Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ৩০ মার্চ ২০২৩
শিরোনাম

বিরামপুরে নেই ফুটওভার ব্রীজ: দুর্ভোগে শিক্ষার্থী ও পথচারী

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মার্চ ২০২৩ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

মিজানুর রহমান মিজান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুর জেলার বিরামপুরে দিনাজপুর-গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কে দূর্ঘটনা এড়াতে নেই কোন গতিরোধক ও ফুট ওভারব্রীজ। এই মহাসড়কটি জনবহুল ও ব্যস্ততম হওয়ায় যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা। প্রতিদিনই রাস্তা পারাপারে চরম দুর্ভোগে পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থী ও পথচারীসহ এলাকাবাসীকে।

দিনাজপুর-গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কটি বিরামপুর পৌর শহরের অনেক ব্যস্ততম সড়ক। এই মহাসড়কের উপর দিয়ে প্রতিদিনই অনেক দূরপাল্লার বাস, ট্রাক ও ঢাকাগামী কোর্সসহ বিভিন্ন ভারী যানবাহন চলাচল করে থাকে। এই উপজেলায় প্রায় ৬ লক্ষ লোকজন বসবাস করে। তাছাড়াও দিনাজপুর, রংপুর, বগুড়া, জয়পুরহাটসহ বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের আনাগোনা তো আছে। তাই প্রতিদিন ব্যস্ত হয়ে পড়ে এই শহর ও মহাসড়ক। 

এই মহাসড়কে নেই কোন ফুটপাত, গতিরোধক, ফুট ওভারব্রীজ কিংবা জেব্রা ক্রসিং। এ অবস্থায় প্রতিদিনই শিক্ষার্থী ও পথচারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্যস্ততম এই রাস্তা পারাপার হচ্ছে। সকলেই জীবনকে বিপদাপন্ন করে মহাসড়কটি আড়াআড়ি ভাবে পাড়ি দিয়ে নিজ নিজ গন্তব্যে যাচ্ছে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন সকালে সড়ক পার হয়ে তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়া ও বাড়িতে ফেরা হয়ে পড়েছে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, কিছু সময় পরপর শিক্ষার্থী ও পথচারীরা হাত উঁচিয়ে গাড়ি থামিয়ে মহাসড়কের রাস্তা পার হচ্ছে। এতে প্রায়ই সময়ই সৃষ্টি হয় অনাকাঙ্ক্ষিত যানজট, মানব জটলা, এমনকি ঘটছে দূর্ঘটনা। কেউ কেউ হাত না দেখিয়ে গাড়ি না থামিয়ে দৌড়ে রাস্তা পার হচ্ছেন। এতে করে ঘটছে দূর্ঘটনা।

বিরামপুর পৌর শহরের মহাসড়কের দু’পার্শ্বে রয়েছে অনেক গুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সড়কের এক দিকে রয়েছে টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট, আদর্শ হাইস্কুল ও আদর্শ মহিলা মাদ্রাসা, আইডিয়াল কেজি স্কুল, শিমুলতলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও শিমুলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

অন্যদিকে রয়েছে বিরামপুর সরকারি কলেজ, চাঁদপুর ফাজিল মাদ্রাসা, উপজেলা কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজিয়েট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং আমানুল্লাহ আদর্শ বিদ্যা নিকেতন, বিরামপুর মহিলা কলেজ, পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, বিরামপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিরামপুর উপজেলা পরিষদ। এই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী ও উপজেলা পরিষদে বিভিন্ন দপ্তরীক কাজে আগত জনসাধারণ।

বিরামপুর আর্দশ হাইস্কুলের ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী এ এম এম মাহী কৈশোর বলেন, আমাদের বিদ্যালয় অনেক ছাত্র-ছাত্রী। আমরা খুব-ই ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করি।  ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণ করা হলে আমরা নিরাপদে রাস্তা পারাপার হয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে পারব। স্থানীয় প্রশাসন ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণে সু-দৃষ্টি দিনেন বলে আশা করছি।

বিরামপুর আর্দশ হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মোকছেদ আলী বলেন, কোমলমতি শিক্ষার্থী, পথচারী ও এলাকাবাসীর পারাপার ও দুর্ভোগ লাঘবে জন্য উপজেলা প্রশাসন ও পৌর মেয়র ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে আশা করছি।

বিরামপুর চাঁদপুর ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক মেফতাহুন নাহার কবিতা বলেন, পথচারী ও শিক্ষার্থীদের নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারের জন্য বিরামপুর শহরে স্কুল- কলেজ ও মাদ্রাসা এলাকায় ফুট ওভারব্রিজের দাবী আমাদের দীর্ঘদিনের। এই ফুট ওভারব্রিজের নির্মাণ করা হলে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা নির্বিঘ্নে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে পারবে। সেই সঙ্গে দূর্ঘটনার এড়ানো সম্ভব হবে আশা করছি।

বিরামপুর পৌরসভা মেয়র অধ্যক্ষ মো. আক্কাস আলী বলেন, নিতান্তই বিরামপুরে ফুটওভার ব্রীজ প্রয়োজন। আমি সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাথে কথা  বলেছি। আশা করিছ খুব শীঘ্রই পৌর শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ফুটওভার ব্রীজ নির্মাণ করা সম্ভব হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পরিমল কুমার সরকার বলেন, দিনাজপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাথে পৌর শহরের মহাসড়কে গতিরোধক এবং ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের বিষয়ে কথা হয়েছে। আশা রাখছি এর দ্রুত সমাধান হবে।






আরও খবর



৩০ মার্চ থেকে হাসপাতালে ভিজিট নিয়ে রোগী দেখবেন চিকিৎসকরা

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মার্চ ২০২৩ | ৫১জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক: আগামী ৩০ মার্চ থেকে নিজ হাসপাতালে চিকিৎসকরা প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ‘সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা’ সংক্রান্ত সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান। 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রাথমিকভাবে ১০টি জেলা হাসপাতালে এবং ২০ উপজেলা হাসপাতালে পাইলটিংভাবে এ কার্যক্রম শুরু হবে। বিকেল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত সেবা দেবেন চিকিৎসকরা।

তিনি বলেন, ‘মার্চ থেকেই সরকারি চিকিৎসকদের ইনস্টিটিউশনাল প্র্যাকটিস শুরুর কথা বলেছিলাম। কিন্তু এখন ৩০ মার্চ থেকে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস চালুর চেষ্টা করছি। প্রথমে কয়েকটি জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে এ কার্যক্রম শুরু করব।

তিনি বলেন, বিকেল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত সেখানে প্র্যাকটিস করতে পারবেন চিকিৎসকরা। এতে নার্স ও টেকনিশিয়ানরাও সপ্তাহে দুদিন করে কাজ করবেন। তারা যে সেবা দেবেন, তার বিনিময়ে তাদের সম্মানী নির্ধারণ করা হয়েছে। তার একটি অংশ পাবেন চিকিৎসকরা। সরকারও একটি অংশ পাবে।

জাহিদ মালেক বলেন, চিকিৎসকরা সপ্তাহে দুদিন করে প্রাইভেট প্র্যাকটিসের আওতায় রোগী দেখবেন। প্রাইভেট প্র্যাকটিসের আওতায় রোগী দেখাতে অধ্যাপককে ৫০০ টাকা, সহযোগী অধ্যাপককে ৪০০, সহকারী অধ্যাপককে ৩০০ এবং অন্য চিকিৎসককে ২০০ টাকা করে ফি দিতে হবে। এসব ফি থেকে অধ্যাপকরা ৪০০ টাকা, সহযোগী অধ্যাপকরা ৩০০, সহকারী অধ্যাপকরা ২০০ এবং অন্য চিকিৎসকরা ১৫০ টাকা করে পাবেন। বাকি টাকা সার্ভিস চার্জ বাবদ কাটা হবে এবং চিকিৎসকদের সহায়তাকারীরা পাবেন।


আরও খবর

দেশে করোনায় মৃত্যু দেড় মাস পর

মঙ্গলবার ২৮ মার্চ ২০২৩

রোজা রেখেও মাপা যাবে রক্তের সুগার

বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩




চাচিকে বিয়ে করা যুবক গ্রেফতার

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | ৫৩জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে: মাগুরার মহম্মদপুরে আপন চাচিকে বিয়ে করা যুবক গ্রেফতার।  সাজাপ্রাপ্ত এ যুবকের ঠাঁই হয়েছে মাগুরা জেল খানায়।   মোঃ নুর মিয়া (২২) নামে ওই যুবককে আটক করেছে মহম্মদপুর থানা পুলিশ। শনিবার রাতে তাকে আটক করা হয়।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার দীঘা ইউনিয়নের আউনাড়া গ্রামের মোঃ মোক্তার মৃধার ছেলে নুর মিয়া আপন চাচা আহম্মদ মৃধার মৃত্যুর পর চাচি আসমা বেগম (৪৫) এর সাথে পরকিয়ার সম্পর্কে লিপ্ত হয়। এঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে এলাকাবাসী তাদেরকে বিবাহ দিয়ে দেন। পরবর্তীতে সম্পর্কের অবনতি হলে আসমা বেগম নুর মিয়ার নামে মামলা করেন। তারই প্রেক্ষিতে আদালত নুর মিয়াকে  দুই বছরের কারাদন্ড ও ৩হাজার টাকা জরিমানা করেন।

শনিবার রাতে মহম্মদপুর থানার  এসআই সুকুমার কুন্ডুর নেতৃত্বে, এএসআই রবিউল ইসলাম সঙ্গীয় সদস্যদের নিয়ে আউনাড়া গ্রাম থেকে তাকে আটক করে।

আরও খবর



ইন্টারপোলের রেড নোটিশের খবরে ‘খোলা চিঠি’, যা লিখলেন আরাভ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | ৭৫জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক ;ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারির খবরে ন্যায়বিচার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে খোলা চিঠি দিয়েছেন দুবাইয়ের আলোচিত স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলাম। গতকাল সোমবার রাতে ‘খোলা চিঠি বাংলাদেশ’ শিরোনামে তিনি একটি পোস্ট করেন।

ফেসবুক পোস্টে আরাভ লিখেছেন, ‘খোলা চিঠি বাংলাদেশ, আসসালামু আলাইকুম। আমি আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন এবং সর্বদাই আমার দোয়া থাকবে আপনাদের ওপর। আপনারা যেভাবে আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন, আমি বাঁচি আর না বাঁচি এ কথা আমার মনে থাকবে। জানি না আমার জীবনে আমি জেনে না জেনে যে ভুলগুলো করেছি, আপনারা যারা আমার পাড়া-প্রতিবেশী এবং আমাকে যারা চেনেন, যাদের সঙ্গে আমার কোনো অন্যায় হয়ে থাকলে তারা আমাকে মাফ করে দেবেন।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘দেশবাসীর কাছে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। আমি যদি কোনো ভুল করে থাকি আপনারা আমাকে মাফ করে দেবেন। আমি জানি না কাল আমার সঙ্গে কী হবে। কিন্তু আমি চাই ন্যায়বিচার, সেটা হয়তোবা সম্ভব না। যাই হোক, আল্লাহ একজন আছে। এই বিচার আমি আল্লাহর কাছে ছেড়ে দিলাম।’

এর আগে গতকাল সোমবার চট্টগ্রামে এক অনুষ্ঠানে স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে ইন্টারপোল রেড নোটিশ জারি করা হয়েছে বলে জানান পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন। পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) পরিদর্শক মামুন ইমরান খান হত্যা মামলার অন্যতম আসামি আরাভ।  

পুলিশ জানিয়েছে, আরাভ খান ঢাকায় পুলিশ কর্মকর্তা মামুন ইমরান খান হত্যা মামলার আসামি রবিউল ইসলাম, যিনি ভারতীয় পাসপোর্টে ‍দুবাই গেছেন। তার গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া থানায়।

পুলিশ আরও জানায়, আরাভের বিরদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা গেছে ৯টি। মামলার সংখ্যা আরও বেশি। আরাভ বেশ কয়েকটি বিয়েও করেছেন। গ্রামে প্রচার রয়েছে, তার বিয়ের সংখ্যা অন্তত ২০টি।

জানা গেছে, হত্যা মামলা মাথায় নিয়ে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে দুবাইয়ে পাড়ি জমানো আরাভ এখন কোটি কোটি টাকার মালিক। বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করে দুবাইয়ে ‘আরাভ জুয়েলার্স’ নামে একটি গোল্ড শোরুমের সম্প্রতি উদ্বোধন করেছেন তিনি। এ ছাড়া বাড়ি-গাড়ি রয়েছে তার।


আরও খবর



ঘরে বসেই মিলবে ড্রাইভিং লাইসেন্স

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | ৬৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক ;মাত্র কয়েকদিন আগেও কাগজপত্র জমা, ফিঙ্গার প্রিন্ট পরীক্ষা এবং বায়োমেট্রিকের জন্য দিনের পর দিন ধর্ণা দিতো হতো বিআরটিএ অফিসে। এতে হয়রানির পাশাপাশি দালাল চক্রের ফাঁদে পড়ে আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হতো সেবাপ্রার্থীরা। কিন্তু বর্তমানে বদলে গেছে সেই চিত্র। এখন ঘরে বসেই মিলবে কাঙ্খিত ড্রাইভিং লাইসেন্স।গত মঙ্গলবার (২১মার্চ) সকালে কক্সবাজার বিআরটিএ অফিসে এই কার্যক্রম উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আবু সুফিয়ান। তিনি জানান,স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে নব যুগের সূচিত হলো। পাশাপাশি দালাল চক্রের অপতৎপরতা রোধে এই কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।কক্সবাজার বিআরটিএ এর সহকারী পরিচালক আনোয়ার হোসেন জানান, নিজের মোবাইলে একাউন্ট খুলে আবেদন করে ফাইল সাবমিট করা যাবে। পরে একদিনেই অফিসে এসে ফিঙ্গার প্রিন্ট, বায়োমেট্রিক ও পরীক্ষা দেওয়া যাবে। এরপর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে মিলবে একটি ই-ড্রাইভিং লাইসেন্স। যেটি দিয়ে নিমিষেই চালানে যাবে গাড়ি। পরে ডাকযোগে পৌঁছে যাবে লাইসেন্সের প্রিন্ট কপি।একদিনেই সহজেই হাতের কাছে সমস্ত সেবা পেয়ে বেশ খুশি সেবাপ্রার্থীরা।এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী সিভিল সার্জন ডাক্তার মহিউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দজাদী মাহবুবা মৌনা, ইনজারুল হক, ট্রাফিক পরিদর্শক রফিকুর রহমান ও বিআরটিএ এর মোটরযান পরিদর্শক তীর্থ প্রতীম বড়ুয়া। 



আরও খবর



আরাভ আটক কি না, জানেন না আইজিপি

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | ৩৭জন দেখেছেন

Image

পুলিশ হত্যা মামলার পলাতক আসামি আলোচিত স্বর্ণ ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম ওরফে আরাভ খানকে দুবাই পুলিশ আটক করেছে কি না, এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য বাংলাদেশ পুলিশের কাছে নেই বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন।

আজ শনিবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিককের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‌‘আরাভকে সেখানে আটক করা হয়েছে কি না, সে বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।

আইজিপি বলেন, ‘রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে ইন্টারপোল। আমরা তাদের (ইন্টারপোল) সঙ্গে যোগাযোগ করছি।’ এ সময় বাংলাদেশ পুলিশের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ইন্টারপোল রবিউলের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে বলে জানান তিনি।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে ইন্টারপোল ওয়েবসাইটের রেড নোটিশের তালিকায় রবিউল ইসলামের নাম আসে। ইন্টারপোলের রেড নোটিশের তালিকায় ৬৩তম বাংলাদেশি তিনি।

আরাভ খান ভারতীয় নাগরিক এবং ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে দুবাই গেছেন। তাকে ফিরিয়ে আনতে কোনো প্রতিবন্ধকতা রয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘আমরা এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি।

উল্লেখ্য, দুবাইয়ে ‘আরাভ জুয়েলার্স’ নামের ওই প্রতিষ্ঠানের মালিকের নাম আরাভ খান। মূলত তিনি বাংলাদেশের নাগরিক রবিউল ইসলাম। তবে ভারতে গিয়ে নাম পরিবর্তন করে রাখেন আরাভ খান। পরে সেখান থেকেই ভারতীয় পাসপোর্ট নিয়ে চলে যান দুবাইয়ে।

পুলিশ বলছে, আরাভ খানই মূলত ঢাকার স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) পুলিশ পরিদর্শক মামুন ইমরান খান হত্যা মামলার পলাতক আসামি রবিউল ইসলাম। তাকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে। এ ছাড়া তিনি কীভাবে দেশত্যাগ করলেন সেটিও খতিয়ে দেখা হবে।


আরও খবর