Logo
আজঃ Wednesday ০৮ December ২০২১
শিরোনাম
নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু! তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল! মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রংপুরের তারাগঞ্জে ট্রাকচাপায় তিন নারী শ্রমিক নিহত কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !
শীতের আগমনী বার্তা নিয়ে বঙ্গে এসেছে হেমন্ত

আজি বাংলায় নেমেছে হেমন্ত

প্রকাশিত:Sunday ১৭ October ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ২৪৭জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

শীত-শরতের সেতু বাঁধতে বঙ্গের ভূমিতে নেমেছে হেমন্তের দিন। মাঠে মাঠে হালকা বাতাসে দুলছে সোনার ধান। কার্তিকের সবুজ মধ্যাহ্নে ফসলের মাঠে চোখজুড়ে স্বপ্ন বুনছে কৃষান-কৃষানিরা। স্কুল বালিকারা ধানক্ষেতের আল ডিঙিয়ে হেঁটে যাচ্ছে শিশিরভেজা পায়ে, নদীতে হাঁসের বাথান মেতেছে জলকেলিতে, সারি সারি ডিঙি নৌকা দেহ এলিয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে আছে আকাশের তলে। দূরের অরণ্যঘেরা পাহাড়টা ক্রমে ঢেকে দিচ্ছে মৃদু কুয়াশা। জলাঙ্গীর ঢেউয়ে ভেজা এ বাংলায় এমনই বিচিত্র দৃশ্যের আবাহন নিয়ে হাজির হয়েছে চতুর্থ ঋতু হেমন্ত। এরই মধ্য দিয়ে প্রকৃতিও শোনাচ্ছে শীতের পূর্বাভাস

 

আজ পহেলা কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, হেমন্তের প্রথম দিন। জীবন ও প্রকৃতিতে এক আশ্চর্য বিভোরতা-রোমান্টিকতা নিয়ে আসে হেমন্ত। বাংলা সাহিত্যে কবি-শিল্পীদের সৃজনে নানা মাত্রিকতা ও আঙ্গিকে ধরা দিয়েছে নবান্নের এ ঋতু। বাংলা কবিতায় হেমন্ত বন্দনা সবিশেষ স্থানজুড়ে বিরাজ করছে। তিমির হননের কবি জীবনানন্দ দাশ তো পরাবাস্তবতাকেই জীবন ও কবিতার সারবস্তু হিসেবে প্রত্যক্ষ করেছেন। শঙ্খচিল, শালিক কিংবা ভোরের কাক হয়ে বাংলার এ সবুজ করুণ ডাঙায় বারবার ফেরার আকুতি প্রকাশ করেছেন।

 

এ বিভোরতা নিয়ে কবিতায় লিখেছেন- ‘প্রথম ফসল গেছে ঘরে,-/ হেমন্তের মাঠে মাঠে ঝরে/ শুধু শিশিরের জল; অঘ্রানের নদীটির শ্বাসে/ হিম হয়ে আসে/ বাঁশ পাতা মরা ঘাস- আকাশের তারা!/ বরফের মতো চাঁদ ঢালিছে ফোয়ারা !/ ধানক্ষেতে মাঠে/ জমিছে ধোঁয়াটে/ ধারালো কুয়াশা!/ ঘরে গেছে চাষা ;/ ঝিমায়াছে এ- পৃথিবী ,- তবু পাই টের/ কার যেন দুটো চোখে নাই এ ঘুমের কোনো সাধ!’ [কবিতা- পেঁচা (মাঠের গল্প)]

ধান মাঠের দৃশ্য শিকারি কবি নবান্নের অবিচ্ছিন্ন অনুভবে লিখেছেন- ধান কাটা হয়ে গেছে কবে যেন ক্ষেত মাঠে পড়ে আছে খড়/ পাতা কুটো ভাঙা ডিম সাপের খোলস নীড় শীত। এই সব উৎরায়ে ওইখানে মাঠের ভিতর/ ঘুমাতেছে কয়েকটি পরিচিত লোক আজ কেমন নিবিড়। [কবিতা- ধান কাটা হয়ে গেছে]

