Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশু অধিকার ও শিশু সুরক্ষা বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ।

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৮৭জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মাদ হেদায়েতুল্লাহ্ ,নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: 'আর নয় বাল্যবিয়ে এগিয়ে যাবো স্বপ্ন নিয়ে' এই শ্লোগানকে সামনে রেখে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সমাজের সকলকে এগিয়ে আসার সচেতনতা সৃষ্টিতে বে-সরকারি সংস্থা 'ইপসা'র আয়োজনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাংবাদিকদের সাথে 'শিশু অধিকার ও শিশু সুরক্ষা' বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ মে) সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭, বিধিমালা ২০১৮, জেণ্ডার সমতা, ও শিশু অধিকার ও শিশু সুরক্ষা বিষয়ক কর্মশালায়  প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. শাহগীর আলম। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বে-সরকারি সংস্থা 'ইপসা'র সমন্বয়কারী গোলাম সারোয়ার।

কর্মশালায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট হেলেনা পারভিন, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বিকারুন্নেছা, ইপসার বিভাগীয় প্রকল্প সমন্বয়কারী ফারহানা ইদ্রিস, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক বাহারুল ইসলাম মোল্লা। বক্তারা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সমাজের সকলকে এগিয়ে আসার আহব্বান জানান। কর্মশালায় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত জেলার ২৭ জন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।(ছবি : মেইলে সংযুক্ত)

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




"মাংসের দলা উদ্ধার,এমপি আনারের কি না পরীক্ষার পর জানা যাবে"

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | ১৫৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কলকাতা সঞ্জীবা গার্ডেনের সেপটিক ট্যাংক থেকে মাংসের দলা উদ্ধার, এমপি আনারের মরদেহের খণ্ডিত অংশ কি না, জানা যাবে ফরেনসিক পরীক্ষার পর


আরও খবর



ছাতক উপজেলা নির্বাচনে ভোটযুদ্ধ চাচা-ভাতিজার!

