী, তাহিরপুর সদর ও ফকির নগর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা, মদ, গাঁজা ও নাসির উদ্দিন বিড়িসহ জুয়ার বোর্ড থেকে তোতলা আজাদের শতাধিক লোকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। কিন্তু ওই দুই কর্মকর্তা অন্যত্র বদলি হয়ে যাওয়ার পর সবকিছু উন্মুক্ত হয়ে যায়। গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার সোর্স বাহিনীর দাপট বেড়ে যায় এবং ভারত থেকে অবৈধ ভাবে বিভিন্ন মালামাল পাচাঁরের পর সাংবাদিক, পুলিশ ও বিজিবির নাম ভাংগিয়ে সোর্স দিয়ে ওপেন চাঁদাবাজি করে বর্তমানে গডফাদার তোতলা আজাদ প্রায় ১৫ কোটি, তার সোর্স আক্কল আলী ৫কোটি, রতন মহলদার ২কোটি, কামরুল মিয়া ১কোটি, ইয়াবা কালাম ৭কোটি, জিয়াউর রহমান জিয়া ৬কোটি, বাবুল মিয়া  ২কোটি, রফ মিয়া ৮ কোটি, আইনাল মিয়া ১১কোটি টাকার মালিক হয়েছে। তাদের নেতৃত্বে চোরাচালান করতে গিয়ে এপর্যন্ত চারাগাঁও সীমান্তে ১২জন,বালিয়াঘাট সীমান্তে ৩৩জন,টেকেরঘাট সীমান্তে ১৫জন,চাঁনপুর সীমান্তে ৮জন ও লাউড়গড় সীমান্তে ৪৮জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানাগেছে। তারপরও গডফাদার ও তার সোর্সরা রয়েগেছে অধরা।

এব্যাপারে তাহিরপুর কয়লা ও চুনাপাথর আমদানী কারক সমিতির আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের বলেন- সীমান্ত চোরাচালানের কারণে একদিকে কোটিকোটি টাকার সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে,অন্যদিকে বৈধ ব্যবসায়ীরা সীমাহীন ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে। এব্যাপারে প্রশাসনের স্থানীয় কর্মকর্তাদেরকে বারবার অবগত করার পরও তারা কোন পদক্ষেপ নেয়না। এউপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও আওয়ামীলীগ নেতা কফিল উদ্দিন বলেন-রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রতিদিন ভারত থেকে ওপেন গরু, কয়লা ও চুনাপাথরসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য পাচাঁর করা হচ্ছে। কিন্তু বিজিবি ও পুলিশ এব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেয়না। সুনামগঞ্জ জেলার সিনিয়র সাংবাদিক মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া বলেন- সীমান্ত চোরাচালানের বিষয়ে বিজিবি ক্যাম্প গুলোতে ফোন করে বারবার জানানোর পরও তারা কোন পদক্ষেপ নেয়না। তাই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনীকে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের উপরস্থ কর্মকর্তাদের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন।

তাহিরপুর থানার ওসি কাজী নাজিম উদ্দিন বলেন- সীমান্ত চোরাচালান বন্ধের দায়িত্ব বিজিবির, তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। এব্যাপারে চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার শফিকুল ও চাঁনপুর বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার আব্বাস বলেন- তাদের সীমান্ত দিয়ে কোন কিছু পাচাঁর হলে, জানালে তারা ব্যবস্থা নেবে। সুনামগঞ্জে টেকেরঘাট কোম্পানী কমান্ডার নায়েব সুবেদার দিলীপ বলেন- আমার সীমান্ত এলাকা দিয়ে কোন কিছু পাচাঁর হওয়ার খবর আমি পাইনা।


আরও খবর