Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

ঢাকা আজ বায়ুদূষণে ষষ্ঠ স্থানে

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৮০জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক:বিশ্বের দূষিত বায়ুর শহরের তালিকায় ঢাকার অবস্থান আজ ষষ্ঠ। আজ শনিবার সকাল ৮টা ৪০ মিনিটে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) অনুযায়ী ঢাকার স্কোর ১২৪। বায়ুর এ মান সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য ‘অস্বাস্থ্যকর’। গতকাল শুক্রবার এ তালিকায় ঢাকার অবস্থান ছিল চতুর্থ।      

এদিকে ১৬৮ স্কোর নিয়ে আজ বিশ্বের ১০০ শহরের মধ্যে বায়ুদূষণে শীর্ষে আছে চীনের বেইজিং শহর। ১৫৪ এবং ১৫১ একিউআই স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে আছে দক্ষিণ ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা এবং দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ। চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তানের লাহোর, স্কোর ১৪৪। ১৩৪ স্কোর নিয়ে পঞ্চমে রয়েছে চীনের আরেক শহর চংকিং।

একিউআই স্কোর ১০১ থেকে ১৫০ হলে সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য ‘সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়। ১৫১ থেকে ২০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বলে মনে করা হয়। ২০১ থেকে ৩০০ একিউআই স্কোরকে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ বলে মনে করা হয় এবং ৩০১ থেকে ৪০০ একিউআই স্কোরকে ‘ঝুকিপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

দীর্ঘদিন ধরে বায়ুদূষণে ভুগছে ঢাকা। এর বাতাসের গুণমান সাধারণত শীতকালে অস্বাস্থ্যকর হয়ে যায় এবং বর্ষাকালে কিছুটা উন্নত হয়।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ঢাকার বায়ুদূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলো।


আরও খবর



আত্রাইয়ে অনুষ্ঠিত ভোট নিয়ে অভিযোগ; সংবাদ সন্মেলনে চাইলেন প্রতিকার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:নওগাঁর আত্রাইয়ে অনুষ্ঠিত ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ ৩য় ধাপের অনুষ্ঠিত নির্বাচন নিয়ে একধিক অভিযোগ তুলেছেন আফছার আলী প্রামানিক নামে এক ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি ওই নির্বাচনে তালা প্রতিকে নির্বাচন করেছেন। তার অভিযোগ ভোট গণনায় অনিয়ম করা হয়েছে। এমন অভিযোগে শুক্রবার (৩১ মে) সকালে আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ভূক্তভোগী আফছার আলী প্রামানিক তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেন। এছাড়া এর আগে প্রতিকার চেয়ে তিনি গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন। 

সংবাদ সম্মেলনে প্রার্থী আফছার আলী দাবি করে বলেন, গত ২৯মে আত্রাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই নির্বাচনে উপজেলার জনগণ স্বত:স্ফূর্ত ভাবে আমাকে ভোট প্রদান করেছেন। কিন্তু ৬৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ছয়টি কেন্দ্রে ভোট গণনায় তার প্রতি চরম অন্যায় এবং অবিচার করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় তিন হাজার ৮১০ভোট বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যায় এবং শতকরা হারে গড়মিল রয়েছে। তিনি বলেন, একজন ভোটার যখন ভোট দিতে যায় তখন তাকে তিনটি পদে তিনটি ব্যালট পেপার দেয়া হয়। এতে তিনটি পদেই প্রদেয় ভোটের সংখ্যা একই রকম হওয়ার কথা। অথচ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষিত প্রাথমিক বেসরকারী ফলাফল সিটে চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যা ৭৩হাজার ২৪৮, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৩১এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৬৮প্রদেয় ভোট দেখানো হয়েছে। এতে কোনো পদের সাথে কোনো পদের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যার মিল নেই। যা অনিয়মের নজির। তিনি বলেন, ঘোষিত বেসরকারী ফলাফলে নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুল শেখ এর ভোট দেখানো হয়েছে ৩৩হাজার ৫১৮এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আমাকে তালা প্রতিকে দেখানো হয়েছে ৩২হাজার ২৭৪ভোট। এতে ভোটের ব্যবধান দেখানো হয়েছে এক হাজার ২৪৪ভোট।অথচ বাতিল ভোটের সংখ্যা দেখানো  হয়েছে তিন হাজার ৮১০ভোট। তিনি দাবি করে বলেন,আমাকে সুকৌশলে অনিয়ম করে হারানো হয়েছে। মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ৬টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনা করলে আমিই জয়লাভ করব। এঘটনায় মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ছয়টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনার দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য স্বপন কুমার সাহা, আত্রাই উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাফিউল ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্র নেতা আমানুল্লাহ ফারুক বাচ্চু, পাঁচুপুর ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন, সমাজ সেবক রতন প্রামানিকসহ দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

