Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

আ.লীগ সব সময় খেলার জন্য প্রস্তুত আছে: ডা. মুরাদ

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ২২১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, আ.লীগ সব সময় খেলার জন্য প্রস্তুত আছে। জামায়াত-বিএনপিকে প্রতিহত করার জন্য আওয়ামী লীগ প্রস্তুত আছে। সময়মতোই খেলা হবে।

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে  তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি-জামায়াতের দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও অপপ্রচারের প্রতিবাদে এ কর্মসূচির আয়োজন করে অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদার স্মৃতি সংসদ। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন ডা. মুরাদ হাসান।

সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, জামায়াত-বিএনপির দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে। তাদের অসৎ উদ্দেশ্য কখনও পূরণ হবে না।

প্রসঙ্গ, ২০২১ সালে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির সঙ্গে ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর ডা. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রিসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদত্যাগের নির্দেশ দেন। পরে অশালীন ও শিষ্টাচার বহির্ভূত বক্তব্যের ঘটনায় তাকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।


আরও খবর



সরাইলে ভূমিহীন পরিবার ভূমির দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

রুবেল মিয়া সরাইল:ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলায় ৪২টি ভূমিহীন পরিবার  ভূমির দাবীতে মানববন্ধন করেছেন। 

শনিবার ( ৮ জুন) বেলা ১২টার দিকে উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের অরুয়াইল ব্রিজের উওর পাশে সড়কে মোহন লাল মন্দিরের সামনে ৪২টি ভূমিহীন পরিবারের এ মানববন্ধন করেন। উক্ত মানববন্ধনে অংশ নেন  ভূমিহীন পরিবারের বিভিন্ন পেশার নারী- পুরুষ ও শিশুরা। 

শ্রী শ্রী মোহন লাল আখড়া মন্দিরের সভাপতি বেনী মাধব রায়ের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জাতীয় হিন্দু মহাজোট জেলার সভাপতি জয় শংকর চক্রবর্তী, সরাইল উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দেব দাস সিংহ রায়, সাধারণ সম্পাদক ঠাকুর ধন বিশ্বাস, গোপাল চন্দ্র ঘোষ, বীর মুক্তিযোদ্ধা পরশ ঘোষ, ক্ষীরুদ চন্দ্র ঘোষ, জনি আচার্য, শুভা সূত্রধর, সোনতী সূত্রধর প্রমুখ। 

এ সময় বক্তারা বলেন, আমাদের ভূমি নাই, বাড়ী ঘর নাই, ছেলে মেয়েদের নিয়ে অনেক কষ্টে জীবন যাপন করে আসছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাছে আমাদের আবেদন ঘর চাই বাড়ি চাই, মাথা গোজার ঠাই চাই।

       -খবর প্রতিদিন/ সি.ব

আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




মেহেরপুর মুজিবনগর পদ্মবিলের মাছ লুটের প্রতিবাদ ও প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৯৩জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃমেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার তারানগর গ্রামের পদ্ম বিলের মাছ লুটের প্রতিবাদ ও প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই গ্রামের উলফাত শেখ ও তার শরীকগন। আজ বুধবার দুপুরে বিলের পাশে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে জমির দখল দারিত্ব ও মাছ লুটের ফিরিস্তি তুলে ধরা হয়েছে।

মৎস্য চাষি উলফাত শেখের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন খাইরুল ইসলাম ওরফে ইতা। বক্তব্যে জানানো হয়, পদ্ম বিলের সরকারের খাস খতিয়ানের ১৬.৭০ একর জমি উলফাত শেখসহ কয়েকজন সরকারের কাছ থেকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নেন। আর এস রেকর্ডের সময় ওই জমি ভুল করে সরকারের খতিয়ানভুক্ত হয়। বিষয়টি জানতে পেরে ও তা সংশোধনের জন্য বিভিন্ন সময় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের শরণাপন্ন হলে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ বিষয়টি সমাধানের আশ^াস দেন। সরকারের কাছ থেকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নেয়া ওই জমিসহ উলফাত শেখসহ অন্ততঃ ১৫জন তাদের মোট ১০৫ বিঘা জমির জলকরের অংশে মাছ চাষ শুরু করেন।

২০২০ সালে হঠাৎ করেই মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তর থেকে পদ্ম বিল লীজ দেয়ার বিষয়ে স্থানীয় একটি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হলে হতভম্ব হয়ে পড়েন মৎস্যচাষিরা। বাধ্য হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হন। দীর্ঘদিন মামলা চলার একপর্যায়ে মহামান্য হাইকোর্ট লীজ প্রদানের বিষয়টি স্থগিত করেন। তার পর থেকে সকলেই ওই বিলে মাছ চাষ করছেন। এবং যে যতটুকু অংশের মালিক তার ততোটুকু অর্থ দেয়া হয়। কিন্তু বিপত্তি দেখা দেয় গেল সংসদ নির্বাচনের সময় থেকে। 

