Logo
আজঃ রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
মুক্তিযোদ্ধার নাতি-নাতনিরা পাবে না তো রাজাকারের নাতিরা পাবে? কর্মীদের দক্ষ করে বিদেশে পাঠাতে হবে : প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশকে কত বিলিয়ন অনুদান-ঋণ দেবে চীন, জানালেন প্রধানমন্ত্রী নাসিরনগরে খুনের মামলার বাদীর এখন দিন কাটছে আতংকে মধুপুরে ক্লিনিং স্যাটারডে কার্যক্রম অনুষ্ঠিত এবার কোটা আন্দোলনের পক্ষে কথা বললেন আয়মান সাদিক ভারতে পাচার হওয়া ৫ বাংলাদেশি সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে শিক্ষার্থীরাই হবে আগামী বাংলাদেশের কর্ণধার: ধর্মমন্ত্রী দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন

আফতাবনগরে গরুর হাট বসানোর ইজারা স্থগিত

প্রকাশিত:সোমবার ২২ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১৮১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এবার ঈদুল আজহা কেন্দ্র করে রাজধানীর আফতাবনগরে গরুর হাট বসানোর বিষয়ে দেওয়া ইজারার কার্যক্রম স্থগিত করে আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এ জায়গায় গরুর হাট বসানোর ইজারা দেওয়া কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন। আগামী সাতদিনের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মোহাম্মাদ শওকত আলী চৌধুরীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতের রিটের পক্ষে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী ড. মো. ইউনুছ আলী আকন্দ। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সেলিম আযাদ। তার সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ সাইফুজ্জামান (জামান), সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সামীউল আলম সরকার, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জুলফিয়া আক্তার ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আশিক রুবায়েত।

এর আগে গত ১৫ মে পরিবেশ সংরক্ষণের দাবিতে আফতাবনগরে গরুর হাট না বসানোর নির্দেশনা চেয়ে রিট করেন ইউনুছ আলী আকন্দ। জনস্বার্থে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি করেন তিনি। রিটে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি), ডিএনসিসির প্রধান ভূমি কর্মকর্তা, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান, ইস্টার্ন হাউজিং ও ঢাকা জেলা প্রশাসককে (ডিসি) বিবাদী করা হয়।

এর আগে গত ২ মে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের (স্থানীয় সরকার বিভাগ) পক্ষে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহে আলমের সই করা সম্পত্তি বিভাগ ইজারা/বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দরপত্র ঘোষণা করেন। দরপত্রে ঈদুল আজহার দিনসহ পাঁচ দিন গরুর হাটের কথা উল্লেখ করা হয়।

এতে প্রথম পর্যায়ে দরপত্র বিক্রি ১৫ মে, আর ১৬ মে সাড়ে ১২টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত। এভাবে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ পর্যায়ে দরপত্র বিক্রির পর ১৯ জুন পর্যন্ত দরপত্রের বাক্স ও খাম খোলার পর প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে সর্বোচ্চ দরদাতাকে সিডিউল দেওয়া হবে।


আরও খবর



দলদলিয়া গ্রামে খেলার মাঠ সংস্কারের জন্য সরকারের বিশেষ বরাদ্দর দাবি

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৯২জন দেখেছেন

Image

আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:ফুলবাড়ী উপজেলা সংলগ্ন পার্বতীপুর উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের দলদলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠটি খেলার উপযোগী করতে সরকারের বিশেষ বরাদ্দের দাবী জানান এলাকার যুব সমাজ।

এলাকার যুব সমাজের পক্ষে দলদলিয়া নাগরিক ফোরাম পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি আবেদন দেন।

আবেদনে তারা উল্লেখ করে বলেন এই ইউনিয়নের একমাত্র খেলার মাঠ দলদলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এর এই মাঠটি। পার্বতীপুর উপজেলার শেষ সীমানা ও ফুলবাড়ী উপজেলার শেষ সীমানা সংলগ্ন দলদলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি। অল্প বৃষ্টিতেই মাটিতে পানি জমা হয়ে খেলার অনুপোযোগী হয়ে যায়, এছাড়াও এলাকার লোকজন মাঠটি ধানের খড় রাখার চাতাল এবং উঠান হিসেবে ব্যবহার করে, মাঠের সাইড দিয়ে চলাচলের রাস্তা থাকলেও অনেকেই মাঠের মাঝখান দিয়ে চলাচলের রাস্তাও সৃষ্টি করেছে, যার ফলে মাঠটি দিন দিন খেলার অনুপোযোগী হয়ে যাচ্ছে। 

