Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশে ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা পাঁচগুণ বেড়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৩১০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ডেঙ্গু মৌসুমের আগেই এবার গত বছরের তুলনায় দেশে ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা পাঁচগুণ বেড়েছে। জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৭০৪ জনের ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে। আজ সোমবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী একথা বলেন।

জাহিদ মালেক বলেন, ফাইজার থেকে বিনামূল্যে ৩০ লাখ টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ। এসব টিকা তৃতীয়, চতুর্থ ডোজ হিসেবে অথবা বুস্টার ডোজ হিসেবে দেওয়া হবে। ষাটোর্ধ মানুষকে চতুর্থ এবং আঠারোর্ধ মানুষকে তৃতীয় ডোজ হিসেবে হবে।

দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। অন্যদিকে সব বিধিনিষেধও উঠে গেছে, নতুন করে বিধিনিষেধ দেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি জেনেভা থেকে এসেছি। সেখানে দেখলাম একটি লোকও মাস্ক পড়েনি। সেখানে যে রোগী হচ্ছে না দু একটা করে তা নয়। আমাদের এখানেও দু একটি করে রোগী পাচ্ছি। ইদানিং কিছু বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু হাসপাতালে তেমন কোনো রোগী নেই। যেহেতু টিকা সকলে নিয়েছে সেজন্য মারাত্মক আকার ধারণ করছে না করোনা।

তিনি আরও বলেন, ‘কিন্তু আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলব, ‘করোনা যেহেতু আছে আমাদের সতর্ক থাকাটা ভালো। যেভাবে বেশি লোকের সমাগম হয় সেখানে মাস্ক পড়তে পারলে ভালো। করোনা মোকাবিলার জন্য যেসব অভিজ্ঞতা আমরা সঞ্চয় করেছি, সেগুলো আমাদের মনে রাখা উচিত। কারণ যেকোনো সময় বাড়তে পারে।


আরও খবর



ঘুরে দাড়ানোর স্বপ্ন দেখছে ঘর পাওয়া দূর্গম যমুনা তীরবর্তী মানুষগুলো

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১২৬জন দেখেছেন

Image

লিয়াকত হোসাইন লায়ন,ইসলামপুর(জামালপুর)প্রতিনিধি:জামালপুরের ইসলামপুরে যমুনা নদীর ভাঙনে নিঃস্ব পরিবারগুলোর মাথা গোঁজার ঠাঁই এখন সরকারের আশ্রয়ন প্রকল্প। প্রতিবছর নদী ভাঙনের শিকার যমুনাতীরবর্তী মানুষগুলোর কাছে সরকারের দেয়া আশ্রয়ন প্রকল্প গুলো আশীর্বাদ হয়ে এসেছে। সম্প্রতি উপজেলায় যমুনার দুর্গম সাপধরী ই্উনিয়নের চেঙ্গানীয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে ঠাঁই হয়েছে নদীভাঙা ও অসহায় ৪০টি পরিবারের। আশ্রয়ন প্রকল্পে বিনামূল্যের ঘর পেয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছেন তারা।

প্রায় ১০ বছর আগে ময়মনসিংহের জহুরুল ইসলামের সঙ্গে বিয়ে হয় পানফুল বেগমের। অসহায় পানফুল অভাবের তাড়নায় ছোট বেলায় পাড়ি জমান ঢাকা শহরে। চাকরী নেয় গার্মেন্টসে। সেই থেকে পরিচয় স্বামী জহুরুল ইসলামের সাথে। পরিচয় থেকে বিয়েতে গড়ায় তাদের জীবন। তাদের কুলজুড়ে আসে কন্যা সন্তান। এরপর থেকেই স্বামী আর খোঁজ নেয়নি, স্বামী আরেকটি বিয়ে করায় দেখতে আসেনি মেয়ের মুখও। 