তারানগর গ্রামের আরিফ গং চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ৩০ লাখ টাকার মাছ লুট করে। বিষয়টি মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করণ ছাড়াও মুজিবনগর থানায় দুটি অভিযোগ দেয়া হলেও কোন সমাধান হয়নি। বাধ্য হয়ে মেহেরপুর জজ আদালতে একটি মামলা করা হয়। যার নং- ৪৭/২০২৪ ইং। এ ছাড়াও গত ৩১ মে ও পহেলা জুন তারিখে ওই আরিফ গং রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে আবারো ৪/৫ লাখ টাকার মাছ লুট করে। ক্ষতাসীন দলের একজন প্রভাবশালী ব্যাক্তির নাম ভাঙ্গিয়ে এ মাছ লুট অব্যাহত রেখেছেন বলেও দাবী করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। তারা মাছ লুটের প্রতিকার চেয়ে ও মাননীয় জনপ্রশাসন মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উলফাত শেখ ও তার শরীকসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রীক মিডিয়ার সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



অনেক হয়রানির মধ্যে আছি: ড. ইউনূস

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ড. মুহাম্মদ ইউনূস বলেছেন, আদালতে শুনানি চলাকালে একজন নিরপরাধ নাগরিকের একটা লোহার খাঁচার ভেতরে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকার বিষয়টি অত্যন্ত অপমানজনক। এখন আমি অনেক হয়রানির মধ্যে আছি।

বুধবার (১২ জুন) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ প্রাঙ্গণে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূস বলেন, আজকে সারাক্ষণ খাঁচার মধ্যে ছিলাম আমরা সবাই মিলে। যদিও আমাকে বলা হয়েছিল যে, আপনি থাকেন। আমি বললাম, সবাই যাচ্ছে, আমিও সঙ্গে থাকি। সারাক্ষণই খাঁচার ভেতরে ছিলাম। আমি আগেও প্রশ্নটা তুলেছি, আবারও সবার জন্য তুলছি। এটা কি ন্যায্য হলো নাকি? আমার বিষয় না, যেকোনো আসামি; যার বিরুদ্ধে একটা করতে যাচ্ছে, তাকে খাঁচায় নিয়ে যাওয়া। আমি যতটুকু জানি, যত দিন আসামি অপরাধী প্রমাণিত না হচ্ছে, ততদিন তিনি নির্দোষ-নিরপরাধ। একজন নিরপরাধ নাগরিককে একটা লোহার খাঁচার ভেতরে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে আদালতে শুনানি চলাকালে, এটা আমার কাছে অত্যন্ত অপমানজনক। অত্যন্ত গর্হিত কাজ বলে মনে হয়েছে। এটা আমার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না, সেটা বিষয় না, কারও ক্ষেত্রেই যেন প্রযোজ্য না হয়।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে সবাই মিলে একটু আওয়াজ তুলুন যে, বিষয়টা পর্যালোচনা করা হোক। একটা সভ্য দেশে কেন এ রকম হতে যাবে! কেন একজন নাগরিককে খাঁচার ভেতরে পশুর মতো দাঁড়িয়ে থাকতে হবে আদালতে শুনানিকালে। যেখানে এখনো বিচার শুরুই হয়নি, যেখানে অপরাধী সাব্যস্ত হওয়ার কোনো সুযোগই হয়নি। নিরপরাধ নাগরিক কেন খাঁচার ভেতরে এই প্রশ্নটা তুললাম।

ড. ইউনূস আরও বলেন, যারা আইনজ্ঞ আছেন, বিচার ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িত আছেন, তারা পর্যালোচনা করে দেখুন, এটা রাখার দরকার আছে নাকি সারা দুনিয়ায় সভ্য দেশে যেভাবে হয়, আমরাও সভ্য দেশের তালিকার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হতে পারি।


