Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

দেশের জ্বালানী সংকটে দীঘিপাড়া কয়লাখনির কয়লা উত্তোলন করার এখনি সময়

প্রকাশিত:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৩০জন দেখেছেন

Image

আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দেশের উত্তর অঞ্চলের আবিষ্কৃত ৫টি কয়লাখনির মধ্যে দীঘিপাড়ার কয়লাখনির কয়লা উত্তোলণ করে জ্বালানী খাতে ব্যবহার সময়। বিদেশ থেকে কয়লা আমদানি নির্ভর ও অর্থ ব্যয় করে কয়লা আমদানি করা বন্ধ করে দিঘীপাড়ার কয়লাখনি কয়লা দিয়ে জ্বালানি খাতের উন্নয়ন করা এখনি সঠিক সময়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কয়লার চড়া মুল্য হওয়ায় দেশে স্থাপিত কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলি যেহেতু বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সেজন্য সরকারকে এখনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। ৫টি কয়লাখনির মজুদ ৩,১৯৭মিলিয়ন টন কয়লা রয়েছে। বাংলাদেশের জ্বালানির উৎস গ্যাস। বিশ্ব বাজারে তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে এবং গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধিতে জ্বালানি খাতের অবস্থা লাজুক। এছাড়া দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে কয়েকটি পাওয়ার প্লান গ্যাসের উপর নির্ভরশীল। দেশের গ্যাস মজুদ যেহেতু অফুরন্ত নয়, তাই আগামী দিনে বিকল্প জ্বালানী হিসেবে কয়লার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে উত্তর অঞ্চলের ৫টি কয়লা খনি। দেশে আবিষ্কৃত কয়লা ৫৩টিসিএফ গ্যাসের মজুদ, যা দেশে এ পর্যন্ত আহরিত গ্রাসের প্রায় ৪গুন বেশি। দিনাজপুরের ৩টি আবিষ্কৃতি খনি বড়পুকুরিয়া, ফুলবাড়ী ও দিঘীপাড়া অপরদিকে আরো ৩টি খনি হচ্ছে রংপুরের খালাশপীর ও জয়পুর হাটের জামালগঞ্জ। শুধু দিনাজপুরের আবিষ্কৃত কয়লাখনিতে মজুদ রয়েছে ১ হাজার ৪শত ৬২ মিলিয়ন টন কয়লা। ১৯৮৫ সালে বিওএইচপি নামক একটি বিদেশী প্রতিষ্ঠান ফুলবাড়ী,পার্বতীপুর, বিরামপুর ও নবাবগঞ্জ উপজেলার কিছু অংশ নিয়ে আর একটি কয়লা খনি আবিষ্কার করেন। ১৯৯৭ সালে লন্ডন ভিত্তিক একটি বহুজাতিক কোম্পানি এই এলাকায় ১০৭টি কুপ খননের মাধ্যমে উন্নতমানের কয়লা আবিষ্কার করেন। এই কয়লাখনিতে ৬.৩ বর্গকিলোমিটার এলাকায় ৫শত ৭২ মিলিয়ন টন কয়লার মজুদ নির্ধারণ করেন। দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার দিঘীপাড়া কয়লাখনিটি ১৯৯৫ সালে বাংলাদেশ ভূতাত্তিক জরিপ অধিদপ্তর এই খনিটি আবিষ্কার করেন। দীর্ঘ ১যুগ ধরে বেশ কয়েকটি কুপ খনন করে ৫শত মিলিয়ন টন কয়লা মজুদের পরিমাণ যাচাই করেন। বর্তমান বাংলাদেশ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রানালয়ের আওতায় বিসিএমসিএল

এর মাধ্যমে ৩বৎসর মেয়াদী জরিপ কাজ চালানো হয়। জরিপ কাজ শেষে চীনা কোম্পানী দিঘীপাড়া কয়লাখনিটি বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেন। এই খনিটির তদারকের দায়িত্বে ছিলেন প্রকল্প পরিচালক হিসেবে মোঃ জাফর সাদিক। প্রকল্প পরিচালক সমীক্ষা শেষ করে খনিটির বাস্তব চিত্র তুলে ধরে খনিটি বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়ে পাঠান। মন্ত্রণালয় এখন পর্যন্ত কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেননি। বর্তমান সরকার দেশের ভূগর্ভ থেকে কয়লা উত্তোলন করে জ্বালানী খাতে ব্যবহার করবেন না বলে জানিয়ে দিলেও বর্তমান জ্বালানী খাতের সংকটের কারণে এই খনিটি বাস্তবায়ন হবে বলে জানা গেলেও এখন পর্যন্ত সরকার কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। এই খনিটি বাস্তবায়ন করা হলে মজুদ কয়লা জ্বালানী খাতে সহায়ক হবে। দেশের উত্তর, পশ্চিম ও দক্ষিণ অঞ্চলে যেসব কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র দেশিয় অর্থে ও বিদেশি বিনিয়োগে তৈরি করা হয়েছে সেসব কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কয়লা সরবরাহ না থাকলে এক সময় বন্ধ হয়ে যাবে। যার কারণে এখনি উত্তম সময় দিঘীপাড়ার কয়লা খনিটি বাস্তবায়ন করে কয়লা উত্তোলন করা প্রয়োজন। তেল, গ্যাস এর উপর নির্ভর করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করায় অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সরকার। বিদেশ থেকে আমদানি করা কয়লা আমাদের দেশের মত এত উন্নত নয়। তারা তাদের দেশের অউন্নত কয়লা বিদেশে রপ্তানি করছে। এতে একদিকে যেমন সরকার অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে অন্যদিকে বিদেশ থেকে কয়লা আমদানি নির্ভর কমে যাবে। বর্তমান বড়পুুকুরিয়া কয়লাখনির কয়লা দিয়ে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চালু রাখ হয়েছে। ৬.৬৮ বর্গকিলোমিটার কয়লার ক্ষেত্রে ১১৮ থেকে ৫০৬ মিটার গভীরতায় ৬টি স্থরে কয়লার মজুদ ৩৯০ মিলিয়ন টন। ২০০১ সাল থেকে শুরু করে ১৯ শে জুলাই ২০২২ পর্যন্ত প্রায় আড়াই কোটি মেট্রিকটন কয়লা উৎপাদন হয়েছে। বর্তমান বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির ভূগর্ভ থেকে সুরঙ্গ পথে কয়লা উত্তোলণ অব্যাহত রয়েছে। সুরঙ্গ পথে চীনা প্রযুক্তিতে কয়লা তোলায় খনিটির অফুরন্ত ক্ষতি হচ্ছে। অন্যদিকে খনিতে ব্যয় বাড়ছে। থেকে যাচ্ছে প্রায় ৮০ভাগ কয়লা। উঠে আসছে ২০ভাগ কয়লা। বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি জ্বালানীর অভাবে ধুকে ধুকে চলছে। বর্তমান ২নং ও ৩নং ইউনিট চালানো হচ্ছে। যে ভাবে চালানো হচ্ছে তা বেশি দিন ধরে রাখতে পারবে না বলে জানা গেছে। এদিকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ভূগর্ভ থেকে স্বপ্ল মাত্রায় কয়লা উত্তোলন চলছে। ভূর্গভ থেকে আগের মত এখন আর কয়লা উত্তোলন করা সম্ভব হচ্ছে না। ২০২৭ইং সালের মধ্যে কয়লা খনিটির উৎপাদন অনেক অংশে কমে আসবে। সে ক্ষেত্রে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র জ্বলানীর অভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ পদ্ধতি পরিবর্তন করে দিঘীপাড়া কয়লাখনিটি ওপেন মাইনিং পদ্ধতিতে করলে সরকার লাভবান হবেন। এইএলাকার মানুষের নতুন নতুন কর্ম সংস্থান সৃষ্টি হবে এবং জীবন জীবিকার পথ সুগম হবে। দিঘীপাড়ার কয়লাখনির মজুদ কয়লা উত্তোলনে সরকারের এখনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত বলে মনে করছেন এলাকার সচেতন মহল।


আরও খবর



মধুপুরে আওয়ামীলীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪৫জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃবাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে রোববার ২৩ জুন জনসমাবেশ, র‌্যালী , কেককাটা, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সহ মধুপুর উপজেলা   আওয়ামীলীগ নানা কর্মসূচির আয়োজন করে।  দেশের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মধুপুর উপজেলা শাখার  দলীয় কার্যালয়ে সকালে  জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

পতাকা উত্তোলন শেষে মধুপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর মুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ।এ সময় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীগন উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর মুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপজেলা  আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এডভোকেট মো ইয়াকুব আলী ও পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো. সিদ্দিক হোসেন খান এর নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

বিকেলে এক বর্ণাঢ্য র‍্যালী বের হয়ে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। প্রদক্ষিণ শেষে মধুপুর উপজেলা অডিটোরিয়াম হলরুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় উপস্হিত ছিলেন  উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র  সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. ইয়াকুব আলী, মধুপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব মো. সিদ্দিক হোসেন খান, আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আকতার হোসেন খান।

সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ নাসির উদ্দিন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হেলান উদ্দিন, উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সজীব আহমেদ, মহিষমারা ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান মোঃ মহির উদ্দিন, আলোকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবু সাইদ খান সিদ্দিক সহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি সন্চালনা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও মির্জাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান সাদিকুল ইসলাম সাদিক। সন্ধায় দলীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর পূর্তির প্লাটিনাম জয়ন্তী উপলক্ষ্যে কেক কাটা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২১

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

মঙ্গলবার (৪ জুন) সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাদকসহ তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। ডিএমপি সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তারের পাশাপাশি তাদের হেফাজত থেকে ২ হাজার ১৮৬ পিস ইয়াবা, ৮৫ গ্রাম হেরোইন, ২ কেজি ৪৫০ গ্রাম গাঁজা, ১১০ বোতল ফেনসিডিল ও ৩ বোতল বিদেশি মদ জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ১৪টি মামলা করা হয়েছে।


আরও খবর



সৈয়দপুর রেলকারখানা পরিদর্শন করলেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা পরিদর্শন করেছেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। শনিবার বেলা সারে ৩ টায়(২৫ মে) পরিদর্শনে এসে কারখানার বিভিন্ন বিভাগ ও ন্যারোগেজ ইঞ্জিন, রেলের জাদুঘর ও রানীর ভ্রমণের ঐতিহ্যবাহী সেলুন পরিদর্শন করেন তিনি। 

পরিদর্শনের সময় নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সিদ্দিকুল আলম, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক  সরদার সাহাদাত আলী, সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) সাদেকুর রহমান, কারখানার কার্যব্যবস্থাপক শেখ হাসানুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান বিচারপতি কারখানার ঐতিহ্য ঘুরে ঘুরে দেখেন এবং সন্তোষ প্রকাশ করেন। কারখা্নায় রাখা রানীর সেলুনটি দেখেন এবং সেখানে অবস্থিত একটি আসনে বসে উপলব্ধি নেন। পরে রেলওয়ে কারখানার সম্মেলন কক্ষে কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করেন।

রেলের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাল্টিমিডিয়ায় রেলওয়ে যাবতীয় কর্মকাণ্ড  ও সরজমিনে নানা কর্মকান্ডের চিত্র তাঁর সামনে তুলে ধরেন। ১৮৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত রেলওয়ের নানা কর্মযজ্ঞ দেখেন এবং স্বাধীনতা যুদ্ধে নিরীহ বাঙ্গালীদের ব্রয়লারের আগুনে ফেলে হত্যার ঘটনায় প্রধান বিচারপতি আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। প্রধান বিচারপতি শহীদদের স্মরণে নির্মিত অদম্য স্বাধীনতায় ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

আরও খবর



গোদাগাড়ীতে শিশুদের মাঝে গাছের চারা বিতরন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

মুক্তার হোসেন,গোদাগাড়ী(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃরাজশাহীর গোদাগাড়ীতে শিশুদের মাঝে পুষ্টির চাহিদা পুরণের লক্ষে ১৯ হাজার ২৫০ টি ফলজ গাছের চারা বিতরন করা হয়।বৃহস্পতিবার ১৩ জুন) বেলা সাড়ে ১১ টায়  উপজেলার আই হাই উচ্চ বিদ্যালয়ে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ গোদাগাড়ী এপির উদ্যোগে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ গোদাগাড়ী এপি ম্যানেজার প্রেরণা চিসিমের সভাপতিত্বে  ফলজ গাছের চারা বিতরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম সরকার। বিশেষ অতিথি ছিলেন,গোদাগাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাসিদুল গণি মাসুদ,আই হাই উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক হোসেন আলী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ গোদাগাড়ী এপির প্রোগ্রাম অফিসার এন্ড্রিকাস মুর্মু প্রমূখ। উল্লেখ্য যে উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ও ২ পৌরসভার মধ্যে ১৯হাজার ২৫০ টি ফলজ চারা বিতরণ করা হয়। এর মধ্যে আম ৭ হাজার ৭০০টি, লিচু ৩হাজার ৮৫০টি পেয়ারা ৩হাজার ৮৫০টি লেবু-৩ হাজার ৮৫০টি ফলজ গাছের চারা শিশুদের মাঝে তুলে দেয়া হয়। যা শিশুদের পুষ্টি চাহিদা পুরণে সাহায্য করবে।


আরও খবর



উলিপুর সরকারি কলেজে নবীন বরণ ও বিদায় সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৪জন দেখেছেন

Image
সহিদুল আলম বাবুল, কুড়িগ্রাম ব্যুরো:কুড়িগ্রামের একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান উলিপুর সরকারি কলেজ lকলেজটিতে আজ ২৩ জুন রোববার এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে lসেই সাথে বরণ করে নেয়া হয় নবীন শিক্ষার্থীদের lঅনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ২৭ কুড়িগ্রাম-৩ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য উলিপুরের মেহনতি মানুষের নেতা সৌমেন্দ্র প্রসাদ পান্ডে গবা,  বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উলিপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাজাদুর রহমান তালুকদার ( সাজু ) ও  উলিপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মামুন সরকার মিঠু l

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উলিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আতাউর রহমান ও উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম মর্তুজা lউলিপুর সরকারি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল আবু জুবায়ের আল মুকুল এর উপস্থাপনায় কলেজের উন্নয়ন ও সার্বিক সমস্যা তুলে ধরে বক্তব্য  রাখেন, উলিপুর সরকারি কলেজের কেমিস্ট্রি বিষয়ের সহকারী অধ্যাপক মোঃ  সফিকুল ইসলাম, এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মাসুদুর রহমান সর্দার রাজা lআলোচনা সভার শুরুতে ফুলের তোড়া ও ক্রেস্ট দিয়ে অতিথিদের বরণ করে নেয়া হয় l আনুষ্ঠানিকভাবেই রজনীগন্ধার স্টিক দিয়ে নতুনদের বরণ এবং আসন্ন এসএসসি  পরীক্ষার্থীদের প্রত্যেককে বিদায়ী উপহার প্রদান করা হয় lএরপর কলেজের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান lঅনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, উলিপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ শরিফুর রহমান খোকন l

আরও খবর