এব্যাপারে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্চিতা বিশ্বাস বলেন, ভোটে বা ভোট গণনায় কোন অনিয়ম হয়নি। প্রদেয় ভোটের যে ব্যবধান রয়েছে তা অনেক কারনে এমনটি হতে পারে। এছাড়া বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ভোট পুনরায় গণনার দাবি জানিয়ে আফছার আলী প্রামানিক যে লিখিত আবেদন করেছিলেন তা আমাদের এখতিয়ার ভুক্ত না হওয়ায় তাকে নির্বাচন কমিশন বরাবর আফিল বা আবেদন দিতে বলেছি।


আরও খবর



মিরসরাইয়ে ১ হাজার কেজির কালা পাহাড়ের দাম ৭ লাখ টাকা

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image

এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:৪ বছরে ষাড় বাচ্চা কালা পাহাড় এখন এক হাজার কেজি ওজনের একটি সুবিশাল গরু। হলেস্টিয়ান ফ্রিজিয়ান জাতের গরুটির দাম হাঁকানো হয়েছে ৭ লাখ টাকা। এরই মধ্যে আসন্ন কোরবানি মৌসুমে মিরসরাইয়ে চমক হয়ে উঠেছে কালা পাহাড়। গরুটির মালিক মিরসরাই উপজেলার ১১ নং মঘাদিয়া ইউনিয়নের মজুমদারহাট এলাকার হাশিমনগরের বাসিন্দা সোহেল। ক্ষুদ্র খামারী সোহেল শখের বশেই গরু লালনপালন করেন। দেখতে কালো এবং সুবিশাল হওয়ার কারণেই গরুটির নামকরণ করা হয় কালা পাহাড়। কালা পাহাড় লম্বায় প্রায় আট থেকে নয় ফিট। দৈনিক দানাদার, খড় ও কাঁচা ঘাস মিলে অন্তত ২৫-৩০ কেজি খাবার খায় গরুটি। প্রতিদিন ৪-৫ বার গোসল করাতে হয় তাকে।

খামারি সোহেল জানান, কালা পাহাড়কে কখনও ইনজেকশন বা ফিড খাওয়ানো হয়নি। কিন্তু বর্তমান বাজারে পশু খাদ্যের দাম খুব বেশি। কালা পাহাড়কে গড়ে প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৫০০ টাকার খাবার খাওয়াতে হয়। সে হিসাবে ৪ বছরে অনেক টাকা তার পিছনে ব্যয় হয়। এসব হিসাব করে কালা পাহাড়ের সুলভ মূল্য ধরা হয়েছে ৭ লাখ টাকা। লাইভ ওয়েটে গরুটি সাড়ে ৫ শত টাকা করে বিক্রি করা হবে। 

সোহেল বলেন, ‘কোনো হাটে কালা পাহাড়কে ওঠানোর ইচ্ছা নেই। বাড়ি থেকে বিক্রি করার ইচ্ছে। তবে মিরসরাইয়ের মধ্যে গরুটি বিক্রি হলে প্রয়োজনে ঈদ পর্যন্ত গরুকে আমার বাড়িতে রাখার সুযোগ দিবো।’

প্রতিবেশী জিল্লুর রহমান বলেন, ‘সোহেলের গরু পালনের কথা এলাকার সবাই জানে। কিন্তু তার লালনপালন করা কালা পাহাড় এর মতো এত বড় গরু এ এলাকায় আগে কখনও দেখা যায়নি।’


