Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান তারকাদের

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৭৩জন দেখেছেন
Image

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা ভারি বর্ষণে সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। বন্যার্তদের উদ্ধারে শুক্রবারই মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী। পরিস্থিতি ক্রমে ভয়াবহ হয়ে পড়ায় উদ্ধার তৎপরতায় যোগ দিয়েছে নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ডের সদস্যরাও। এ তৎপরতায় যুক্ত হয়েছে বিমানবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার ও কোস্ট গার্ডের দুটি ক্রুজ।

সিলেট-সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি নাড়া দিয়েছে সারাদেশের মানুষকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাহায্যের আর্তি জানাচ্ছেন অনেকে। দেশের ভয়াবহ এ বন্যা পরিস্থিতি নাড়া দিয়েছে শোবিজ অঙ্গনে। তারা নিজেরা সাহায্য পাশাপাশি সবাইকে সাহায্যয়ের করার আহ্বান করছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

অভিনেত্রী জয়া আহসান লিখেছেন, ‘দেশের একটি বিভাগের প্রায় ৮০ শতাংশ ডুবে যাওয়ার মতো বন্যা এর আগে বাংলাদেশে হয়নি। সিলেট ও সুনামগঞ্জের ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির ছবি ও ভিডিও দেখে শিউরে উঠছি। বন্ধ হয়ে গেছে ইলেকট্রিসিটি, ইন্টারনেট। এমনকি দেশের অন্যান্য জায়গা থেকেও তাদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন।’

বন্যাকবলিত অঞ্চলের মানুষ-পশুপাখির সবার সুরক্ষা কামনা করে জয়া লেখেন, ‘এ পরিস্থিতিতে হৃদয়ের অন্তঃস্থল থেকে সবার জন্য প্রার্থনা করছি। শিগগির প্রকৃতির এ ভয়াবহতা কেটে যাক। সিলেট ও সুনামগঞ্জের সব মানুষ, পশুপাখি সুরক্ষিত থাকুক।’

দেশবাসীকে বন্যাকবলিতদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে এ অভিনেত্রী আরও লেখেন, ‘প্রশাসনের সঙ্গে সঙ্গে আমরাও যেন সাধ্যমতো তাদের পাশে থাকতে পারি সেই প্রচেষ্টা করতে হবে। দেশের সবাই এগিয়ে আসুন। সকলে মিলে একসাথে ভয়াবহ এ পরিস্থিতি যেন কাটিয়ে উঠতে পারি সেই প্রার্থনা করি।’

চিত্রনায়ক শাকিব খান লিখেছেন, ‘এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে থাকলেও সংবাদমাধ্যম ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছ থেকে জেনেছি। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ। বন্যা কবলিত মানুষের দুর্দশা আমাকে ভীষণভাবে কষ্ট দিচ্ছে। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়া মানুষের পাশে আছি। তাদের মৌলিক চাহিদা পূরণে আমার সামর্থ্যের মধ্যে অর্থ সহায়তা পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছি।’

‘সেই সাথে একটি তহবিল গঠনেরও কথা ভেবেছি; যা থেকে প্রাপ্ত অর্থ ও অন্যান্য সহায়তা পৌঁছে যাবে কষ্টে থাকা সেই সব বানভাসি মানুষের সাময়িক সংকট মোকাবিলায়। বন্যা কবলিতদের যে কোনো ধরনের সহায়তা দিয়ে যারা পাশে থাকতে চান, এই ই-মেইলে যোগাযোগ করতে পারবেন [email protected]।’

সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে শাকিব খান আরও লিখেছেন, ‘বাংলাদেশ ও প্রবাসে থাকা আগ্রহী বিত্তবানদের কাছে আহ্বান - আপনারাও নিজেদের সামর্থ্যের মধ্য থেকে বানভাসি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান। সৃষ্টিকর্তা আমাদের সহায় হোক। সবার জন্য প্রার্থনা।’

কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর লিখেছেন ‘৮৮, ৯৮ এর মত এবারের বন্যাও ভয়াবহ রুপ ধারন করছে। অস্থির লাগছে। সিদ্ধান্ত নিয়েছি সাধ্যানুযায়ী বন্যার্তদের পাশে থাকবো, আপনিও প্রস্তুত থাকুন। বেঁচে থাকার লড়াই চলবে। আল্লাহ ভরসা। ’

সাইমন সাদিক সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় ভক্ত-অনুরাগী ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে বন্যা কবলিতদের জন্য সাহায্য আহ্বান করেছেন। তিনি বলেন, এখন প্রাকৃতিক দুর্যোগ। সিলেট-সুনামগঞ্জসহ ওই পাশের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। যা ইতোপূর্বে দেশের বন্যপরিস্থিতিতে দেখা যায়নি। এ অবস্থায় পানিবন্দিদের উদ্ধারের জন্য সেনাবাহিনী মাঠে নেমেছে।

তিনি আরও বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আমরা সবাই সবার তরে। আমরা সবাই সবার বিপদে পাশে দাঁড়াতে চাই। এর আগে আমরা নিজ নিজ জায়গা থেকে করোনা পরিস্থিতিতে পাশে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু এখন সিলেটে ২০ লাখ মানুষ। তাদের সবার হয়তো সহযোগিতার প্রয়োজন হবে না। সংবাদ পড়ে জানতে পেরেছি কেউ কেউ দু-তিন দিন ধরে খেতে পারছেন না। তাদের পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার নেই। গবাদি পশু-পাখি সব ভেসে যাচ্ছে। এমনকি শেষ সম্বল বাড়িও ভেসে যাচ্ছে ঢলে। তাদের এখন বেঁচে থাকাই দায় হয়েছে।

বন্যা কবলিত মানুষদের এই পরিস্থিতিতে সহযোগিতা প্রয়োজন। এই বিষয়ে ‘পোড়ামন’ খ্যাত নায়ক বলেন, সিলেটের মানুষের জন্য সাধ্য অনুযায়ী অন্তত শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করতে পারলেও তাদের সহযোগিতা করা হবে বলে মনে করি আমি। আমাদের কিশোরগঞ্জের ‘কলিজার গ্রাম’ সংগঠনের পক্ষ থেকে কয়েক দিনের মধ্যে একটি টিম নিয়ে সেখানে যাওয়া হবে। আপনাদের সাধ্য অনুযায়ী সবার কাছে সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।

“হয়তো আমরা বন্যা কবলিতদের পাশে দাঁড়ালে ভবিষ্যতে তারা বেঁচে থাকার যে অবলম্বন, তা ফিরে পাবে”—বলেও যোগ করেন সাইমন। এরপর তিনি সহযোগিতা প্রদানের জন্য দুটো বিকাশ নম্বর (01613012496, 01614112258) জানান। এছাড়া বড় অংকের আর্থিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বরও দেন।

চিত্রনায়ক বাপ্পী চৌধুরী লিখেছেন, ‘ছবি বা ভিডিওতে আমরা যা দেখছি, সিলেটের বন্যা পরিস্থিতি তারচেয়েও ভয়াবহ। তাদের দুর্দশা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। এমন মানবিক বিপর্যয়ে আমাদের সবার উচিত তাদের পাশে দাঁড়ানো। আমি বন্যাকবলিত মানুষের প্রতি সহমর্মিতা জানাচ্ছি। আমার দর্শক-বন্ধুদের যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ রইল। দেশে বা বিদেশে, যে যেখানে আছেন সামর্থ্য অনুযায়ী বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়াবেন প্লিজ। সকলের তরে সকলে আমরা, প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।’

নিরব হোসেন লিখেছেন ‘চলুন আমরা সবাই বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে দাড়ায়’।

