Logo
আজঃ রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
মুক্তিযোদ্ধার নাতি-নাতনিরা পাবে না তো রাজাকারের নাতিরা পাবে? কর্মীদের দক্ষ করে বিদেশে পাঠাতে হবে : প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশকে কত বিলিয়ন অনুদান-ঋণ দেবে চীন, জানালেন প্রধানমন্ত্রী নাসিরনগরে খুনের মামলার বাদীর এখন দিন কাটছে আতংকে মধুপুরে ক্লিনিং স্যাটারডে কার্যক্রম অনুষ্ঠিত এবার কোটা আন্দোলনের পক্ষে কথা বললেন আয়মান সাদিক ভারতে পাচার হওয়া ৫ বাংলাদেশি সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে শিক্ষার্থীরাই হবে আগামী বাংলাদেশের কর্ণধার: ধর্মমন্ত্রী দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন

আওয়ামী লীগের সুর নিচে নেমে এসেছে: মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ২৩৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগের সুর নিচে নেমে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ সোমবার রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপির উদ্যোগে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪২তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন। 

বিএনপি মহাসচিব বলেন,‘আজ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অন্তরীণ অবস্থায় রয়েছেন; মিথ্যায় মামলায় সাজা দিয়ে তাকে অন্তরীণ করে রাখা হয়েছে। আমাদের তরুণ নেতা তারেক রহমান মিথ্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বিদেশে নির্বাসিত হয়ে আছেন। আমাদের ৪০ লাখ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবি, মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। এসব মামলা দিয়েছে এই আওয়ামী লীগাররা।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তারা সেদিনও (১৯৭২-৭৫ সাল) ক্ষমতায় ছিল। গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করতে সেদিনও বাকশাল করেছিল। তারা আবারও ভিন্ন মোড়কে একদলীয় বাকশাল করতে চায়। কিন্তু কথায় বলে না, মানুষ ভাবে এক; হয়ে যায় আরেক। কয়েকদিন আগেও কত লাফালাফি, কী লাফালাফি এখন লাফালাফি কমে এসেছে। সুর নিচে নেমে এসেছে।

তিনি বলেন, ‘এখন বলা হচ্ছে- সংঘাত চাই না (ক্ষমতাসীনদের পক্ষ থেকে)। আলাপ-আলোচনার মধ্যদিয়ে সমাধান করতে হবে। আমরা তো বাধা দিচ্ছি না।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই সেদিনও আমাদের সমস্ত জেলার কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হয়েছে। বেশ কিছু জেলায় কর্মসূচি করতে দেওয়া হয়নি। আমাদের নেতা আবদুল্লাহ আল নোমানের গাড়ি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। কেরাণীগঞ্জে আমাদের নিপুণকে আহত করা হয়েছে। কত চক্রান্ত আমাদের খোকন-শিরীনের নামে নরসিংদীতে মিথ্যা হত্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। নিজেরা হত্যা করে ষড়যন্ত্র করে আমাদের নেতাদের নামে মামলা দেওয়া হচ্ছে। গায়েবি মামলা, কিছুই ঘটবে না- একটা মামলা হয়ে গেল। কিছু নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে বাকি অজ্ঞাত হিসেবে এই মামলা দেওয়া  হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা লড়াই করছি, সংগ্রাম করছি। আমরা আমাদের নেতা তারেক রহমানের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিগত কয়েক বছর ধরে এই লড়াই করছি। এই লড়াই এখন একটি চূড়ান্ত পর্যায় এসেছে।

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা ১০টি দাবি দিয়েছি। তার প্রথম দফা হচ্ছে এই সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। এই দেশের মানুষ তোমাকে ক্ষমতায় রেখে দেশের মানুষ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে তা মনে করে না- এটাই বাস্তবতা। এই সংসদ যে সংসদে তুমি সংবিধান পরিবর্তন করেছ, সংবিধানকে বিভিন্ন কাঁটাছেড়া করে পরিবর্তন করে যে সংসদ রেখেছ, সেই সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।