আরও খবর



মালবাহী ট্রাক দোকানে ঢুকে পড়ায় প্রাণ গেল দু’জনের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৪জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোরের মণিরামপুরে মালবাহী ট্রাকের চাপায় দু’জন নিহত হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় ট্রাক চালক আহত হয়েছে। সোমবার (১০ জুন) সকালে মণিরামপুর বাধাঘাট এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।নিহতরা হল, মণিরামপুুরের বিজয়রামপুর গ্রামের মৃত আনার আলীর ছেলে আব্দুর রহমান (৮৫) ও টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার দেওভাটা গ্রামের ঝন্টু মিয়া (৪৮)। আহত ট্রাক চালকের নাম নুরুল ইসলাম। তিনি গাজীপুর থানার উত্তর দাড়িয়াপুর গ্রামের মৃত হোসেন আলীর ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, সোমবার রাতে একটি মালবাহী ট্রাক গাজীপুর থেকে শ্যামনগরের উদ্দ্যেশে রওনা হয়। সকালে ট্রাকটি মণিরামপুর বাধাঘাট এলাকায় পৌছালে চলন্ত অবস্থায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি দোকানের ভেতরে ঢুকে পড়ে।এসময় দোকানের সামনে বসে থাকা আব্দুর রহমান ট্রাকে চাপা পড়ে মারা যান। আর গাড়িতে থাকা ট্রাক মালিক ঝান্টু মিয়াও ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ সময় ট্রাক চালক নুরুল ইসলাম গুরুত্বর আহত হন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হতাহতদের উদ্ধার করে।প্রত্যক্ষদর্শী রফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, ব্যাপারী অটো রাইস মিলের সামনে দোকানে বসে থাকা আব্দুর রহমানকে চাপা দিয়ে ট্রাকটি দোকানে ঢুকে পড়ে। এসময় ঘটনাস্থলে তিনি মারা যায়। পরে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে ট্রাকের মধ্যে থেকে অপর একজনকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে।

চালক নুরুল ইসলাম বলেন, গাজীপুর থেকে শ্যামনগরের যাওয়ার পথে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ঝন্টু মিয়া ওই ট্রাকের মালিক।মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার সাফায়াত হোসেন বলেন, ট্রাক দুর্ঘটনায় তিন জন হতাহত হয়েছে। এদের মধ্যে ট্রাক চালক নুরুল ইসলামকে উদ্ধার করে মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

মণিরামপুুর থানার এসআই লিটন বিশ্বাস বলেন, চালকের ঘুম ভাব থাকার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



ইবিতে প্রজ্বলিত সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৭জন দেখেছেন

Image
সাব্বির খান,ইবি প্রতিনিধি:ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) প্রজ্বলিত ৩৫ ব্যাচের উদ্যোগে 'প্রজ্বলিত সন্ধ্যা' শীর্ষক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতি বছরের মতো ব্যাচ-ডে এর চলমান আয়োজন হিসেবে ব্যাচকে নতুনভাবে উপস্থাপন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অনন্য নজির স্থাপন করতে এ আয়োজন করে শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানটিতে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য সকল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ লক্ষ্য করা যায়। 

অনুষ্ঠানটি সফল করতে গত ১৩ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডায়েনা চত্বরে প্রথম আলোচনায় বসে শিক্ষার্থীরা। সেখানে কার্যবিবরণী উপস্থাপন ও দায়িত্ব বণ্টন করা হয়। পরবর্তীতে ব্যাচকে ব্যতিক্রমভাবে উপস্থাপন করতে একের পর এক নিদারুণ প্রমো ভিডিও শুটিংয়ের আয়োজন করা হয়। সর্বশেষ সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে গত বুধবার (২৯ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা মঞ্চে দুপুর ৩টা থেকে শুরু করে করে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টা পর্যন্ত সফলভাবে চলে এই অনন্য আয়োজন। 

অনুষ্ঠানটি সফল করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন নাঈমুল ফারাবি, জান্নাতুল তামান্না, সাফিনুর তন্ময়, ফুয়াদ হাসান, রানা আহম্মেদ অভি, ফারিহা আঁখি, মোবারক হোসেন আশিক, জুবায়ের রনি, সিয়াম আহম্মেদ সিফাত, জো সিং, শাম্মী আক্তার, রাইসা আমীন লস্কর,  সাদিয়া আফরিন অমিন্তা, মাহবুবা নুপুর, সুদীপ রয়, মুজাহিদুর ইসলাম, মুবাশ্বির আমিন, ত্বাকি খাঁন, শাওয়ানা শামীম নিশু, শরীফ সৌরভ, আবু খায়ের, নয়ন পারভেজ, নাফিস তাহমিদ, আর্য পাল, সালমান শাওন, মাহমুদ খাঁন, আবু খায়ের, আবিদ ইমতিয়াজ, জুনাইদ মোস্তফাসহ আরও অনেকে। পুরো অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনায় ছিলেন মিজানুর রহমান মিজান, রেজওয়ানা মিতীল, শাওয়ানা শামীম নিশু ও আব্দুল মাজেদ সাগর।

সাংস্কৃতিক সন্ধ্যাকে রাঙ্গিয়ে তুলতে গান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের জনপ্রিয় ব্যান্ড দ্য সোবার। এছাড়া পারফর্ম করে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনপ্রিয় শিল্পী সাফিউর রহমান, নুরুন্নবী সরকার নিরব, প্রতীক দা, বর্ষণ, আব্দুল্লাহ পারভেজ, ইশতিয়াক ইমন, গোলাম হক্কানিসহ আরও অনেকে অনেক শিল্পিরা৷ তাছাড়া অনুষ্ঠানটি আরও সুন্দর করে তুলবার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবর্ত-৩৬ থেকে অংশগ্রহণ করেন- বর্ণালী বর্ণা, মিম জাহান খুশি, নুসরাত ঐশি, ইফতিয়াক, আহনাফ ফুয়াদ, বাশুদেব প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানটি সম্পর্কে প্রজ্বলিত ৩৫ ব্যাচ এর শিক্ষার্থী সাফিনুর তন্ময় বলেন,  'আমারা সবাই মিলে প্রজ্বলিত সন্ধ্যা আয়োজনটি সফল করেছি। ইবিতে প্রথমবারের মতো সকল ব্যাচের অংশ গ্রহণের মাধ্যমে একটি ব্যাচের প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমরা প্রজ্বলিত ৩৫ ব্যাচ আগামীতে আপনাদের সামনে নতুন কিছু নিয়ে আসবো এটা প্রত্যাশা রাখছি। তাছাড়া অনুষ্ঠানটি সফল করার জন্য যারা বিভিন্নভাবে সাহায্য সহযোগিতা করেছে তাদের সবার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।'

জান্নাতুল তামান্না বলেন, 'ক্যাম্পাসে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করতে অনেক বেগ পোহাতে হয়। আমাদের আর্থিক সমস্যা ছিলো আমাদের শিক্ষকরা পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং প্রশাসন সাহায্য করেছে। ক্লাস,পরিক্ষা থাকার পরও আমাদের ও আর্থিক সহযোগিতা করার কারণে আমরা প্রোগ্রামটি সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি। দিনশেষে আমার সফল হয়েছি এমনকি অনেক মানুষের প্রচুর প্রশংসা কুড়িয়েছি এবং আমাদের শিক্ষকসহ, সিনিয়র-জুনিয়রদের অনেক ভালোবাসা পেয়েছি।ভবিষ্যতে এর থেকে ভালো কিছু করার আশা রাখছি। প্রত্যাশা রাখছি প্রজ্বলিত -৩৫ এই ক্যাম্পাসকে সামনে আরো বড় কিছু উপহার দিবে ইনশাআল্লাহ।'