 

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতায়ও হেমন্তগীত দুর্দান্তভাবে উদ্ভাসিত হয়েছে। তার লেখায়- ‘অন্ন জোটে না, কথা জোটে মেলা,/ নিশিদিন ধরে এ কি ছেলেখেলা!/ ভারতীরে ছাড়ি ধরো এইবেলা/ লক্ষ্মীর উপাসনা।’ [কবিতা- পুরস্কার]

ষড়ঋতুর এ দেশে কার্তিক-অগ্রহায়ণ দুই মাস হেমন্তকাল। এখন ধীরে কমছে সূর্যের প্রখরতা, ছোট হয়ে আসছে দিনের আয়ু। কদিন বাদেই এ ভূ-ভাগে জেঁকে বসবে শীত। শীতের পূর্বভাগে মূলত এ ঋতু ঘিরে বাঙালির চিরায়ত যে নবান্নের ছোঁয়া তা দিন দিনই মলিন হয়ে যাচ্ছে। নবান্ন উৎসবের ঐতিহ্যগত যে কদর, সেটিও যেন বিবর্ণ অনেকটাই। তবুও সব মলিনতা তুচ্ছ করে অপরূপ রূপে সেজেছে হেমন্ত।

 

বিদ্রোহী কবি নজরুল ইসলাম কবিতায় হেমন্তের বন্দনায় লিখেছেন- ‘ঋতুর খাঞ্চা ভরিয়া এল কি ধরণির সওগাত?/ নবীন ধানের আঘ্রাণে আজি অঘ্রাণ হল মাত।/ ‘গিন্নি-পাগল’ চালের ফিরনি/ তশতরি ভরে নবীনা গিন্নি/ হাসিতে হাসিতে দিতেছে স্বামীরে, খুশিতে কাঁপিছে হাত।/ শিরনি বাঁধেন বড়ো বিবি, বাড়ি গন্ধে তেলেসমাত!’ [কবিতা- অঘ্রাণের সওগাত]

 

হেমন্তের প্রথম মাস কার্তিক ও দ্বিতীয় মাস অগ্রহায়ণেরও রয়েছে ভিন্ন রূপ। হেমন্ত একদিকে যেমন শরতের বিদায় টঙ্কা বাজায়, অন্যদিকে শীতের আগমনী বার্তা শোনায়। এখন কৃষকের গোলার ধান প্রায় শেষ দিকে। এ কারণে অনেকে এ মাসকে ‘মরা কার্তিক’ বলেও অভিহিত করে। তবে অগ্রহায়ণে ধান কাটা শেষে কার্তিকের শূন্য গোলা ভরে উঠে সোনার ধানে। গ্রামীণ জীবনে তখন কেবলই ছড়ায় পাকা ধানের মিষ্টি ঘ্রাণ। রাতে প্রতিবেশী বধূদের ঢেঁকিতে ধান ভানার শব্দ ভেসে আসে দূর থেকে।

 

দেশের কিছু অঞ্চলে এরই মধ্যে ধান কাটা শুরু হয়েছে। এটা আগাম আমন ধান কাটার মৌসুম। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে মহাধুমধামে চলছে ফসল কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ। কার্তিকের মাঝামাঝি সারাদেশেই ফসলের মাঠে ব্যস্ততা বাড়বে। ধুম পড়বে সোনার ধান ঘরে তোলার। এরপরই নতুন চালে শুরু হবে নবান্ন। পিঠা-পুলির উৎসব।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩২৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

 

 

 গাজীপুরে মা-মেয়েকে গলা কেটে হত্যার রহস্য ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে উদঘাটন করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে দুই খুনিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ডেই মা-মেয়েকে হত্যা করা হয় বলে জানিয়েছেন তারা।

 

জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার সালদিয়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা হলেন- একই গ্রামের সাত্তার খানের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও মনির হোসেনের ছেলে মহিউদ্দিন ওরফে বাবু।

শনিবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর দফতরে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মো. জাকির হাসান।

তিনি জানান, ১২ বছর আগে রাজশাহী জেলার বাসিন্দা জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে ফেরদৌসীর বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ১১ বছরের মেয়ে হাফসা ও চার বছরের তাসমিয়া রয়েছে। কিন্তু বনিবনা না হওয়ায় স্বামীকে তালাক দিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন ফেরদৌসী। এরপর মোবাইল ফোনে পরিচয়ের মাধ্যমে তিন বছর আগে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রবিউল ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। রবিউলেরও আরেক সংসার ছিল। কিন্তু দুই বছর আগে তার সঙ্গেও ফেরদৌসীর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

 

এরপর দুই মেয়েকে নিয়ে হাড়িনাল এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডে চাকরি করেন। এছাড়া তিন মাস আগে স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয় বাবুর। পরে ফেরদৌসীর সহায়তায় একই কোম্পানিতে চাকরি নেন বাবু। কিন্তু বিচ্ছেদের ঘটনায় ফেরদৌসীকেই দায়ী মনে করেন তিনি। আর এ প্রতিশোধ নিতেই হত্যার পরিকল্পনা।

 

পরিকল্পনা অনুযায়ী বুধবার সন্ধ্যায় ইনস্যুরেন্সের টাকা দেওয়ার কথা বলে মোবাইল ফোনে ফেরদৌসীকে ডাকেন বাবুর বন্ধু জাহিদুল। ফোন পেয়ে মেয়ে তাসমিয়াকে নিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দেশীপাড়া এলাকায় যান ফেরদৌসী। সেখানে যেতেই তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে গলা কাটেন জাহিদুল ও বাবু। মাকে রক্তাক্ত দেখে চিৎকার করলে মেয়েকেও গলা কেটে হত্যা করেন তারা। দুটি খুন করতে তারা সময় নেন মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ড। এরপর তারা মোটরসাইকেলে পালিয়ে যান।

বুধবার রাতে দেশীপাড়া এলাকায় সড়কের পাশে মা-মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন এক কেয়ারটেকার। পরে লাশ দুটি উদ্ধার করে পুলিশ।

 

নিহতরা হলেন- গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের বড়াইয়া গ্রামের বাছির উদ্দিন বছুর মেয়ে ফেরদৌসী আক্তার ও তার চার বছর বয়সী মেয়ে তাসমিয়া আক্তার। ফেরদৌসী স্থানীয় চান্দনা চৌরাস্তার এলাকার গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডের মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা


আরও খবর



রাজধানীর কদমতলী রায়েরবাগে কাঠের ভুসি কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৪ কারখানা বশীভূত।

প্রকাশিত:Sunday ০৫ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

 


নিজস্ব প্রতিনিধি।

ঢাকা মহাসড়কে রায়েরবাগ এলাকায় ৪ টি কয়েল তৈরীর কাঁচামাল কাঠের ভূসির কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রায় দুই ঘন্টা প্রচেষ্টার ফলে ফায়ার সার্ভিসের ৮ টি ইউনিট আগুন নেভাতে সক্ষম হয়েছে। 

রবিবার (৫ ডিসেম্বর) রাত ১ঃ৩০ মিনিটে এ আগুনের লাগার ঘটনা ঘটে। 

এ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে তাহের এন্টারপ্রাইজ আলমগীর এন্টারপ্রাইজ,মোফাজ্জেল হোসেন এন্টারপ্রাইজ ও  মোঃ শহিদ এন্টারপ্রাইজ নামে ৪ টি কারখানা পুড়ে ছাই হয়ে যায়।


তাহের এন্টারপ্রাইজের একজন মহিলা শ্রমিক বলেন রাত আনুমানিক ১ঃ৩০ আমরা ১২ জন শ্রমিক কাজ করছি এসময় হঠাৎ করে আগুন আগুন বলে চিৎকার করলে আমরা বেরিয়ে পড়ি। এসময় মুহুতর্র ভিতর দেখি চারিদেকে আগুন।