সিয়াম আহমেদ লিখেছেন, ‘আমার এখনও মনে আছে টাঙ্গুয়ার হাওড়ের সেই জলরাশি, সেই ট্রলারের কথা। বন্ধুদের নিয়ে গিয়েছিলাম হাওড় দেখতে। সুনামগঞ্জের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালোবাসা মুগ্ধ করেছিল যেন হাওড়ের চেয়েও বেশি। সেই সুনামগঞ্জ আজ কাঁদছে। বন্যায় ডুবে গেছে সুনামগঞ্জের ৯০% ঘরবাড়ি। আমরা সুউচ্চ দালানে বসে ওয়েদার ডিমান্ড ও ঝরো ঝরো মুখর বাদল দিনে যখন লিখছি তখন সুনামগঞ্জ ও সিলেটের মানুষ লড়াই করছেন বন্যার সঙ্গে।’

এ সময় এই নায়ক সিলেট ও সুনামগঞ্জবাসীর সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে আরও লিখেছেন, ‘সবাই মিলে চলুন এখনই পাশে দাঁড়াই, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেই সুনামগঞ্জ ও সিলেটবাসীর জন্য। সরকারের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানাই আশু পদক্ষেপ গ্রহণ করার। প্রাকৃতিক এই দুর্যোগে যেন একটি প্রাণও না হারায়। জলের স্রোতে না ভেসে যাক একটি স্বপ্নও আর...’

তানজিন তিশা ফেসবুক আইডিতে সিলেট ও সুনামগঞ্জের ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত টিম লিডারদের মোবাইল নাম্বার দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘বানভাসি মানুষের যেকোনো প্রয়োজনে তাদেরকে কল দিতে পারেন।’

এদিকে বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে ধারণা করে অপূর্ব লিখেছেন, ‘সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যার পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ধারণা করা হচ্ছে এই বন্যা অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে যেতে পারে।’

এ সময় সিলেটবাসীর জন্য সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করে তিনি আরও লিখেছেন, ‘মহান আল্লাহ আপনি সহায় হোন৷’


আরও খবর



দেশে বিশ্বমানের চিকিৎসা নিশ্চিতে কাজ করছি: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষের জন্য যথাযথ ও বিশ্বমানের চিকিৎসা নিশ্চিতে কাজ করছি আমরা। এজন্য যা যা দরকার করছি।

সোমবার (৬ জুন) বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানসের (সিবিপিএস) সুবর্ণজয়ন্তী এবং সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

চিকিৎসকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনাদের বলবো, দেশের মানুষ যাতে যথাযথ এবং বিশ্বমানের সেবা পায় সেটা নিশ্চিত করবেন। যদিও আমাদের জনসংখ্যা বেশি, রোগীর চাপ বেশি। বিদেশে একজন চিকিৎসক কয়েকজন রোগী দেখেন। আপনাদের অনেক রোগী দেখতে হয় তারপরও কেউ যাতে বঞ্চিত না হয়।

রোগীদের সঙ্গে সুন্দর ব্যবহারের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, চিকিৎসার চেয়ে সুন্দর আচরণ অনেক বেশি প্রয়োজন। কারণ ডাক্তারের সুন্দর কথায় কিন্তু মানুষ অনেকটা সুস্থ হয়ে যায়। আপনারা নিশ্চয় সেটি করবেন।

গবেষণার বিষয়ে সরকারপ্রধান বলেন, আমি সব সময় গবেষণায় গুরুত্ব দেই। চিকিৎসা বিজ্ঞানেও গবেষণা বাড়াতে হবে। গবেষণাটা একান্ত প্রয়োজন। এদিকে নজর দিতে হবে সবার। এক্ষেত্রে যত ধরনের সহযোগিতা প্রয়োজন, আমার পক্ষ থেকে পাবেন।

তিনি আরও বলেন, ক্ষমতাটা আমার কাছে একটা সুযোগ, মানুষের সেবা করার। ভোগ বিলাসে মত্ত থাকা নয়। আপনারাও যে যেই পেশায় থাকেন, সেখানে সেবা দেন। এতেই আনন্দ পাবেন। আমরা শিক্ষাসহ সব দিক দিয়ে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, হাঁচি-কাশি হলেও অনেকে বিদেশ চলে যায়। অবশ্য এখানে আমাদের রোগী কমে। কিন্তু করোনায় তো বিদেশে যেতে পারে নাই। তাদের অনেকেই মন্তব্য করেছেন, বাংলাদেশেও এত সুন্দর আন্তর্জাতিক মানের হাসপাতাল আছে, জানতামই না। তারা যে এই শিক্ষাটা পেয়েছে, এজন্য আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই।


আরও খবর



পদ্মা সেতুতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল দিতে যা করতে হবে

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

পদ্মা সেতু পারাপারে টোল আদায় করা হবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে। রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেন্টিফিকেশন (আরএফআইডি) কার্ড যানবাহনে থাকলে টোল বুথে থাকা ডিভাইসের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্দিষ্ট টাকা কেটে নেওয়া হবে। এজন্য সেতুর দুই প্রান্তে মোট ১৪টি ইলেক্ট্রনিকস টোল কালেকশন (ইটিসি) বুথ বসিয়েছে দায়িত্বপ্রাপ্ত কোরিয়ান কোম্পানি। প্রাথমিকভাবে দুই প্রান্তে একটি করে মোট দুটিতে চালু থাকছে ইটিসি। আর আটটি টোলপ্লাজায় টোল আদায় করা হবে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে। তবে আরএফআইডি সম্বলিত বাহন বাড়লে ইটিসি বুথও বাড়ানো হবে।

সেতু বিভাগ জানায়, স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল দিতে চাইলে যানবাহনের মালিকদের একটি সিস্টেম চালু করে নিতে হবে। এটা হলো রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেন্টিফিকেশন (আরএফআইডি)। স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে ফাস্ট ট্র্যাকের মাধ্যমে মাত্র দুই থেকে তিন সেকেন্ডের মধ্যে টোল আদায় হবে এতে। আরএফআইডির জন্য যত নিবন্ধন বাড়বে তত বুথ ইটিসির আওতায় আসবে। কারণ ইটিসি বুথ চালু করলেই হবে না, যানবাহনগুলোকে আরএফআইডির জন্য নিবন্ধনও বাড়াতে হবে। আর পদ্মা সেতু সাইকেল বা হেঁটে পার হওয়ার সুযোগ থাকছে না।

স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল দিতে যেভাবে নিবন্ধন করবেন
ডিজিটাল পেমেন্টের জন্য যানবাহনে অবশ্যই বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) অনুমোদিত সচল আরএফআইডি ট্যাগ থাকতে হবে। গাড়ির মালিক ব্যাংকে বা টোলপ্লাজায় গিয়ে আরএফআইডির জন্য সরাসরি নিবন্ধন করাতে পারবেন। মহাসড়কে চলাচলকারী যানবাহনের মালিকদের অবশ্যই হিসাব থাকতে হবে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক অথবা রকেট মোবাইল অ্যাকাউন্টে। রকেট অ্যাকাউন্টটি নেক্সাস-পে অ্যাপ্লিকেশনটিতে আগে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধনের পর তারা ইলেকট্রনিক টোল দেওয়ার এ সুবিধা পাবেন।

যেভাবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল কাটা হবে
আরএফআইডি সাদা রঙের একটি কার্ড, যা যানবাহনের সামনের অংশের ড্যাশবোর্ডে থাকবে। আরএফআইডি নম্বরটি সংযুক্ত থাকবে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে। অথবা এ আইডিতে অগ্রিম টাকা রিচার্জ করতে হবে। এটি সম্পূর্ণ প্রি-পেইড কার্ড। টোলপ্লাজায় থাকবে একটি যন্ত্র। এতে থাকবে কার্ড রিডার। যানবাহন যতবার পদ্মা সেতুতে উঠে ইটিসি বুথ দিয়ে যাবে ততবার বেঁধে দেওয়া টোলের টাকা স্বয়ংক্রিয়ভাবে কেটে নেবে। পাশাপাশি গাড়ির মালিকের মোবাইলে এসএমএস করে জানিয়ে দেওয়া হবে কত টাকা কাটা হলো।

ডিভাইসটি যেভাবে কাজ করবে
আরএফআইডি ডিভাইসটি মূলত কাজ করে বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে। এটি অনেকটা পণ্যের বারকোড দেখার প্রযুক্তির মতো। তবে পার্থক্য হলো, আরএফআইডি ব্যবহার করে কিছুটা দূরের ট্যাগ বা কোডও পড়া যায়। এতে টোলপ্লাজায় যানবাহনকে অপেক্ষা করতে হবে না।

সেতু বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জাগো নিউজকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে মোট ১৪টি টোলপ্লাজা রয়েছে। ২৫ জুন উদ্বোধনের দিন ১০টি চালু করা হবে। ১০টির মধ্যে দুটি ইটিসি বুথ হবে। এই বুথ দিয়ে যাতায়াত করা যানবাহনগুলোকে থামতে হবে না। বুথ ক্রসের সময় স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোলের হার অনুযায়ী টাকা কেটে নেওয়া হবে। তবে যানবাহনে আরএফআইডি থাকতে হবে। এটা একটা সাধারণ কার্ডের মতো। গাড়ির সামনে এটা ব্যবহার করা হবে। কার্ডে যদি টাকা না থাকে তবে গাড়িটি আটকে যাবে। কার্ডের সঙ্গে ব্যাংক অ্যাকাউন্ড যুক্ত থাকবে।’

টোল আদায় প্রসঙ্গে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে সব ধরনের আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, বিশেষ করে টোল আদায়ের ক্ষেত্রে। আমরা সেতু নির্মাণ করে দিচ্ছি, টোল আদায় করবে অন্য একটি বিভাগ। তবে আমি বলতে পারি পদ্মা সেতুতে প্রথমদিন থেকেই ইটিসি বুথ কার্যকর থাকবে। ফলে ফুল স্পিডে গাড়ি যাবে এবং গাড়ির ড্যাশবোর্ডে যন্ত্র লাগানো থাকবে ওখান থেকেই সংকেতটা নিয়ে নেবে। গাড়িতে লাগানো যন্ত্রটা প্রি-পেইড, গাড়ি গেলেই টাকা কেটে দেবে।’

সেতু বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী কাজী মো. ফেরদৌস জাগো নিউজকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে টোল দিতে থামতে হবে না। সেই প্রযুক্তি সেতুর টোলপ্লাজায় স্থাপিত হয়েছে। সব ধরনের আধুনিক ব্যবস্থা টোলপ্লাজায় রয়েছে।’

দেশের মানুষের বহু প্রতীক্ষিত এ সেতু ২৫ জুন সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন। এরপর উন্মুক্ত হবে সর্বসাধারণের জন্য।


আরও খবর



এক মাস পর নিখোঁজ বোনের সন্ধান মিললো বেওয়ারিশ লাশের কবরে

প্রকাশিত:Friday ০৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

প্রায় এক মাস আগে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার উড়িয়ন্দ গ্রামের রাজিয়া বেগম। দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জায়গায় তাকে খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পাচ্ছিলেন না স্বজনরা। নিখোঁজের এক মাস পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার খাঁটিহাতা হাইওয়ে পুলিশের মাধ্যমে পরিবারের সদস্যরা তার সন্ধান পান। তবে জীবিত অবস্থায় নয়, মৃত পেয়েছেন।

রাজিয়া মারা যাওয়ার পর তার মরদেহ কবর দেওয়া হয়েছিল অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মেড্ডায় বেওয়ারিশ লাশের কবরস্থান গিয়ে তার পরিচয় শনাক্ত করেন স্বজনরা। এ সময় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন তারা।

শুক্রবার (৩ জুন) দুপুরে বেওয়ারিশ লাশের দাফনকারী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একমাত্র সংগঠন বাতিঘরের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আজহার উদ্দিন জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রাজিয়া বেগম (৪০) কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার মিঠামইন ইউনিয়নের উড়িয়ন্দ গ্রামের মৃত শের আলীর মেয়ে।

রাজিয়ার ছোট ভাই জাকারিয়া জানান, গতমাসে কাজের জন্য নরসিংদীর রায়পুরায় এক আত্মীয়ের বাসায় এসে তার বোন নিখোঁজ হয়েছিলেন। এরপর থেকে অনেক খুঁজেও তাকে পাওয়া যায়নি। ওই আত্মীয়ের মাধ্যমে জানতে পারেন, রাজিয়া কাজের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া গেছেন। খবর পেয়ে তারা সরাইল উপজেলার খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা পুলিশের কাছে যান।

jagonews24

শুক্রবার দুপুরে হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম তাদের জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে বাতিঘরের প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার আজহার উদ্দিনের সঙ্গে দেখা করিয়ে দেন। পরে ছবি দেখে দুই ভাই তাদের হারিয়ে যাওয়া বোনকে শনাক্ত করেন।

দুই ভাই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বেওয়ারিশ লাশের কবরস্থানে (মেড্ডা তিতাসপাড়ের কবরস্থান) এসে নিখোঁজ হওয়া বোনের কবরটি দেখেন। এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। পরে কবর জিয়ারত শেষে তারা ফিরে যান। এ সময় বোনের পরিচয় শনাক্ত ও সুন্দরভাবে দাফনকাজ সম্পন্ন করার জন্য বাতিঘরকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান দুই ভাই।

বেওয়ারিশ মরদেহের দাফন করা সংগঠন বাতিঘরের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আজহার উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যত পরিচয়বিহীন মরদেহ উদ্ধার হয়ে হাসপাতাল মর্গে আসে, তাদের দাফনকাজ আমরা করি। এ পর্যন্ত আমরা অর্ধশতাধিক পরিচয়হীন মরদেহ দাফন করেছি।

পুলিশ ও বাতিঘর সূত্র জানায়, বুধবার (১ জুন) রাতে বিজয়নগরের ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে একটি পরিবহনের চাপায় অজ্ঞাতপরিচয় এক নারী মারা যান। ওই নারী সরাইল বিশ্বরোড থেকে বিজয়নগরের চান্দুরায় বিভিন্ন জায়গায় কাজ করতেন।

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর পর ওই নারীর আত্মীয়-স্বজনের খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরে মরদেহের দাফনকাজ করেন বাতিঘরের সদস্যরা। ওই নারীই হারিয়ে যাওয়া রাজিয়া।


আরও খবর



ইরানে জন্মদিনের পার্টিতে আগুন, শিশুসহ নিহত ৮

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

ইরানে একটি জন্মদিনের পার্টিতে অগ্নিকাণ্ডে চার শিশুসহ ৮ জন নিহত হয়েছে। বুধবার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে, একটি আন্ডারগ্রাউন্ড রেস্টুরেন্টে ওই জন্মদিনের পার্টির আয়োজন করা হয়।

বার্তা সংস্থা ইরনার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে যে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানী তেহরানের পশ্চিমে অবস্থিত আন্দিশেহ শহরে ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

তেহরান প্রদেশের রেড ক্রিসেন্টের কর্মকর্তা শাহিন ফাথি জানিয়েছেন, অগ্নিকাণ্ডে ঘটনাস্থলেই সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। অপরদিকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তিন বছরের এক শিশু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

কাউন্টির প্রসিকিউটর হামিদ আসগরি জানিয়েছেন, খুব দ্রুত গতিতে রেস্টুরেন্টের ভেতরে আগুন ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে।


আরও খবর



গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে রেস্টুরেন্টে আগুন

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর ক্যান্টনমেন্টের মানিকদি বাজারে একটি রেস্টুরেন্টে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুনের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনে আগুন। বৃহস্পতিবার (২ জুন) সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

কুর্মিটোলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তা মো. সফিকুল ইসলাম বলেন, সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে খবর আসে মানিকদি বাজারের আল-মদিনা হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে আগুন লাগে। খবর পেয়ে দ্রুত কুর্মিটোলা ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায়।

তিনি বলেন, আগুনে কেউ হতাহত হয়নি। ফায়ার সার্ভিসের তৎপরতায় মানিকদি বাজারের অনেক দোকান আগুন থেকে রক্ষা পেয়েছে।


আরও খবর