সদ্যজাত মেয়ে নিয়ে পানফুলের আশ্রয় হয় দিনমজুর বাবার ঘরে। দিনমুজর বাবার ভিটেমাটি না থাকায় এ বাড়ি ও বাড়ি কাজ করেই চলতো তার জীবন। এরপর থেকেই আশ্রয় নিয়েছেন এক বাড়ি থেকে অন্যবাড়ি। অবশেষে পানফুলের আশ্রয় হয়েছে চেঙ্গানীয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে। মাথা গোঁজার ঠাঁই আর সরকারের ভাতা আর হাঁস-মুরগি পালন ও যমুনার চরে ফসল তুলেই চলছে ফুটফুটে সন্তানকে নিয়ে তার জীবন। শুধু পানফুলই নন, সাপধরী ইউনিয়নে যমুনার ভাঙন ও অসহায় নিঃস্ব ৪০টি পরিবারের আশ্রয় হয়েছে চেঙ্গানীয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে। তারা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও ধর্মমন্ত্রী আলহাজ্ব ফরিদুল হক খানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। গতকাল উপজেলা প্রশাসন প্রতিটি ঘরে গিয়ে আশ্রিতদের দলিল হস্তান্তর করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম মন্ডল বলেন, সরকার সারাদেশেই আশ্রয়হীনদের গুচ্ছগ্রামে বিনামূল্যে ঘর তৈরি করে দিচ্ছেন। সেই ধারাবাহিকতায় দূর্গম চরগুলোতে গুচ্ছগ্রাম তৈরি করা হয়েছে।এতে অসহায় পরিবারগুলোর মাথাগোঁজার ঠাই হয়েছে। তবে এসব আশ্রয়ন প্রকল্পে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করা দরকার।

প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদী হাসান টিটু জানান- দূর্গম যমুনার চরসহ উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে অসহায়,নদী ভাঙ্গনে আশ্রয়হীনদের জন্য গুচ্ছগ্রাম নির্মান করা হয়েছে।এতে অসহায় পরিবারগুলোর মাথাগোঁজার ঠাই হচ্ছে। প্রতিটি ঘর দুই লাখ পয়ত্রিশ হাজার টাকা ব্যয়ে ৪০টি ঘর তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও আশ্রয়ন প্রকল্পে কমিউনিটি সেন্টার নির্মিত হচ্ছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ’মি) সাঈদ মোহাম্মদ ইব্রাহীম জানান, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন যমুনার দুর্গম চরে আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মাণ করা হয়েছে। যমুনার দুর্গম সাপধরী ই্উনিয়নের চেঙ্গানীয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে মূলত নদী ভাঙন ও অসহায় আশ্রয়হীন ৪০টি পরিবারকে ঘর ও দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। বন্যার সময় আশ্রয়ন প্রকল্পটি আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে।


আরও খবর



মেঢারাবি-৫ ধানমন্ডি অফিসকে স্মার্ট সেবার আওতায় নিয়ে এসেছেন এমদাদুল হক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ২০৭জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃতিতাস গ্যাসের মেঢারাবি-৫ধানমন্ডি অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক এমদাদুল হক যোগদানের পর থেকে পাল্টে যাচ্ছে অনেক দৃশ্যপট। তিতাস গ্যাসের এমডির নির্দেশনাগুলোকে আমলে নিয়ে রাজস্ব আদায়,বকেয়া আদায় এবং অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে প্রশংসাও পেয়েছেন এই কর্মকর্তা।কোম্পানীকে লোকসানমুক্ত করার আহবানে সাড়া দিয়ে যে কতজন কর্মকর্তা নিবেদিত প্রান হিসেবে কাজ করছেন তার মধ্যে অন্যতম মেঢারাবি-৫ধানমন্ডি অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক এমদাদুল হক।তিতাসের ১৮ টি জোন/আরএসও অফিসের মধ্যে মেঢারাবি-৫ধানমন্ডি অন্যতম।বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ে নিরলসভাবে নিয়োজিত আছেন তিনি। যোগদানের পর থেকে বকেয়া আদায়ে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বকেয়া আদায় করে প্রশংসায় ভাসছেন এমদাদুল হক।মেঢারাবি৫-ধানমন্ডি অফিসে যোগদানের আগে তিতাস গ্যাসের প্রধান কার্যালয়,ময়মনসিংহ, গাজীপুরে সফলতার সাথে  দায়িত্ব পালন করেন এই কর্মকর্তা।তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র মেট্রো ঢাকা রাজস্ব বিভাগের (জোন-১০,১১) উপমহাব্যবস্থাপক মোঃ এমদাদুল হক সার্বক্ষণিক সেবামূলক কাজ করে মানবিক কর্মকর্তা হিসেবে সকলের নিকট পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছেন। তার কার্যালয়ে প্রবেশ করতে লাগে না কোন অনুমতি। ইচ্ছা করলে যে কেউ তার অফিসে বিনা-অনুমতিতে প্রবেশ করতে পারেন।তিনি অত্যন্ত সততা, নিয়মানুবর্তিতা ও আন্তরিকতার  সাথে এই অফিসে সেবা চালু করায় মেঢারাবি-ধানমন্ডিতে তিতাস গ্যাসের গ্রাহকদের ভোগান্তি অনেকাংশে লাঘব হয়েছে।তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হারুনুর রশিদ মোল্লাহ মেঢাবিবি-৫ ধানমন্ডি অফিসে আচমকা ঝটিকা সফর এসে  বকেয়া আদায়, অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন, গ্রাহক সেবার মান, এবং জোনাল অফিসের কাজকর্ম তদারকি করে সন্তোষ প্রকাশ করেন। দপ্তরের প্রতিটি টেবিল তিনি ঘুরে ঘুরে দেখেন। কর্মকর্তা, কর্মচারী, ঠিকাদার এবং সেবা গ্রহণের জন্য আসা উপস্থিত গ্রাহকের সাথে তিনি কথা বলেন। কর্মকর্তা, কর্মচারীদের গ্রাহকের সাথে ভাল আচরণ করার পরামর্শ দেন। এমন ঝটিকা সফরে গ্রাহক সেবার মান  বৃদ্ধিতে সহায়ক ভুমিকা পালন করে।