তিনি আরো বলেন এসব কারখানায় সারা রাত কাজ চলে।

এখানে কাঠার ভূসি তেতুলের বিচি ও ক্যামিকেল দিয়ে কয়েল তৈরীর কাঁচামাল বানান হয়।


স্থানীয়রা জানান, এই কারখানা গুলোতে এ নিয়ে তিনবার আগুন লেগেছে।

তারা আরো অভিযোগ করেন আবাসিক এলাকায় কি করে এসব কারখানা চলে।

যাদের কোন ধরনের অনুমতি নাই অথচ বছরের পর বছর এ ভাবে কারখানা গুলে চলছে। এ কারখানা গুলোর  বিরুদ্ধে একাধিকবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করলেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। 



কদমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রলয় কুমার সাহা জানান, রাত আনুমানিক ১ঃ৩০ মিনিটে রায়ের বাগে তাহের এন্টারপ্রাইজ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

এটি মুলত কয়েল তৈরীর কাঁচামাল কাঠের ভুসির ৪ টি কারখানা। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। 


ঢাকা ফায়ার সার্ভিসের এ ডি আব্দুল হালিম, জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা যাচ্ছে বৈদ্যুৎ সর্ট সার্কিটের ফলে আগুনের সূত্রপাত ঘটতে পারে।

আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের ৮ টি ইউনিটি কাজ করছে। ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় ৪ টি কারখানা ভসিভুত হয়ে যায়।

তবে কারখানা গুলো টিনের তৈরী সেই সাথে কারখানাগুলোতে আগুন প্রতিরোধের কোন ব্যবস্থা না থাকায় আগুনের ভয়বহতা ব্যাপক হয়েছে।

তিনি আরো বলেন প্রায় ২ ঘন্টা চেষ্টার ফলে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 



আরও খবর



আজকের ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে কেউ মারা যায়নি: ইসি সচিব

প্রকাশিত:Thursday ১১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ২১৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সহিংসতায় নিহতদের মধ্যে ভোটকেন্দ্রে কেউ মারা যায়নি বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নির্বাচন ভবনে দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

 

ইসি সচিব বলেন, আপনারা বলেছেন ছয়জন মারা গেছেন, এটি ঠিক। এটির জন্য কমিশন ব্যথিত। এটি আমরা কখনো চাইবো না রাষ্ট্রের একজন নাগরিকও যেকোনো কারণেই নিহত হোক। আজ যে ছয়জন মারা গেছে তারা কেউ আমাদের ভোটকেন্দ্রে মারা যায়নি। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী যারা তাদের মধ্যেই ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, তাদের মধ্যেই সহিংসতা হয়েছে এবং তারা মারা গেছে।

 

তিনি বলেন, মোট যে ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হয়েছে আমরা সব জেলা-উপজেলায় খোঁজ নিয়েছি, প্রার্থীরাও কেউ কেউ আমাদের কাছে অভিমত ব্যক্ত করেছেন, আমরা জানতে পেরেছি ভোটটি খুব সুন্দর হয়েছে, উৎসবমুখর হয়েছে।

 

হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, এই ধাপের ৮৩৪টি ইউপি নির্বাচনে ৮ হাজার ৪০০ ভোটকেন্দ্র। আমরা গণমাধ্যম ও ল’ মনিটরিং সেন্টারের মাধ্যমে রিপোর্ট পেয়েছি ১০টি কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছে। আমাদের প্রিসাইডিং অফিসাররা ওই ১০ কেন্দ্রের ভোট বন্ধ করে দিয়েছেন। এগুলোতে পরে ভোটগ্রহণ করা হবে। অন্য কেন্দ্রগুলোর রেজাল্ট নিয়েও যদি ডিসিশন না হয় তখন পরবর্তীতে ভোট নেওয়া হবে। আমরা মনে করি পুরো দেশে ভালো ভোট হয়েছে।

 

গতকাল চতুর্থ ধাপের ভোটের তফসিল হয়েছে, পরবর্তী ধাপের ভোট নিয়ে আবার কমিশনের বৈঠক হবে বলেও জানান ইসি সচিব।

 

এর আগে আজ দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দেশের বিভিন্ন স্থানে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচনী সহিংসতায় অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক।

 

নিহতদের মধ্যে নরসিংদীতে তিনজন, কক্সবাজারে একজন, চট্টগ্রামে একজন ও কুমিল্লায় একজন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে বিকেল ৪টায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: ইউপি নির্বাচন

আরও খবর



নাসিরনগরে খেলনার প্রলোভনে শিশুকে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:Friday ০৩ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নান,

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ভলাকূট ইউনিয়নে ৭ বছরের শিশুর সাথে যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘঠেছে।

ওই ঘটনায় শিশুর  মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে নাসিরনগর থানায় একটি এজাহার দায়ের করলে। অভিযুক্ত হাকিম মিয়া (৩০)কে আটক করে পুলিশ। 

এজাহার ও ভুক্তভোগীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২৯ নভেম্বর  সাড়ে ৪ ঘটিকার সময় ভলাকূট নদীর তীরে মেলায় ঘুরতে যায় ওই শিশু। এসময় একই গ্রামের হাকিম মিয়া শিশুকে খেলনা কিনে দেয়ার কথা বলে নৌকাতে করে নদীর অপর পাড়ে নিয়ে যায়।

সেখানে নিয়ে ওই শিশুকে যৌন নির্যাতনের পর মেলাতে রেখে পালিয়ে যায় হাকিম। 

পরে শিশুটির কান্নাকাটিতে আশেপাশের লোকজন এসে শিশুটিকে বাড়িতে নিয়ে যায়। তখন ওই শিশুর বায়ু পথে রক্তক্ষরণ হলে চিকিৎসার জন্য প্রথমে নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে জেলা সদর হাসপতালে ভর্তি করা হয়।

বর্তমানে ওই শিশু জেলা সদর হাসপতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মামলার বাদী ও ভিকটিমের মা সালেহা বেগম বলেন,, আমার ভিকটিম  বর্তমানে হাসপতালে ভর্তি আছে।

আমাদেন বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

আমরা ওই ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ  হাবিবুল্লা সরকার বলেন,আমরা  ১ জনকে গ্রেফতার করেছি।

তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হবে বলে ও জানান এ কর্মকর্তা।


-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ভর্তুকি কার্যক্রমে কৃষি যন্ত্র বিতরণ

ভর্তুকি কার্যক্রমে কৃষি যন্ত্র বিতরণ

প্রকাশিত:Monday ০৬ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলায় সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের আওতায় উন্নয়ন সহায়তা (ভর্তুকি) কার্যক্রমের কৃষি যন্ত্র বিতরণের উদ্বোধন করা হয়েছে।


৫ ডিসেম্বর ২০২১রোজ রবিবার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্বরে জাপানি কুবোতা ' হেড ফিডিং ' কম্বাইন হারভেষ্টার বিতরণের শুভ উদ্বোধন করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া -১ সংসদীয় ২৪৩ নাসিরনগর আসনের মাননীয় স্যসদ সদস্য বি,এম,ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম এম,পি। 


 উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রাফি উদ্দিন আহম্মদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হালিমা খাতুন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সাঈদ তারেক, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, সাংবাদিক,সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা,কৃষক প্রতিনিধিসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা।


  কৃষি যন্ত্রপাতির মাঝে ছিল, জাপানি কুবোতা ' হেড ফিডিং ' কম্বাইন হারভেষ্টার ২টি ( ধান কর্তন ) পাওয়ার ফ্রেসার ২ টি ধান মারাই যন্ত্র ।

উল্লেখ্য, জাপানি কুবোতা কম্বাইন হারভেষ্টারে প্রতি ঘন্টায় ৩ ( তিন) বিঘা জমির ধান কর্তন করা যায় বলে জানা গেছে।


আরও খবর