Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছাত‌কে নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, আটক ৬

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১০০জন দেখেছেন

Image

আনোয়ার হো‌সেন র‌নি,ছাতক সুনামগঞ্জ প্রতি‌নি‌ধি:সুনামগ‌ঞ্জের ছাতক সোনা ও বাইরং নদী থেকে অবৈধভাবে ড্রেজারে বালু উত্তোলনের সময় ৭ জনকে আটক করেছে নৌ পু‌লিশ।

গত মঙ্গলবার বিকা‌লে উপ‌জেলার ইসলামপুর ইউনিয়‌নের সোনা ও বাইরং নদী এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়ে‌ছে।

আটককৃতরা হ‌লেন,উপ‌জেলার ইসলামপুর ইউপির বাহাদুরপুর গ্রা‌মের মৃত সুনাম উদ্দিনের ফজর আলী(২৩) ফিরোজ মিয়ার ছে‌লে লায়েছ মিয়া(২০), লায়েছ গাজীর ছেলে হেকিম গাজী(২৪)হযরত আলীর ছে‌লে দিদার আলী(২০) ,সিরাজ মিয়ার ছে‌লে রুবেল মিয়া(২৮) ,মোস্তফার ছে‌লে ইব্রাহীম আলীসহ ৬ জন‌কে আটক ক‌রে পু‌লিশ। বিনা অনুমতিতে সোনা ও বাইরং নদী নদী থেকে অবৈধভাবে ড্রেনেজ মেশিনে বালু উত্তোলন করা হয়। এ খবর পেয়ে নৌ পু‌লিশ আনোয়ার হো‌সে‌নের নেতৃ‌ত্বে অভিযানে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার অভিযোগে ৬ জনকে আটক করা হয়। এদের বিরু‌দ্ধে বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইনের মামলা দা‌য়ের প্রস্ত‌তি চল‌ছে। এব‌্যাপা‌রে নৌ পু‌লি‌শের ইনচাজ আনোয়ার হো‌সেন এ ঘটনার সত‌্যতা নি‌শ্চিত ক‌রে ব‌লেন এদের বিরু‌দ্ধে মামলা দা‌য়ের প্রস্ত‌তি চল‌ছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



গ্লোবাল কনটেস্টে অংশ নিয়ে চীনে যেতে পারবেন রিয়েলমি ফ্যানরা

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৭৪জন দেখেছেন

Image

প্রযুক্তি ডেস্ক:আকর্ষণীয় এক গ্লোবাল কন্টেস্ট নিয়ে হাজির হলো তরুণদের জনপ্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি। প্রতিযোগিতায় জয়ী ২০ জনকে দেওয়া হবে চীনের শেনঝেনে রিয়েলমি’র প্রধান কার্যালয় ঘুরে দেখার সুযোগ। আর এই পুরো ভ্রমণে অংশগ্রহণকারীকে খরচ করতে হবে না একটি টাকাও।

এই কন্টেস্টে অংশ নিতে, রিয়েলমি ব্যবহারকারীদের নিজেদের পছন্দের যে কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রিয়েলমি প্রযুক্তি নিয়ে তাদের সবচেয়ে সুন্দর কোনো মুহুর্তের ঘটনা পোস্ট করতে হবে। এক্ষেত্রে #realmecooltech ও #CoolTechwithrealme হ্যাশট্যাগগুলো ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়া, রিয়েলমি ব্র্যান্ডকে ট্যাগ করার পাশাপাশি গ্রাহকদের তিনজন বন্ধুকেও প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার জন্য নির্বাচিত করতে হবে।

সেরা ২০টি গল্প পোস্ট করা ব্যক্তিরা একদম বিনামূল্যে জিতে নেবেন চীনের শেনঝেনে রিয়েলমি’র প্রধান কার্যালয়ে ভ্রমণের সুযোগ। শহর ঘুরে দেখার সময় বিজয়ীদের আরও একটি বিশেষ ‘বিহাইন্ড দ্য সিন’ ট্যুরের সুবিধা দেবে রিয়েলমি। আর তা হলো- রিয়েলমি’র গবেষণা ও উন্নয়ন এবং উৎপাদন কার্যক্রমগুলো সরাসরি ঘুরে দেখার সুযোগ।