মেঢারাবি-৫ ধানমন্ডি অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক এমদাদুল হক বলেন,"তিতাস গ্যাস ট্রন্সমিসন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি এর মেট্রো ঢাকা রাজস্ব বিভাগ-৫, ধানমন্ডি অফিসের উপমহাব্যাবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনটি বিষয়কে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। তা হলো-১) দ্রুত সেবা প্রদানসহ গ্রাহক সেবার মান বৃদ্ধি;২) বকেয়া রাজস্ব আদায়;৩) গ্রাহকের সাথে মানবিক ব্যবহার।"

তিনি আরো জানান,"ধানমন্ডি অফিসে কর্মরত সকল কর্মকর্তা এবং কর্মচারী বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করে নানা প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতির জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে। যারা পরিস্থিতির উন্নয়নে বিরামহীনভাবে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে সেই সকল দক্ষ এবং নিবেদিত প্রাণ কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আর যারা পরিস্থিতির উন্নয়নে এখনও যোগ না দিয়ে উল্টো পথে নিয়োজিত আছে তাদেরকে সতর্ক হওয়ার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করছি। মনে রাখবেন তিতাস গ্যাসের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ তাদেরকে খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনার জন্য সকল প্রকার শক্তি নিয়োগ করেছে।"

মেঢারাবি-৫ ধানমন্ডি অফিসে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে অফিসে গিয়ে দেখা গেছে আগত গ্রাহকরা সেবা নিয়ে সন্তুষ্ট হয়ে অফিস ত্যাগ করছে। এই অফিসে বেশ কিছু বৃক্ষ রোপন করেছেন এমদাদুল হক। তাছাড়া ও কর্মসূত্রে তিনি যেখানেই গিয়েছেন গিয়েছেন সেখানেই লাগিয়েছেন গাছ। ময়মনসিংহ তিতাস গ্যাস অফিসে এবং গাজীপুরেও শত শত বৃক্ষরোপণ করেছেন এই বৃক্ষপ্রেমী। তার বর্তমান কর্মস্থলেও অফিসের ভেতরে বাহিরে লাগিয়েছেন অসংখ্য গাছ।

মেঢারাবি-৫ ধানমন্ডি ২০২৪ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত মাসিক গড় বিক্রয় ২৫ কোটি ৭৩ লক্ষ টাকা এবং এই সময়ে মাসিক গড় আদায়ের পরিমাণ ২৪ কোটি ৪৭ লক্ষ টাকা।গত ২০২৪ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত এই জোনাল অফিসের অধীনে বকেয়ার জন্য ৭৯৮ টি গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এছাড়াও অভিযান পরিচালনা করে ১০৮ টি অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে মেঢারাবি-৫ ধানমন্ডি অফিস।এ সময় বৈধ সংযোগ নিয়ে অবৈধ চুলা ব্যাবহার করায় ৩৮ টি গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।গ্যাস বিতরণ কোম্পানি তিতাসের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার ফলে গত দুই বছরে কোম্পানিটির সিস্টেম লস নিম্নমুখী সূচকে অবস্থান করছে।এই ধরনের কর্মকাণ্ড ধারাবাহিক ভাবে চলবে বলেও জানিয়েছেন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র মেট্রো ঢাকা রাজস্ব বিভাগের উপ মহাব্যবস্থাপক এমদাদুল হক।


