Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রফিক আলম হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২৬৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ ১৭ থেকে ২০ গ্রেড, সরকারি কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অসুস্থ মোঃ রফিক আলম কে দেখতে হাসপাতালে এসেছেন নেতাকর্মীরা।শনিবার বিকেলে  বাংলাদেশ ১৭থেকে ২০ গ্রেড,সরকারি কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রফিক আলম কে দেখতে কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নূর আলমের নেতৃত্বে রাজধানীর ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল মুগদা মেডিকেলে আসেন নেতাকর্মীরা।পরে নেতাকর্মীরা রফিক আলমের সুস্থতায় দোয়া করেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন কার্যকারী সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দীন,সভাপতি মোঃ আব্দুর রহিম,সহ-সভাপতি, মোঃ জহিরুল ইসলাম খান,অর্থ সম্পাদক, মোঃ আমির হোসেন,মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর,সাবেক নির্বাচন কমিশনার হোসেন খান প্রমুখ।


আরও খবর



যাবজ্জীবন কারাদন্ড আসামী মামুন রৌমারী থেকে গ্রেফতার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১২৭জন দেখেছেন

Image

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:ঢাকার আশুলিয়ায় কান্তা বিউটি পার্লারের মালিক মার্জিয়া কান্তাকে (২৬) তার স্বামী কুয়াকাটার আবাসিক হোটেল কক্ষে গলা টিপে হত্যার ঘটনায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী মামুনকে আটক করেছে রৌমারী থানা পুলিশ। গত ২৬ জুন বুধবার সহকারী পুলিশ সুপার মমিনুল ইসলাম ও রৌমারী থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ হিল জামান ও মুশাহেদ খান পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রৌমারী থানা, কুড়িগ্রামের নেতৃত্বে রৌমারী থানাধীন ৪ নং রৌমারী ইউনিয়নের ভারতীয় সীমান্তবর্তী রতনপুর এলাকা হইতে এসআই জুয়েল আলী সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্সের সহায়তায় অত্যন্ত সাহসিকতা ও দক্ষতার সহিত সু-কৌশলে ঝুকিপুর্ন ভাবে নরসিংদী এর বেলাবো থানার এফআইআর নং-৯, ৩১ জানুয়ারী ২০১৯ জিআর নং-৯ ৩১ জানুয়ারী ২০১৯ ধারা-১১ (ক)/৮/৩০-২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩, জিআর ৯(১) ১৯, প্রসেস-২১৫/২৪ (কুড়িগ্রাম) সংক্রান্ত যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানাসহ সাজাপ্রাপ্ত দন্ডিত আসামী রৌমারী সীমান্ত এলাকা রতনপুর গ্রামের শাহিনুর ইসলাম এর পুত্র মামুন মিয়াকে আটক করে কুড়িগ্রাম বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করেছেন রৌমারী থানা পুলিশ। 

উল্লেখ্য যে, ঢাকার আশুলিয়ায় কান্তার বিউটি পার্লারের মালিক মার্জিয়া কান্তাকে (২৬) তার স্বামী কুয়াকাটার একটি আবাসিক হোটেল কক্ষে গলা টিপে হত্যা করে। আর পুলিশি ঝামেলা এড়াতে কান্তার লাশ বস্তায় ভরে সাগরে ভাসিয়ে দেয় হোটেল কর্তৃপক্ষ।