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৪৫জন দেখেছেন

Image

রনি,ছাতক (সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আব্দুল হক কলেজের সাবেক ভিপি আওয়ামীলীগ নেতা আওলাদ আলী রেজা (চাচা) ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম কিরন ভাতিজার মধ্যে এবার ভোট যুদ্ধে লড়ছেন একই পদে। প্রভাবশালী এই পরিবারের একই পদে চাচা-ভাতিজা প্রার্থী থাকায় শঙ্কায় আছেন সাধারণ ভোটাররা। জানা গেছে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা হিসাবে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং দীর্ঘদিন থেকে উপজেলা ২০২২-২৩ সালে ভয়াবহ বন্যা অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে ছিলেন। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন তিনি। তার প্রতীক আনারস। একই পদে লড়ছেন তারই ভাতিজা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা  রফিকুল ইসলাম কিরন। একই পরিবারের দুই শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী থাকায়সঙ্ঘাতের আশঙ্কায় আতঙ্কিত ভোটাররা। দুই দিন পর ভোটগ্রহণ, তবুও জমে ওঠেছে ভোটের মাঠ। এখানে চাচা-ভাতিজা ছাড়াও দু বারে উপজেলা ভাইন্সচেয়ারম্যান আবু সাদাত মোহাম্মদ লাহিন ঘোড়া প্রতীকে। মাহমুদ ও আমজদ আলী নামে আরো দুইজন চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী আছেন। দলীয় কার্যক্রমে তেমন সম্পৃক্ত না থাকলেও প্রবাসী ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা কিরন উপজেলা হাট বাজার গ্রাম গঞ্জে  তেমন বেগ পেতে হয়নি তার। তবে জনপ্রতিনিধি হতে এবারই প্রথম  উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চাচার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ভাতিজা কিরন লড়ছেন। তার প্রতীক কাপ পিরিচ। এ ছাড়াও  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আওলাদ আলী রেজা এবার আনারস  প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নিবাচন করছেন একই গ্রামের চাচা ভাতিজা দুজন চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। দলীয় কর্মীরা কে কার সাথে দেখা করছেন, ভোটের কাজ কে কার পক্ষে করছেন, সেটা নিয়েও ক্ষোভ চলছে প্রার্থীদ্বয়ের মধ্যে। এ কারণে অনেকটাই বিপাকে ভোটার কর্মী ও সমর্থকরা। একজনের পক্ষে কাজ করলে একই  গ্রামের  অপর জনের রোষাণলে পড়ার শঙ্কা দেখছেন তারা। সাধারণ ভোটাররা জানান, একজনের পক্ষে গেলে অপরজনের রোষাণলে পড়তে হবে। ভোট শেষে চাচা-ভাতিজা রক্তের টানে হয়তো মিলমিশ হয়ে যাবে। কিন্তু কর্মীদের প্রতি এই রোষাণলের রেশ সহজে কাটবে না। স্থানীয় ভোটার বোরহান উদ্দিন, আলী আহমদ ও উপজেলা যুবলীগের নেতা সায়াদুর রহমান সায়েদ বলেন,গ্রাম গঞ্জে পাড়া মহল্লায় সৎ যোগ্য প্রাথী আওলাদ আলী রেজার আনারস প্রতীকের গন জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ভাতিজা কিরন থেকে অনেক গুন এগিয়ে রয়েছেন চাচা আওলাদ আলী রেজার পাল্লা দিন দিন ভারি হয়ে উঠেছে। কিরন বলেন, আমার বাবা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবেই জনগণের সেবা করছেন। আমি ও ভোটারদের কাছে যাচ্ছি। ভোটে গণসংযোগ করছি। জনগণ সাড়া দিচ্ছেন। আওলাদ আলী রেজা বলেন, জনগণের পাশে ছিলাম, আছি ও থাকব। জনগণও আমাকে সাড়া দিচ্ছেন। ওদিকে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে এমপি মানিকের নাম ভাঙ্গিয়ে ভোট চাওয়ার অভিযোগ করে তিনি জন প্রতিনিধিদের ঢাকা বাসা ডেকে নিয়ে কাবিখা, টিআরসহ সরকারি নানা সুবিধা দিয়ে লাহিন ও কিরনের জন্য ভোট চাচ্ছেন। তার দলীয় নেতাকমীদের নিয়ে বিশেষ সভা মিটিং করাচ্ছেন কিরনের পক্ষে। উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা গৌছ মিয়া বলেন, এটা কোনো আওয়ামী লীগের নির্বাচন নয়। যার যাকে ভালো লাগে তার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। আওয়ামীলীগ একক কোন প্রাথীর নাম স্থানীয় এমপি সর্মথন করার এখতিয়ার নেই। 

এমনকি বিএনপির, জামায়াত ও জাপার তলে তলে আনারস প্রতীকের পক্ষে রাজনৈতিক দলের মৌন সমর্থনও আদায় করার খবর পাওয়া গেছে। আওয়ামীলীগের সমর্থিত প্রাথী মাহমুদ আলী ও আমজদ আলী নির্বাচনী মাঠে নতুন আগমন করায় নির্বাচনী হাবভাব এখনো বুঝে উঠতে পারছেন না। দলে কোন্দল থাকায় বেকায়দায় পড়তে পারেন আওয়ামীলীগের এমপির সমথিত কিরন,লাহিন ও আমজদ তিনজন প্রাথীরা। আওয়ামীলীগের এমপি সমথিত ইউপির চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদ,ওদুদ আলম, বিল্লাল আহমদ,সাবেক চেয়ারসম্যান জয়নাল আবেদীন আবুল, কাপ পিরিচ পক্ষে জন্য ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট চাইতে দেখে বিজয়ের স্বপ্নে বিভোর কিরনের। নির্বাচনকে সামনে রেখে ছাতক উপজেলাবাসী ও সচেতন মহলের একটাই প্রত্যাশা সৎ, যোগ্য ও কর্মট প্রার্থী নির্বাচিত হলে উন্নয়নের বাধভাঙ্গা জোয়ারে ভাসবে দেশ, সমৃদ্ধ হবে উপজেলা। ২৯ মে অনুষ্টিত হবে নিবাচন। ১শত ৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে বেশী ভাগ কেন্দ্র ঝুকিপুর্ন রয়েছে।


আরও খবর



খাগড়াছড়িতে অফিসার ও ফোর্সদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা প্রীতিভোজে অংশগ্রহণ করেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৪১জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষ্যে  অফিসার ও ফোর্সদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়  ও বিশেষ প্রীতিভোজ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)

সোমবার ( ১৭ জুন)  খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্স জামে মসজিদে পবিত্র ঈদ-উল-আযহার প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈদের জামাতে সর্বস্তরের মুসল্লিগণ অংশগ্রহণ করেন।
নামাজ শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ, দেশের অব্যাহত অগ্রযাত্রা, সমৃদ্ধি এবং দেশবাসীর সুখ-শান্তি ও সার্বিক মঙ্গল কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।

ঈদের জামাত শেষে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্সে  খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের অফিসার ও ফোর্সদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন খাগড়াছড়ি জেলার পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে দুপরে পবিত্র ঈদুল আযহা  উপলক্ষ্যে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্স সহ জেলা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের পুলিশ সদস্যদের অংশগ্রহণে বিশেষ প্রীতিভোজ অনুষ্ঠিত হয়। খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্স-এ অফিসার ও ফোর্সের সাথে প্রীতিভোজ অংশগ্রহণ করেন খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

পরবর্তীতে সম্মানিত পুলিশ সুপার মহোদয় জেলা পুলিশের সকল পদমর্যাদার সহকর্মীদের নিয়ে এক সাথে বসে দুপুরের খাবার পরিবেশন করেন।

ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় ও বিশেষ প্রীতিভোজ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল)  তফিকুল আলমসহ জেলা পুলিশের সকল পদমর্যাদার সদস্যগণ।

খাগড়াছড়ি বাসীর ঈদ আনন্দকে নিরাপদ করতে, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখতে জেলা পুলিশের সদস্যরা দিনভর পেশাদারিত্বের সাথে জেলাব্যাপী দায়িত্ব পালন করে।পেশাগত দায়িত্বকে সর্বাগ্রে বিবেচনা করে বিশেষ দিন ছাড়াও প্রতিটি দিনকে গুরুত্ব দিয়ে খাগড়াছড়িবাসীকে নিরাপত্তা দিতে জেলা পুলিশ বদ্ধ পরিকর বলে জানান খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

আরও খবর



এমপি আনার হত্যা: আদালতে স্বীকারোক্তি দিলেন শিলাস্তি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১১৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে হত্যার উদ্দেশ্যে অপহরণের মামলায় গ্রেপ্তার শিলাস্তি রহমান দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

সোমবার (৩ জুন) রিমান্ড চলাকালীন তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর তিনি স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিতে রাজি হলে তা রেকর্ড করার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার মাহফুজুর রহমান।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

এ মামলায় গত শুক্রবার (৩১ মে) কয়েকজন আসামির প্রথম দফা রিমান্ড শেষ হয়। তারা হলেন- সৈয়দ আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভূঁইয়া, ফয়সাল আলী সাজী ওরফে তানভীর ভূঁইয়া ও সিলিস্তি রহমান। ওই তাদের আদালতে হাজির করে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য আরও আটদিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শান্ত ইসলাম মল্লিকের আদালত প্রত্যেকের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ২৪ মে দুপুর সোয়া ২টার দিকে তিন আসামিকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। এসময় মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাদের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দিলরুবা আফরোজ তিথি প্রত্যেকের আটদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগের দিন ২৩ মে সৈয়দ আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভূঁইয়া, ফয়সাল আলী সাজী ওরফে তানভীর ভূঁইয়া ও সিলিস্তি রহমানকে অপহরণ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

গত ১২ মে চিকিৎসার জন্য ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ থেকে চুয়াডাঙ্গার দর্শনার গেদে সীমান্ত দিয়ে ভারতে যান এমপি আনার। ওঠেন পশ্চিমবঙ্গে বরাহনগর থানার মণ্ডলপাড়া লেনে গোপাল বিশ্বাস নামে এক বন্ধুর বাড়িতে। পরদিন চিকিৎসক দেখানোর কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর থেকেই রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ আনোয়ারুল আজীম।

বাড়ি থেকে বেরোনোর পাঁচদিন পর গত ১৮ মে বরাহনগর থানায় আনোয়ারুল আজীম নিখোঁজের বিষয়ে একটি জিডি করেন বন্ধু গোপাল বিশ্বাস। এরপরও খোঁজ মেলে না তিনবারের এই সংসদ সদস্যের। ২২ মে হঠাৎ খবর ছড়ায়, কলকাতার পার্শ্ববর্তী নিউটাউন এলাকায় বহুতল সঞ্জীবা গার্ডেনস নামে একটি আবাসিক ভবনের বিইউ ৫৬ নম্বর রুমে আনোয়ারুল আজীম খুন হয়েছেন। ঘরের ভেতর পাওয়া গেছে রক্তের ছাপ। তবে ঘরে মেলেনি মরদেহ।

এ ঘটনায় ২২ মে ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন তার মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন।

মামলার অভিযোগে মুনতারিন ফেরদৌস ডরিন উল্লেখ করেছেন, মানিক মিয়া এভিনিউয়ের বাসায় আমরা সপরিবারে বসবাস করি। ৯ মে রাত ৮টার দিকে আমার বাবা আনোয়ারুল আজিম আনার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ যাওয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। ১১ মে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে বাবার সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বললে বাবার কথাবার্তায় কিছুটা অসংলগ্ন মনে হয়। এরপর বাবার মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও বন্ধ পাই।

১৩ মে বাবার ভারতীয় নম্বর থেকে উজির মামার হোয়াটসঅ্যাপে একটি ক্ষুদে বার্তা আসে। এতে লেখা ছিল, ‘আমি হঠাৎ করে দিল্লি যাচ্ছি, আমার সঙ্গে ভিআইপি রয়েছে। আমি অমিত সাহার কাজে নিউটাউন যাচ্ছি। আমাকে ফোন দেওয়ার দরকার নাই। আমি পরে ফোন দেব।’ এছাড়া আরও কয়েকটি বার্তা আসে। ক্ষুদে বার্তাগুলো আমার বাবার মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অপহরণকারীরা করে থাকতে পারে।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, বিভিন্ন জায়গায় বাবার খোঁজ করতে থাকি। কোনও সন্ধান না পেয়ে তার বন্ধু গোপাল বিশ্বাস বাদী হয়ে ভারতীয় বারানগর পুলিশ স্টেশনে সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপরও আমরা খোঁজাখুজি অব্যাহত রাখি। পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারি অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পরস্পর যোগসাজসে বাবাকে অপহরণ করেছে।


আরও খবর



রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের কোনো আরোহী বেঁচে নেই

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মে ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১৯৯জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিকে নিয়ে দুর্ঘটনা কবলিত হেলিকপ্টারের কোনো আরোহী বেঁচে নেই।

সোমবার (২০ মে) ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের বরাতে এমন তথ্য জানিয়েছে তুর্কি বার্তা সংস্থা আনাদোলু।

এর কিছুক্ষণ আগে আনাদোলু জানিয়েছিল, রাইসিকে নিয়ে দুর্ঘটনা কবলিত হেলিকপ্টারটির খোঁজ পাওয়া গেছে। তুরস্কের আকিনসি ড্রোন (ইউএভি) দুর্ঘটনা কবলিত হেলিকপ্টারটির অবস্থান শনাক্ত করেছে। উদ্ধারকারী দল ওই স্থান থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে ছিলেন। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা সেখানে পৌঁছাবেন।

এর আগে গতকাল রোববার (১৯ মে) দেশটির পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের জোলফা এলাকার কাছে র্ঘটনার কবলে পড়ে হেলিকপ্টারটি। হেলিকপ্টারে রাইসি ছাড়াও দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আব্দোল্লাহিয়ান, পূর্ব আজারবাইজানের গভর্নর মালেক রহমতি এবং এই প্রদেশে ইরানের সর্বোচ্চ নেতার মুখপাত্র আয়াতুল্লাহ মোহাম্মদ আলী আলে-হাশেম ছিলেন।

এ ঘটনার পর থেকে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত আছে। উদ্ধারকাজে ইরানের সঙ্গে যোগ দেওয়ার কথা জানিয়েছে বেশ কয়েকটি দেশ। এ ছাড়া বিশ্বনেতারা ইরানের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছেন।


আরও খবর