আরও খবর



মধুপুর থানার অফিসার দ্বয়ের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ৮১জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা বিশেষ প্রতিনিধি মধুপুর টাঙ্গাইল:টাঙ্গাইলের মধুপুর থানা পুলিশ পরিদর্শক(নিঃ) তদন্ত অফিসার মোঃ মুরাদ হোসেন ও অরণখোলা পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ মোঃ আব্দুস সাত্তারের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সোমবার (৮জুলাই) বিকেলে থানা হল রুমে মধুপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোল্লা আজিজুর রহমান এর সভাপতিত্বে এবং থানা কর্তৃক আয়োজিত এ বিদায়ী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মধুপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ফারহানা আফরোজ জেমি।

উক্ত অনুষ্ঠানে সহকারী পুলিশ সুপার বিদায়ী কর্মকর্তাদ্বয়’দের বর্তমান ইউনিটে কর্মকালের স্মৃতিচারণ করেন এবং নতুন কর্মস্থলে উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করেন।

এ সময় মধুপুর থানা সহ অরণখোলা ও আলোকদিয়া পুলিশ ফাঁড়ির অফিসার ও ফোর্সগন উপস্থিত ছিলেন। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



কালিয়াকৈরে শিয়ালের কামড়ে আহত-১৫ আতঙ্কিত গ্রামবাসী, শিয়াল পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে পাশাপাশি পৃথক দুটি গ্রামে দুই দিনে শিয়ালের কামড়ে শিশু-নারীসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। এক শিয়াল পিটিয়ে হত্যা করলেও বাকী শিয়ালের আক্রমণ আতঙ্কে লাঠিসোটা নিয়ে পাহাড়া দিচ্ছেন আতঙ্কিত গ্রামবাসী। এদিকে আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে ভ্যাকসিন না পেয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর পৌরসভার টানকালিয়াকৈর এলাকায় বৃহস্পতিবার ভোরে স্থানীয় রতন মিয়া ও তার স্ত্রী হনুফা বেগমকে একটি শিয়াল আক্রমণ করে এবং তাদের কামড়ে দেয়। এসময় স্থানীয় লোকজন ওই শিয়ালকে লাঠিসোটা দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের স্বামী-স্ত্রীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে ঠিকমতো ভ্যাকসিন না পেয়ে তাদের ঢাকা মহাখালী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এর আগে গত বুধবার বিকেলে ওই এলাকায় শিয়ালের কামড়ে নেওলা হকের ছেলে শামসুল হক(৫০), নজরুল ইসলামের ছেলে উসমান গণি (১০), কবির মিয়ার ছেলে আফনান হোসেন (১০), নুর আলমের স্ত্রী নাসিমা বেগম (৫০), আফসার আলীর ছেলে মেহমিত (৭), জলিল হোসেনের ছেলে শওকত হোসেন (৪০), শামসুল ইসলামের স্ত্রী হামিদা বেগম (৬০), জব্বার মিয়া (৪০) এবং ওইদিন সন্ধ্যায় পাশের জানেরচালা গ্রামের শাজাহান মিয়ার স্ত্রী বৃষ্টি বেগম (৩৫) ও তার নাতিন স্বর্ণা আক্তার (৬)সহ কমপক্ষে ১৫ জনকে আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান তাদের পরিবারের সদস্যরা। ওই হাসপাতালে ভ্যাকসিন না পেয়ে আহতরা পার্শ্ববর্তী টাঙ্গাইলের মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ঢাকা মহাখালীতে যান। দুদিনে শিশু ও নারীসহ ১৫জন শিয়ালের কামড়ে আহত হওয়ার ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন গ্রামবাসী। এছাড়াও আতঙ্কে লাঠি নিয়ে যাতায়াত করছেন শিশুরাও। এদিকে এক শিয়াল পিটিয়ে হত্যা করলেও বাকী শিয়ালের আক্রমণ আতঙ্কে ওই ঘটনার পর স্থানীয় যুবকরা লাঠিসোটা নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত ও পরের দিন বৃহস্পতিবারও পাহাড়া অব্যাহত রেখেছে। তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আগুন জ¦ালিয়ে দিয়েছেন কয়েকটি শিয়ালের গর্তেও।

