Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

চিলমারীতে হতদরিদ্রদের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৬৫জন দেখেছেন

Image

আলমগীর হোসাইন, চিলমারী প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক ঢেউটিন বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপ¯ি’ত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেন এমপি। সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ র“কুনুজ্জামান শাহীন, চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আতিকুর রহমান প্রমুখ উপ¯ি’ত ছিলেন। পরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেন এমপি চিলমারী উপজেলার ৭৫টি পরিবারের মাঝে ১ বান্ডিল করে ঢেউটি ও ৩ হাজার করে টাকার চেক বিতরণ করেন। 


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




বেনাপোলে পাসপোর্ট যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:ঈদুল আজহার ছুটিতে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত ভ্রমণে পাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াত বেড়ে প্রায় তিন গুণ হয়েছে। পাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াত বৃদ্ধি পেয়ে আজ সহ গত তিন দিনে ২২ হাজার ৮৯১ জন পাসপোর্টধারী দুদেশে আসা-যাওয়া করেছেন। ঈদের ছুটিতে ভারতে যাত্রী যাতায়াত বৃদ্ধি পেলেও অব্যবস্থাপনার কারণে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশনে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা।

ভ্রমণ, ব্যবসা ও চিকিৎসার জন্য পাসপোর্ট যাত্রীরা এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাতায়াত করেন। ইমিগ্রেশনের তথ্য অনুযায়ী, ঈদুল আজহায় সরকারি ছুটি বেশি থাকায় গত তিন দিনে রেকর্ড পরিমাণ যাত্রী বেনাপোল বন্দর দিয়ে পারাপার হয়েছেন। যা স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় অন্তত তিন গুণ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে দীর্ঘ সারিতে দাঁড়িয়ে দুই দেশের ইমিগ্রেশনে ভোগান্তির শিকার হয়েছেন যাত্রীরা। বিশেষ করে পেট্রাপোল ইমিগ্রেশনে ভোগান্তি বেশি বলে যাত্রীদের অভিযোগ।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা যায়, ১২ জুন থেকে ১৫ পর্যন্ত তিন দিনে মোট ২২ হাজার ৮৯১ জন পাসপোর্টধারী যাত্রী দুই দেশের মধ্যে যাতায়াত করেছেন। এর মধ্যে ১৫ হাজার ৫২ জন বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশ করেছেন। আর ৭ হাজার ৮৩৯ জন ভারত থেকে বাংলাদেশে এসেছেন। সরকারি ছুটি শেষ হওয়ার আগমুহূর্ত পর্যন্ত সময়ে আরও কয়েক হাজার যাত্রী ভারত ভ্রমণে যাতায়াত করবেন বলে জানা গেছে।

বেনাপোল-পেট্রাপোল নো-ম্যান্সল্যান্ডে সরেজমিনে গিয়ে পলাশ নামে এক যাত্রীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এবার পরিবার নিয়ে ভারতে ঈদ উদযাপন করতে যাচ্ছি। কিন্তু এখানে তিন ঘণ্টা তীব্র গরম আর রোদের মধ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। লাইন কমছে না। এখানকার অফিসাররা ধীরগতিতে কাজ করায় সময়টা বেশি লাগছে। এখনও কত সময় লাগবে বলতে পারছি না।’

গোলাম মোস্তফা নামে আরেক যাত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘বাংলাদেশ ইমিগ্রেশনের কার্যক্রম শেষ করতে মাত্র কয়েক মিনিট লাগলেও পেট্রাপোল নো-ম্যান্সল্যান্ডে রৌদ্রের মধ্যে দুই ঘণ্টার ওপরে দাঁড়িয়ে আছি। ইমিগ্রেশনে কখন ঢুকবো বলতে পারছি না।’