দলের প্রতিষ্ঠাতাকে স্মরণ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন,‘শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকীতে আমাদের সবচেয়ে বড় শপথ হবে, যে কোনো মূল্যে আমাদের জীবনের মূল্যে হলেও এই ভয়াবহ ভোটচোর, দেশবিরোধী, গণতন্ত্রবিরোধী, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে সরিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে, বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে বাঁচাতে হলে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শকে বাঁচাতে হলে, বাস্তবায়িত করতে হলে গণতন্ত্রের আপোসহীন নেত্রীকে মুক্ত করতে হলে, আমাদের নেতা তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে হলে আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হই।

এ সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘জিয়াউর রহমান রাজনীতিবিদ হিসেবে সফল, রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবেও সফল, সৈনিক হিসেবেও সফল। আজকে যারা ক্ষমতায়, তারা শহীদ জিয়াকে ভয় পায়। তাই তার সম্পর্কে অবান্তর কথা ছড়ানো হচ্ছে। দেশকে চলমান সংকট থেকে মুক্ত করতে শহীদ জিয়ার আদর্শিত সৈনিকদেরকেই অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।

স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘বিএনপির লজ্জিত হবার কোনো ইতিহাস নেই, গৌরব করার মতো ইতিহাস আছে। আমরা সামরিক শাসন জারি করি নাই, গণতন্ত্র হত্যা করিনি। এ আওয়ামী লীগ ১/১১-এর অবৈধ সরকারকে বৈধতা দিয়েছে। বিএনপিকর্মী হিসেবে বলতে পারি বিএনপি শুধু স্বাধীনতা ঘোষকের দল নয়, গণতন্ত্র রক্ষাকারী দল। বিএনপির শাসনামলেই জনগণ গণতন্ত্রের সুফল পেয়েছিল। জিয়াউর রহমানকে আজ শ্রদ্ধা করা উচিত।

স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশ্ব কি চিন্তা করছে তা সবাই জানেন। আমেরিকায় গণতন্ত্র সম্মেলনে পৃথিবীর ১০৭ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রকে আমন্ত্রণ জানালেও বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। আমেরিকার ভিসানীতি তো আগেই ছিল, তবে কেন বাংলাদেশের জন্য আলাদা ভিসানীতি করতে হলো? কারণ, দেশের গণতন্ত্র আজ ভূলণ্ঠিত তা আজ বিশ্ব অবগত।

স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের অত্যাচারের ইতিহাস আজ নতুন নয়। এর আগেও তারা গণতন্ত্র কুক্ষিগত করে রেখেছিল। অবাধ লুটপাটের কারণে দেশে দুর্ভিক্ষ হয়েছিল। রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করে বাকশাল কায়েম করেছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে আজ রক্তক্ষরণ হচ্ছে যে গণতন্ত্র ও বাক্‌স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছে, তা ভূলণ্ঠিত করেছে এই আওয়ামী লীগ।

বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর পরিচালনায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তম, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম, যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ, মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।


আরও খবর



বেনজীরের স্ত্রী-সন্তানরাও দুদকে হা‌জির হন‌নি

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | ১৪৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের বিষ‌য়ে বক্তব্য দি‌তে দ্বিতীয় দফা সময় পাওয়ার পরও দুর্নী‌তি দমন ক‌মিশ‌নে (দুদ‌ক) হা‌জির হন‌নি সা‌বেক আইজি‌পি বেনজীর আহ‌মেদের স্ত্রী জীশান মির্জা ও দুই কন্যা।

সোমবার (২৪ জুন) সকাল ১০টায় সংস্থা‌টির প্রধান কার্যাল‌য়ে হা‌জির হওয়ার কথা ছিল তাদের।

গত মে মাসের শুরুতেই বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যরা দেশ ছেড়েছেন বলে জানা গেছে।

এর আগে, বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যরা গত ৬ ও ৯ জুন দুদকে হাজির হন‌নি। এরপর তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে দুদক ২৩ ও ২৪ জুন হাজিরার দিন নির্ধারণ করে। গতকাল রোববার বেনজীর আহ‌মেদেরও হা‌জিরার দিন ছিল। কিন্তু তি‌নি না এসে ২১ জুন দুদক চেয়ারম্যান বরাবর এক‌টি চি‌ঠি পাঠান। সে চি‌ঠি‌তে নি‌জে‌কে নি‌র্দোষ দা‌বি ক‌রে অভিযোগ থে‌কে অব্যাহতি চান। যদিও বেনজী‌রের সে আবেদন নাকচ ক‌রে দেওয়া হ‌য়ে‌ছে।

বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে বিপুল পরিমাণ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ এনে জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশ হয় গত মার্চে। এরপরই বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী জিশান মির্জা, মেয়ে ফারহিন রিশতা বিনতে বেনজীর ও তাহসিন রাইসা বিনতে বেনজীরের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদের খোঁজে গত ১৮ এপ্রিল অনুসন্ধান শুরু করে দুদক।

দুদকের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ২৩ ও ২৬শে মে বেনজীর, তার স্ত্রী ও দুই কন্যার নামে থাকা অবৈধ বিশাল সম্পদ জব্দের আদেশ দেন আদালত। একইসঙ্গে তাদের ব্যাংক হিসাব ও শেয়ার অবরুদ্ধ করারও আদেশ দেওয়া হয়।

এছাড়া তাদের নামে থাকা ৬২৭ বিঘা জমি ও গুলশানের চারটি ফ্ল্যাট জব্দ এবং ৩৮টি ব্যাংক হিসাব ও বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার অবরুদ্ধ করার আদেশ দেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন।


আরও খবর



জামালগঞ্জে নতুন ভবনে পূবালী ব্যাংকের শাখার দ্বারোদঘাটন

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাটে পূবালী ব্যাংক পিএলসি নতুন ভবনে  জামালগঞ্জ শাখার দ্বারোদঘাটন করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে আক্কেলপুর উপজেলার জামালগঞ্জ বাজারে এ শাখার দ্বারোদঘাটন করেন পূবালী ব্যাংকের বগুড়া অঞ্চল প্রধান এএসএম রায়হান শামিম।

পূবালী ব্যাংক জামালগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মাহফুজুল আলমের সভাপতিত্বে এসময় বক্তব্য রাখেন, বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক আবু জাফর মোঃ রকিবুল্লাহ ও রুকিন্দীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহসান কবির এপ্লব।

বক্তরা জানান, দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের মাঝে স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান করছে পূবালী ব্যাংক।


-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



২০০ বছরের পুরোনো রোপনকৃত গাছ ভেংগে পরার ঝুঁকি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১৯৭জন দেখেছেন

Image

 জহুরুল ইসলাম খোকন (নীলফামারী) প্রতিনিধি:রেলওয়ের শহর নীলফামারীর সৈয়দপুরে। প্রায় ২০০ বছরের পুরোনো গাছগুলো উপড়ে বা ভেংগে পরার ঝুঁকিতে থাকায় আতংকিত শহরবাসী। পর্যাপ্ত বৃষ্টি বা  ঝড় হলে যে কোন সময় বাড়তে পারে প্রানহানীর ঘটনা।গাছগুলো কেটে ফেলার জন্য রেলবিভাগও  বনবিভাগকে স্হানীয়রা অনুরোধ জানালেও কাটা হচ্ছে না। এর ফলে লোকজন আতংক ও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওই গাছগুলোর নিচে বসবাস ও চলাচল করছেন।

সৈয়দপুর রেলবিভাগ জানায়, ১৮৭০ সালে আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের বিশাল কারখানা গড়ে উঠে সৈয়দপুরে। ওই সময় এ শহরে ৮০০ একর রেলওয়ের এ্যাকোয়ারকৃত জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় দুই হাজারেরও বেশি বিশাল বিশাল বৃক্ষ রোপন করা হয়। এছাড়া দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে কারখানা সহ রেলওয়ে পুলিশ লাইন, রেলের প্রশাসনিক দপ্তর, রেলওয়ে হাসপাতাল, খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের দুটি গির্জা, রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বসবাসের জন্য একাধিক বাংলো ও কোয়ার্টার নির্মাণ করা হয় এই জমিতে।

রেলবিভাগ আরো জানায় বৃটিশ আমলে সৈয়দপুর শহরের শোভা বৃদ্ধি ও শীতল ছায়া দিতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ওই সময় প্রায় দুই হাজার গাছ রোপণ করেন এ্যাকোয়ারকৃত জমিতে ।গাছ গুলোর মধ্যে রয়েছে রেইনট্রি, কড়াই, সিরিস, কৃষ্ণচূড়া, ইউক্যালিপটাস, শাল, অর্জুন, দেবদারু ইত্যাদি। ১৮৭০ সালে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা স্থাপনের সময় সৈয়দপুর শহরের রেলওয়ে অফিসার্স কলোনি, সাহেবপাড়া, মিস্ত্রিপাড়া, নতুন ও পুরাতন বাবুপাড়া, মুন্সিপাড়া, খালাসি মহল্লা, গার্ড পাড়া, হাওয়ালদার পাড়া, রোমান ক্যাথলিক ও প্রোটেস্ট্যান্ট গির্জা, পুলিশ লাইন, রেলওয়ে হাসপাতাল এমনকি রেলওয়ে কারখানায় রোপণ করা হয় ওই গাছগুলো।

১৮ জুন বেলা সারে ১১ টায় শহরের হাওয়ালদার পাড়া গিয়ে দেখা যায়, ১৭ জুন রাতে বৃষ্টি ও সামান্য বাতাসে বিশাল মাপের একটি সিরিস গাছের ডাল আলতো ভাবে ভেঙে টিনের চালে পড়ে আছে। শুকিয়ে যাওয়া ওই সিরিস গাছের বাকি ডাল গুলোও সামান্য বাতাসে ভেঙে ভেঙে পরছে। ঘুর্ণিঝড়ের মতো বাতাস বইলে ওই গাছের ডাল ভেঙে পরা সহ উপড়ে পরারও আশংকা রয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী। অতিসত্বর গাছটি কেটে না ফেললে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে অর্ধশতাধিক মানুষের প্রানহানী ঘটতে পারে বলে জানান আতংকিত এলাকাবাসী। 

সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেট বিভাগের ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম জানান, গাছগুলো বাংলাদেশ রেলওয়ের সম্পদ। ইচ্ছে করলেই এসব কেটে ফেলা সম্ভব নয়। আমরা ১৬টি ঝুঁকিপূর্ণ গাছ চিহ্নিত করেছি। সৈয়দপুর রেলওয়ের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। তিনি তদন্ত শেষে ওইসব গাছ কেটে ফেলার অনুমতি দিবেন বলে জানান। 

সৈয়দপুর সামাজিক বনায়ন ও নার্সারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাহিকুন ইসলাম মুশকরি জানান, সৈয়দপুর শহরের অনেক গাছই ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে রেলওয়ের অর্ধশতাধিক গাছ কেটে ফেলা দরকার।কারন এ গাছ গুলো অতি পুরাতন। যেকোনো সময় উপড়ে বা ভেংগে পরে প্রান হানি ঘটতে পারে। 

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) সাদেকুর রহমান জানান, শিগগিরই রেলের ঝুঁকিপূর্ণ গাছগুলো কেটে ফেলার প্রক্রিয়া চলছে। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি মিললে অল্প দিনের মধ্যেই ঝুকিপুর্ন সব ধরনের গাছ কাটা হবে বলে জানান তিনি।


আরও খবর



মধুপুরে আবারও ৫টি কবর থেকে কংকাল চুরি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৭২জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা বিশেষ প্রতিনিধি মধুপুর টাঙ্গাইল:টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলাধীন আলোকদিয়া ইউনিয়নের রানিয়াদ বেঙ্গাইকুড়ি গোরস্থান থেকে ৫টি কবর থেকে কংকাল চুরির ঘটনা ঘটেছে। 

বুধবার (১০ জুলাই) দিবাগত রাতে কবর খুঁড়ে ৫টি কবর থেকে কংকাল চুরি করে নিয়ে যায় একটি চোরচক্র।

প্রত্যক্ষদর্শী আমজাদ হোসেন জানান, ফজরের নামাজ আদায় করে কবর জিয়ারত করতে গিয়ে কতিপয় লোকজন দেখতে পায়, পাশের ২টি কবরের মাটি সরানো। এরপর দেখা যায় একটি নয়, দুটি নয় ৫টি কবর খুঁড়ে কবর থেকে কংকাল চুরি করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

তিনি আরও জানান, কবর স্থানে স্থাপন করা বিদ্যুতের লাইট ভেঙে এ চোরচক্রটি কবর থেকে কংকাল চুরি করে। কবর থেকে কংকাল চুরির ঘটনায় বিভিন্ন এলাকা থেকে শতশত মানুষ তাদের আপনজনের কবর দেখতে ভীড় জমাচ্ছেন।

এ কংকাল চুরির ঘটনায় এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



চিকিৎসা নিতে গিয়ে ইন্ডিয়ায় নিখোঁজ এক বাংলাদেশী পারালাইজড রোগী

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা; নওগাঁ:ইন্ডিয়ায় চিকিৎসা নিতে গিয়ে এবার নিখোঁজ হয়েছেন এক বাংলাদেশী পারালাইজড্ রোগী। বাংলাদেশী আত্মীয় স্বজনদের জানিয়ে বেঙ্গালুরুর উদ্দেশ্য রওয়ানা হবার পর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও তাঁর কোন হদিস পাওয়া যায়নি।  এ ঘটনায় নিখোঁজের পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে চরম হতাশা ও নানান উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। বর্তামানে তাদের মধ্যে হাহাকার বিরাজ করছে। তিনি বেঁচে আছেন, না মারা গেছেন নাকি জেলহাজতে আছেন তা জানা যায়নি। নিখোঁজ ওই হতভাগা রোগীর নাম আবুল কালাম আজাদ মন্ডল (৬১)। তিনি নওগাঁর মান্দা উপজেলার কুসুম্বা ইউপির বড়পই মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত ফজেল উদ্দিন মন্ডলের ছেলে। তাঁর জাতীয় পরিচয়পন্র নম্বর. 19626414754866935, স্মার্ট পরিচয়পত্র নম্বর. 2811581970, পাসপোর্ট নম্বর.AD 6982840 ও ভিসা নম্বর.VL8274894.আজাদের স্ত্রী রোকসানা খাতুন সাংবাদিকদের কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, নিখোঁজ তাঁর স্বামী একজন প্যারালাইজড্ রোগী। তিনি ২০১৪ সালে হঠাৎই একদিন স্ট্রোক করেন। এ স্ট্রোকের কারণে  তাঁর ডান হাত ও ডান পা অবশ হয়ে যায়। তাঁর ডানহাত সব সময় কাঁপতে থাকে। তারপর থেকে তিনি এ রোগে ভুগছিলেন। বাংলাদেশের মধ্যে  অনেক বারবার চিকিৎসা করেও তাঁর স্বামীর তেমন কোন উন্নতি হয়নি। রাজশাহীর পপুলার ও ইসলামী ব্যাংক  হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ না হলে তাঁদের পরামর্শে ইন্ডিয়া নিয়ে চিকিৎসা করার জন্য একটা সময় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেই অনুযায়ী বিভিন্ন কাগজপত্র জোগাড়, আবেদনপত্র দাখিল করে পাসপোর্ট ও ভিসা করতে নানা সময় পেরিয়ে যায়।  অবশেষে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পাসপোর্ট হাতে আসে। তারও ৬ মাস পরে অনেক চেষ্টায় একই বছরের ডিসেম্বরে কাঙ্ক্ষিত ইন্ডিয়ার ভিসা পাওয়া যায়।তিনি আরো জানান, তাঁর স্বামী আজাদ পাসপোর্ট ও ভিসা পাওয়ার পরে গত ২৮-০২-২০২৪ তারিখ বুধবার অনুমান বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে দিনাজপুর জেলার অর্ন্তগত হিলি সীমান্ত পথে বৈধভাবে ইন্ডিয়া চিকিৎসার জন্য যান। তিনি ইন্ডিয়ার বাসিন্দা মৃত সহদেব চন্দ্রের ছেলে খড়গেশ্বরের মাধ্যমে ইন্ডিয়ার বেঙ্গালুরুর মনিপাল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যেতে চান। তাই পূর্বপরিচিতি ইন্ডিয়ার উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ এলাকার খড়গেশ্বরের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন। সেখানে তিনদিন অবস্থান করেন এবং বাংলাদেশে আমাদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেন।তবে দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো, এক সময়ের আমাদের এলাকার বড়পই পূর্বপাড়ার এ বাসিন্দা ধূর্ত খড়গেশ্বর আমার স্বামীর চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া সব টাকা জমা নিয়ে তার পরিচিত এক দালাল মারফত পাঠাতে চাইলে তাঁর স্বামী ও-ই খড়গেশ্বরের কথামতো দালালের মাধ্যমে যেতে অস্বীকার ও অপারগতা প্রকাশ করেন। এবং তাঁর স্বামী  নিজে একাকী ও-ই হাসপাতালে যেতে চান। এ বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে চরম মনোমালিন্য ঘটে। এক পর্যায়ে তাঁর স্বামীর কাছে থাকা সব টাকা পয়সা (প্রায় সোয়া লাখ টাকা) কেড়ে নেওয়া হয় বলে তিনি ধারণা করছেন। পরে কৌশলে একটি পায়খানার ভেন্টিলেটর ভাঙ্গার নাটক সাজিয়ে তাঁর স্বামী নাকি সেখান থেকে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করলে ধরে আটকিয়ে রাখেন খড়গেশ্বর ও তার পরিবারের সদস্যরা। (যদিও তাঁর স্বামী প্যারালাইজড রোগী ও ডানহাত সব সময় কাঁপতে থাকে )। ঘটনাটি ব্যাপকভাবে এলাকায় জানাজানি হলে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে পুলিশে সোপর্দ করতে বলেন তা খড়গেশ্বরের মোবাইলের +919907203093 হোয়াইটস্ আপ  ভিডিও কলে চিৎকার চেঁচামেচি করতে দেখা যায়। তখন ওই এলাকাবাসিরা বলে, হয় থানা পুলিশে দাও না হয় বাংলাদেশে ফেরত পাঠাও। তবে আমার স্বামী চিকিৎসা নিতে বেঙ্গালুরুতে যেতে চান।পরে তিনি মনিপাল হাসপাতালের উদ্দ্যেশে রওয়ানা দেন।  রওয়ানা দেবার তিনদিন পরে অন্ধপ্রদেশ এলাকায় আছেন বলে ধূর্তবাজ খড়গেশ্বরের মেয়ের কাছে নাকি জানানো হয়। এখানেই সন্দেহ হয়,তাঁদের কারো নম্বরে মোবাইলে জানানো হলো না। আবার খড়গেশ্বরের নম্বরে জানানো হলো না। জানানো হলো খড়গেশ্বরের মেয়ের কাছে, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক ঘটনা।এদিকে দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও কোনভাবে তাঁর স্বামীর কোন সন্ধান বা তথা না পাওয়ায় প্রথমে মান্দা থানায় গিয়ে ঘটনাটি জানালে থানা পুলিশ হিলি কাস্টমস থানা এলাকার বলে সেখানে গিয়ে যোগাযোগ করতে বলেন। এরপরে গত ১০-০৬-২০২৪ তারিখে হিলি কাস্টমস অফিসে গিয়ে ভিসা,পাসপোর্টসহ সব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেওয়া হয়। এ সময় যোগাযোগ করতে মোবাইল বা টেলিফোন নস্বর চাইলে (সেখানে কর্তব্যরত কর্তৃপক্ষের কোন সদস্য হবে আমি নাম জানি না) বলে আমাদের নম্বর কাউকে দেওয়া হয় না। এখন আমরা জেনে ফোন দেব।আমি বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট তাঁর স্বামীর নিখোঁজের তথ্য জানতে চাই।এ বিষয়ে কুসুম্বা ইউপি চেয়ারম্যান নওফেল আলী মন্ডল জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি। তবে আমার কাছে  এ বিষয়ে কোন তথ্যা জানানো হয়নি।এ বিষয়ে মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী বলেন,  যেহেতু ঘটনাটি দিনাজপুর জেলার হিলি কাস্টমস থানা এলাকার। তাই  এ ঘটনায় নিখোঁজ পরিবারকে হিলি থানায় গিয়ে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। হিলি কাস্টমস থানা কর্তৃপক্ষ সিসিটিভি ফুটেজ ও ভিডিও দেখে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে পারেন।তবে এ বিষয়ে হিলি কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে না পারায়, তাঁদের কোন মন্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। 


আরও খবর