কান্তা হত্যার প্রায় দুই বছর পর পিবিআইয়ের তদন্তে এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে। স্বামী ও তার এক সহযোগী কান্তাকে নিয়ে ওই হোটেলে পর্যটক হিসেবে ওঠার পর কোন এক সময় তাকে হত্যা করে পলিথিনে লাশ মুড়িয়ে খাটের নিচে রেখে দুই খুনি পালিয়ে যায়। এরপর হোটেল কর্তৃপক্ষের নজরে এলে তারা ঝামেলা এড়াতে রাতের অন্ধকারে কান্তার লাশ বস্তায় ভরে মোটর সাইকেলের পেছনে তুলে নিয়ে সাগরে ভাসিয়ে দেয়। এভাবে ঘটনাটি আবাসিক হোটেল কর্তৃপক্ষের ধামাচাপা দেবার অপচেষ্টা এবং খুনিরা এতদিন ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকলেও পিবিআইয়ের তদন্তে বিস্তারিত বেরিয়ে এসেছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নরসিংদী জেলার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ইন্সপেক্টর মো. মনিরুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, বেলাবো থানার নরসিংদী জেলার সোহরাব হোসেন রতনের মেয়ে মার্জিয়া আক্তার কান্তা ঢাকার আশুলিয়ায় বিউটি পার্লারের ব্যবসা করতেন। সেখানে কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারীর শহিদুল ইসলাম সাগরের সঙ্গে পরিচয়ের সূত্রে দুই লাখ টাকার কাবিননামায় তাদের বিয়ে হয়।

বিয়ের কিছুদিন পর মার্জিয়া কান্তা জানতে পারেন তার স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগরের আরও এক স্ত্রী রয়েছে। বিষয়টি গোপন করে তাকে বিয়ে করায় সহজে মেনে নিতে পারছিলেন না কান্তা। এ নিয়ে তার ব্যক্তিগত ফেসবুক স্ট্যাটাসে স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগরকে প্রতারক লম্পট হিসেবে তুলে ধরাই কাল হয় কান্তার জীবনে।

এ ঘটনায় কৌশলের আশ্রয় নেন স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগর। ভালবাসার অভিনয় করে ভারতে বেড়াতে নিয়ে যাবার কথা বলে দ্বিতীয় স্ত্রী মার্জিয়া কান্তার মন জয়ের চেষ্টা করে সফলও হন স্বামী সাগর।

এরপর ২০১৮ সালের ২১ সেপ্টেম্বর আশুলিয়া থেকে স্বামী-স্ত্রী প্রথমে শরীয়তপুরে আবাসিক হোটেল নূর ইন্টারন্যাশনালে এসে রাত কাটান। সেখানে স্বামী শহিদুলের মামাতো ভাই মামুন এসে তাদের সঙ্গে যুক্ত হন। এর পরদিন তারা শরীয়তপুর থেকে কুয়াকাটার উদ্দেশে এসে আবাসিক হোটেল আল-মদিনার বি-১ নং কক্ষে ওঠেন। কোনো এক সময় কান্তাকে গলা টিপে হত্যা করে পলিথিনে লাশ মুড়িয়ে খাটের নিচে রেখে তারা দুজন পালিয়ে যান।

২৩ সেপ্টেম্বর বিকালে ওই হোটেলকক্ষে তালা ঝুলতে দেখে কোনো সাড়াশব্দ না পাওয়ায় হোটেল কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হলে মহিপুর থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয়। পুলিশ এসে কান্তার ব্যবহৃত জামাকাপড় জব্দ করে নিয়ে গেলেও খাটের নিচে লাশ থাকার বিষয়টি তাদের নজরে আসেনি।

এর দু’দিন পর ওই কক্ষ থেকে দুর্গন্ধ বের হলে হোটেল ম্যানেজার আমির এবং হোটেল বয় সাইফুলের নজরে লাশটি এলে তারা হোটেল মালিক দেলোয়ারকে জানান। এরপর দেলোয়ার, তার ছোট ভাই আনোয়ার, ম্যানেজার আমির ও বয় সাইফুল চারজনে মিলে হত্যার আলামত নষ্ট করে লাশ গুমের সিদ্ধান্তনেয়।

