Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশে ফিরেছে বাংলেদেশ দল

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৭৫জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ জাতায় ক্রিকেট দল বিশ্বকাপ মিশন শেষে দেশে ফিরেছে। শুক্রবার (২৮ জুন) সকাল ৯টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পা রাখেন ক্রিকেটাররা।

বাংলাদেশ এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুরুটা ভালোই করেছিল। গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কাকে রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে হারিয়ে যাত্রা শুরু করে তারা। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৪ রানে হেরে যায় শান্তর দল। এছাড়া গ্রুপ পর্বের শেষ দুই ম্যাচে নেদারল্যান্ডস ও নেপালকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো শেষ আটে জায়গা করে নেয় টাইগার বাহিনী।

বাংলাদেশ শেষ আটে একটি ম্যাচও জিততে পারেনি। প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে বড় ব্যবধানে হেরে যায় শান্ত বাহিনীরা। এরপর ভারতের কাছেও হারে বাংলাদেশ। তবে দুই ম্যাচ হেরেও সেমিতে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। শেষ আটে নিজেদের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল টাইগাররা। তবে নাটকীয় সেই ম্যাচ হেরে শেষ আট থেকেই বিদায় নেয় শান্তর দল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে সমালোচনা করেছেন সকলে। ব্যাট হাতে কেউ এবারের বিশ্বকাপে জ্বলে উঠতে পারেনি। সবাইকে হতাশ করেছেন সাকিব, শান্ত ও মাহমুদউল্লাহরা। বল হাতে তো সবার সুনাম কুড়িয়েছেন তানজিম সাকিব ও রিশাদ হোসেন। মুস্তাফিজ, তাসকিনরাও নিজেদের ছন্দেই ছিলেন।


আরও খবর



মাগুরার শ্রীপুরের দ্বারিয়াপুর দরবার শরীফে ইছালে সওয়াব ও ওয়াজ মাহফিল

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১০৯জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার দ্বারিয়াপুর দরবার শরীফের কুতুবুল আলম পীরে কামেল শাহ সূফী তোয়াজ উদ্দিন আহমদ (রহঃ) ও সুলতানুল ওয়ায়েজ্বীন পীরে কামেল শাহ সূফী আবু সাঈদ মুহাম্মদ আবদুল হান্নান (রহঃ) এর ওফাৎ দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার ইছালে সওয়াব ও ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

ওয়াজ মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে ওয়াজ করেন ভারতের জৈনপুরের পীর সাহেব কেবলা সাইয়্যেদ ড. মুহাম্মদ এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী ওয়া সিদ্দিকী ।ইশায়াতে ইসলামের আমির ও দ্বারিয়াপুর দরবার শরীফের পীরজাদা শাহ আবু তালহা মুহাম্মদ মুস্তাইন বিল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ ওয়াজ মাহফিলে ডোবরার পীর ওবায়েদ বিন নাসের, বিভিন্ন দরবার শরীফের পীর সাহেবগণ, ইসলামী চিন্তাবিদগণসহ স্থানীয় ওলমায়ে কেরামগণ বক্তব্য রাখেন। 

ওয়াজ মাহফিলে সম্মানিত অতিথি ছিলেন শ্রীপুর উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়তউল্লাহ হোসেন মিয়া রাজন, থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ তাসনীম আলম,  ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বাবুল রেজা। আসর বাদ হতে শুরু হয়ে মধ্যরাত পর্যন্ত চলা এ ওয়াজ মাহফিলে ইসলামের নীতি আদর্শ নিয়ে বক্তাগণ বক্তব্য রাখেন।

আরও খবর



ভোলায় রাসেল ভাইপার আতঙ্ক, এক সপ্তাহে উদ্ধার-১৩

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন, ভোলা বিশেষ প্রতিনিধি:ভোলায় রাসেল ভাইপার আতঙ্ক দিনদিন বাড়ছে। গত এক সপ্তাহে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ১৩টি এই সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে ১২টি সাপ মেরে ফেলেছেন স্থানীয়রা। আর একটি সাপ বনবিভাগের কাছে হস্তান্তর করেছেন তারা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার সদর, দৌলতখান, বোরহানউদ্দিন, তজুমদ্দিন, চরফ্যাশন ও মনপুরা উপজেলাসহ চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় বাসাবাড়ি ও খেলার মাঠে একের পর এক রাসেলস ভাইপার সাপের দেখা মিলছে। সাপটি দেখার সঙ্গে সঙ্গেই এলাকাবাসী মেরে ফেলছেন। একের পর এক এই সাপ উদ্ধারে জনসাধারণের মাঝে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, ভোলায় বিষাক্ত রাসেল ভাইপারের দংশনের শিকার হয়েছেন এক কৃষক। শুক্রবার (২১ জুন) বিকাল ৫টার দিকে সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। তার নাম মোঃ আফিজল বয়াতি। বর্তমানে ওই কৃষককে ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের কৃষক মোঃ আফিজল বয়াতি শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে মাঠে গিয়েছিলেন ঘাস কাটতে। এসময় বিষাক্ত রাসেল ভাইর তাকে দংশন করে। এ সময় তার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে সাপটিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলে এবং আফিজলকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ভোলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক এরশাদ।

এ বিষয়ে ভোলা সদর হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়ক ডা: আবু আহমেদ জানান, সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী থেকে এক লোক এসেছেন তাকে কিছু একটায় কামরিয়েছে। তবে সাপে দংশন করেছে এমন লক্ষণ এখন পর্যন্ত প্রকাশ পায়নি। আমরা তাকে পর্যবেক্ষণে রেখেছি। তিনি আরো বলেন, ভোলা যেহেতু নদীমাতৃক এলাকা, তাই সকলকে সচেতন থাকতে হবে।

আরো জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে ভোলা সদর উপজেলার শিবপুরের ইউনিয়নের শান্তির হাট ‘গরিবের ডুবাই নামে খ্যাত’ চায়না ইপিজেড বালুর মাঠে একটি, বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের জসিম হাওলাদারের বাড়িতে একটি ও তজুমদ্দিন উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের একটি বসতবাড়ির সামনে একটি রাসেল ভাইপার পাওয়া যায়।

এছাড়াও গত বুধবার (১৯ জুন) তজুমউদ্দিন উপজেলার চৌমুহনী এলাকায় খেলার মাঠ, মঙ্গলবার (১৮ জুন) সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশায় ইউপির পাকার মাথা এলাকায় বসতবাড়ির পাশের জালের সঙ্গে প্যাঁচানো অবস্থায় একটি রাসেল ভাইপার উদ্ধার করা হয়। গত মঙ্গলবার রাতে দৌলতখান উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের জালু মাঝির বসতঘর, রোববার (১৬ জুন) লালমোহনের লর্ড হার্ডিঞ্জ ইউপির সৈয়দাবাদ এলাকায় একটি বাড়ির বাথরুমে, বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা মনপুরা ও সাগর উপকূল উপজেলা চরফ্যাশনের বিভিন্ন ইউনিয়নে আরো ৫টি রাসেলস ভাইপার সাপ দেখা যায়। পরে স্থানীয়রা আতঙ্কিত হয়ে সাপগুলোকে মেরে ফেলেন। এর মধ্যে তজুমউদ্দিন উপজেলায় পাওয়া একটি সাপ বনবিভাগের তত্ত্বাবধানে রয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে জেলাজুড়ে সর্বসাধারণের মাঝে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সচেতন মহল মনে করছেন, সতর্কতার পাশাপাশি জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। একই সঙ্গে হাসপাতালগুলোতেও সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসা ও ভ্যাকসিন রাখতে হবে। সুশীল সমাজের প্রতিনিধি মোবাশ্বির উল্যাহ চৌধুরী বলেন, রাসেল ভাইপার নিয়ন্ত্রণে সরকারের উদ্যোগ নেওয়া জরুরি। স্কুল শিক্ষক মনিরুল ইসলাম বলেন, জনসচেতনতা বাড়াতে হবে, অন্যথায় সাপের দংশনে প্রাণহানি ঘটতে পারে।

এদিকে হঠাৎ করেই লোকালয়ে বিষধর এ সাপ ছড়িয়ে পড়ায় জেলার মানুষ অনেকটা আতঙ্কিত। এমন অবস্থায় রাসেল ভাইপার বংশবিস্তার ঠেকাতে এসব সাপের অবমুক্ত না করে মেরে ফেলার পরামর্শ দিয়েছেন বিষেজ্ঞদের কেউ কেউ। ভোলা সরকারি কলেজের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মাহবুব রহমান বলেন, পরিবেশের ভারসম্য রক্ষায় সাধারণত বিরল প্রজাতির জীবজন্তু বনে অবমুক্ত করা হয়। কিন্তু যেসব প্রাণী পরিবেশ ও মানুষের জন্য হুমকি স্বরূপ, সেগুলো মেরে ফেলাই ভালো। কারণ, রাসেল ভাইপার অত্যন্ত বিপজ্জনক সাপ।

জোলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম খান বলেন, রাসেল ভাইপার বিপজ্জনক ও বিষাক্ত সাপ। এটি সকল প্রাণির জন্য হুমকি স্বরূপ। তাই এ সাপকে মেরে ফেলা উচিত। ভয়াবহ বিষাক্ত রাসেল ভাইপার গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর কেউ কেউ সাপটি সম্পর্কে জানলেও প্রত্যান্ত এলাকার মানুষ কিছুই জানেন না। বিদেশি এ সাপটি উপকূলীয় জেলায় ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে। তাই জনসচেতনতা বাড়ানো পাশাপাশি সাপটি নিয়ন্ত্রণে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান সচেতন মহলের। একই সঙ্গে হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন রাখার দাবি তাদের।

এ ব্যাপারে উপকূলীয় বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. মো. জহিরুল হক বলেন, ঘূর্ণিঝড় রিমালের পর সাপগুলো তাদের আবাসস্থল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই এরা লোকালয়ে চলে এসছে বলে আমরা খবর পাচ্ছি। কিন্তু সাপগুলো মেরে ফেলা সমাধান নয়, এ সাপ থেকে রক্ষায় বসতঘরের আশেপাশে কার্বোলিড এসিড ছিটিয়ে দিতে হবে। সাপটি লোকালয়ে কমই দেখা যায়। বাচ্চা দেওয়ার কারণে হয়তো লোকালয়ে আসে। সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে এবং সাপ দেখলেই বনবিভাগে খবর দিতে হবে।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ কে এম শফিকুজ্জামান, এই সাপ সবচেয়ে বিষাক্ত ও এর অসহিষ্ণু ব্যবহার। সাপটি লম্বা বহির্গামী বিষদাঁতের জন্য অনেক বেশি লোক দংশিত হন। বিষক্রিয়ায় রক্ত জমাট বেঁধে যায়। ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে দীর্ঘ যন্ত্রণার পর মৃত্যু হয়। তিনি আরো বলেন, সাপে কাটা রোগীদের জন্য ভোলা হাসপাতালসহ উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত ‘এন্টি স্নেক ভেনিম’ ভ্যকসিন সরবরাহ রয়েছে। কোনো রোগী পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে শনাক্ত করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যকর্মীরা এ বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে পরামর্শ দিচ্ছে।

বিষধর রাসেল ভাইপার উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় কথা স্বীকার করে ভোলার জেলা প্রশাসক আরিফুজ্জামান বলেন, মানুষকে সচেতন করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



হিলিতে স্বল্পমূল্য টিসিবি পণ্য পেয়ে খুশি নিম্মআয়ের মানুষেরা

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৫৮জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:সীমান্তবর্তী দিনাজপুরের হাকিমপুর হিলিতে স্বল্পমূল্যে ফ্যামেলি কার্ডের মাধ্যমে টিসিবি পণ্য বিক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বল্পমূল্য এই সব টিসিবির পণ্য পেয়ে খুশি নিম্নআয়ের মানুষেরা।তবে পণ্যের পরিধি বাড়ানোর দাবি সাধারণ মানুষের।

আজ বুধবার (১৫ জুলাই ) বেলা ১১ টায় বাংলাহিলি পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে টিসিবি পণ্য বিক্রির  উদ্বোধন করেন টেগ অফিসার উপজেলা মৎস্য ক্ষেত্র সহকারী অফিসার কামাল হোসেন। এসময় টিসিবি পণ্য বিক্রয় কেন্দ্রর ডিলার আলম হোসেনসহ অনেকে। 

জানা যায়,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ১০ হাজার ৫ শ ৭১ জন স্বল্প আয়ের মানুষের (ফ্যামেলি কার্ডধারী) মাঝে জুলাই মাসের ২ কেজি মসুর ডাল, ২ লিটার সোয়াবিন তেল, ৫ কেজি চালসহ একটি প্যাকেজ ৪৭০ টাকা দিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে। আগামী তিন দিন পর্যায়ক্রমে পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ডে টিসিবি পণ্য বিতরণ করা হবে। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



যশোরে বিধবা নারীর মাটি চাপা দেয়া লাশ উদ্ধার, পুলিশ ৩জনকে হেফাজতে নিয়েছে

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৭৯জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোরে বিধবা নারীর মাটি চাপা দেয়া লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত বিধবা সোনাবানু(৪০)র বাড়ী যশোর সদর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের সন্ন্যাসী বটতলা গ্রামে।

আজ শুক্রবার বিকেলে সন্ন্যাসী বটতলা গ্রামের একটি বাগানের ভিতর থেকে মাটি খুড়ে ওই বিধবা নারীর মরদেহটি উদ্ধার করেছে যশোর কোতোয়ালী থানার পুলিশ। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে ।

হত্যার শিকার নারীর স্বজনরা জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন সোনাবানু। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে আজ শুক্রবার দুপুরে নিহতের বাড়ির কিছু দূরে একটি বাগানের ভিতর ছড়ানো ছিটানো মাটি দেখতে পান তারা। পুলিশে খবর দিলে মাটি খুড়ে একটি ছোট গর্ত থেকে সোনাবানুর মরদেহ উদ্ধার করেন। মরদেহের গলায় ওড়না পেচোনো ছিলো। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহতের স্বজনদের দাবি, সোনাবানু স্বামী মারা যাবার পর এক সন্তান নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সেই স্বামীর আগের ঘরের স্ত্রী সন্তান ছিলো। দ্বিতীয় স্বামীর ঘরে সোনাবানুর আরও দুটি সন্তান হয়। দ্বিতীয় স্বামী মারা যাওয়ার পর সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে নিজ ছেলে ও সতীনের ছেলের সাথে বিরোধ শুরু হয়। ওই জমির বিরোধ নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে যশোর কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রাজ্জাক জানান,প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহের জেরে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায়  জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এলাকার আরিফ হোসেন ও তার স্ত্রী ইভাসহ তিনজনকে থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছেন। তদন্ত চলছে, শিগগির রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে বলে মনে করেন তিনি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



ছাতকে পুলিশের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে রান্না করা খাদ্য বিতরন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৭৫জন দেখেছেন

Image

আনোয়ার হো‌সেন র‌নি,ছাতক সুনামগঞ্জ প্রতি‌নি‌ধি:সুনামগঞ্জের ছাতক থানার পুলিশের উদ্যোগে বন্যা কবলিত  আশ্রয়হীন মানুষদের ম‌ধ্যে খাদ‌্য রান্না করা খাবার বিতরন ক‌রে‌ছেন। ফলে থানা এলাকার ৯০ শতাংশ ঘর বাড়িতে পানি প্রবেশ করায় বহু মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে পড়ে। বন্যা কবলিত অসহায় মানুষদের পা‌শে দা‌ড়ি‌য়ে সহায়তার হাত এগি‌য়ে‌ছেন ওসি মোহাম্মদ শাহ আলম।ও‌সির নেতৃত্বে ছাতক থানার সকল অফিসার ও ফোর্সেদের  একাধিক দলে বিভক্ত হয়ে উদ্ধার ও ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।

গত বুধবার  সকালে ১৯জুন উপ‌জেলার  ইসলামপুরর ইউপি এলাকায় বন্যায় কবলিত আশ্রয়হীন বন্যার্তদের মধ্যে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়। এ সময় জামুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইসলামপুর উচ্চ বিদ্যালয় সহ গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে আশ্রয় নেয়া প্রায় ৫শ ৫০ জন অসহায় বন্যার্ত মানুষের মধ্যে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়।

আশ্রয়কেন্দ্র সমূহের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত সহ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রত্যেক বিট অফিসারকে নিজ নিজ দায়িত্বাধীন বিট এলাকায় ফুট পেট্রোল, মোবাইল পেট্রোল ও নৌ-পেট্রোল ডিউটি করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শাহ আলমের সাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ‌্য নি‌শ্চিত ক‌রেন।

উল্লেখ‌্য গত কয়েকদিনের টানা প্রবল বর্ষণ এবং বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী ভারতীয় পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপ‌জেলা সুরমা, ছেলা, পিয়াইন, বটেরখাল নদী সহ আশপাশের খাল বিল ও হাওড়ের পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।


আরও খবর