মাঠটি কে খেলার অনুপযোগী না করলে দিন দিন এলাকার যুব সমাজ খেলা থেকে বিমুখ হয়ে মাদক এবং বিভিন্ন রকম অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে যাবে। দলদলিয়া নাগরিক ফোরামের পক্ষে মোঃ নুর আলম গত ২৭ জুন পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর মাঠ সংস্করণের দাবিতে একটি আবেদন করেন ।

এলাকার বয়স জোষ্ঠরা জানান এটি একটি ঐতিহ্যবাহী মাঠ দীর্ঘ কয়েক যুগ ধরে এই মাঠে খেলাধুলা করে আসছে এলাকার যুবসমাজ, আস্তে আস্তে মাঠটি খেলার অনুপযোগী হয়ে যাচ্ছে, আমরা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি মাঠটি কে খেলার উপযোগী করে তুলতে সংস্কারের জন্য বিশেষ বরাদ্দ দেওয়া হোক। এ ব্যাপারে ঐ বিদ্যালয়ের সভাপতি মোঃ আশরাফুল আলমের সাথে কথা বললে তিনি জানান এই বিদ্যালয়টি শেষ সীমানায় হওয়ায় এখানকার স্থানীয় জনগণ কোন সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না। স্কুলের খেলার মাঠটি সরকারি অনুদান না পাওয়ায় খেলা ধুলার পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এমনকি রাস্তাটিও পাকা করা হচ্ছে না। বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা ও এলাকাবাসী বর্ষাকালে কাদার মধ্যে যাতায়াত করছে। একই কথা বলেন ঐ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোছাঃ নাছিমা খাতুন। তিনি জানান, বিদ্যালয়ের মাঠটি সংস্কার করা হলে এলাকার যুব সমাজ খেলায় মেতে থাকবে। মাদক থেকে দূরে থাকবে। কিন্তু কেউ এই এলাকার উন্নয়নকল্পে কোন খোঁজ রাখেননা।  

এ বিষয়ে এলাকার যুবক মোঃ পাপ্পু জানান আমরা নিজ উদ্যোগে মাঠটি কে সংস্কার করছি এখনো মাঠের অনেক কাজ বাকি রয়েছে। বাকি কাজগুলো করতে আমরা জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সুদৃষ্টি কামনা করছি।


আরও খবর



কুষ্টিয়ায় কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্মের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image
কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃকুষ্টিয়ায় কোটাবিরোধী আন্দোলনের মদদদাতা ও রাজপথে বিশৃংখলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম। শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ইং বেলা ১১ টায় কুষ্টিয়া শহরের এনএস রোডের পাঁচ রাস্তার মোড় বঙ্গবন্ধু চত্তরে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্মের ব্যানারে এ মিছিল ও সমাবেশ করা হয়। এর আগে কুষ্টিয়া পৌরসভার সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরে বিভিন্ন রাস্তা ও মজমপুরগেট প্রদক্ষিন শেষে পাঁচ রাস্তার মোড়ে সমাবেশ করে সংগঠনটি। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান মালিথা ও সন্চালনায় ছিলেন, সাধারন সম্পাদক শেখ মোঃ সুভীন আক্তার । সমাবেশে বক্তব্য রাখেন,জেলা কমিটির সহ-সভাপতি ইমরুল ইসলাম , ওয়ালিউর রহমান রনি, শেখ মিজানুর রহমান ,শামিম রেজা,হাবিবুর রহমান ব্যাপারী, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক খন্দকার মাহাবুব হোসেন মিলন,মাসুদ উর রহমান রুবেল,এ এস এম তুজামতুল্লাহ বকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মাগফেরাতুন নাহার সাথী, এস এম তৌফিকুল কবির তুহিন,কাউন্সিলর আনারকলি ,শাহিদুর রহমান মাসুদ,গোলাম মোস্তফা,শেখ সাইদুর রহমান, উপ-অর্থ সম্পাদক মামুনুর রহমান,দপ্তর সম্পাদক সুমাইয়া খাতুন,প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ফাতেমা খাতুন,উপ-শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শাখায়াত হোসেন বিপ্লব,ধর্ম সম্পাদক নওশাদ আলী, সদস্য আজব আলী,শহিদ মোসাব্বির, হাবিবা নীম সহ প্রমূখ। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম শহরের সাধারন সম্পাদক শহীদী আলম রতন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মেজবাহুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক সাব্বির খান শাওন, মিরপুর উপজেলা শাখার সভাপতি আবু হুরায়রা স্বপন, দৌলতপুর উপজেলা শাখার সভাপতি রকিবুল ইসলাম রাজন, সাধারন সম্পাদক সোহেল রানা ,খোকসা উপজেলা শাখার যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মিন্টু হোসেন , কুমারখালী উপজেলা শাখার প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সজিব হোসেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রীতম মজুমদার ও কুষ্টিয়া জেলা মুক্তিযুদ্ধ মন্চের সভাপতি নজরুল ইসলাম প্রধান ও সাধারন সম্পাদক লায়ন আরিফ খান। সমাবেশে বক্তারা বলেন, যারা কোটা বিরোধী আন্দোলন করছেন, তারা মুলত জামাত- বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে শ্লোগান দিয়ে তারা বাংলাদেশকে অস্বীকার করছে,আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা ঘরে বসে থাকবোনা। তাদেরকে হুঁশিয়ার করতে চাই, প্রয়োজনে ৭১-এর হাতিয়ার হাতে তুলে নেব, তবুও মুক্তিযোদ্ধার অপমান সহ্য করা হবে না। যতক্ষন না তারা এই অযোক্তিক কোটাবিরোধী আন্দোলন থেকে বিরত না হবে ততোক্ষন আমাদের আন্দোলন চলবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



আটোয়ারীতে ব্রীজের নীচ থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১২২জন দেখেছেন

Image

কুয়েল ইসলাম সিহাত,পঞ্চগড় প্রতিনিধি:পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায় হাত-পা বাঁধা অবস্থায় একটি ব্রিজের নিচ থেকে শাকিল রানা (২৮) নামে এক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
বুধবার (৩ জুলাই) রাত ১০টার দিকে উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের পল্লী বিদ্যুৎ এলাকার সুখের ব্রিজের নিচ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।ব্যবসায়ী শাকিল রানা উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের বড়দাপ প্যারিস এলাকার আজিজুল হকের ছেলে। তিনি পেশায় ট্রাক্টর ব্যবসায়ী ছিলেন।আটোয়ারী থানার ওসি (তদন্ত) মো. শাহিনুর ইসলাম তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এক যুবকের লাশ ব্রিজের নিচে পড়ে আছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে। প্রাথমিকভাবে লাশের সুরতহালের পর ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।তিনি বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো মামলা করা হয়নি। তবে পরিবার মামলা করবে। পুলিশের পক্ষ থেকে একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে।

এদিকে এলাকাবাসীর ধারণা আর্থিক লেনদেনের কারণে শাকিলের অনাকাঙ্খিত মৃত্যু হয়েছে। পাশাপশি মৃতের পরিবার ও এলাকাবাসী দ্রুত তার মৃত্যুর রহস্য উন্মোচনের দাবী জানান।

আরও খবর



কুড়িগ্রামের রৌমারী রাজিবপুরের দ্বীতিয় দফা বন্যায় পানিবন্দি লক্ষাধিক মানুষ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

মাজহারুল ইসলাম, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের রৌমারী-রাজিবপুরসহ দুটি উপজেলায় প্রথম দফা বন্যার পানি কমতেনা কমতে আবারও ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। কয়েকদিনের টানা বর্ষন ও পাহাড়ি ঢলে আবারও বন্যায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে দুই উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ।

দ্বীতিয় দফা বন্যার পানি জিঞ্জিরাম, হলহলিয়া, ধর্ণি, সোনাভরি, ব্রম্মপুত্র নদের পানি উপচে প্লাবিত হয়ে চরম জনদুর্ভোগে রয়েছে দুই উপজেলার সকলপেশার মানুষ। প্রচুর বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা প্রবল ¯্রােতের পানিতে এ নদীর তীরঘেষা বসতবাড়ী নদী গর্ভে বিলিন হওয়ায় কিনার খোজে পাচ্ছেনা নদী ভাঙ্গন এলাকার মানুষ গলো। অন্যদিকে শুল্ক স্থলবন্দরে বন্যার পানি উঠায় হাজার হাজার শ্রমিক বেকারত্বে দিনযাপন করছে। এদিকে সীমান্ত বর্ডার হাটটিতেও পানি উঠে হাটের সকল কার্যক্লাব বন্দ রয়েছে। এতে করে বর্ডার হাটের ক্রেতাবিক্রেতারা হতাশায় দিন পার করছেন।  বন্যা কবলিত  এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,দুই উপজেলার প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ে রাস্তাঘাট বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না। হাজার হাজার বাড়ি ঘরে পানি উঠার ফলে এক বেলা না খেয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন পরিবার গুলো। দ্বীতিয় দফায় বন্যার পানিতে সদ্য রোপনকৃত আমনের বীজতলাসহ কৃষকের সবজি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। রৌমারী উপজেলার ৬ ইউনিয়নের মানুষ পানি বন্দী অবস্তায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

 উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ হাসান খান বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তা সামসুদ্দিন, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগণসহ অনেকেই। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ হাসান খান বলেন, প্রথম বন্যায় উপজেলার প্রায় এলাকার মানুষ পানিবন্দি হয়েছে। তাদেরকে চেয়ারম্যান মেম্বারদের মাধ্যমে জিআর প্রকল্পের ত্রানের চাল বিতরণ করা হয়েছে। কয়েকদিনের রোদে পানি শুকিয়ে গেলেও হঠাৎ করে আবাও টানা বৃষ্টির ফলে ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানিতে আবারো উপজেলার হাজার হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে জেলা প্রশাসক স্যারের নিকট বন্যার পরিস্থিতির বিষয়ে জানানো হয়েছে। জিআর প্রকল্পের মাধ্যমে ত্রানের চাল আসলেই সঙ্গে সঙ্গে বিতরন করা হবে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু বলেন, আগের বন্যায় জেআরের চাল সব গুলি বিতরণ করা হয়েছে। আবারো হঠাৎ করে টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে নেমে আসা বন্যা পরিদর্শন করে এসেছি। তবে আগামী দিনের মধ্যে পানিবন্দি পরিবারের মাঝে ত্রানের চাল ও শুকনা খাবারের ব্যবস্থা করে বিতরণ করা হবে। 


আরও খবর



দোলাইপাড়ের বাস কাউন্টার মালিকদের ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগে তলব

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১৪৭জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃদক্ষিণবঙ্গের ২১ টি জেলার বাস দোলাইপাড় হয়ে পোস্তগোলা ব্রিজ দিয়ে বিভিন্ন জেলায় গমন করে। দোলাইপাড় গোলচত্বর এর দুপাশে গড়ে ওঠা স্থায়ী এবং অস্থায়ী(টেবিল কাউন্টার) বাস কাউন্টারের কারণে এই এলাকায় ট্রাফিক প্রেসার বেশি থাকে। দোলাইপাড় কেন্দ্রিক যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখার লক্ষ্যে দোলাইপাড়ের দুপাশের সকল কাউন্টার মালিক এবং বাড়িওয়ালাদেরকে  গত ১২/০৭/২৪ খ্রি: তলব করা হয়েছে হাটখোলা রোডস্থ ডিসি ট্রাফিক ওয়ারী অফিসে। এ সময় কাউন্টার মালিকদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুম মোল্লা। 

ডিসি (ট্রাফিক-ওয়ারী) বিভাগ মোহাম্মদ আশরাফ ইমাম জানান , ইতিমধ্যে দোলাইপাড়ের দুপাশে ফুটপাতের উপর টেবিল নিয়ে বসা অস্থায়ী টিকেট কাউন্টার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উক্ত স্থানের যারা কাউন্টার ভাড়া দিয়েছেন সে সকল বাড়িওয়ালা এবং সকল কাউন্টার মালিককে তলব করা হয়েছে। ডিসি ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের অফিসে উপস্থিত ছিলেন ব্যাপারি পরিবহন, সোনালী পরিবহন, অন্তরা পরিবহন, তেতুলিয়া পরিবহন, টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস, সোহাগ পরিবহন, চেয়ারম্যান পরিবহন, রাজিব পরিবহন, শিবচর স্টার ডিলাক্স, গোল্ডেন লাইন, ইমাদ পরিবহন, দোলা পরিবহন এবং হামদান পরিবহন এর টিকিট কাউন্টার মালিকবৃন্দ এবং তাদের ম্যানেজার। কাউন্টার ম্যানেজার এবং মালিকদেরকে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেয়া হয় যে, এক টিকেট কাউন্টারের ভিতরে একাধিক সাব-কাউন্টার ভাড়া দেওয়া যাবে না, সকল বাস এক সারিতে বামে অবস্থান করবে, গোল চত্বর ঘেঁষে কোন বাস দাঁড়াবে না, গোলচত্তরে কোন বাস ইউটার্ন করবে না, রাস্তার দু'পাশে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের দুটো কাউন্টার থাকতে পারবে না, কোন চাঁদাবাজি হবে না, জ্বালানি নেওয়ার জন্য কোন গাড়ি উল্টা পথে আসবেনা এবং সকল বাসকে এক সারিতে থাকার জন্য কাউন্টার মালিকগণ ট্রাফিক কমিউনিটি ভলান্টিয়ার্স দিবেন। ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের পক্ষ থেকে এ সকল অসংগতি আগামী রবিবারের মধ্যে দূর করার জন্য কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। 

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন এডিসি (ট্রাফিক-ওয়ারী) বিভাগ সুলতানা ইশরাত জাহানসহ জোনাল এসিবৃন্দ।


আরও খবর