Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

আজ থেকে শুরু হচ্ছে ইলিশ ধরা

প্রকাশিত:Friday ২৯ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৩৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

টানা দুই মাস পর শনিবার (৩০ এপিল) রাত ১২টার পর থেকে শুরু হচ্ছে ইলিশ ধরা। বর্তমানে জেলেরা নদীতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।


ঘাটের পাড়ে জাল এবং নৌকা ঠিক করায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।শনিবার রাত থেকে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে কর্মব্যস্ত হয়ে পড়বেন বেকার জেলেরা।এতোদিন যেসব আড়তে ছিল সুনশান নিরবতা সেইসব আড়ত জেলে, মৎস্যজীবী ও আড়তদারদের হাঁকডাকে মুখরিত হয়ে উঠবে। 


মাছ ধরে বিগত দিনের ধার-দেনা শোধ করে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী জেলেরা।ভোলা সদরের ইলিশা, তুলাতলী, ভোলার খাল, নাছির মাঝিসহ বিভিন্ন ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, ইলিশ ধরার জন্য জেলেরা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শনিবার মধ্যরাত থেকে মাছ ধরা শুরু, তাই ঘাটে ঘাটে দেখা যাচ্ছে প্রস্তুতি। 


কেউ জাল বুনছেন কেউ নৌকায় রং দিচ্ছেন কেউবা ট্রলার-নৌকা মেরামত করছেন। নতুন উদ্যামে ফের নদীতে নামার প্রস্তুতি উপকূলের জেলেদের।  দুই মাস বেকার সময় পার করার পর ইলিশ ধরার উৎসবে মেতে উঠবেন এমন স্বপ্ন তাদের চোখ-মুখে। মেঘনা-তেঁতুলিয়া আহরিত সেই মাছ বিক্রি করে সংকট কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী তারা।


জেলে রহিম, বশির ও মহিউদ্দিন জানান, এতোদিন মাছ ধরা বন্ধ ছিল, তাই নদীতে যাইনি। এখন মাছ ধরা শুরু হচ্ছে। আমরা নদীতে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ভোলার খাল ঘাটে নৌকার ইঞ্জিন মেরামত করছিলেন। তারা জানালেন, মাছ ধরা শুরু হবে তাই ইঞ্জিন ঠিক করছি। কেউ আবার জাল প্রস্তুত করছেন।  মাছ ধরা বন্ধ থাকায় এতোদিন আড়তে ছিল সুনশান নিরবতা, সেইসব আড়তে জেলে, মৎস্যজীবী ও আড়তদারদের হাঁকডাকে মুখরিত হয়ে উঠবে।


আরও খবর



রোহিঙ্গাদের ফেরাতে প্রচেষ্টা জোরদারে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান ঢাকার

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

মিয়ানমারের রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে মানবিক বিবেচনায় বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফিরিয়ে নিতে জাতিসংঘের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে প্রচেষ্টা জোরদারে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা।

সোমবার (১৪ জুন) জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে এক ভাষণে এ আহ্বান জানান জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

রাবাব ফাতিমা বলেন, মিয়ানমারে তাদের নিরাপদ, টেকসই এবং মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের মধ্যেই রোহিঙ্গা সংকটের সবচেয়ে টেকসই সমাধান নিহিত। বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের দ্বিপাক্ষিক প্রত্যাবর্তন ব্যবস্থার দ্রুত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করার জন্য বিশেষ দূতের প্রতিও আহ্বান জানান তিনি।

রাষ্ট্রদূত বলেন, রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার পাঁচ বছর অতিবাহিত হয়েছে। এখনো একজন রোহিঙ্গাও স্বদেশে ফিরতে পারছে না, তাদের মধ্যে ১২ লাখ বাংলাদেশে অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। রাষ্ট্রদূত ফাতিমা বলেন, মিয়ানমারে যারা অবশিষ্ট আছে, তারা হয় আইডিপি ক্যাম্পে অথবা জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত ও নিরাপত্তাহীনতার ক্রমাগত হুমকির মধ্যে রয়েছে। রাষ্ট্রদূত জাতিসংঘ, বিশেষ করে নিরাপত্তা পরিষদকে সঙ্কটের মূল কারণগুলোর নিরসনসহ জরুরীভিত্তিতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃিত্তরোধ ও রোহিঙ্গা সংকটে সাড়া দেওয়ার আহ্বান জানান।