এর বাইরে, রিয়েলমি ম্যানেজমেন্ট টিমের সঙ্গে কথা বলার অনন্য সুযোগও পাবেন প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া বিজয়ীরা।

আগামী ০৫ জুলাই, ২০২৪ তারিখের মধ্যে অংশগ্রহণকারীদের গল্পগুলো জমা দিতে হবে।

ভবিষ্যতে গ্রাহকদের জন্য চমৎকার অফার প্রদানের পাশাপাশি আকর্ষণীয় ক্যাম্পেইন আয়োজন করা চালিয়ে যাবে সকলের প্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি। এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে এবং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে, ভিজিট করুন রিয়েলমি’র ফেসবুক পেজ https://www.facebook.com/realmeBD -এ। 


আরও খবর



বেনাপোল কাস্টম হাউস’ ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে বেশি আয় করেছে ২১৬.৫৯ কোটি টাকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ১১৪জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:টানা ১ যুগ ধরে বেনাপোল কাস্টম হাউস রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জণে ব্যর্থ হলেও ২০২৩-২৪ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২১৬.৫৯ কোটি টাকা বেশি আয় করেছে।

সুত্রে জানা যায়, এ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বেনাপোল কাস্টম হাউসকে বেঁধে দেওয়া লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৬২৩৮ কোটি টাকা। সেখানে বেনাপোল কাস্টম হাউস ৩০ জুন-২০২৪ পর্যন্ত সংশোধিত রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা প্রকাশ করেছেন ৫৯৪৮ কোটি টাকা। আদায় দেখিয়েছেন ৬১৬৪.৫৯ কোটি টাকা। যা শতকরা প্রবৃদ্ধির হার প্রকাশ করা হয়েছে ৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ বেশি।

এই সময়ে এ বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পণ্য আমদানি হয়েছে ১৭ লাখ ২১ হাজার ৭৮০ টন। যা বিগত বছরের তুলনায় ২ লাখ ৮১ হাজার ৯৭০ টন কম। এখানে পণ্য আমদানি কমলেও রাজস্ব আদায় বেড়েছে।

জানা গেছে, প্রতিবেশি দেশ ভারতের সঙ্গে স্থলবন্দরের মাধ্যমে বাংলাদেশের মধ্যে যতো বাণিজ্য সম্পাদিত হয় তার প্রায় ৮০ ভাগ পণ্য আমদানি হয় বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে। তবে বৈশি^ক মন্দাসহ নানা কারণে গেল কয়েক বছর ব্যবসায়ীরা ঠিকমতো এলসি করতে না পারায় আমদানি বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এছাড়া, ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্য শুল্কায়নে কাস্টম কর্মকর্তাদের লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য, কতিপয় চিহ্নিত দুস্কৃতিকারি আমদানিকারকদের মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা পণ্য পাঁচারে কর্মকর্তাদের সহযোগিতা করা ও চেকপোস্ট কাস্টম দিয়ে সীমান্তের চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের সাথে অবৈধ আতাতের মাধ্যমে অবাধে বিনা শুল্কে আমদানি পণ্য পাঁচার হওয়ায় দীর্ঘ ১ যুগ যাবত প্রতিবছর এ বন্দর থেকে কাস্টম কর্মকর্তা ও চোরাকারবারিরা আঙুল ফুলে কলাগাছ বনেগেলেও সরকার হারাতে থাকে শত শত কোটি টাকার রাজস্ব।

জানা যায়, বিদায়ী অর্থবছরে বেনাপোল বন্দর থেকে সবচেয়ে বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে ফেব্রিক্স, পচনশীল কাঁচা পণ্য, ইংগড, ট্রাকের চেচিস, মটরপার্টস এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল কাঁচামাল থেকে। আর সর্বোচ্চ রাজস্ব প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ছিল পাওয়ার গ্রীড কোম্পানি বিডি, এসএমসিএল নিলয় ও এসএম কর্পোরেশন বলে জানিয়েছে কাস্টমস সূত্র।