পরিকল্পনা অনুযায়ী রাত এগারোটার দিকে বস্তায় ভরে মোটরসাইকেলের পেছনে তুলে দেলোয়ার ও আনোয়ার কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতের পশ্চিম দিকে লেম্বুচর এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে গলা সমান সাগরের পানিতে নেমে লাশ ভাসিয়ে দিয়ে দুইভাই হোটেলে ফিরে আসেন। এরপর তারা এ বিষয়টি নিয়ে আর কোথাও মুখ খোলেনি।

এ ঘটনার প্রায় একবছর পর নরসিংদী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগরসহ তার পরিবারের পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে মার্জিয়া কান্তার বাবা সোহরাব হোসেন রতন বাদী হয়ে গত ৩১ জানুয়ারি ২০১৯ হত্যা করে লাশ গুমের মামলা দায়ের করে।

মামলাটি আদালত আমলে নিয়ে নরসিংদীর বেলাবো থানায় এজাহার হিসেবে গণ্য করে তদন্তের নির্দেশ দেয়। পরবর্তীতে আদালতের নির্দেশে পিবিআই মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব গ্রহণ করে। অভিযুক্ত স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগরকে গ্রেফতারের পর তদন্তের হালে পানি পায়। এরপর সহযোগী অপর খুনি মামাতো ভাই মামুন পিবিআইর জালে চলতি বছর ১ সেপ্টেম্বর ধরা পড়লে তদন্তে আরও গতি পায়।

মামুনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী তাকে নিয়ে পিবিআই কুয়াকাটার আবাসিক হোটেল আল-মদিনায় বৃহস্পতিবার অভিযানে গেলে খুব সহজেই হোটেল মালিক দোলোয়ার ও তার ছোট ভাই আনোয়ার এবং হোটেল ম্যানেজার এবং বয় মার্জিয়া কান্তার লাশ গুমের সত্যতা স্বীকার করলে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এরপর কুয়াকাটা থেকে তাদের চারজনকে নরসিংদী নিয়ে যায় পিবিআই।

মামলার তদন্তের বিস্তারিত অগ্রগতি তুলে ধরে পিবিআই তাদের নরসিংদী কার্যালয়ে শনিবার বিকালে একটি সংবাদ সম্মেলন করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হত্যাকান্ড ও লাশ গুমের সত্যতা স্বীকার করেছে বলে এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নরসিংদী পিবিআইর পরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামান গ্রেফতারকৃতদের আদালতে সোপর্দ করার কথা জানান।

মহিপুর থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান বলেন, হোটেলে অবস্থানকারীরা ভাড়া পরিশোধ না করেই তাদের ব্যবহৃত কিছু জামাকাপড় রেখে পালিয়েছে মর্মে হোটেল আলমদিনার পক্ষ  থেকে পুলিশকে জানানো হয়। পুলিশ ওইসব ব্যবহৃত জামাকাপড় তখন জব্দ করে থানায় রাখে। পরবর্তীতে খাটের নিচে লাশ পাওয়ার বিষয়টি পুলিশকে না জানিয়ে হোটেল মালিক ও কর্মচারীরা আলামত নষ্ট করে লাশ গুম করে।

এ ঘটনার প্রায় একবছর পর নরসিংদী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে স্বামী শহিদুল ইসলাম সাগরসহ তার পরিবারের পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে মার্জিয়া কান্তার বাবা সোহরাব হোসেন রতন বাদী হয়ে গত ৩১ জানুয়ারি ২০১৯ হত্যা করে লাশ গুমের মামলা দায়ের করে।


আরও খবর



মান্দায় চাঞ্চল্যকর সাদিকুল হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৫৪জন দেখেছেন

Image

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা; নওগাঁ:নওগাঁর মান্দায় চাঞ্চল্যকর সাদিকুল ইসলাম ছোটন (২৪) হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাগর আলাী মন্ডলকে (৩৪) গ্রেফতার করেছে মান্দা থানা পুলিশ।রোববার রাতে অভিযান চালিয়ে নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর এলাকা থেকে সাগর আলাী মন্ডলকে গ্রেফতার করা হয়। 