বেনাপোল ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজহারুল ইসলাম বলেন, ‘ঈদুল আজহার ছুটিতে তিন দিনে ২২ হাজার ৮৯১ জন যাত্রী দুই দেশের মধ্যে আসা-যাওয়া করেছেন। স্বাভাবিক সময়ে এ সংখ্যা গড়ে প্রতিদিন ৪ হাজার ৫০০ জনের মধ্যে থাকে। তবে এবার রেকর্ডসংখ্যক যাত্রী যাতায়াত করেছেন। যাদের অধিকাংশই ঈদ উপলক্ষে দীর্ঘ ছুটির কারণে ভ্রমণ ও চিকিৎসার জন্য ভারতে গমন করছেন।’

এ ছাড়া পেট্রাপোলে ভোগান্তির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পেট্রাপোলের ওসির সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ হচ্ছে। যাত্রীদের ভোগান্তি কমাতে তাদের তাগিদ দেওয়া হচ্ছে। সেখান থেকে জানানো হয়েছে, ইমিগ্রেশনে দেরি হচ্ছে না। দেরি হওয়ার মূল কারণ বিএসএফের তল্লাশি। এরপরও যাত্রীসেবার মান বাড়াতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাগিদ দেন।


আরও খবর



এডিপির বার্ষিক উন্নয়ন ২০২৩-২৪ অর্থবছর, রৌমারীতে ৫৩ টি উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | ১২৫জন দেখেছেন

Image

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা:কুড়িগ্রামের রৌমারীতে ২০২৩/২৪ অর্থবছরে এডিপি’র আওতায় উপজেলায় উন্নয়ন সহায়তা তহবিলের ৪ কিস্তিতে সম্ভাব্য ৯৭ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা বরাদ্দ পায় । উক্ত টাকা হতে ৩০% প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে এবং টেন্ডারের মাধ্যমে ৬৬ লক্ষ ৬৩ হাজার ৬৮০ টাকার মোট ৫৩ টি প্রকল্প গ্রহন করা হয়। সেই টাকার মধ্যে প্রকল্প কমিটির মাধ্যমে ১৭ টি প্রকল্প ও টেন্ডারের মাধ্যমে ৩৪ টি প্রকল্প এবং এডিপির মাধ্যমে ২টি প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষে প্রকল্প তালিকা চুরান্ত করা হয়। 