এছাড়া মিয়ানমারে সবধরনের লঙ্ঘন ও অপব্যবহারের জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং ওআইসির পক্ষ থেকে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলায় আন্তর্জাতিক আদালতের (আইসিজে) জারি করা অস্থায়ী ব্যবস্থাগুলো মেনে চলার বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করার জন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানান ফাতিমা।

বিশেষ দূত তার ব্রিফিংয়ে মিয়ানমারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন, যা রোহিঙ্গা মুসলিমসহ বেসামরিক নাগরিকদের ওপর প্রভাব নিয়ে অস্থিতিশীল রয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের উদারতার কথা স্বীকার করে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গাদের প্রতি তাদের দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেন। তিনি মিয়ানমারে তার ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা জানিয়ে বলেন, তার কর্মপরিকল্পনা সবস্তরের শান্তি, উন্নয়ন এবং মানবিক কর্মকাণ্ডে সঙ্গে জড়িত বহুমুখী পদ্ধতির প্রতিনিধিত্ব করে।


আরও খবর



ডাকাতিসহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:Tuesday ১৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

বগুড়ার গাবতলীতে ডাকাতিসহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি বেলাল উদ্দিনকে (৫৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার সুখানপুকুর ইউনিয়নের খিরাপাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার বেলাল উদ্দিন খিরাপাড়া গ্রামের শেরউদ্দিন ওরফে ছইরের ছেলে।

গাবতলী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, বেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। এরপর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর আসামিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।


আরও খবর



গো-খাদ্যের চড়া বাজারের মধ্যে সিরাজগঞ্জে কমেছে ভুসির দাম

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

সিরাজগঞ্জে সব ধরনের গো-খাদ্যের দাম বাড়ায় বেশ বিপাকে পড়েছিলেন খামারিরা। তবে আশার খবর হলো অন্য পশুখাদ্যের দাম এখনো বাড়তি থাকলেও জেলায় কমেছে ভুসির দাম। এতে কিছুটা স্বস্তিবোধ করছেন খামারিরা।

তবে খামারিদের দাবি, যদি ভুসির মতো অন্য সব গো-খাদ্যের দাম ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে না আনা যায় তাহলে এই অঞ্চলের গবাদি পশুর খামারে ধস দেখা দেবে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) সরেজমিনে সিরাজগঞ্জের কয়েকটি বাজারের পশুখাদ্যের দোকান ঘুরে দেখা গেছে, ভুসির দাম বস্তাপ্রতি ৪০০ টাকা কমেছে। আগে এক বস্তা ভুসির দাম ছিল ১ হাজার ৯৫০ টাকা। বর্তমানে তা বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৫৫০ টাকায়।

তবে গম মাসখানেক আগে ৩২ টাকা কেজি বিক্রি করলেও এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪২-৪৫ টাকায়। খৈল আগে ৪০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ৪৫ টাকা। প্যাকেটজাত দানাদার খাদ্য ছিল ১৮ টাকা কেজি, এখন তা বেড়ে হয়েছে ৩৫ টাকা।

জেলার শাহজাদপুর উপজেলার উল্টাডাব গ্রামের কৃষক আফাজ উদ্দিন বলেন, আমার খামারে বর্তমানে ১০টি গরু আছে। এখান থেকে যা দুধ পাই তা স্থানীয় ব্যাপারীর কাছে বিক্রি করি। কিন্তু খাদ্যের দাম বাড়াতে গরুকে ঠিকমতো খাবার দিতে পারছি না। তাই দুধ আগের চেয়ে কম হচ্ছে।

পোঁতাজিয়া গ্রামের খামারি আবুল কালাম বলেন, গম, ভুট্টা, খৈল, ময়দাসহ সব খাদ্যের দাম বেড়েছে। তবে দুই-তিনদিন হলো ভুসির দাম কমেছে। এতে আমরা যারা খামারি আছি তাদের একটু হলেও খাদ্য নিয়ে চিন্তা কমেছে। তবে ভুসির সঙ্গে আরও যেসব খাদ্যসামগ্রী রয়েছে সেগুলোর দাম কমলে খামারিদের খরচ কমবে।

বেলকুচি উপজেলার তামাই গ্রামের ফিরোজ হোসেন বলেন, প্রতিবছর কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে কিছু গরু মোটাতাজা করে বিক্রি করে থাকি। এবছরও বেশ কয়েকটা গরু মোটাতাজা করছি। তবে খাবারের যে দাম তাতে খরচ বেড়ে গেছে। যা খরচ হয়েছে গরু বিক্রি করে তা তুলতে পারবো কী না তা নিয়ে চিন্তায় আছি।

jagonews24

সিরাজগঞ্জ সদরের হাজী গো-খাদ্য ভাণ্ডারের ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম বলেন, কয়েকদিন হলো ভুসির দাম কমেছে। আগে প্রতি বস্তা ১ হাজার ৯৫০ টাকা বিক্রি করলেও এখন তা ১ হাজার ৪৫০ টাকায় বিক্রি করছি। তবে অন্য সব খাদ্যের দাম বৃদ্ধি অব্যাহত আছে।

বেলকুচি উপজেলার মুকুন্দগাঁতি বাজারে গো-খাদ্যের পাইকারি বিক্রেতা আব্দুল হালিম বলে, ভুসি বাদে সব খাবারের দাম বেড়েছে। আমি সপ্তাহখানেক আগে প্রতি বস্তা ভুসি বিক্রি করেছি ১ হাজার ৯৫০ টাকায়। এখন তা বিক্রি করছি ১ হাজার ৫৫০ টাকায়।

একই বাজারের ভুসি ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, বর্তমানে গো-খাদ্যের মধ্যে খৈল, গম, দানাদার খাবারের দাম চড়া রয়েছে। তবে দাম কমেছে ভুসির। বর্তমানে প্রতি বস্তা ভুসি আমরা ১ হাজার ৫৫০ টাকায় বিক্রি করছি। সামনে ভুসির দাম আরও কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. গৌরাঙ্গ কুমার তালুকদার বলেন, গো-খাদ্যের দাম বাড়ায় এ অঞ্চলের খামারিদের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। তবে আমরা জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে খামারিদের সবসময় কাঁচা ঘাস খাওয়াতে পরামর্শ দিয়ে আসছি।


আরও খবর



কেন্দ্রের গোপন কক্ষে উঁকি, ধরা পড়েনি ইসির সিসি ক্যামেরায়!

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রের গোপন কক্ষে কাউকে উঁকি দিতে দেখা যায়নি বলে দাবি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কমিশনের দাবি, কেন্দ্রে স্থাপিত সিসিটিভি ক্যামেরায় এমন কিছু দেখা যায়নি।

কুমিল্লা সিটিসহ দেশের অন্যান্য নির্বাচনে মনিটরিং করতে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করেছে ইসি।

বুধবার (১৫ জুন) পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের সমন্বয়ক ইসির আইডিইএ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক (কমিউনিকেশন) স্কোয়াড্রন লিডার মো. শাহরিয়ার আলম এই দাবি করেছেন।

এর আগে সকালে ঝড়-বৃষ্টির মধ্যেই কুসিকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী গোপনকক্ষে শুধুমাত্র ভোটার থাকার কথা থাকলেও, কুমিল্লার রেয়াজ উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের গোপন কক্ষে দুইজনকে দেখা যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া দৈয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের নারীদের বুথে এক পোলিং কর্মকর্তাকে উঁকি মারার ছবি গণমাধ্যমে এসেছে।

তবে সিসি ক্যামেরায় কাউকে গোপন কক্ষে উঁকি দিতে বা ওই দুজনকে দেখা যায়নি বলে দাবি করেছেন মো. শাহরিয়ার আলম।

গোপন কক্ষে উঁকি দেওয়া হচ্ছে, এমন কিছু দেখেছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, কুসিক ভোটের প্রত্যেকটি গোপন কক্ষই আমরা সিসি ক্যামেরায় দেখতে পাচ্ছি। গোপন কক্ষে কেউ উঁকি দিচ্ছে এরকম আমরা দেখিনি। কেউ উঁকি দিলে সেটা আমরা দেখতে পেতাম। দেখলে অ্যাকশন নিতাম। মনিটরিং করে আমরা অস্বাভাবিক কিছু পাইনি।

