Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

আইএমএফ নয়, গ্যাসের নতুন দাম ব্যবসায়ীদের চাওয়াতেই: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ জানুয়ারী ২০23 | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ২৪৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: শিল্পখাতে গ্যাসের দাম পুনর্নির্ধারণের ইঙ্গিত দিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেছেন, ‘আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্ত নয়, ব্যবসায়ীদের চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতেই গ্যাসের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ব্যবসায়ীদের বৈঠক হবে। এর পরেই নতুন সিদ্ধান্ত আসতে পারে।’

আজ শুক্রবার রাজধানীর একটি হোটেলে কটন সামিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি দাবি করেন, ব্যবসায়ীরা কেনা দামে নিতে চেয়েছেন বলেই গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে।

অনুষ্ঠানে গ্যাস ও বিদ্যুতের পাশাপাশি তুলা আমদানিতে বাড়তি খরচ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন ব্যবসায়ীরা। এর প্রেক্ষিতে দেশের বাইরে তুলা উৎপাদনের জন্য কম্বোডিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশে বিনিয়োগের পরিকল্পনার কথা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন বলেন, দেশে বছরে ৯০ লাখ বেল তুলার প্রয়োজন হয়। বিপরীতে মাত্র দেড় লাখ বেল তুলা উৎপাদন করে বাংলাদেশ। চাহিদা মেটাতে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশ থেকে তুলা আমদানি করতে হয়।

এক কেজি তুলা উৎপাদন করলে ৩ ডলার সাশ্রয় হয় উল্লেখ করে এক ব্যবসায়ী বলেন, ২০ থেকে ২২ হাজার হেক্টর জমিতে তুলা চাষ হচ্ছে। বিপরীতে লক্ষাধিক হেক্টর জমিতে তামাক চাষ হচ্ছে। এ সময় তামাকের পরিবর্তে তুলা চাষের আহ্বান জানান ব্যবসায়ীরা।

বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, চিনিকলগুলোর জমিতে তুলা চাষ করা গেলে চাহিদার ২৫ ভাগ তুলা দেশেই উৎপাদন করা সম্ভব। ২ শতাংশ তুলা দেশেই উৎপাদন হয়। বাকি ৯৮ শতাংশ সুতা আমদানি করতে হয়। তাই তামাক চাষিদের প্রণোদনা দিয়ে তুলা চাষে উদ্বুদ্ধ করার পরামর্শ দেন বিজিএমইএ সভাপতি।

সম্প্রতি নিজস্ব উৎস ও অতি উচ্চমূল্যে আমদানি করা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) দিয়ে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ করতে শিল্পখাতে প্রতি ইউনিট গ্যাসের দাম ১১ টাকা ৯৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৩০ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার, যা আগামী মাস থেকে কার্যকর হবে। হঠাৎ করে এক লাফে প্রতি ইউনিটে ১৮ টাকা দাম বাড়ানো নিয়ে আপত্তি তোলেন ব্যবসায়ীরা।


আরও খবর



ডোমারে উপজেলা পর্যায়ে জানো প্রকল্পের বিদায়ী সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩১জন দেখেছেন

Image

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর ডোমারে জয়েন্ট এ্যাকশন ফর নিউট্রিশন আউটকাম জানো প্রকল্প আয়োজিত উপজেলা পর্যায়ে জানো প্রকল্পের বিদায়ী সভা অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১টায় ডোমার উপজেলা পরিষদ হলরুমে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল আলম (বিপিএএ)। ইএসডিও জানো প্রকল্পের সহকারী প্রকল্প ব্যাবস্থাপক পোরসিয়া রহমান এর সঞ্চালনায় অতিথি হিসাবে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মাকে সরকার, বেগম রৌশন কানিজ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ রায়হান বারী, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তবিবুর রহমান, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোজাম্মেল হক, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাকেরিনা বেগম, ইউপি চেয়ারম্যান রেয়াজুল ইসলাম কালু, সংবাদিক এমদাদুল হক মাসুম প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য- জয়েন্ট এ্যাকশন ফর নিউট্রশন আউটকাম জানো প্রকল্পটি ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও অষ্ট্রিয়ার ডেভলপমেন্ট কর্পোরেশনের আর্থিক সহায়তায় কেয়ার বাংলাদেশ ও প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর কারিগরি সহায়তা নিয়ে বে-সরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইকো সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন(ইএসডিও) রংপুর ও নীলফামারী জেলায় সরকারের জাতীয় পুষ্টি পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য মাঠ পর্যায়ের সরকারের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করে এলাকায় ব্যপক সাড়া জাগিয়েছে।


আরও খবর



আজ রংপুরের স্থপতি আফিফার সাথে ফারাজের বিয়ে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৫৯জন দেখেছেন

Image

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ আলোচিত হচ্ছে চট্টগ্রামের তরুণ রাজনীতিবিদ ও মানবিক ব্যক্তিত্ব ফারাজ করিম চৌধুরীর বিয়ের বিষয়টি। গত কয়েকদিন ধরে বিয়ের গুঞ্জন উঠলেও এরইমধ্যে সব ধোয়াশা কাটতে শুরু করেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে তাদের একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানের কয়েকটি ছবি।

ফারাজ করিমের পারিবারিক সূত্রে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রংপুরের একটি সাধারণ (শিক্ষিত) পরিবারের তরুণীকেই আজ (শুক্রবার) গুলশানের একটি মসজিদে ইসলামিক নিয়ম অনুযায়ী আকদের মাধ্যমে বিয়ে করতে যাচ্ছেন তিনি।

১৯৯৮ সালের ২৬ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করা সেই তরুণীর নাম আফিফা আলম৷ রংপুরের মিঠাপুকুরে শৈশব থেকে বেড়ে উঠা এই তরুণী ঢাকায় এসে ও-লেভেল এবং এ-লেভেল অধ্যয়ন শেষ করে বর্তমানে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্কিটেকচার বিষয়ে পড়ালেখা করছেন।

১৯৯২ সালে চট্টগ্রামের রাউজানে জন্মগ্রহণ করা ফারাজ করিম চৌধুরীর পিতা হলেন টানা ৫ বারের সংসদ সদস্য ও রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ.বি.এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। তার দাদা ছিলেন সাবেক পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের বিরোধী দলীয় নেতা (লিডার অফ দা অপজিশন) ও পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক আইন পরিষদের চেয়ারম্যান এ.কে.এম. ফজলুল কবির চৌধুরী।

ছোটবেলা থেকে মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়ানো এই তরুণকে ঘিরে দেশবাসীর কৌতুহলের শেষ নেই। ইতোপূর্বে বিয়ে প্রসঙ্গে ফারাজ করিম চৌধুরী বিভিন্ন মিডিয়ায় ঘোষণা দিয়েছিলেন, সাদামাটাভাবে মসজিদে শরীয়াহ অনুযায়ী আকদের মাধ্যমে বিয়ের কার্যক্রম সম্পন্ন করবেন।

সেই সাথে সকল শ্রেণী-পেশার সর্বস্তরের মানুষের জন্য আগামী ১ মার্চ ২০২৪ ইং, শুক্রবার, চট্টগ্রামের রাউজানের গহিরাস্থ বাড়ীতে বিয়ে উপলক্ষে মেজবানের আয়োজন করতে যাচ্ছেন তিনি।


আরও খবর



মেহেরপুরে লেট ব্লাইটের আক্রমণে লোকশানের মুখে আলু চাষিরা

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩০জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃ-মেহেরপুরে গাংনীতে চলতি মৌসুমে ঘন কুয়াশা আর তীব্র শীতে আলু খেতে দেখা দিয়েছে পচন রোগ (লেট ব্লাইট)। প্রতিকার হিসেবে ছত্রাকনাশক ও বিষ প্রয়োগ করেও দমন করা যাচ্ছে না এ রোগ। এতে আলুর ফলন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন চাষিরা। ফলে আলু চাষের লক্ষ‍্যমাত্রা অর্জন নিয়ে দেখা দিয়েছে শঙ্কা। কৃষি বিভাগ বলছে, বৈরী আবহাওয়ার কারনে এমনটি ঘটছে, তবে বৈরী আবহওয়া কেটে গেলে এ রোগের সমস্যা থাকবে না। কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে মেহেরপুরে ৮৬০হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে।

গেল মৌসুমে ভাল দাম পাওয়ায় চাষিরা এবারও আলু চাষে আগ্রহী হন। সে অনুযায়ি চাষিদেরকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হয়েছে। চাষিরা দেশি জাতের আলু আউশা, চল্লিশা, দোহাজারী লাল, পাটনাই, সাদা গুটি শীল বিলাতী ও সূর্যমূখী আবাদ করে থাকেন। উন্নত জাতের আলুরও চাষ হচ্ছে। তার মধ্যে ডায়ামন্ট, কার্ডিনাল, সিন্দুরী, ক্লিওপেট্রা বারি আলু-১ (হীরা), বারি আলু- ৪ (আইলসা), বারি আলু-৭ (ডায়ামন্ট), বারি আলু-১৮ (বারাকা), বারি আলু-১৯ (বিন্টজে) এবং বারি আলু-২০ (জারলা) জাত উল্লেখ্য। তবে দেশি জাতগুলো বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। দেখা গেছে ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে দেশি জাতের আলুর ফলন কমে যায়। বীজের মাধ্যমেই এ রোগটি ছড়িয়ে থাকে।

জেলার বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, ক্ষেতে দেখা দিয়েছে গাছ পুড়া রোগ (লেট ব্লাইট) এতে গাছ মরে শুকিয়ে যাচ্ছে। অনেকেই বিভিন্ন ধরনের বালাইনাশক ব্যবহার করছেন। তবে কোন সুফল মিলছে না বলে জানিয়েছেন চাষিরা। আবার অনেকেই কি কারনে রোগ বালাই দেখা দিয়েছে তার কারন খুঁজে পাচ্ছেন না। তবে আলুর ফলন কমে যাচ্ছে এটা নিশ্চিত। বিশেষ করে বামন্দী মটমুড়া বালিয়াঘাট হাড়াভাঙ্গাসহ সীন্ত অঞ্চলে এ রোগের ভয়াবহতা বেশি।

কৃষকরা বলছেন, কৃষি অফিসের পরামর্শে ছত্রাকনাশক ও ওষুধ স্প্রে করেও কোনো সুফল মিলছে না।আলুর গাছ নির্ধারিত সময়ের আগেই মরে যাচ্ছে। ফলে মাটির নিচে থাকা আলু আকারে ছোট হয়ে থাকছে। আলু গাছ মরে যাওয়ার কারনে আকারে সেই ছোট আলু তুলে ফেলা হচ্ছে। ফলে উৎপাদন কমে গিয়ে চার ভাগের এক ভাগ ফলন পাওয়া যাচ্ছে। বিশেষ করে ক্ষতির মুখে বর্গা চাষিরা।

এক বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আলু আবাদ করতে ৪০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। সেখানে আলু বিক্রি করে ২০ হাজার টাকাও জমছে না।

রামনগর গ্রামের আলু চাষি মুরাদ জানান, তিনি পাঁচ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। এতে প্রায় দুই লক্ষ টাকার মত খরচ হয়েছে। দুই বিঘা জমিতে আলু ভালো আছে। বাকি তিন বিঘা আলু গাছ পুড়ে গেছে। এসব আলু আর বড় হবে না। তাই বাধ্য হয়ে আলু তুলে ফেলতে হচ্ছে।

একই কথা জানালেন আলু চাষি সাইফুল ইসলাম। তার সাড়ে চার বিঘা জমির সব আলু লেট ব্রাইট রোগে আক্রান্ত। এ মৌসুমে মোটা টাকার লোকসান হবে বলেও জানান তিনি।

আমঝুপির আলু চাষি আঃ আওয়াল জানান, মৌসুমের শুরুতে ৭৫ টাকা কেজি দরে আলুর বীজ কিনে আলু চাষ করেছিলেন তিনি। দুই বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আলু চাষে প্রায় ৮০ হাজার টাকা খরচ হয়। রোগাক্রান্ত আলু ছোট অবস্থায় তুলে বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে। ফলে উৎপাদন কমে গেছে অর্ধেকে। এবার আলুর বাজারদর খুব ভালো ছিলো তারপর ও উৎপাদন কম হওয়াই লোকশানে পড়তে হবে।

মেহেরপুর কৃষি প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা শামসুল আলম জানান, চলতি মৌসুমে ৮৬০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। শুরুতে আবহওয়া অনুকূলে থাকাই গাছ খুব ভালো হয়েছিলো। কিন্তু জানুয়ারি মাস থেকে তীব্র ঠা-া ও কুয়াশায় আলু ক্ষেতে লেট ব্লাইটের আক্রমণে গাছ মরে যাচ্ছে। যার ফলে আক্রান্ত আলুর ফলন কমে গিয়েছে। আসলে বৈরী আবহওয়ার কারনে এমনটি হয়েছে।

এ আবহাওয়া কেটে গেলে এ রোগের আক্রমণ কমে যাবে। তাছাড়া চাষিদেরকে বিভিন্ন বালাইনাশক ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।


আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




জয়পুরহাটে আবু হোসন হত্যা মামলার ত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৬জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধি:জয়পুরহাটে আবু হােসেন হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আমিনা বেগমকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। বুধবার ২১ (ফেব্রুয়ারী)  দুপুরে জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্প থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এর আগে ভোররাতে সদর উপজেলার পুরানাপৈল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আমিনা বেগম জেলার পাঁচবিবি উপজেলার দরগাপাড়া গ্রামের আবু রায়হানের স্ত্রী।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১০ সালের ২৫ মার্চ সকালে পাঁচবিবি উপজেলার দরগাপাড়া গ্রামের আবু হোসাইনের বাবা আবু তাহের নিজের খড়ের পালায় কাজ করছিলেন। সেসময় আসামিরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সেখানে এসে আবু তাহেরকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারপিট করেন। তখন তার ছেলে আবু হোসাইন বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তাকেও এলোপাতাড়ি মারপিট করে আসামিরা। এসময় মুমূর্ষ অবস্থায় আবু হোসাইনকে প্রথমে পাঁচবিবি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

সেখানে তার অবস্থার আরও অবনতি হলে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে পাঁচবিবি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মো. শেখ সাদিক জানান, এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি জয়পুরহাটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-২ আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম ৫ জনের ফাঁসির রায় দেন।

একই সঙ্গে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন। এ মামলার আসামি আমিনা বেগম পলাতক ছিলেন। এরপর সদর উপজেলার পুরানাপৈল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাকে পাঁচবিবি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও খবর



কদমতলীতে আওয়ামী লীগ নেতার উপর হামলা:আসামী র‍‍্যাবের হাতে আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৪৭জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃরাজধানীর কদমতলী থানাধীন ডিএসসিসি ৬৫ নং ওয়ার্ড অন্তর্গত তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লার উপড় আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে হামলা চালনো প্রধান অভিযুক্ত নোমান বেপারী (২৭) কে হত্যা ও ডাকাতি মামলায় গ্রেফতার করেছে র‍‍্যাব-১১। রবিবার ২৮ জানুয়ারি গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ফতুল্লা থানার শান্তিধারা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নোমান বেপারী ওই এলাকার আব্দুর রব বেপারীর ছেলে।

তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লা দৈনিক সকালের সময়কে বলেন, সন্ত্রাসী নোমান বেপারী তার সঙ্ঘবদ্ধ একটি গ্রুপ নিয়ে তুষার ধারা এলাকায় মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি ভূমিদস্যুতা সহ নানা অপরাধের স্বর্গ রাজ্য গড়ে তোলেন, তার এসব অপকর্মে বাধা দেওয়ায় গত ২২ জানুয়ারি অভিযুক্ত ৬ জনসহ অন্য ৫/৬ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি মিলে দুপুর  তিনটার দিকে গিরিধারা আবাসিক এলাকার শাপলা টাওয়ারের সামনে নোয়াখালী হোটেলের ভিতরে আমার উপর আগ্নেয়াস্ত্র (পিস্তলের বাট দিয়ে আঘাত করে) মারধর করেন। এই বিষয়ে আমি কদমতলী থানায় সাত জনের নামে ও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে একটি অভিযোগ করেছি। অভিযুক্তরা হল, নোমান বেপারী পিতা -আব্দুর রব বেপারী, আলামিন পিতা -বাবু, মাসুদ ওরফে ন্যারো মাসুদ, আল ইমরান, তামিম, ওমর ফারুকসহ অজ্ঞাত ৫-৬ জন। কদমতলী থানার এসআই জহিরুল ইসলাম অভিযোগ তদন্ত করেন।

তিনি আরো বলেন, গিরিধারা এলাকাটি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা এবং ডিএমপির কদমতলী থানার সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঢিলেঢালা তৎপরতার কারণে সহজে অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শী ফয়সাল আহমেদ রাজু বলেন, ঘটনার দিন এলাকার সন্ত্রাসী নোমান বেপারী সাত আটটি মোটরসাইকেল যোগে এসে ১০-১২ জন ব্যক্তি মিলে নোয়াখালী হোটেলের ভেতরে আওয়ামী লীগ নেতা আল আমিন মোল্লার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

নোয়াখালী হোটেলের কর্মচারী শাহ আলম বলেন, অভিযুক্তরা আলামিন মোল্লাকে এলোপাথাড়ি মারধর করতে থাকেন, তাদের কাছে অস্ত্রশস্ত্র থাকায় আমরা ভয়ে তটস্থ হয়ে পড়ি।

কদমতলি থানার এসআই জহিরুল ইসলাম বলেন অভিযোগের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, আশেপাশের সিসিটিভির ফুটেজ গুলো সংগ্রহ করে পর্যবেক্ষণ করছি, অভিযুক্তদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।সন্ত্রাসীরা আল আমিন মোল্লাকে প্রাণনাশের হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লা।


 


আরও খবর