Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

বেনাপোল স্থল বন্দর থেকে চারটি ওয়ান সুটার গান উদ্ধার

প্রকাশিত:Monday ০৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৫৪জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

বেনাপোল কাস্টম হাউজ থেকে অবৈধভাবে রাখা চারটি ওয়ান শুটার গান উদ্ধার করেছে পুলিশ।


রবিবার (৮ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে একটি তালাবদ্ধ রুমে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস একটি টিম কাস্টম হাউসে আসে। 


বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর পুড়ে যাওয়া মালামালের মধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় চারটি আগ্নেয়াস্ত্র দেখতে পায় পুলিশ।


সংশ্লিষ্টরা জানান, বেনাপোল কাস্টম হাউসে অ্যান্টি শাখার পাশে পুরনো একটি অফিস রুম রয়েছে। তবে সেটি ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় অব্যবহৃত কিছু মালামাল রেখে তালাবদ্ধ অবস্থায় ছিল। 


রবিবার সন্ধ্যায় ওই রুম থেকে আগুনের ধোঁয়া দেখতে পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অফিসে ফোন দেয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আধাঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।


 পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পায় পুড়ে যাওয়া পণ্যের মধ্যে চারটি ওয়ান শুটার গান রয়েছে। তবে কারা সেগুলো সেখানে রেখেছে তা জানা যায়নি।


এদিকে ব্যবসায়ীরা জানান, বেনাপোল কাস্টম হাউজ সম্পূর্ণ সিসি ক্যামেরা, অস্ত্রধারী আনসার ও আর্মড পুলিশ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।  কারা কী উদ্দেশ্যে এ আগ্নেয়াস্ত্র সেখানে মজুত রেখেছিল তা খতিয়ে দেখা জরুরি।


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জে পুলিশ কর্মকর্তাকে পেটালেন বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজী বিহারী ক্যাম্প এলাকায় অবস্থিত আদমজী শাহী জামে মসজিদ। শুক্রবার (১০ জুন) জুমার নামাজ শেষে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছিলেন ইমাম। তার বক্তব্য চলাকালে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ভারতের ঘটনা ভারতে থাকুক; আমরা এ নিয়ে বিশৃঙ্খলা না করি।

তার এ বক্তব্যের জের ধরে হামলা চালিয়েছেন বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা। প্রথমে কথা-কাটাকাটি, পরে ওই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর হামলা চালানো হয়। এ সময় আরও দুজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে উদ্ধার করে মসজিদ কমিটির সভাপতি জয়নাল আবেদীন মাস্টারের বাড়িতে নেওয়া হয়। পরে সেখানেও হামলা করে উত্তেজিত জনতা।

খবর পেয়ে স্থানীয় ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে প্রথম নগরীর সদর জেনারেল হাসপাতালে পাঠান। সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। বর্তমানে তাকে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

jagonews24

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্র জানায়, ভারতে মহানবী (সা.)-কে কটূক্তির প্রতিবাদে জুমার নামাজ শেষে বিক্ষোভ করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন মুসল্লিরা। এ নিয়ে মসজিদে ইমাম বক্তব্য রাখছিলেন। বক্তব্যের এক পর্যায়ে ভারতের প্রসঙ্গ এলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সৈয়দ আজিজুল হক বলেন, ‘ভারতের বিষয় ভারতে থাকুক, এ নিয়ে বিশৃঙ্খলা আমরা না করি’।

তার এ কথায় ক্ষুব্ধ হন মুসল্লিরা। এ নিয়ে প্রথমে কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর হামলা করেন মুসল্লিরা। এ সময় মসজিদ কমিটির সভাপতি জয়নাল আবেদীন ও সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন রবিনও আহত হন। তারা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আদমজী জামে মসজিদের সভাপতি জয়নাল আবেদীন জানান, জুমার নামাজের পর সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই সৈয়দ আজিজুল হক মাইকে বলেন, ভারতের ইস্যু ভারতেই থাকুক; আমাদের এখানে না আনি। এর জের ধরে আমরা নিজের দেশে কোনো বিশৃঙ্খলা না করি। একথা শুনে মুসল্লিরা তার ওপর হামলা করেন। তাকে রক্ষা করতে গিয়ে মসজিদের সেক্রেটারি বিল্লাল হোসেন রবিন আহত হন। পরে তারা দুজন এসআই আজিজকে উদ্ধার করেন।

jagonews24

কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি বলেন, আমাকে এলাকার লোকজন বিষয়টি জানালে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। ওসির সহযোগিতায় আহত পুলিশ কর্মকর্তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বলেন, এটি খুবই দুঃখজনক ঘটনা। আমরা মর্মাহত। এ ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। আহত এসআইকে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিতে চাকরির সুযোগ

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিতে ‘ড্রাইভার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি
বিভাগের নাম: অ্যাম্বুলেন্স

পদের নাম: ড্রাইভার
পদসংখ্যা: ০২ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি
অভিজ্ঞতা: ০৫ বছর
বেতন: ৩৫,০০০ টাকা

চাকরির ধরন: চুক্তিভিত্তিক
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: ৩৫ বছর
কর্মস্থল: উখিয়া, কক্সবাজার

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ৩০ জুন ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



কুড়িগ্রামে ধরলার পানি বিপৎসীমার ওপরে, বাড়ছে ব্রহ্মপুত্র-তিস্তারও

প্রকাশিত:Friday ১৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

ভারি বর্ষণ ও উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে ধরলা নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানিও বাড়ছে। এতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে কয়েকশ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

ku-(3).jpg

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (১৭ জুন) সকালে ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে বিপৎসীমার ৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা নদীর পানি কাউনিয়া পয়েন্টে ৩৩ সেন্টিমিটার, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৫ সেন্টিমিটার এবং নুনখাওয়া পয়েন্টে ৩০ সেন্টিমিটার বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে নদ-নদীতে পানি বাড়ায় জেলা সদর, নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারীসহ চিলমারী উপজেলার কয়েশ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। ধান, পাট ও শাকসবজি ক্ষেত পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন চাষিরা।

ku-(3).jpg

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্ল্যাহ আল মামুন জাগো নিউজকে বলেন, ভারি বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে তিস্তা এবং ব্রহ্মপুত্রের পানি বাড়ছে। তবে বিপৎসীমার ৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে ধরলার পানি। এতে করে জেলার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।


আরও খবর



আইএমইআই পাল্টে চোরাই মোবাইল বিক্রি হচ্ছে ভাসমান দোকানে

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর বনানী ও নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে চুরি ও ছিনতাইকৃত মোবাইল ফোন কারবারি চক্রের মূলহোতাসহ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৩। এসময় তাদের কাছ থেকে ৬৫টি ট্যাব, ১০১৫টি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন, ৩১৭টি বাটন মোবাইল ফোন, ৬টি সিমকার্ড ও নগদ ২০ হাজার ২১০ টাকা জব্দ করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন- আবুল হোসেন (২৮), নজরুল ইসলাম (৪৬), তাজউদ্দিন আহম্মেদ (৪৮), মো. মাঈনউদ্দিন (৩০), সুজন মিয়া (২৩), মো. মানিক (৩০) ও লিটন মিয়া (৪০)।

র‌্যাব বলছে, মূলত ছিনতাই ও চোরাইকৃত মোবাইল ফোন অল্প দামে কিনে সেগুলোর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে সুযোগ বুঝে বেশি দামে বিক্রি করছে কয়েকটি চক্র। গ্রেফতাররা সবাই মোবাইল ফোন ছিনতাই ও চোর চক্রের সঙ্গে যোগসাজশে চোরাই ও ছিনতাইকৃত মোবাইলের অবৈধ ব্যবসা করে আসছিলেন। মোবাইলগুলোর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে বিভিন্ন চক্রের যোগসাজশে বিভিন্ন মার্কেটের সামনে ভাসমান দোকানে গোপনে বিক্রি হচ্ছে। আর এসব চোরাই মোবাইলের মূল ক্রেতা মূলত স্বল্প আয়ের শ্রমজীবী মানুষ।

imei-2.jpg

উদ্ধার করা মোবাইল ফোন

শুক্রবার (২৪ জুন) দুপুরে কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, মোবাইল চোর ও ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা রাজধানীসহ নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় অবৈধ মোবাইল কেনা-বেচা নিয়ে তৎপর রয়েছেন। এসব মোবাইল ফোন বিভিন্ন মার্কেটের সামনে ভাসমান দোকানে গোপনে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা সুকৌশলে নানা সিন্ডিকেটের সঙ্গে যোগসাজশে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে চুরি এবং ছিনতাইকৃত মোবাইল ফোন কেনা-বেচায় জড়িত রয়েছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় ২৩ জুন রাতে র‌্যাব-৩ এর আভিযানিক দল রাজধানীর বনানী এবং নারায়নগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে চুরি ও ছিনতাইকৃত মোবাইল কারবারি চক্রের মূলহোতাসহ সাতজনকে গ্রেফতার করে।

চক্রের মূলহোতা আবুল হোসেনের নেতৃত্বেই ছিনতাইকারী ও চোর চক্রের সদস্যরা সুকৌশলে নানা সিন্ডিকেট হোতার সঙ্গে যোগসাজশে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মোবাইল সংগ্রহ করতেন। চুরি এবং ছিনতাই করা মোবাইল ফোন কমদামে কিনে সিদ্ধিরগঞ্জ এবং রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার ভাসমান দোকানে বিক্রি করতেন তারা।

imei-2.jpg

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ

লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন বলেন, মূলত ছিনতাই ও চোরাই মোবাইল ফোনগুলো অল্প দামে কিনে আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে সুযোগ বুঝে বেশি দামে বিক্রি করতেন তারা।

র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক আরও বলেন, ছিনতাইকারীদের প্রধান টার্গেট পথচারীদের মোবাইল। এসব মোবাইল স্বল্পদামে চোরাই মোবাইল কারবারিদের কাছে বিক্রি করতেন। এরপর মোবাইলগুলোর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে বিভিন্ন চক্রের যোগসাজশে বিভিন্ন মার্কেটের সামনে ভাসমান দোকানে গোপনে বিক্রি করতেন। আইএমইআই পরিবর্তন করার কারণে এসব মোবাইল পরে উদ্ধার করা সম্ভব হয় না।

বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ডাকাতি, ছিনতাই ও চোরাইমাল বিক্রি ও কাছে রাখা আমলযোগ্য অপরাধ। তা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ধরে তারা নির্বিঘ্নে-নির্ভয়ে চোরাই মোবাইল বিক্রি ও আইএমইআই পরিবর্তনের অবৈধ ব্যবসা করে যাচ্ছেন বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



বিপৎসীমার ওপরে পানি, তিস্তাপাড়ের বাসিন্দাদের নির্ঘুম রাত

প্রকাশিত:Friday ১৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

ভারি বৃষ্টিপাত আর উজানের ঢলে তিস্তার পানি হু হু করে বাড়ছে। বর্তমানে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। ধরলা নদীর পানিও বিপৎসীমার ছুঁইছুঁই। ফলে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন দুই নদীপাড়ের বাসিন্দারা।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) রাত ৯টার দিকে জেলার হাতীবান্ধার দোয়ানীতে অবস্থিত তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি ৫২.৭০ সেন্টিমিটারে প্রবাহিত হচ্ছে (স্বাভাবিক ৫২.৬০) যা বিপৎসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান।

স্থানীয়রা জানান, এরই মধ্যে নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

উজানের ঢল ও টানা বৃষ্টিপাতে তিস্তা ও ধরলা নদীর পাশাপাশি জেলার অন্য নদ-নদীর পানিও বেড়েছে। এতে ক্রমেই বাড়ছে দুর্ভোগ।

flood1

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিস্তা ও ধরলার পানি বৃদ্ধি ও জেলার পাটগ্রামের দহগ্রাম, তাঁতিপাড়া, হাতীবান্ধার গড্ডিমারী, দোয়ানী, ছয়আনী, সানিয়াজানের নিজ শেখ সুন্দর, বাঘের চর, ফকিরপাড়া ইউনিয়নের রানীগঞ্জের ৭ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ড, সিংঙ্গামারি ইউনিয়নের ধুবনী, সিন্দুর্না ইউনিয়নের পাটিকাপাড়া, হলদিবাড়ী, ডাউয়াবাড়ী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, শৈইলমারী, নোহালী, চর বৈরাতি, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা, পলাশী ও সদর উপজেলার ফলিমারীর চর খুনিয়াগাছ, রাজপুর, গোকুণ্ডা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করেছে। পরিবারগুলো পানিবন্দি হয়ে নিঘুম রাত কাটাচ্ছেন।

হাতীবান্ধার চর সিন্দুর্না আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘তিস্তার পানি বিকেল থেকে হুহু করে বাড়ছে। নদীর তীরবর্তী হওয়ায় কয়েকদিন থেকে রাতে ঘুম আসছে না চোখে। কখন কী হয়।’

হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাকির হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, ‘সন্ধ্যা থেকে ক্রমে তিস্তার পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চলে প্রবেশ করে। এতে শতাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে।’

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর জাগো নিউজকে বলেন, ‘বন্যাসহ যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সবরকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ত্রাণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।’


আরও খবর