স্থানীয় সিএন্ডএফ ব্যবসায়ীরা জানান, বেনাপোল বন্দর থেকে সরকার প্রতিবছর প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ করলেও বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সন্তোষ জনক না। বন্দর থেকে পণ্য চুরি ও বারবার বন্দর অভ্যন্তরে রহস্যজনক অগ্নিকান্ডের ঘটনায় অনেক ব্যবসায়ী এখান থেকে ক্ষতিগ্রস্থ্য হয়ে ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছেন। এছাড়া এ বন্দর দিয়ে বৈধ পথে আমদানি পণ্যের সাথে ফেন্সিডিলসহ বিভিন্ন মাদক দ্রব্য আসতে থাকায় ঝামেলা এড়াতে সচেতন ব্যবসায়ীদের অনেকে অন্য বন্দরে চলে গেছে। নাম প্রকাশে ভয়ে ভীত বেনাপোল কাস্টমস ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়ার্ডি এজেন্টের অধিকাংশ কর্মচারিরা জানান, বেনাপোল কাস্টমস হাউসের অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারিরা আমদানি-রপ্তানিকারকদের গলার ফাঁস। বেনাপোল বন্দর হয়ে ভারত-বাংলাদেশ আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে প্রত্যেকটি পণ্যের শুল্কায়ন করেন শুল্কায়ন কর্মকর্তারা। সেখানে পণ্যের শ্রেণিভেদে শুল্কায়ন করেন সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা থেকে শুরু করে যুগ্ম কমিশনার পর্যন্ত। যেখানে ফাইল উপস্থাপনের সাথে পণ্য শুল্কায়নের আগেই নগদে প্রত্যেক দপ্তরের কর্মকর্তাদের পরিশোধ করতে হয় সর্বনিম্ন ৩ হাজার টাকা থেকে শুরু করে লক্ষ লক্ষ টাকা।

এদিকে অধিকাংশ সিএন্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ীরা জানান, শাড়ি, থ্রি-পিছ,কসমেটিক্স, ব্লাঙ্ককেটস, মেশিনারীজ পার্টস, সার্জিক্যাল আইটেম, চকলেটসহ আমদানিযোগ্য লাভজনক অনেক পণ্য দীর্ঘদিন যাবত ব্লাকের মাধ্যমে বেনাপোল আর্ন্তজাতিক চেকপোষ্ট কাস্টম হয়ে কাস্টমসের কতিপয় অসাধু সিন্ডিকেট কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সহযোগীতায় শুল্কফাঁকি দিয়ে দেশে প্রবেশ করছে। এতে চেকপোস্ট কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তার অবৈধ পণ্য পাঁচারকারি সিন্ডিকেটের সদস্য সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা (এআরও) জুলহাস, নাইম, ইমরান, লিঙ্কন, দিদার বক্স, আনিছুর রহমান আনিছ, শরিফ,  ছাবিরা, সিপাই মতিন, নাজমুল, ট্যান্ডেল সাদ্দাম হোসেন, শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তা, আনসার সদস্য আনিছুর,শামীম, নাসিম রেজা, সুমনসহ কতিপয় কর্মকর্তারা রাতারাতি কোটিপতি বনে গেলেও আমদানিকারকরা সরকারের শুল্ক দিয়ে বৈধপথে আমদানি বাণিজ্যে লোকশান গুনতে গুনতে বন্ধ করে দিয়েছে এ ধরণের পণ্য আমদানি। একইসাথে প্রতিবছর সরকার হারাচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আয়।

কাস্টম সুত্রে জানা যায়, ২০২২-২৩ অর্থ বছরে বেনাপোল কাস্টমস হাউসে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ হাজার ৯৬৬ কোটি টাকা, সেখানে আদায় হয়েছিলো ৫ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আয় কম হয় ১৮০ কোটি টাকা। ২০২১-২২ অর্থ বছরে লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৬২৪৫ কোটি টাকা, আদায় হয়েছিলো ৪৫৯৯ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। এতে রাজস্ব ঘাটতি হয় ১৬৪৫ কোটি ৮ লাখ টাকা। তবে, সংশোধিত রাজস্ব আয় ৫১৫৮ কোটি টাকার বিপরীতে ঘাটতির পরিমান ৫৫৮ কোটি ৮ লাখ।

