Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

দেশের সব শিল্পাঞ্চলে ৫জি সেবা নিশ্চিত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩২৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের সব শিল্পাঞ্চলে ফাইভজি সেবা নিশ্চিত করা হবে।’ আজ বৃহস্পতিবার ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা-২০২৩ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিন দিনব্যাপী মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘প্রযুক্তিকে হাতিয়ার করে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে চায় সরকার। এ জন্য দেশের সব শিল্পাঞ্চলে ফাইভজি সেবা নিশ্চিত করা হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশে ডিজিটালাইজেশনের একটা বিপ্লব ঘটে গেছে। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এখন স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্ন রচিত হচ্ছে। দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল ২০২৪ সালের মধ্যেই স্থাপিত হলে তখন ইন্টারনেট ক্যাপাসিটি বেড়ে ১৩ হাজার ২শ‘ জিবিপিএসে উন্নীত হবে।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন সরকারপ্রধান। এবার মেলার মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের সংযুক্তির মহাসড়ক।

জানা গেছে, মেলায় ৫২টি প‌্যাভিলিয়নে বিভিন্ন ডিজিটাল প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ‌্য প্রদর্শন করবে। এর মধ‌্যে রয়েছে প্যারেন্টাল কন্ট্রোল, ট্রিপল প্লে (এক ক্যাবলে ল্যান্ডফোনের লাইন, ইন্টারনেট ও ডিশ সংযোগ), মোবাইল অ্যাপস, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা ও ডিজিটাল প্রযুক্তি ইত্যাদি। এ ছাড়া প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান জেডটিই ও হুয়াওয়ে তাদের উদ্ভাবিত পণ্য প্রদর্শন করবে। পাশাপাশি দেশি সফটওয়্যার কোম্পানিগুলো হাজির হবে তাদের তৈরি সফটওয়্যার ও সেবা নিয়ে। টেলিকম অপারেটরগুলো তাদের ভয়েস, ইন্টারনেট ও মূল্য সংযোজিত সেবা (ভ্যাস) দেখাবে।

মেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে রয়েছে পৃথক কর্নার। এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী তুলে ধরা হবে। এ ছাড়া ৮টি সেমিনারের মাধ্যমে সরকারের মন্ত্রী এবং অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা বর্তমানের প্রযুক্তি ও আগামী দিনে প্রযুক্তির গন্তব্য নিয়ে কথা বলবেন।


আরও খবর



ফন্টু-মিলনসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে সোহাগ হত্যা মামলার চার্জগঠন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৪১জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোরের শরিফুল ইসলাম সোহাগ (২৬) হত্যা মামলায় যুবলীগ নেতা তৌহিদ চাকলাদার ফন্টু, পৌর কাউন্সিলার জাহিদ হাসান মিলনসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেছে আদালত। গত মঙ্গলবার যশোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সুরাইয়া সাহাব আসামিদের আইনজীবীদের ডিসচার্জের আবেদন না মঞ্জুর করে চার্জগঠন করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী আর এম মঈনুল হক খান ময়না, গাজী আব্দুল কাদির ও মিলন আহম্মেদ। এসময় সকল আসামিরা উপস্থিত ছিলেন।

আইনজীবী আর এম মঈনুল হক খান বলেন, এ মামলার সাত আসামির আইনজীবী। তার মধ্যে রয়েছেন কাউন্সিলার জাহিদ হাসান মিলনও। মামলার চার্জগঠনের পর সকল আসামিকেই জামিন প্রদান করেছেন আদালত। তবে, মিলন আরেকটি মামলায় আটক থাকায় তাকে কারাগার থেকে এ মামলার আসামি হিসেবে আদালতে আনা হয়। পরবর্তিতে এ মামলায় তিনি জামিন পান। আগের মামলায় তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২৮ আগস্ট রাত সোয়া ১২টার দিকে যশোর শহরের কাজীপাড়ায় নিজ বাড়ির সামনে খুন হন যুবলীগ কর্মী সোহাগ। এ ঘটনায় নিহতের ভাই ফেরদাউস হোসেন সোমরাজ ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও কয়েক জনকে আসামি করে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের বিদায়ী ওসি মারুফ আহম্মদ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে অভিযুক্ত অন্য ৯ জন হলেন শহরের কাজীপাড়া গোলামপট্টির আব্দুল খালেকের ছেলে ইয়াসিন মোহাম্মদ কাজল, ধর্মতলার কালিমের ছেলে টিপু, কাজীপাড়া গোলামপট্টির আবুল কাশেম ওরফে পিকুলের ছেলে সাগর, সিরাজের ছেলে তরুণ, আব্দুল বাকেরের ছেলে আলামিন, কাজীপাড়ার মোহাম্মদ আলীর ছেলে ডাবলু, কাজীপাড়া আমতলার এসএম আকাশ, ঘোপ জেল রোডের এসএম মহিউদ্দিন এবং সদর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের লিটন।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে জাল সনদ মামলায় শিক্ষিকা কারাগারে

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় কম্পিউটার শিক্ষার সনদ জালিয়াতির মামলায় রাবেয়া খাতুন রুবি (৫৬) নামের এক সহকারী শিক্ষিকাকে গ্রেপ্তার করেছে উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ। দুদকের মামলায় রবিবার রাতে রুবিকে গ্রেপ্তার করে সোমবার সকালে আদালতে পাঠানো হয়েছে। রুবি উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চয়ড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারি শিক্ষিকা ও দিঘলগ্রামের বাসিন্দা বুলবুল আহমেদ এর স্ত্রী।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সহকারী আল-আমিন বলেন, রাবেয়া খাতুন ১৯৯৫ সাল থেকে উল্লাপাড়া  উপজেলার চয়ড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিষয়ের সহকারী শিক্ষিকার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। জাল সনদ দিয়ে চাকুরী করার অপরাধে দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মামলা দায়ের করে। আদালতের ওয়ারেন্টের ভিত্তিতে পুলিশ  তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

বিদ্যালয় সূত্র জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১৭ মার্চ ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে। তাতে রাবেয়া খাতুনের শিক্ষা ও কম্পিউটার সনদ ভুয়া বলে সন্দেহ করে অডিট কর্তৃপক্ষ। পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের এক পত্রের আলোকে বগুড়া জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমি নেকটারের পরিচালকের কার্যালয়ে রাবেয়া খাতুন রুবির কম্পিউটার বিষয়ের সনদটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য পাঠায় শিক্ষা অধিদপ্তর। এর পর ২০১৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর এক পত্রের মাধ্যমে নেকটার রাবেয়া খাতুনের কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্সের সনদটি যাচাই-বাছাই শেষে জাল ও ভুয়া সনদ বলে চিহ্নিত করে।

এ জাল সনদের বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রণালয় নিশ্চিত হওয়ার পর তার এমপিও ভুক্তির তারিখ ২০০৯ সালে ১ মে থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত রাবেয়ার গৃহীত সরকার প্রদত্ত ১৪ লাখ ৯ হাজার ৬৫০ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত প্রদানের নির্দেশ দেন। পরে টাকা ফেরত প্রদান না করায় ২০২২ সালের ১৯ জুন তারিখে দুদক তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম এ ব্যাপারে বলেন, দুদকের মামলায় ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট হয়েছিল। রোববার রাতে গ্রেফতার করে সোমবার সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আরও খবর



খাগড়াছড়িতে ব্যাংকের আত্মসাৎকৃত টাকাসহ আসামী গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল, পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে মামলা রুজুর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই খাগড়াছড়ি নতুন কুড়ি ক্যান্টনমেন্ট হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায়কৃত প্রায় পৌনে ১০ লাখ টাকা মাসিক ফি জমা না দিয়ে পালিয়ে যাওয়া খাগড়াছড়ি ট্রাস্ট ব্যাংকের পিয়ন শৌখিন চাকমাকে (৩০) ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৬ফেব্রুয়ারি)দুপুরের দিকে খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রেসব্রিফিং-এ  খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) জানান সোমবার রাতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঢাকা জেলার গেন্ডারিয়া থানা থেকে তাকে আটক করা হয়। সে জেলার পানছড়ি উপজেলার বড় কলক ধন্য চন্দ্র পাড়ার বাসিন্দা রঙ্গলাল চাকমার ছেলে।

জানা গেছে, খাগড়াছড়ি নতুন কুঁড়ি ক্যান্টনমেন্ট হাই স্কুলের শিক্ষার্থীরা তাদের মাসিক ফি ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডে জমা দেন। প্রতি মাসে শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ব্যাংকের একজনকে স্কুলের একটি সুবিধাজনক কক্ষে বসে ফি সংগ্রহ করেন এবং সংগৃহীত টাকা ব্যাংকে জমা করে থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় ব্যাংকের ম্যানেজারের নির্দেশে ব্যাংকের অফিস পিয়ন শৌখিন চাকমা (৩০) চলতি ওই স্কুলের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৯ লাখ ৬৯ হাজার ১৫০ টাকা সংগ্রহ করে। কিন্তু সে টাকা ব্যাংকে জমা না দিয়ে অজ্ঞাতস্থানে আত্মগোপন চলে যান। এ ঘটনায় খাগড়াছড়ি ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ম্যানেজার বাদী হয়ে গত ৪ ফেব্রুয়ারি খাগড়াছড়ি সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সুপার মুক্তা ধর জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর খাগড়াছড়ি সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব তৌফিকুল আলমের নেতৃত্বে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তানভীর হাসান ও তদন্ত কর্মকর্তাসহ অন্যান্য অফিসারদের সমন্বয়ে একটি বিশেষ টিম গঠন করা হয়।

পরে পুলিশ সুপারের তত্ত্বাবধানে ও তদারকিতে বিজ্ঞানভিত্তিক ও আধুনিক তদন্ত কৌশলে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে তদন্ত টিম মামলা দায়ের করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মূল আসামি শৌখিন চাকমাকে (৩০) ঢাকা জেলার গেন্ডারিয়া থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় এবং তার কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা জব্দ করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শৌখিন চাকমা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে।

গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান খাতে সংঘটিত গুরুতর অপরাধের মূল অভিযুক্তকে দ্রুততম সময়ে গ্রেফতার এবং আত্মসাৎকৃত অর্থ উদ্ধার করতে পেরে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ স্বস্তি বোধ করছে। ভবিষ্যতে অনুরূপ যেকোনো অপরাধের ক্ষেত্রে যথাযথ আইন প্রয়োগের মাধ্যমে অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনে  খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সর্বদাই সচেষ্ট থাকবে বলে জানিয়ে তিনি আরো বলেন  গ্রেফতারকৃত সৌখিন চাকমাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে অবশিষ্ট টাকা উদ্বার ও এ ঘটনা আরো কেউ জড়িত কিনা বা কারো প্ররোচণা আছে কিনা সে রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে বলে জানান খাগড়াছড়ি জেলার  পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)

আরও খবর



ফুলবাড়ীতে রঙিন পাতাকপি চাষ

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ী গ্রামে কৃষক মিলন রানা তার জমিতে রঙিন পাতাকপি চাষ শুরু করেছেন। ফুলবাড়ী উপজেলায় এই প্রথম রঙিন পাতাকপি চাষ শুরু হয়েছে। ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি অফিস থেকে রুবি কিং মৌসুম ২৩-২৪ অর্থ বছরের টেকশই কৃষি উন্নয়ন কৃষক গ্রুপ। প্রদর্শনী ক্ষেতে কৃষক মিলন রানার ২০ শতক জমিতে গত ২৯/১০/২০২৩ইং তারিখে রঙিন পাতা কপির চাষ শুরু করেন। জমিতে লাগানোর দুই মাসে মধ্যে এই রঙিন ফুলকপি পরিপুক্ত হয়। যাহা উত্তোলন করে বাজারে বিক্রয় করা সম্ভব। বর্তমান বাজারে এই রঙিন পাতাকপি প্রতি কেজি ৫০টাকা দরে বিক্রয় হচ্ছে। ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ীতে কৃষক মিলন রানা এই প্রথম রঙিন পাতা কপি চাষ করে কৃষকদেরকে তাক লাগিয়েছেন। ২০শতক জমিতে ৭২০ পিচ চারা রোপন করেন সাবলম্বি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন।

এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ রুম্মান আক্তার জানান, ফুলবাড়ীতে এই প্রথম রঙিন পাতা কপির চাষ প্রদর্শনী হিসেবে লাগানো হয়েছে কৃষক মিলন রানা সফল হয়েছে। আমরা কৃষি দপ্তর থেকে সব রকম সহযোগিতা করেছি কৃষক মিলন রানাকে। সরেজমিনে প্রদর্শনীর ক্ষেত দেখতে এসে তিনি খুব আনন্দিত এবং সফলতা বোধ মনে করছেন। খয়েরবাড়ি গ্রামের কৃষক মিলন রানা জানান, আগামীতে ব্যাপক ভাবে রঙিন পাতা কপির চাষ শুরু করা হবে। এই কপি বাজারে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি অফিসের অতিরিক্ত কৃষি অফিসার মোঃ শাহানুর। কৃষ প্রদর্শনীর আয়োজনে ছিলেন দিনাজপুর অঞ্চল টেকসই কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প। এ সময় ফুলবাড়ী থানা প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ আফজাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক উপজেলা মাইটিভি প্রতিনিধি মোঃ ফিজারুল ইসলাম ভুট্টু সহ প্রিন্ট মিডিয়ার সহ সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



লক্ষীছড়িতে পরিত্যক্ত অবস্থায় ১টি দেশীয় তৈরী এসএমজি, ১টি ম্যাগজিন,৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৯জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়ি জেলার লক্ষীছড়িতে পরিত্যক্ত অবস্থায়  ১টি দেশীয় তৈরী এসএমজি, ১টি ম্যাগজিন,৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালের দিকে লক্ষীছড়ি থানার এসআই (নিঃ) মোঃ সেলিম মিয়া  অবৈধ অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য উদ্ধার সংক্রান্তে বিশেষ অভিযান ডিউটি করা কালে লক্ষীছড়ি বাজার এলাকায় অবস্থানকালে ভোর অনুমান ০৬.৩০ ঘটিকার সময় মোঃ ইব্রাহিম হোসেন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জানান যে, লক্ষীছড়ি থানাধীণ ০১নং লক্ষীছড়ি ইউপির ০৫নং ওয়ার্ডের  ময়ূরখীলস্থ  ফিরোজের আম বাগানের ভিতর পাহাড়ের ঢালুতে কে বা কাহারা পরিত্যক্ত অবস্থায় ০১টি এসএমজি ও ০৫ রাউন্ড গুলি রেখে গিয়াছে।  উক্ত সংবাদ ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য থানা এলাকায় নিয়োজিত মোবাইল পার্টির সহায়তায় ঘটনস্থলে উপস্থিত হইয়া তথায় ১। ০১ (এক)টি সাদা প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতরে রক্ষিত অবস্থায় ০১টি দেশীয় তৈরী এসএমজি। যাহা কাঠের বাট সহ লম্বা ৩১.৫ ইঞ্চি এবং কাঠের বাটটি লম্বা ৯ ইঞ্চি, ২। ০১ (এক)টি ম্যাগজিন, ৩। ০১ (এক)টি সাদা সুতি গেঞ্জির ছেড়া কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় ০৫ রাউন্ড গুলি পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে উদ্ধরকৃত অস্ত্রগুলি বিজ্ঞ আদালতের অনুমতিক্রমে ওসি অস্ত্রগার, পুলিশ লাইন্স, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় প্রেরন করা হয়েছে।

আরও খবর