তিনি বলেন, অভিযোগ ছিল যে, ভোটকেন্দ্রের গোপন কক্ষে দুজন ব্যক্তি গেছেন, তা এখন পর্যন্ত আমরা পাইনি। একটি অভিযোগ এসেছে। আমরা খতিয়ে দেখেছি, সে ধরনের কিছু ছিল না।

cc1

কুসিক ছাড়াও এদিন একটি উপজেলায় সাধারণ নির্বাচন ও তিনটি উপজেলায় বিভিন্ন পদে উপ-নির্বাচন, পাঁচ পৌরসভায় সাধারণ ও একটি ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচন, ১৩২টি ইউনিয়নে সাধারণ ও ৪৭টি ইউপিতে বিভিন্ন পদে উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে কুসিক, ১৩২ ইউপি ও দুটি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ হচ্ছে ইভিএমে।

এসব ভোটে মোট ১ হাজার ৪৪০টি সিসি ক্যামেরা ব্যবহৃত হচ্ছে। তার মধ্যে কুসিক নির্বাচনে ৮৫০টি সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। আর পাঁচ পৌরসভায় ৫৯০টি বসানো হয়েছে।

জানা গেছে, ইসির সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে মুঙ্গলবার (১৪ জুন) ভোর ৬টায় পর্যবেক্ষণ শুরু হয়েছে। মনিটরের মাধ্যমে ভোটকেন্দ্রগুলোয় যা হচ্ছে তা তারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ইসির মোট ৩০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এই দায়িত্ব পালন করছেন। সবসময় পাঁচজনে ৮ ঘণ্টা করে এই দায়িত্ব পালন করছেন।

আগামী ১৬ জুন ভোর ৬টা পর্যন্ত তারা এই পর্যবেক্ষণ করবেন। ভোটকেন্দ্র বা ভোটকক্ষে কোনো প্রকার অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সংগঠিত হলে বা কারিগরি সমস্যা পরিলক্ষিত হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবে এই পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র।


আরও খবর



দেউলিয়া শ্রীলঙ্কায় লিটারপ্রতি পেট্রলের দাম বেড়ে ৫৫০ রুপি

প্রকাশিত:Sunday ২৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া শ্রীলঙ্কায় ফের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। এতে দেশটির নাগরিকদের দুর্ভোগ আরও বাড়বে। এদিকে ঋণ সহায়তার বিষয়ে আলোচনা করতে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেছেন। রোববার (২৬ জুন) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশটির সিলন পেট্রলিয়াম করপোরেশন (সিপিসি) রোববার ডিজেলের দাম বাড়ানোর কথা জানিয়েছে। ডিজেলের দাম লিটারে ১৫ শতাংশ বাড়িয়ে ৪৬০ রুপি করা হয়েছে। অন্যদিকে পেট্রলের দাম ২২ শতাংশ বাড়িয়ে ৫৫০ রুপি করা হচ্ছে।

শ্রীলঙ্কার জ্বালানি মন্ত্রী কাঞ্চনা উইজেসেকেরা জানান, তেলের নতুন চালান কবে আসবে তার নির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই। তার এমন ঘোষণার এক দিন পরেই জ্বালানির দাম বাড়ানো হলো।

এসময় উইজেসেকেরা গাড়িচালকদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন ও তাদের পাম্পিং স্টেশনের বাইরে দীর্ঘ লাইনে না দাঁড়াতে আহ্বান জানিয়েছেন। এদিকে সরবরাহ পুনরুদ্ধারের আশায় অনেকে তাদের যানবাহন সারিবদ্ধভাবে রেখে গেছে।

সরকারি একটি সূত্র জানিয়েছে, দ্বীপ রাষ্ট্রটিতে মাত্র দুই দিনের জন্য তেলের সরবরাহ রয়েছে। তাই কর্তৃপক্ষ এটি প্রয়োজনীয় পরিষেবার জন্য সংরক্ষণ করছে।

১৯৪৮ সালে ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর এই প্রথম তীব্র অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। এরই মধ্যে দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ তলানিতে ঠেকেছে। দ্বীপ রাষ্ট্রটির বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধ আমদানিতে ডলার সরবরাহ করতে পারছে না।


আরও খবর