তথ্য অনুযায়ী, ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬ হাজার ২৪৪ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, সেখানে আদায় হয়েছিল ৪ http://cricket.banglaconverter.org/হাজার ১৪৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা। ওই বছর ঘাটতি ছিল ২ হাজার ৯৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রাজস্ব ঘাটতি হয়েছিল ৩ হাজার ৩৯২ কোটি টাকা, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ঘাটতি ১১৪৫ কোটি টাকা, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ঘাটতি ১৭৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। তবে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা রাজস্ব বেশি আদায় হয়েছিল, আবার  ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ঘাটতি ২০৩ কোটি টাকা, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ঘাটতি ৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা, ২০১৩-১৪ তে ঘাটতি ১৩৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা, ২০১২-১৩ তে ঘাটতি ৪৫২ কোটি ৮৯ লাখ এবং  ২০১১-১২ অর্থবছরে ঘাটতির পরিমান ছিল ১৯৪ কোটি টাকা।

তবে, এবারের (২০২৩-২৪) অর্থবছরে রাজস্ব আহরণে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বেনাপোল বন্দরের কাস্টম সংশ্লিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা। অধিকাংশরা বলেছেন, এবার দূর্ণীতি দমন কমিশন কর্তৃক বেনাপোল কাস্টম হাউসের অধিনে কর্মরত ঘুষখোর কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করে তাদের নামে-বেনামে বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবসহ নগদ অর্থ ও সম্পত্তির খোজ-খবর নিলে বেরিয়ে আসবে অনেক অজানা তথ্য। বেরিয়ে আসবে নতুন চাকুরিতে প্রবেশকারিদের কর্মকর্তাদেরও অজ্ঞাত আয়ের পরিধি। তাতে, হয়রানী এড়িয়ে একদিকে এ বন্দর দিয়ে সুষ্ঠভাবে ব্যবসা বাড়াতে পারতে ব্যবসায়ীরা। অন্যদিকে সরকারের বাড়তে থাকবে প্রতিবছর হাজার হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আয়।

বেনাপোল কাস্টম হাউসের ডেপুটি কমিশনার মির্জা রাফেজা সুলতানা বলেন,বেনাপোল কাস্টম হাউস কমিশনারের সঠিক দিকনির্দেশনায় এবার আমরা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছি। এখানে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মধ্যে জবাবদিহিতা ও কাজের প্রতি স্বচ্ছতা বেড়েছে। আগামীতে এ রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জণ অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



কোটা আন্দোলনকারীদের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম মামলা তুলে নিতে

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:‘মিথ্যা’ মামলা কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের নামে দেওয়ার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। আন্দোলনকারীরা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে।

শনিবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ আল্টিমেটাম দেন বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক নাহিদ ইসলাম।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত চলমান আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা কোথাও হামলা ও ভাঙচুর করেনি। গত ১১ জুলাই শাহবাগে পুলিশের সাঁজোয়া যানে কোনো হামলা হয়নি বলে রমনা থানার পুলিশ কর্মকর্তা সেটা নিশ্চিত করেছিলেন। কিন্তু সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে কেন আমাদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হলো? মামলা যদি দিতেই হয় তাহলে আমাদের নাম উল্লেখ করেই দেওয়া হোক। কারণ, এখানে স্পষ্ট যে কারা এই আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছে। আমরা আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই মিথ্যা মামলা তুলে নেওয়ার আল্টিমেটাম দিচ্ছি। এছাড়া যারা সেদিন শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করেছে তাদের আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শনাক্ত করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানাচ্ছি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আমাদের দাবি যদি না মানা হয়, আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হব।

নাহিদ ইসলাম আরও বলেন, শিক্ষকদের আন্দোলন শেষ হয়ে তারা ক্লাসে ফিরলেও আমাদের ছাত্র ধর্মঘট চলমান থাকবে। আমরা কোনো ক্লাস-পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করব না। আমরা চাই শিক্ষকরা আমাদের চলমান যৌক্তিক কোটা সংস্কার আন্দোলনে আমাদের সহযোগিতা করুক।

এর আগে, ৭ জুলাই ঘোষিত শিক্ষার্থীদের বর্তমান এক দফা দাবি হলো- সকল গ্রেডে সব ধরনের অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য কোটাকে ন্যূনতম পর্যায়ে এনে সংসদে আইন পাস করে কোটা পদ্ধতিকে সংশোধন করতে হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



কোটা বাতিল আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ১০৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কোটা বাতিল আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই। আন্দোলনের নামে যা করা হচ্ছে তার যৌক্তিকতা আছে বলে মনে করি না,বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (৭ জুলাই) গণভবনে বেলা পৌনে ১১টায় গণভবনে যুব মহিলা লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোটা বাতিলের আন্দোলন হচ্ছে। কোটা বন্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু হাইকোর্টের রায়ে বহাল হয়েছে। পড়াশোনা বাদ দিয়ে ছেলেমেয়েরা আন্দোলন করছে। এর কোনো যৌক্তিকতা নেই।

মহিলা লীগের কর্মীদের পেনশন স্কিমে যোগ দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবার জন্য পেনশন স্কিম করা হয়েছে। জীবনের নির্ভরতার জন্য পেনশন। আমরা চাই সবাই একটু ভালোভাবে বাঁচুক।

বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় যেভাবে নিযার্তন করেছে তা নিন্দারও যোগ্য নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, দলটি ভোট চুরি করে মাত্র দেড় মাস টিকেছে। গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে ২০০১ সালে ক্ষমতায় গিয়েছিল বিএনপি। ভোট চুরির অবপাদে ২ বার ক্ষমতাচ্যুত হয়েছে তারা।

সরকারপ্রধান বলেন, বিএনপি সমাজের বোঝা, তাদের সন্ত্রাসী চেহারা মানুষের সামনে তুলে ধরতে হবে। বিএনপি-জামায়াত যেন আর ক্ষমতায় ফিরতে না পারে, সেজন্য মানুষকে সচেতন থাকতে হবে।


আরও খবর



লেবাননের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা এরদোয়ানের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১২৫জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:বুধবার (২৬ জুন) ইসরায়েলের সাথে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে তুরস্ক লেবাননের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছে এবং আঞ্চলিক দেশগুলিকেও বৈরুতকে সমর্থন করার আহ্বান জানিয়েছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট তাইয়্যপে এরদোগান।

(২৬ জুন) তুর্কি সংসদে বক্তব্য দেয়ার সময় এরদোয়ান বলেন, ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু গাজা যুদ্ধকে এই অঞ্চলে ছড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করেছেন। গাজাকে ধ্বংস ও পুড়িয়ে ফেলার পর ইসরায়েল এখন লেবাননের দিকে নজর দিয়েছে। আমরা দেখতে পাচ্ছি পশ্চিমা দেশগুলো পর্দার আড়ালে ইসরায়েলকে সমর্থন দিচ্ছে।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ইসরায়েল এবং লেবাননের হিজবুল্লাহর মধ্যে সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে টানাপড়েন বাড়ছে, যা সর্বাত্মক ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ যুদ্ধের আশঙ্কা করছে। ইসরায়েলের উত্তর সীমান্ত জুড়ে গোলাবর্ষণের ফলে সীমান্তের উভয় পাশের এলাকা থেকে কয়েক হাজার মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট সতর্ক করে বলেছেন, এই অঞ্চলে যুদ্ধ ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য নেতানিয়াহুর পরিকল্পনা রয়েছে। তার এই পদক্ষেপ এই অঞ্চলটিকে বিপর্যয়ের দিকে নিয়ে যাবে।

এই সপ্তাহের শুরুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাকান ফিদান বলেন, ইসরায়েল ও হিজবুল্লাহর মধ্যে উত্তেজনা নিয়ে মন্তব্য করার সময় তুর্কি সরকার সংঘাত ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি দেখছে।

লেবাননের নিকটতম ইইউ সদস্য রাষ্ট্র সাইপ্রাসের প্রতি হিজবুল্লাহর হুমকি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, ফিদান সাইপ্রাসকে সংঘাত থেকে "দূরে থাকার" আহ্বান জানান।

ফিদান বেসরকারি হ্যাবার্র্টক টেলিভিশনের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে বলেছেন, তুরস্কের কাছে গোয়েন্দা প্রতিবেদনের দেখা গেছে সাইপ্রাস গাজার উপর "কিছু দেশের" সামরিক এবং গোয়েন্দা বিমানের ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে।

তবে, সাইপ্রাস তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিদানের অভিযোগকে অস্বীকার করেছে। তারা এই সংঘর্ষে "কোনভাবেই জড়িত নয়"। এটি লেবাননকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার জন্য তার ইইউ অংশীদারদের লবিং করেছে এবং সম্প্রতি গাজায় মানবিক সাহায্য পাঠানোর জন্য একটি সামুদ্রিক করিডোর স্থাপন করেছে।


আরও খবর