সার্বিক বিষয়ে নাঈমুল ফারাবি বলেন, 'আয়োজনে অনেক প্রতিবন্ধকতা ছিল। পরিশেষে আয়োজন সফলতা পেয়েছে। প্রশাসন আমাদের সুন্দর আয়োজনের জন্য অভিবাদন জানিয়েছে, এটা আমাদের জন্য প্রাপ্তি। আমাদের আয়োজকদের কিছু ভুল ছিলো, তাছাড়া আয়োজনের আর কোনো সমস্যাই ছিলোনা। আমাদের প্রচারণা থেকে পারফরম্যান্স, স্টেজ ডেকোরেশন সবক্ষেত্রে নতুনত্বের ছোঁয়া ছিলো, এজন্য সবাই গ্রহণ করে নিয়েছে আমাদের। আমরা আশাবাদী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতি চর্চা এভাবেই এগিয়ে যাবে, আমরা আরো প্রসিদ্ধ হবো। পরিশেষে বলতে চাই প্রোগ্রামের সফলতা প্রাণবন্ত দর্শকদের সর্বোচ্চ সংখ্যাক অংশগ্রহণেই ছিল। আমরা শিল্পকে ভালোবাসি, শিল্পীকে সম্মান করি।'

আরও খবর



বড়পুকুরিয়া ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার ঘরবাড়ী ফাটলের ক্ষতিপূরণের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি হওয়ার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ পাতরাপাড়া এলাকার ঘরবাড়ী ফাটলের ক্ষতিপূরন দ্রুত দেওয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসী। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি সংলগ্ন পাতরাপাড়া মোড়ে ক্ষতিপুরনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোঃ মুনতাসির আফসানি মুন্না। এ সময় উপস্থিত থেকে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, মোঃ মামুনুর রশীদ মামুন, মোঃ মনিরুজ্জামান, মোঃ আলমগীর হোসেন, মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন হিটলার, মোঃ আবুল কালাম আজাদ নুর মোহাম্মদ, মোঃ কিবরিয়া। সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার প্রায় শতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন। 

লিখিত বক্তব্যে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসী জানান,  আমাদের ২০০৯ সালে পেট্ট্রোবাংলার সাথে সমঝোতা স্মারকে ১০ দফা দাবী চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। সেই ১০ দফা চুক্তি এখনো বাস্তবায়ন করা হয় নাই। এই ১০ দফা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।  আমাদের অধিগ্রহণকৃত সম্পত্তিতে কে বা কাহারা পেশি শক্তি ব্যবহার করে সোলার প্রকল্প  এর নামে জোর জবরদস্তি করে দখল করার পায়তারা করছে। এতে খনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ লোকজন ক্ষিপ্ত, যাহা সম্পর্কে আমরা কেউ অবগত নই।  জবরদখলের প্রতিবাদ করায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার অসহায় কিছু মানুষের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়। আমরা সরকারের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি, এই মিথ্যা মামলা অতিদ্রুত প্রত্যাহার করা হউক।  এই এলাকার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এ্যাডভোকেট মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি দেশে না আসা পর্যন্ত কোন প্রকার সোলার প্রকল্পের কার্যক্রম চালানো যাবে না।  অতিদ্রুত প্রায় ২যুগ থেকে পড়া থাকা একমাত্র চলাচলের রাস্তা মেরামত করতে হবে। জেলা প্রশাসক অফিসে আটকে থাকা কয়লা খনির অধিগ্রহণকৃত জমির ক্ষতিপূরণের বকেয়া টাকা সম্পূর্ণভাবে পরিশোধ করতে হবে এবং হয়রানি বন্ধ করতে হবে।  কয়খনির কিছু কর্মকর্তা ও বহিরাগত কিছু অসাধু কোম্পানী স্থানীয় কিছু প্রতিনিধির সহযোগীতায় এই জমিতে ঘেরা বেড়া দিচ্ছে তা দ্রুত সরিয়ে ফেলতে হবে। সাত দিনের মধ্যে আমাদের ফাটা ঘরবাড়ীর টাকা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার জনগণের মাঝে প্রদান করতে হবে। এ সময় তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জ্বালানী মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রীর  দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তারা বলেন, আমাদের ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার জনগণের প্রতি সুদৃষ্টি দিয়ে দাবীগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের অনুরোধ জানাচ্ছি।

আগামী ০৭ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণসহ দাবী দাওয়া বাস্তবায়ন না হলে, কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেন বক্তারা।


আরও খবর