আরও খবর



জলাবদ্ধতা নাগরিক ভোগান্তি নিরাসনে কাজ করছেন ৬৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৬৪ নং ওয়ার্ডের  জলাবদ্ধতা ও নাগরিক ভোগান্তি নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন বর্তমান কাউন্সিলর আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল। গত কয়েকদিনে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ভারী বৃষ্টিপাতে এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে ডুবে যাওয়ার পর নিজ ওয়ার্ডে এই কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন তিনি। রাস্তাঘাট ও ড্রেনের জমে থাকা পানি নিষ্কাশনে দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তার দ্রুত হস্তক্ষেপের কারণে ভোগান্তির হাত থেকে রেহাই পেয়েছেন সাধারণ মানুষ। এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যক্তি আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল। বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে তাদের পরিবারের বিশাল ভূমিকা রয়েছে। তার আপন ভাই প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা এবং আরেক ভাই শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুর রহমান অলি।ঢাকা-৫ আসনের বর্তমান সাংসদ আলহাজ্ব মশিউর রহমান মোল্লা সজল তার বড় ভাইয়ের ছেলে। আলহাজ মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল এই এলাকায় রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, জলাবদ্ধতা নিরসন, মশক নিবারণ, সামাজিক ন্যায়বিচার নিশ্চিত সহ নানা ধরনের সংস্কার মূলক কর্মকাণ্ড করে প্রশংসায় ভাসছেন।ডিএসসিসি ৬৪ নম্বর ওয়ার্ড যাত্রাবাড়ী ও ডেমরা থানায় অবস্থিত। সাবেক মাতুয়াইল ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের কোনাপাড়া, পুরাতন পাড়াডগাইর, ৫নং ওয়ার্ডের আইআর টিউবস ফ্যাক্টরি, ধার্মিকপাড়া, সিটি মিলস, মল্লিকপাড়া, ৬নং ওয়ার্ডের পাড়াডগাইর নতুনপাড়া এলাকা নিয়ে গঠিত হয়েছে।ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ২৪ হাজার ৫৪১ জন হলেও প্রায় লক্ষাধিক লোকের বসবাস। এই বিশাল একটি জনগোষ্ঠীর জনপ্রতিনিধি হিসেবে আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল নিবেদিত প্রাণ একজন সমাজ সেবক ও জনপ্রতিনিধি।


আরও খবর



প্রকাশ্যে 'তুফান' ট্রেলার, গ্যাংস্টার শাকিব যেন ওয়ান ম্যান আর্মি

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

বিনোদন ডেস্ক:ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে মেগাস্টার শাকিব খানের নতুন সিনেমা তুফান। ২ মিনিট ৫০ সেকেন্ডের ট্রেলারে দেখানো হয়েছে কিশোরের গ্যাংস্টার হয়ে ওঠার গল্প।

শনিবার (১৫ জুন) রাত ৮টায় চরকি ও এসভিএফের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ্যে আসে ট্রেলারটি। শাকিবের সঙ্গে সিনেমায় রয়েছে মিমি চক্রবর্তী, মাসুমা রহমান নাবিলা, ফজলুর রহমান বাবু, শহিদুজ্জামান সেলিম, গাজী রাকায়েত, মিশা সওদাগর, চঞ্চল চৌধুরীসহ আরও অনেকে।

তুফান মানুষ নয়, আবার পশুও নয়, তুফান যা হতে চেয়েছিল তাই হয়েছে, রাক্ষস। ‘তুফান’-এর সঙ্গে ঠিক এভাবেই পরিচয় হলো দর্শকদের। কিন্তু কে এই ‘তুফান’?

ট্রেলারের শুরুতে একজনকে মেশিনগান চালাতে দেখা গেল। সে এক ভয়ঙ্কর মুহূর্ত। এরপরই দেখা মিলল কাঙ্ক্ষিত তুফানের। ইনি আর কেউ নন, শাকিব খান। তাকে বলতে শোনা গেল, বাশির ভাই জানত না, আমি একদিন ন্যাশনাল লেভেলে খেলব।’ ফের বললেন, ‘তুফান হতে অ্যটিটিউড লাগে, চোখের দৃষ্টি লাগে, অ্যাকশন, স্পিচ সব লাগে। এই বাশির ভাই চরিত্রে সিনেমায় রয়েছেন মিশা সওদাগর।

পুরো ট্রেলারে শাকিব খান ছিলেন ফুল অন অ্যাকশন। তবে শুধু অ্যাকশনই নয়, রয়েছে প্রেমও। আর এরপরই তুফান-এর ‘দুষ্টু কোকিল’ হয়ে ধরা পড়লেন মিমি চক্রবর্তী। তাকে প্রেম নিবেদনও করতে দেখা গেল শাকিবকে।

তবে ট্রেলারে তুফান-এর সঙ্গে খেলার যিনি পরামর্শ দিলেন তিনি আর কেউ নন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। তার সাফ কথা তুফান-এর সঙ্গে খেলতে হবে মাথা দিয়ে। এদিকে শাকিব তখন বলছেন, ‘তুফান পোষ মানে না, পোষ মানায়’। ট্রেলারে শেষে শাকিবকে যখন প্রশ্ন করা হল, সে কী চায়? উত্তর এল ‘পুরো দেশ’।

ঈদুল আজহায় মুক্তি পাচ্ছে শাকিব-মিমি’র তুফান। ঈদের পর ২৮ জুন ভারতে এরপর যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ অন্যান্য দেশেও মুক্তি পাবে রায়হার রাফি পরিচালিত এই ছবি।


আরও খবর