স্থানীয় শাহিনুর ইসলাম বলেন, কয়েকটি শিয়াল পাগলা হয়ে গেছে। তাই সে সবাইকে কামড়ে দিয়েছে। আরো যাতে কামড়ে দিতে না পারে সেজন্য আমরা পাহাড়া দিচ্ছি। মুদি দোকানদার আজিজুল হক বলেন, সবাই এখন পাগলা শিয়ালের আতঙ্কে আছি। এই বুঝি শিয়াল এসে কামড়ে দিলো। হেলাল পারভেজ বলেন, আমার মেয়েও এখন লাঠি নিয়ে চলাচল করে। আর শিয়াল আতঙ্কে আমার মেয়ের মতো অন্যান্য শিশুরাও লাঠি নিয়ে চলে। কিন্তু বেশির ভাগ শিশুরা ভয়ে বাড়ির বাইরে যাচ্ছে না। তবে সংশিষ্টদের প্রতি তাদের দাবী অতিদ্রুত পাগলা শিয়ালগুলোর বন্য আইন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা লুৎফর রহমান জানান, শিয়ালে কামড়ে দিলে কয়েকজন হাসপাতালে আসে। কিন্তু এর ভ্যাকসিন সদর হাসপাতাল ও মহাখালীতে থাকে। একারণে আহতদের সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এব্যাপারে কালিয়াকৈর রেঞ্জ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, আমাদের বনবিভাগের আরো একটি শাখা রয়েছে। তাদের কাজ হচ্ছে বন্যপ্রাণী উদ্ধার করা। তবে ওই শাখায় যোগাযোগ করা হলে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।


আরও খবর



পঞ্চগড়ে আলোচিত শাকিল হত্যার মুল আসামী আটক

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩৯জন দেখেছেন

Image

কুয়েল ইসলাম সিহাত, বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি:পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায় শাকিল রানা (২৮) নামে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধারের তিন দিনের মাথায় সাইদুর রহমান সোহেল (৩৫) নামে আরেক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (৬ জুলাই) বিকেলে আইনি প্রক্রিয়া শেষে আদালতের মাধ্যমে তাকে পঞ্চগড় জেল হজতে পাঠানো হয়েছে। এদিকে হত্যার সাথে জড়িত থাকার দায়ে র‌্যাব-১৩ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে গত শুক্রবার (৫ জুন) বিকেলে সোহেলকে ঠাকুরগাঁও জেলার ফকিরপারা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। সে দিন রাতেই তাকে আটোয়ারী থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আটক সাইদুর রহমান সোহেল ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ফকিরপারা গ্রামের শাহজালালের ছেলে।এদিকে নিহত যুবক শাকিল রানা পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার রাঁধানগর ইউনিয়নের বড়দাপ প্যারিস সিনেমা হল এলাকার আজিজুল হকের ছেলে।

থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ জুলাই (বুধবার) সন্ধায় গোসল ও খাওয়া শেষে বাড়ি থেকে হাল চাষের টাকা সংগ্রহের কথা বলে বের হয় বলে জানা যায়। রাত ৮টার সময় তার স্ত্রীর সাথে কথা হলেও রাত ১১টায় স্থানীয়দের মাধ্যমে মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি জানতে পারে পরিবারের সদস্যরা। ঘটনার দিন রাতে উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের পল্লী বিদ্যুৎ এলাকার সুখের ব্রিজের নিজ থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহের প্রাথমিক সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্ত করে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এদিকে র‌্যাব বিষয়টি অবগত হয়ে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে শুক্রবার (৫ জুলাই) সোহেলকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে থানায় হস্তান্তর করে। এর আগে শাকিল রানার মরদেহ উদ্ধারের পর বুধবার রাতেই থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের হলেও সোহেলকে গ্রেফতারের পর থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

আটোয়ারী থানার অফিসার ইনচার্জ মুসা মিঞা বলেন, ঘটনার দিন অনেকেই তাদের একসাথে দেখেছে বলে জানা গেছে। তবে তাদের পারিবারিক কোন সম্পর্ক নেই। আটকের পর র‌্যাব আমাদের কাছে হস্তান্তর করে। শনিবার আদালতে তোলা হলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর