Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২০৩জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক ডা. আধানম গ্যাব্রিয়াসুসের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘের সদর দপ্তরে দুজনের মধ্যে বৈঠক হয়।

‘বিশ্বাস, পুনর্গঠন ও বিশ্ব সংহতির পুনরুদ্ধার’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৮তম অধিবেশন শুরু হয়েছে। সোমবার নিউইয়র্কে সংস্থাটির সদর দপ্তরে এই অধিবেশন শুরু হয়।

এ বছর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন ও জলবায়ু ইস্যুর পাশাপাশি প্রাধান্য পাবে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে সাধারণ সভার আলোচনা।

এবারের অধিবেশনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিশ্বের দেড় শতাধিক রাষ্ট্রপ্রধান যোগ দিচ্ছেন।

নিউইয়র্কে অবস্থানকালে প্রধানমন্ত্রী ১৯ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সদরদপ্তরের সাধারণ পরিষদ হলে ৭৮তম সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের উচ্চপর্যায়ের প্রথম দিনের বিতর্কে যোগ দেবেন। ২২ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় দুপুর ১টা থেকে দুপুর ২টার মধ্যে ভাষণ দেবেন তিনি।

এর আগে, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৮তম অধিবেশনে যোগ দিতে স্থানীয় সময় ১৭ সেপ্টেম্বর রাত ১০টা ৫০ মিনিটে নিউইয়র্কে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



ডিপজলের বড় ভাই মারা গেছেন

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৩জন দেখেছেন

Image

বিনোদন ডেস্ক:চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন ডিপজলের বড় ভাই হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন ওরফে বাদশা মারা গেছেন।

শনিবার (১৫ জুন) দুপুরে রাজধানীর শ্যামলীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ খবর নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর।

হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, প্রদর্শক এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সাবেক সভাপতি ছিলেন।

জানা গেছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার (১৪ জুন) ভোর ৩টায় হাসপাতালে ভর্তি হন ডিপজলের বড় ভাই শাহাদাৎ। এরপর তার শারীরিক অবস্থা খারাপের দিকে এগোলে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা। ভাইয়ের সুস্থতার জন্য সবার কাছে ফেসবুকে দোয়াও চেয়েছিলেন ডিপজল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মায়ার বন্ধন ছিন্ন করে দুপুরে পরপারে পাড়ি জমান ডিপজলের বড় ভাই। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। শোকাহত পরিবার, ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষিরা।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় রেমালে আক্রান্ত অসহায় মানুষের পাশে দাড়ালেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৩৯জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার ,স্টাফ রিপোর্টার: ঘূর্ণিঝড় রেমালে আক্রান্ত দুস্থ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। অসহায় পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ধারাবাহিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আজ ২৯ মে বুধবার বিকেলে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলা বাই এবং রাঙ্গাবালী উপজেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে ১ হাজারের বেশি পরিবারের মাঝে ত্রাণ পৌঁছে দেয় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। চাল, ডাল, তেল, পেয়াজ, আলু এবং খাবার স্যালাইন সরবরাহ করা হয় দুস্থ অসহায় পরিবারসমূহের মাঝে। ত্রাণ বিতরণকালে  উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। একইসাথে দেশের যেসকল উপকূলীয় অঞ্চলসমূহে ঘূর্ণিঝড় রেমাল আঘাত হেনেছে, সেসকল স্থানে একযোগে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের এই ত্রাণ বিতরণ এবং পুনর্বাসন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন, দেশের যেকোনো দুর্যোগ মুহূর্তে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সবার আগে সেখানে ছুটে যায়। আমরা এবার সাধারন মানুষের জন্য কাজ করেছি। 

তিনি আরো বলেন,ঘূর্ণিঝড় রেমালের ক্ষতিগ্রস্ত   মানুষের পাশে আপনারা যারা বিত্তবান রয়েছেন তারা অবশ্যই তাদের পাশে দাঁড়ান। এই দুর্যোগের মুহূর্তে সরকারের একার দায়িত্ব নয় আমাদেরও দায়িত্ব রয়েছে সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করার। তাই আমি বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানাবো আপনারাও ঘূর্ণিঝড়ে রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান।

আরও খবর



নওগাঁর পোরশায় একযুগ ধরে লুট হয়ে যাচ্ছে প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

ডিএম রাশেদ পোরশা (নওগাঁ) :নওগাঁর পোরশায় সব প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ লুট হয়ে যাচ্ছে। প্রায় একযুগ ধরে এসব প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ লুট হয়ে যাচ্ছে। অথচ এগুলো রক্ষায় আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। 

জানা যায়, পোরশা উপজেলার নিতপুর ইউপির পশ্চিম রঘুনাথপুর গ্রামের টেকঠা নামক মাঠে বিগত ১৩-১৪ বছর পূর্বে স্থানীয়রা একটি গর্ত থেকে কিছু মূল্যবান জিনিষপত্র পায়। এর পর থেকে ঐ ঐলাকার যেখানেই মাটি গর্ত করে সেখানেই মূল্যবান জিনিষপত্র পায় স্থানীয়রা। এসব মূল্যবান জিনিষপত্র আর গুপ্তধন পাওয়ার আশায় প্রতিযোগিতার মতো এখানকার মানুষ প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত আবাদি জমি কেউ বা আবার রোপণকৃত ধানের জমি কেউ বা আবার আম বাগান খনন করেই চলেছেন। আর পাচ্ছেন দামি দামি সব জিনিষপত্র আর গুপ্তধন। টেকঠা এলাকা পুনর্ভবা নদীর পুর্বপাড়। নদীর পূর্বপাড়ের প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে চলছে গুপ্তধন পাওয়ার প্রতিযোগিতা। কেউ নিজের জমিতে আবার কেউ অন্যের জমি টাকার বিনিময়ে চুক্তিভিত্তিক কিনে নিয়ে খনন করেই চলেছেন। বিগত ১২-১৪বছর পূর্বে এখানে কোন ঘর বাড়ি ছিল না। ছিল ফাঁকা মাঠ। এখন এই গুপ্তধনকে কেন্দ্র করে গঠে উঠেছে জনবসতি।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনাস্থল থেকে সে সময়ে সর্বপ্রথম পশ্চিম রঘুনাথপুর জেলেপাড়ার বৃদ্ধ আব্দুল কাদের বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র পাথর পান। পাথরের মাঝখানে ছোট ছিদ্র ছিল। পাথরগুলো দেখতে তসবির মতো। যেগুলো মুসল্লিরা ইবাদতে কাজে লাগান। তিনি তখন তার গ্রামের মসজিদে আজান দিতেন। তিনি পাথরগুলো পাওয়ার পর কখনই চিন্তা করেননি যে সেগুলো মূল্যবান কোন গুপ্তধন। তাই তিনি তাদের মসজিদে ইবাদতের কাজে লাগানোর জন্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পাথরগুলো দিয়ে তসবি তৈরি করেন এবং ইবাদত করেন। কয়েক মাস পর কোনো এক লোক ওই মসজিদে নামাজ পড়ে তসবিটি দেখে তার পছন্দ হয়েছে বলে বৃদ্ধ আব্দুল কাদেরকে জানান। দিতে না চাইলে সেটি তিনি কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দিলে তা ৫০০ টাকার বিনিময়ে ওই লোকের কাছে বিক্রি করেন আব্দুল কাদের। এরপর বৃদ্ধ কাদেরের মনে সন্দেহ হয় সেটি নিশ্চয়ই মূল্যবান পাথর। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার লোকজন শুরু করেন মাটি খনন। সেই থেকে প্রতিদিন সকাল হলেই স্থানীয়রা যে যার মতো কোদাল ও খুনতি দিয়ে মাটি খনন করেই চলেছেন। আর পাচ্ছেন মূল্যবান সব জিনিসপত্র। প্রায় ৪ থেকে ৫ ফুট নিচে মাটি খনন করলেই পাওয়া যায় পয়সা, তাবিজ, তসবিহ, কলম, মার্বেল, চাকি, ঢোল, জালি পোটল, বোতামসহ মূল্যবান জিনিসপত্র। এসব জিনিস লাল, কালো, সাদা, সবুজসহ একেকটির রং একেক রকম। এসব মূল্যবান পাথরের জিনিস পাওয়া মাত্র বিক্রি করে দেন স্থানীয়রা। সর্বনি¤œ যে পাথরটি তার দাম বর্তমানে দশ হাজার টাকা। আর সর্বোচ্চটির দাম দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকা। বর্তমানে এ রকম দামেই বিক্রি হচ্ছে বলে জানান স্থানীয়রা।

স্থানীয় যুবক রবিউল ইসলাম জানান, তার বাড়ির পশ্চিম মাঠে পোরশা সদরের মৃত ওহাব শাহের জমি রয়েছে। তার কাছ থেকে তিন বছরের জন্য ২লক্ষ টাকার বিনিময়ে ৩বিঘা জমি কিনে নেন তিনি। উদ্দেশ্য জমির মাটি খুঁড়ে মূল্যবান সব জিনিসপত্র উদ্ধার করা। এর পূর্বেও তিনি পোরশা সদরের এক জমির মালিকের নিকট থেকে জমি কিনে নিয়ে অনেক মূল্যবান সব জিনিষপত্র পেয়েছিলেন বলে জানান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক যুবক জানান, তিনি এক বছরের জন্য ৩বিঘা জমি কিনে নিয়ে মাটি খনন করছেন। অল্প দিনে তিনি ঐ জমিতে মাটি গর্ত করে মূল্যবান ২টি চিরুনি পেয়েছেন যা ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। ২টি জালি পেয়েছেন যা ১৮হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। ৩টি ফুটবল পেয়েছিলেন যা বিক্রি করেছেন ২৫হাজার টাকায় এবং কয়েকটি মার্বেল বোতামসহ অন্যান্য জিনিস বিক্রি করেছেন ১২হাজার টাকায়। তবে ৩ বিঘার মধ্যে এগুলো পেয়েছেন মাত্র ৫শতক জমির মধ্যে। 

একই এলাকার ফইমুদ্দিনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, তার বাড়ির দক্ষিণ পাশে তাদের নিজের ৫ কাঠা জমি খনন করে ১টি চাকি পেয়েছেন। সেটি বিক্রি করেছেন ৫হাজার টাকায়। ঠোল পেয়েছিলেন ২টি যা বিক্রি করেছেন ৫০ হাজার টাকায়। আর জালি পোটল ২টি পেয়ে বিক্রি করেছেন ১লক্ষ টাকায়। কয়েকটি মার্বেল ও বোতাম পেয়ে সেগুলো বিক্রি করেছেন ২০হাজার টাকায়। এসব মূল্যবান জিনিষপত্র নওগাঁ, বগুড়া, নাটোর ও পাবনা এলাকার কিছু ব্যবসায়ীদের নিকট তারা বিক্রি করে থাকেন।

স্থানীয়দের ধারণা, এ এলাকায় এক সময়ে হিন্দুদের বসবাস ছিল। এখান থেকে তারা চলে যাওয়ার সময় তাদের মূল্যবান জিনিসপত্রগুলো তারা নিয়ে যেতে পারেননি। পরে তাদের ঘরবাড়ি ও মন্দিরগুলো ভেঙে মাটির নিচে চাপা পড়ে। আর সেই মূল্যবান জিনিসগুলো এখন বের হচ্ছে।

প্রায় ১৫বছর ধরে মাটির নিচের এসব মূল্যবান সম্পদ সবগুলো লুট হয়ে যাচ্ছে। অথচ আজ পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়নি।

তবে ২০২২সালের ২৭অক্টোবর সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক একটি চিঠি দিয়েছিলেন পোরশা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর। তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ঐ টেকঠা নামক স্থানের প্রত্নস্থানের ক্ষতিসাধন রোধ করে অবৈধ প্রত্নসম্পদ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দেওয়া ঐ চিঠিতে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক আরো উল্লেখ করেছিলেন যে, পোরশা উপজেলার এই টেকঠা নামক এলাকাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নস্থান। এ প্রত্নস্থানকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসাবে গেজেট প্রকাশের জন্য প্রাথমিক জরিপ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই এটিকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসাবে ঘোষনা করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ আদনান জানান, তিনি বিষয়টি অবগত আছেন। এ ব্যাপারে তিনি অতিসত্তর প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।


আরও খবর



হোমনায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৬৫জন দেখেছেন

Image
হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে না ফেরার দেশে চলে গেলেন এক ডিপ্লোমা ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার।নিহতের নাম মো. জাকারিয়া (৩৫)। তিনি হোমনা উপজেলার ঘাগুটিয়া ইউনিয়নের রামপুর গ্ৰামের ওসমান গনির ছেলে। (শনিবার ১৫ জুন) বিকেলে তার নিজ বাড়িতে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে।জাকারিয়া একটি বেসরকারি সংস্থায় (এনজিও) চাকরি করতেন।পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পরিবারের সবার সঙ্গে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করতে ছুটিতে বাড়ি এসেছিলেন। (শনিবার) সন্ধ্যায় নিজের ঘরে বৈদ্যুতিক বাতির ত্রুটি সারাতে গিয়ে অসাবধানতাবশত বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যান।টের পেয়ে স্বজনরা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।খবর পেয়ে হোমনা থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই টিবলু মজুমদার সঙ্গীয় পুলিশসহ হাসপাতালে যান। তিনি বলেন, কোনো অভিযোগ না থাকায় পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে দাফন কাফনের জন্য লাশটি স্বজনদের নিকট বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আরও খবর



এনআইডি নিয়ে হয়রানি বন্ধের নির্দেশ সিইসির

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সেবা নিতে গিয়ে নাগরিকরা যেন কোনো হয়রানির শিকার না হন এবং তাদের সঙ্গে যেন দুর্ব্যবহার করা না হয় কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।সোমবার (১০ জুন) নির্বাচনি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে (ইটিআই) আয়োজিত এনআইডি সংশোধনসংক্রান্ত এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ নির্দেশনা দেন তিনি।

ইসি সচিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটিতে ইটিআই মহাপরিচালকসহ অন্য কর্মকর্তা ও প্রশিক্ষণার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিইসি বলেন, জাতীয় পর্যায়ে এনআইডির গুরুত্ব এখন অপরিসীম। আমাদের ভোটার তালিকাও এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডিজিটালাইজড হয়ে গেছে। এনআইডি এখনও শতভাগ সেটেলড ডাউন হয়েছে, এটা আমার কাছে মনে হয় না। অনেকে অভিযোগ করেন যে, পরিবর্তন বা সংশোধন করতে হবে। সংশোধনের কিছু কিছু ক্ষেত্রে যারা আবেদনকারী তাদের কারণে ভুল হয়ে থাকে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে তথ্যগুলো আমি যখন লিখছি, তখন সঠিকভাবে লিখছি না। কিছু সংকট আমাদের রয়েছে।

তিনি বলেন, এনআইডি ব্যবস্থাপনা অনেক জটিল। আমি সেটা বুঝি না। তবে জনগণ এলে তাকে সেবা দিতে যেন দেরি না হয়। আমি সরকারি কর্মচারী। যেন হয়রানি না করি, দুর্ব্যবহার না করি, সেটা নিশ্চিত রাখতে হবে। বিয়ের পরে অনেকের স্বামীর নাম পরিবর্তন করতে হয়। কোনো কোনো দেশে এটা অপরিহার্য হিসেবে প্রয়োজন হয়। তাই স্বামীর নামটা অরিজিনালি থাকা উচিত। তাহলে বিড়ম্বনা হবে না।

সিইসি আরও বলেন, আমি জানি স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না। তবে অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয়। আমার হয়তো অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না, কিন্তু ঘন ঘন অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন করতে হয়, তাহলে কী এনআইডি সংশোধন করতে পারব, সে দিকটাও দেখতে হবে। প্রায়ই শুনি এ ওর নাম নিয়ে ভিন্ন পরিচয় ধারণ করে এনআইডি নিয়েছে৷ বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত হচ্ছে। অনেকে বাবার নাম পরিবর্তন করে চাচার নাম নিয়ে সহায় সম্পত্তি দখল করে ফেলছে। গভীরভাবে চিন্তাভাবনা করে কোনো একটি উপায় বের করতে হবে, যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে। কেউ যদি ১০টা দেশের নাগরিক হন এবং বাংলাদেশেরও নাগরিক হন তাহলে তিনি এনআইডি পাবেন৷ দ্বৈত নাগরিকত্বের অজুহাতে কাউকে এনআইডি দেওয়া থেকে বাদ রাখা যাবে না। যদি কোনো ব্যক্তি কোনোভাবে বাংলাদেশের নাগরিক হন, সনদের প্রয়োজন নেই; তাকে এনআইডি দিতে হবে।



আরও খবর