জানা গেছে,উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হতদরিদ্র মানুষের মাঝে রিংস্লাভ বিতরণ ১ লাখ টাকা। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বুক সেল বিতরণ ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। বিক্রিবিল তিন রাস্তার মোড় হতে উত্তর দিক পর্যন্ত রাস্তা এইচ বি করণ ১ রাখ টাকা । বন্দবেড় ইউনিয়ন এবং টাপুরচর বটতলার বেদীতে গোল চত্তর তৈরী ও টাইলস করণ ১ রাখ টাকা। উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইজলামারী গ্রামের স্কুলের সামনে মসজিদের পূর্বদিকে গাইড ওয়াল নির্মাণ ১ লাখ টাকা। চরশৌলমারী ইউনিয়নের ফুলকারচর গ্রামের দায়রাপাক দরবার শরীফে টয়লেট ও টিউবওয়েল নির্মাণ ১ লাখ টাকা। শৌলমারী ইউনিয়নের বেহুলারচর গ্রামে উত্তর দিকে মসজিদে অজু খানা নির্মাণ ১ লাখ টাকা। দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের গাছবাড়ি মসজিদের অজু কানা নির্মাণ ১ লাখ টাকা। উপজেলার নারীদের কল্যাণের জন্য সেলাই মেশিন বিতরণ ২ লাখ ৯২ হাজার টাকা। ডিসি রাস্তা হতে শৌলমারী এম আর স্কুল গেট পর্যন্ত রাস্তা সিসি করণ ২ লাখ টাকা। চৎলাকান্দা আলমের বাড়ির নিকট পাকা হতে পূর্বদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাইয়ুম বাড়িগামী রাস্তা ও রৌমারী কাষ্টমস অফিসের অসমাপ্ত রাস্তা সিসি করণ ৩ লাখ টাকা। ২নং শৌলমারী ইউনিয়নের দুস্থ কৃষকের মাঝে ¯্রেেমশিন বিতরণ ২ লাখ টাকা। উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ ২ লাখ টাকা। বন্দবেড় ইউনিয়নের বাগুয়ারচর গ্রামের সবুর এর বাড়ির সামনে হেরিং এর মাথা হতে বাগুয়ারচর দাখিল মাদ্রাসা পর্যন্ত এইচবি করণ ২ লাখ টাকা। বন্দবেড় ইউনিয়নে কৃষক পরিবারের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ  ২ লক্ষ টাকা। চরশৌলমারী ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সের অবশিষ্ট প্রাচীর নির্মাণ ৫ লক্ষ টাকা। চরশৌলমারী ইউনিয়নে সুখের বাতি জামে মসজিদের টয়লেট নির্মাণ ২ লাখ টাকা। কোমড় ভাঙ্গি সরকার পাড়া পাকা রাস্তা হতে উত্তর দিকে সিসি করণ ৫ লক্ষ টাকা। যাদুরচর ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ ২ লক্ষ টাকা। দাঁতভাঙ্গা বাজারের পশ্চিম পাশ্বে সিসি রাস্তার মাথা হতে গুটলি গ্রাম গামী রাস্তায় সিসি করণ ৫ লক্ষ টাকা। দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ ২ লক্ষ টাকা। ৫ নং ওয়ার্ড দক্ষিণ ইজলামারী কবিরাজের বাড়ি হইতে পুর্বদিকে আনোয়ার আর্মির বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা সিসি করণ ৭ লাখ টাকা। ৪নং রৌমারী ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ডে স্প্রেমেশিন বিতরণ ২ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হতদরিদ্র কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ ২ লক্ষ টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হতদরিদ্র কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ (অংশ ২ ) ২ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হতদরিদ্র কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ (অংশ ৩) ১ লাখ টাকা। যাদুরচর দিগলাপাড়া গ্রামের কওমি মাদ্রাসায় ঘর প্লাস্টার করণ ১ লাখ টাকা। জামি আ মাহমুদিয়া জান্নাতুল মাওয়া মহিলা মাদ্রাসার আবাসিক ছাত্রীদের রান্নাঘর নির্মাণ ২ লাখ টাকা। ২নং শৌলমারী ইউনিয়নের বড়াইকান্দি বাজারের পশ্চিম পার্শে দাখিল মাদ্রসার ঘর মেরামত ১ লাখ টাকা। ৩নং বন্দবেড় ইউনিয়নের খঞ্জনমারা প্রতিবন্ধি স্কুলের ঘর পাকাকরণ ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ৪নং রৌমারী ইউনিয়নের চরবামনেরচর ও রতনপুর হাফিজিয়া মাদ্রসার ঘরের মেঝে পাকা করণ ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ৬নং চরশৌমারী ইউনিয়নের মিয়াচর চরের পশ্চিম পার্শ্বে হলহলিয়া নদীতে কাঠের ব্রিজ নির্মাণ ৩ লাখ টাকা। ৬নং চরশৌলমারী ইউনিয়ের মশালেরচর হলহলিয়া নদীর ওপর কাঠের ব্রিজ নির্মাণ ৩ লাখ টাকা। ৬নং চরশৌমারী ইউনিয়নের শান্তিরচর গ্রামের ঈদগাহ মাঠে টাইলসহ মিনার নির্মাণ করণ ২ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ক্রিয়া সংগঠনে খেলা সামগ্রী বিতরণ (পিআইসি) ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হতদরিদ্র কৃষকের মাঝে স্প্রেমেশিন বিতরণ (পিআইসি) ১ লাখ টাকা। দাতভাঙ্গা ইউনিয়নের তেকানী গ্রামের হাফিজিয়া মাদ্রাসার ঘর মেরামত করণ ১ লাখ টাকা। ২নং শৌমারী ইউনিয়নে বাউশমারী সাইদুর মাস্টারের বাড়ি সংলগ্ন মসজিদে টাইলস করণ ১ লাখ টাকা। ৩নং বন্দবেড় ইউনিয়নের জন্দিরকান্দা গ্রামে ঈদগাহ মাঠে গাইড ওয়াল নির্মাণ ১ লাখ টাকা। রৌমারী ইউনিয়নের বাওয়াইয়ারগ্রাম ইরাফিল মেম্বারের বাড়ি সংলগ্ন মসজিদে টয়লেট নির্মাণ ১ লাখ টাকা। রৌমারী ইউনিয়নের গোয়ালগ্রাম ঈদগাহ মাঠে মিনার নির্মাণ ১ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলার ৩টি প্রেসক্লাবে চেয়ার সরবরাহ করণ ১ লাখ টাকা। রৌমারী মৎস্য বিভাগের অধিন বিল নার্সারী স্থারী স্থাপন ৫০ হাজার টাকা। রৌমারী প্রাণি সম্পদ বিভাগের অধিন কৃমিনাশক ও ভিটামিন ক্রয় ৫০ হাজার টাকা। রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জন্য খেলাধুলা সামগ্রি বিতরণ (পিআইসি) ২ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলা ভুমি অফিসের সামনে পুরাতন পোষ্ট অফিস মেরামত ও সংরক্ষণ ৪ লাখ টাকা। ভাষাসৈনিক মরহুম রুস্তম আলী দেওয়ানের কবরস্থান ও বাড়ি গমনের রাস্তা সিসি করণ ৩ লাখ টাকা। রৌমারী কৃষি বিভাগের অধিনে স্প্রেমেশিন ক্রয় ৫০ হাজার টাকা। শালুর মোড় থেকে কাজাইকাটা রাস্তা ১৫০ মিটার চেইনেজে কাঠের সাকো নির্মাণ ২ লাখ টাকা। খেতারচর গ্রামে আফুরুদ্দিনের বাড়ির সামনে খালের ওপর কাঠের সাকো নির্মাণ ২ লাখ টাকা। রৌমারী উপজেলা সকল উন্নয়ন কাজ তদারকি ব্যয় ৯৭ হাজার ২৮০ টাকা। রৌমারী উপজেলার সকল উন্নয়ন কাজের আনুসাঙ্গিক ব্যয় ৪৮ হাজার ৬৪০ টাকা। ৫৩ টি প্রকল্পে টেন্ডারের সাশ্রয়কৃত অর্থসহ মোট ১ কোটি ৮৭ হাজার ৯২০ টাকা খরচ দেখানো হয়েছে।


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




ভোট গণনায় অনিয়ম ও সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়ার অভিযোগ; যৌক্তিক দাবির সমাধান চান তিনি

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:ভোট গণনায় অনিয়ম ও সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে নওগাঁর আত্রাইয়ে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদের ৩য় ধাপের অনুষ্ঠিত নির্বাচনে। অভিযোগ তুলেছেন আফছার আলী প্রামানিক নামে এক ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি ওই নির্বাচনে তালা প্রতিকে নির্বাচন করে হেরে গিয়েছেন। তার অভিযোগ সুকৌশলে তাকে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর আগে একাধিক অনিয়ম তুলে তিনি গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন। এছাড়া পরের দিন শুক্রবার (৩১ মে) সকালে ভূক্তভোগী আফছার আলী প্রামানিক তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ ও সংবাদ সন্মেলন করেও তিনি কোনো সমাধান বা আশ^াস পাননি। তাই হতাশ হয়ে গণমাধ্যমকর্মীর কাছে আবারও অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি।

প্রার্থী আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আফছার আলী দাবি করে বলেন, গত ২৯মে আত্রাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই নির্বাচনে উপজেলার জনগণ স্বত:স্ফূর্ত ভাবে আমাকে ভোট প্রদান করেছেন। কিন্তু ৬৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ছয়টি কেন্দ্রে ভোট গণনায় তার প্রতি চরম অন্যায় এবং অবিচার করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় তিন হাজার ৮১০ভোট বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যায় এবং শতকরা হারে গড়মিল রয়েছে। তিনি বলেন, একজন ভোটার যখন ভোট দিতে যায় তখন তাকে তিনটি পদে তিনটি ব্যালট পেপার দেয়া হয়। এতে তিনটি পদেই প্রদেয় ভোটের সংখ্যা একই রকম হওয়ার কথা। অথচ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষিত প্রাথমিক বেসরকারী ফলাফল সিটে চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যা ৭৩হাজার ২৪৮, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৩১এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৬৮প্রদেয় ভোট দেখানো হয়েছে। এতে কোনো পদের সাথে কোনো পদের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যার মিল নেই। যা অনিয়মের নজির। তিনি বলেন, ঘোষিত বেসরকারী ফলাফলে নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুল শেখ এর ভোট দেখানো হয়েছে ৩৩হাজার ৫১৮এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আমাকে তালা প্রতিকে দেখানো হয়েছে ৩২হাজার ২৭৪ভোট। এতে ভোটের ব্যবধান দেখানো হয়েছে এক হাজার ২৪৪ভোট। অথচ বাতিল ভোটের সংখ্যা দেখানো  হয়েছে তিন হাজার ৮১০ভোট। তিনি দাবি করে বলেন, আমাকে সুকৌশলে অনিয়ম করে হারানো হয়েছে। মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ৬টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনা করলে আমিই জয়লাভ করব। এঘটনায় মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ছয়টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনার দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

ভূক্তভোগী আফছার আলীর দাবি তার প্রতীকে সিল মারা একাধিক ব্যালট বাহিরে পাওয়া গিয়েছে। যেটা কোনো ভাবেই কাম্য নয়। তাই তিনি পুনরায় বাতিলকৃত ভোট ও ছয়টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ভোট গণনা চান। তিনি বলেন, প্রধানমনত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক সারাদেশে নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। আমার এখানেও নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কিছু কর্মকর্তা আমাকে সুকৌশলে হারিয়ে দিয়েছে। আমার প্রতি অন্যায় করা হয়েছে। আমাকে যারা ভালোবাসেন এবং ভোট দিয়েছেন তারা আমার এই পরাজয়কে মেনে নিতে পারছেনা। সেই জন্য আমি উচ্চ আদালতে যাবো। এর শেষ দেখে ছাড়বো। 

এদিকে তিনি সংবাদ সন্মেলনেও একই দাবি তোলেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য স্বপন কুমার সাহা, আত্রাই উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাফিউল ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্র নেতা আমানুল্লাহ ফারুক বাচ্চু, পাঁচুপুর ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন, সমাজ সেবক রতন প্রামানিকসহ দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।

সুকৌশলে হারিয়ে দেওয়া ও অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে আত্রাই নির্বাচন কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম অস্বীকার করে বলেন, সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। আর প্রদেয় ভোটের শতকরা হার এক না হওয়ার কারণ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা যেকোনো কারণে হতে পারে। দুই এক ভোটের গড়মিল হতেই পারে বলে জানান তিনি। এছাড়া দুই তিন ভোট কোনো প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করেনা। তবে তার সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণ থাকলে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করতে পারে। এতে বিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যানের গেজেট স্থগিত হয়ে যাবে।

একইভাবে প্রদেয় ভোটের শতকরা হারের যে ব্যবধান রয়েছে তা অনেক কারণে হতে পারে জানিয়ে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্চিতা বিশ্বাস বলেন, তার অভিযোগ সত্য নয়। ভোটে বা ভোট গণনায় কোন অনিয়ম হয়নি। আমরা শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে নির্বাচন উপহার দিতে সক্ষম হয়েছি। আফছার আলী প্রামানিক যে লিখিত আবেদন করেছিলেন তা আমাদের এখতিয়ার ভুক্ত না হওয়ায় তাকে নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তার যদি কোনো অভিযোগ থাকে, সেটা এখন নির্বাচন কমিশন দেখবেন। 


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




আমতলীতে এনএসএস ও ওয়ার্ল্ড ভিশনের বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

নোমান,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:‘করবো ভূমি পুনরুদ্ধার,হবে রুখবো মরুময়তা, অর্জন করতে হবে মোদের খরা সহনশীলতা।’ এই শ্লোগান নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে আমতলী পৌরসভা চত্ত্বরে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি, আলোচনাসভা ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন করা হয়। এনএসএস (নজরুলস্মৃতি সংসদ) ও ওয়ার্ল্ড ভিশন আমতলীর উদ্যোগে দিবসটি পালন করা হয়।

সকাল ১০টায় আমতলী পৌরসভা চত্ত্বর থেকে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালি  শহর প্রদক্ষিণ শেষে পৌরসভার হল রুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওয়ার্ল্ড ভিশন আমতলীর ম্যানেজার সুরভী বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আমতলী পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. মতিয়ার রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. আনোয়ার হোসেন ফকির, সাংবাদিক জাকির হোসেন, কাউন্সিলর হোসেন সিদ্দিকী রেজওয়ান, সেলিম রেজা টিটু, মো. মুছা মোল্লা, মেয়াজ্জেম হোসেন ফরহাদ, ইসরাত জাহান লাভলী ও এনএসএর প্রোগ্রাম ম্যানেজার মৃদুল সরকার প্রমুখ। সভা শেষে পৌরসভা চত্বরে মেয়রের নেতৃত্বে দুটি ফলের চারা রোপন করে বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হয়।


আরও খবর



হাইওয়ে পুলিশের ১৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট হাইওয়ে পুলিশের ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে (১১ জুন) রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান।

ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ, বাংলাদেশ চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বিপিএম (বার), পিপিএম-এর সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মো. শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম (বার)।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেনজীর আহমদ, এমপি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মো. জাহাংগীর আলম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত আইজি (প্রশাসন) মো. কামরুল আহসান, স্পেশাল ব্রাঞ্চের প্রধান অতিরিক্ত আইজি মোঃ মনিরুল ইসলামসহ বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত আইজিগণ, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাগণ, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ এবং সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, এমপি বলেন, মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হাইওয়ে পুলিশ প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে। ট্রাফিক ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে হাইওয়ে পুলিশে ড্রোন সংযোজন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতার ফলে গত ঈদুল ফিতরে জনগণের যাত্রা স্বস্তিদায়ক হয়েছে। মন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, এবার ঈদুল আযহায়ও জনগণ নির্বিঘ্নে তাদের নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছতে পারবেন।

মন্ত্রী সড়কে নিরাপত্তা প্রদানের পাশাপাশি মাদক পরিবহন বন্ধে কাজ করার জন্য হাইওয়ে পুলিশকে নির্দেশনা প্রদান করেন। জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মো. জাহাংগীর আলম বলেন, নিরাপদ সড়ক গড়ে তোলা শুধু হাইওয়ে পুলিশের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এজন্য প্রয়োজন সড়ক ব্যবহারকারীদেরকে ট্রাফিক আইন মান্য করা। তিনি ট্রাফিক আইন মেনে চলার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বিপিএম (বার), পিপিএম বলেন, হাইওয়ে পুলিশ আন্তরিকতার সাথে সড়কে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য কাজ করছে। আজ হাইওয়ে পুলিশের অস্তিত্ব সকল স্থানে দৃশ্যমান।

তিনি বলেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া পশুবাহী কোন গাড়ি থামানো যাবে না বলে পুলিশের সকল ইউনিটকে ইতোমধ্যে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশ সফলতার সাথে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা বজায় রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

আইজিপি বলেন, জনগণ যাতে নিরাপদে নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছতে পারে সেজন্য হাইওয়ে পুলিশ, জেলা পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট সকল পুলিশ ইউনিট আন্তরিকভাবে কাজ করছে।

হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজি মো. শাহাবুদ্দিন খান, বিপিএম (বার) বলেন, নানা সীমাবদ্ধতা স্বত্বেও নিরাপদ সড়ক গঠনের জনপ্রত্যাশা পূরণে হাইওয়ে পুলিশ আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি হাইওয়ে পুলিশের জনবল বাড়ানো এবং আইন প্রয়োগে কঠোরতার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে হাইওয়ে পুলিশের সার্বিক কার্যক্রমের ওপর একটি ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। পরে এ উপলক্ষে একটি কেক কাটা হয়।


আরও খবর