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত সাদিকুল ইসলামের বাবা আবদুর রাজ্জাক একজন চা বিক্রেতা। উপজেলার মান্দা সদর ইউনিয়নের বাদলঘাটা গ্রামের বাজারে তিনি চা বিক্রি করেই সংসার চালান। তিনি গ্রামের একজন অসহায় মানুষ। এ কারণে প্রতিবেশি আশরাফ আলী নামে এক ব্যক্তি তাঁকে দোকানঘর করার জন্য কিছু জমি বরাদ্দ দেয়। তাঁর দেওয়া জমিতে দোকানঘর তৈরি করে চা ষ্টলের ব্যবসা করে আসছিলেন তিনি । হঠাৎ একই গ্রামের হযরতুল্যাহ মন্ডলের ছেলে সাগর গত ১১ এপ্রিল সন্ধ্যায় আবদুর রাজ্জাকের দোকান উচ্ছেদের জন্য ভাঙচুর শুরু করেন। এ সময় নিহত সাদিকুল ইসলাম প্রতিবাদ করলে তার মাথায় লাঠি দিয়ে সজোরে আঘাত করে অভিযুক্ত যুবক। এতে ঘটনা স্থলেই মাটিতে লুটে পড়েন সাদিকুল। এর আগে ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার মান্দা সদর ইউনিয়নের বাদলঘাটা গ্রামের বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

এরপর স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে ভর্তি করান। ঘটনার চারদিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৫ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৮টায় মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আবদুর রাজ্জাক একইদিন অভিযুক্ত সাগর হোসেনকে প্রধান আসামি করে অজ্ঞাত তিন-চার জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলাটি দায়ের করেন।মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, এ ঘটনায় নিহতের বাবা আবদুর রাজ্জাক বাদি হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত রাতে অভিযান চালিয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাগর আলাী মন্ডলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে চারদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর সাদিকুল ইসলাম ছোটন (২৪) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয় দুইমাস আগে। গত ১৫ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৮টায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। নিহত সাদিকুল ইসলাম ছোটন উপজেলার বাদলঘাটা গ্রামের চা দোকানদার আবদুর রাজ্জাকের ছেলে।


আরও খবর



জুনের ২৩ দিনে এলো ২০৫ কোটি ডলার রেমিট্যান্স

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৪৪জন দেখেছেন

Image

ঈদুল আজহা থাকায় এ মাসে ২৩ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ২০৫ কোটি মার্কিন ডলার। এর মধ্যে শুধু ২৩ জুনই এসেছে ১৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার। এ তথ্য পাওয়া গেছে বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে। প্রতিদিন গড়ে দেশে এসেছে ৮ কোটি ৯১ লাখ ডলার।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, চলতি মাসের প্রথম ১২ দিনে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে ১৪৬ কোটি ডলারের প্রবাসী আয় পাঠিয়েছেন। আর ২৩ জুন পর্যন্ত তারা পাঠান ২০৫ কোটি ২০ লাখ ডলার। গত বছরের ১ থেকে ২১ জুন প্রবাসী আয় এসেছিল ১৬৬ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

গত মাসে বাংলাদেশ ব্যাংক একলাফে ডলারের দাম ৭ টাকা বাড়িয়ে ১১৭ টাকা নির্ধারণ করার পর বৈধ পথে প্রবাসী আয় আসা বেড়ে যায়। এতে মাসের প্রথম ২৩ দিনেই এসেছে ২০৫ কোটি ২০ লাখ ডলার। আর শুধুমাত্র সোমবার (২৩ জুন) এই এক দিনেই এসেছে ১৩ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার। ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, গত মাসে বাংলাদেশ ব্যাংক একলাফে ডলারের দাম ৭ টাকা বাড়িয়ে ১১৭ টাকা নির্ধারণ করার পর বৈধ পথে প্রবাসী আয় আসা বেড়েছে। যার প্রভাব দেখা গেছে গত মাসে। চলতি মাসেও এখন পর্যন্ত প্রবাসী আয়ে ঊর্ধ্বমুখী ধারা চলছে। তবে নথিপত্রে ডলারের দাম ১১৭ টাকা হলেও ব্যাংকগুলো ১১৮-১১৯ টাকা দরেও প্রবাসী আয়ের ডলার কিনছে। যে ব্যাংক ডলারের দাম যত বেশি দিচ্ছে, সেটি প্রবাসীদের কাছ থেকে তত বেশি ডলার পাচ্ছে। এসব ব্যাংক অবশ্য বেশি দামে অন্য ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করছে। এতে আমদানিকারকদের বেশি দামে ডলার কিনতে হচ্ছে। মাঝেমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকও এসব ব্যাংক থেকে ডলার কিনে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ায়।

২০২০ সালে করোনা ভাইরাসের কারণে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেলে বৈধ পথে প্রবাসী আয় আসা বেড়ে গিয়েছিল। তখন প্রবাসী আয় প্রতি মাসে গড়ে ২০০ কোটি ডলার ছাড়িয়েছিল। এর প্রভাবে তখন বৈদেশিক মুদ্রার মোট রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যায়। ২০২২ সালে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর ডলার–সংকট শুরু হয়। ফলে মোট রিজার্ভ কমতে কমতে এখন ২৪ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। তবে প্রকৃত রিজার্ভ ১৩ বিলিয়ন ডলার।

দেশে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২ হাজার ১৬১ কোটি ডলারের প্রবাসী আয় আসে। আর চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে (জুলাই-মে) প্রবাসী আয় এসেছে ২ হাজার ১৩৭ কোটি ডলার।


আরও খবর



ভারি বৃষ্টির পূর্বাভাস ৫ বিভাগে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের পাঁচটি বিভাগে ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেই সঙ্গে বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) ভারি বর্ষণের সতর্কবাণীতে এ তথ্য জানিয়েছে সংস্থাটি।

এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ওপর মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও ১১ জুলাই বেলা ১১টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। ভারি বর্ষণজনিত কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধসের শঙ্কা রয়েছে।

এদিকে, আবহাওয়ার আরেক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।

সারাদেশে দিনের এবং রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



তানোরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিপক্ষের হামায় আহত ৫ আশংকাজনক ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৯৬জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ভূমিগ্রাসী শিক্ষক রফিকুল বাহিনীর হামলায় পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় রামেক হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। আহতরা হলেন তমিজ উদ্দিন, কামরুজ্জামান, আলম, রেজাউল ও মুকবুল হোসেন।  তাদের মধ্যে গুরুতর জখম তমিজ উদ্দিন ও কামরুজ্জামান কে আশংকাজনক অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে কর্তব্যরত চিকিৎসক রামেক হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সোমবার সকালের দিকে উপজেলার পাঁচন্দর  ইউনিয়ন ইউপির চকপাড়া গ্রামে ঘটে মারপিটের ঘটনা। এঘটনায় ওই গ্রামে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যে কোন মুহুর্ত্বে রক্তক্ষয়ীর মত সংঘর্ষ হতে পারে বলে আশংকা গ্রামবাসীরা।

জানা গেছে, উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়ন ইউপির বনকেশর মৌজার অন্তর্গত আরএস ১৪২ নম্বর খতিয়ানে ১৬৩৭ নম্বর আরএস দাগে ৩ একর ৭৬ শতাংশ জমি রয়েছে। জমিটির আরএস রেকর্ডীয় মালিক কেয়ামত সরকার। তার মৃত্যুর পরে ছেলে মেয়েরা বন্টননামা দলিল করে নিজনিজ নামে খাজনা খারিজ করেছেন। কিন্তু ওই গ্রামের বাসিন্দা চাদপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জাল দলিল তৈরি করে জমিটিতে গত কয়েকদিন আগে চাষ করেন। সোমবার সকালের জমির প্রকৃত মালিক তমিজ উদ্দিন, কামরুজ্জামান ও আলমসহ ওয়ারিশরা মুল কাগজ পত্র নিয়ে শিক্ষক রফিকুলের কাছে জানতে চাইলে তাদের উপর লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করেন। 

জমির ওয়ারিশ সুত্রে মালিক মুনজুর জানান, জমির রেকর্ডীয় মালিক আমার দাদা। আমার পিতা মারা যাওয়ার পর মালিক হয় আমি। আমিসহ যে সকল ওয়ারিশরা জমির মালিক তাদের নিজ নিজ নামে খাজনা খারিজ চলমান রয়েছে। কিন্তু শিক্ষক রফিকুল ১৯২০/২২ সালে নামি জমিটি কিনেছেন। আমরা তাদেরকে বলেছি তোমাদের কাগজ সঠিক থাকলে আমরা জমি ছেড়ে দিব। সে কোন কাগজ পত্র দেখাবেনা। 

আহত হয়ে মেডিকেলের বেডে শুয়ে আছেন আলম ও রফিক তারা জানান, গত কয়েকদিন আগে জমিগুলো তে চাষ করেছেন রফিক বাহিনীর লোকজন। আমরা সোমবার সকালের দিকে কাগজ নিয়ে জমিতে গিয়ে জিজ্ঞাসা করি কিসের বিনিময়ে চাষ করা হয়েছে বলা মাত্রই আমাদেরকে এলোপাতাড়ি মারপিট শুরু করে। তারা পরিকল্পিত ভাবে আমাদের কে মেরে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। আনারুল তার ছেলে সোহাগ, জাকারিয়া, শিক্ষক রফিকুলের চাচাতো ভাই সহিদুল তার ছেলে সোহেল, সুজনসহ তাদের লোকজন লোহার রড, বাশের লাঠি দিয়ে বেপরোয়া মারপিট করেছে। আমরা তিনজন উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছি। তমিজউদদীন ও কামরুজ্জামানের অবস্থা খুবই খারাপ হওয়ার কারনে দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেছে। সবার মাথা ফেটেছে এবং শরীরেও মারাত্মক আঘাত লেগেছে। 

সরেজমিনে দুপুরের পরে চকপাড়া গ্রামে  গিয়ে দেখা যায়, গ্রামে তেমন জনসাধারণ নেই। গ্রামের পশ্চিম দিকে জমির অবস্থান। বেশকিছু ব্যক্তিরা জানান, জমির প্রকৃত মালিক মৃত কেয়ামত সরকারের ওয়ারিশরা। তাদের নামে খাজনা খারিজ সব কিছুই রয়েছে। বিগত ২০০১ সালের আগে মৃত কেয়ামত সরকারের ওয়ারিশ গণ ভোক দখল করতেন। কিন্তু ২০০১ সালে বোমা ফাটিয়ে জমিটি দখল করে শিক্ষক রফিকুল বাহিনী। কিন্তু তার নামে কোন কাগজপত্র নেয়। শুধু লাঠির জোরে জমি দখলে রেখেছে। যে দুজনকে রেফার্ড করা হয়েছে তাদের নাক কান দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল।  সবার মাথা ফেটেছে, শরীরেও এলোপাতাড়ি ভাবে পিটিয়েছে রফিকের লোকজনরা। সে একজন মাদ্রাসার শিক্ষক হয়ে দখলবাজি করছেন। তাহলে আর কি বলার আছে।দখলবাজ শিক্ষক রফিকুল ইসলামের মোবাইলে কথা বলা হলে তিনি জানান আমি কোর্টে আছি, আমার পক্ষের ৬ জন লোক আহত হয়েছেন বলে দাম্ভিকতা দেখান তিনি।

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম বলেন, মারপিটের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। পরিবেশ শান্ত রয়েছে। এঘটনায় এখনো অভিযোগ পায়নি, অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর