Logo
আজঃ Wednesday ২৬ January ২০২২
শিরোনাম
অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে সহ-শিল্পীদের নগ্ন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিদেশের মাটিতে কৃষিপণ্য সরবরাহ বাড়াণোর লক্ষ্যে : ইরান রাজনৈতিক কঠিন চাপে রয়েছেন মেয়র আরিফুল স্বপ্নের মেট্রোরেল রওনা হলো আগারগাঁওয়ের উদ্দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণে ভারতে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ মুরাদ হাসান এমিরেটসের ফ্লাইটে কানাডা গেলেন সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আগামী বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের উন্নতি দেখতে চান করোনাভাইরাসে আরও ছয়জনের মৃত্যু বিশ্বের ৪৩তম ক্ষমতাধর নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আবারও দেখা মিলল হাতওয়ালা গোলাপি মাছের

প্রকাশিত:Friday ২৪ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৫৫জন দেখেছেন
Image

অস্ট্রেলিয়ার তাসমানিয়ার উপকূলে ২২ বছর পর প্রথমবারের মতো দেখা মিলেছে বিরল প্রজাতির হাতওয়ালা (হ্যান্ডফিশ) গোলাপি মাছের। গভীর সমুদ্রে ধারণ করা ফুটেজ বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানিয়েছেন দেশটির গবেষকরা। এর আগে ১৯৯৯ সালে তাসমানিয়ার একজন ডুবুরি গোলাপি মাছ দেখতে পান। অস্তিত্ব সংকট বিবেচনা করে সম্প্রতি একে বিপন্ন প্রজাতি ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষ।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণের দ্বীপ এলাকা তাসমানিয়া এলাকায় ১৪ ধরনের হ্যান্ডফিশ মাছ দেখা যায়। গোলাপি হ্যান্ডফিশ এমনই একটি ধরন। মাছগুলোর ছোট হাত থাকায় সাঁতারের পাশাপাশি হাতের ওপর ভর দিয়ে সমুদ্রের তলদেশে হেঁটে বেড়াতে পারে। এ বছরের শুরুতে ধারণ করা ফুটেজ বিশ্লেষণ করে গবেষকরা বলছেন, দীর্ঘদিন পর আবার দেখা মিলেছে এই মাছের।

গত ফেব্রুয়ারিতে তাসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক নেভিল ব্যারেটের নেতৃত্বাধীন গবেষক দল তাসমান ফ্র্যাকচার মেরিন পার্কে সমুদ্রের তলদেশে একটি ক্যামেরা স্থাপন করেন। প্রবাল, লবস্টার ও বিভিন্ন মৎস্য প্রজাতি নিয়ে জরিপ চালানোর উদ্দেশ্যে তারা এই কাজ করেন। ফুটেজে দেখা যায়, বড় একটি লবস্টারের তাড়া খেয়ে সমুদ্রের তলদেশের শিলাস্তর থেকে ১৫ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের মাছটি বের হয়ে আসছে। প্রথমে মাছটি কয়েক সেকেন্ড সেখানে থেমে থাকে ও পরিস্থিতি বোঝার চেষ্টা করে। এরপর সেটি সাঁতার কেটে চলে যায়।

গবেষক দলের এক সদস্য গত অক্টোবরে ফুটেজ বিশ্লেষণের সময় মাছটি শনাক্ত করেন। তিনি দেখতে পান, অনেকগুলো বড় আকারের সামুদ্রিক প্রাণীর ভিড়ে অদ্ভুত এক প্রাণীও রয়েছে। ওই গবেষক বলেন, ‘আমি খসড়া ভিডিওগুলোর একটি দেখছিলাম। তখন দেখলাম, প্রবাল প্রাচীরের ওপর একটি ছোট মাছ লাফালাফি করছে। এটিকে একটু অন্য রকম মনে হচ্ছিল। ফুটেজ আরেকটু বড় করে দেখলাম এর ছোট ছোট হাতও আছে।’

মাছটি সম্পর্কে নতুন তথ্যও মিলেছে। আগের চেয়ে অনেক বেশি গভীর ও খোলা পানিতে বসবাস করছে এ মাছ। তাসমানিয়ার বনাঞ্চল-সংলগ্ন দক্ষিণ উপকূলে ৩৯০ ফুট গভীর পানিতেও এ মাছের অস্তিত্ব পাওয়া যাচ্ছে।

প্রধান গবেষক ও সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী নেভিল ব্যারেট বলেন, ‘এটি গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার। এর মধ্য দিয়ে গোলাপি হ্যান্ডফিশের টিকে থাকার ব্যাপারে আশার সঞ্চার হয়েছে। অতীতে যেমনটা ভাবা হতো, তার তুলনায় বিস্তৃত আবাসস্থলে তারা বাস করে।’


আরও খবর



ডেমরায় পাঁচ কেজি গাঁজা সহ ৩ মাদক ব্যাবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ

প্রকাশিত:Thursday ০৬ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ১৬৫জন দেখেছেন
Image


বজলুর রহমানঃ

রাজধানীর ডেমরা সুলতানা কামাল ব্রীজের ঢাল থেকে পাঁচকেজি গাঁজা সহ তিন জন মাদক ব্যাবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যাবসায়ীদের নাম (১) মোঃ আসিক মিয়া পিতা: কালু মিয়া সাং- নলগড়িয়া,থানা বিয়নগর, জেলা ব্রাম্মন বাড়ীয়া (২) আব্দুল্লাহ, পিতা:আবু জাহের ওরফে শাহ আলম,সাং- নলগড়িয়া,থানা বিয়নগর, জেলা ব্রাম্মন বাড়ীয়া (৩) নয়ন মিয়া,পিতা:মোবারক মিয়া,সাং- নলগড়িয়া,থানা বিয়নগর, জেলা ব্রাম্মন বাড়ীয়া॥আটক মাদক ব্যাবসায়ীদের বিরুদ্ধে ডেমরা থানায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে।


ডেমরা থানার মামলা নং-৬ তাং ৫/০১/২০২২ ইং।মামলার এজাহার সুত্রে জানাগেছে ডেমরা থানার সাব-ইন্সপেক্টর রফিকুল ইসলাম এ.এস.আই ফারুক মিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে মোটর সাইকেলে ডিউটি করার সময় ৫ জানুয়ারী ২০২২ সন্ধ্যা ৭ টার দিকে গোপন সুত্রে জানতে পারেন যে সুলতানা কামাল ব্রীজের পশ্চিম পাশের ঢালে কতিপয় মাদক ব্যাবসায়ী মাদক দ্রব্য বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে।

সেই মোতাবেক তথ্যানুযায়ী সঙ্গীয় ফোর্সসহ পুলিশ সদস্যরা ঘটনা স্থলে পৌছে পাঁচকেজি গাঁজা সহ উক্ত ব্যাক্তিদের আটক করতে সক্ষম হয়।


আরও খবর



নাসিরনগর নির্বাচন অফিস,টাকা ছাড়া মিলে না সেবা

নাসিরনগর নির্বাচন অফিস,টাকা ছাড়া মিলে না সেবা

প্রকাশিত:Saturday ২২ January 20২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১০৬জন দেখেছেন
Image


মোঃআব্দুল হান্নান,

অফিসেরকর্মকর্তা কর্মচারী আর পাঁচ দালালে মিলেই চালাচ্ছে নাসিরনগর নির্বাচন কর্মকর্তার কার্য্যালয়। এমন অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।দালালরা  চাইলেই  তৈরি করে দিতে পারেন নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি)! ভুল সংশোধন কিংবা স্থান পরিবর্তনসহ নির্বাচন অফিসের যে কোন সেবা দিতে পারেন তারা।এমন কাজ তারা গোপনে নয়, প্রকাশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঘোষণা দিয়েই করে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরে।


আপনি যদি সচেতন নাগরিক হোন, নির্বাচন কমিশনের নিয়ম মেনে যদি কোন সেবার আবেদন করেন, তাহলে পোহাতে হবে চরম ভোগান্তি।  কাগজে সমস্যা,কাগজে ক্রটি এমন নানা অজুহাতে আপনার কাজ আটকে থাকবে দিনের পর দিন। তবে দালালের হাতে তাদের চাহিদা মত টাকা ধরিয়ে দিলে বা  চুক্তি করলেই মিলবে সেবা। এমনই চিত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার  নাসিরনগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের।


নির্বাচন অফিসের দালাল জাকারিয়া আহমেদ তাকের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে আইডি কার্ডের সকল সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দেন। তার স্ট্যাটাসটি হলো কারো যদি জরুরি আইডি কার্ড লাগে তবে যোগাযোগ করুন। অপর আরেকটি স্ট্যাটাসে লেখেন, আইডি কার্ড সংশোধন করে দিতে পারি, যাদের সমস্যা তারা যোগাযোগ করবেন।


ভোক্তভোগীদের অভিযোগ, নাসিরনগর নির্বাচন অফিসের নির্বাচন কর্মকর্তা ও অফিস সহকারী থেকে শুরু করে এমএলএসএস এর সাথে আর্থিক চুক্তি ছাড়া মিলে না সেবা। তাদের সহযোগী স্থানীয় বদপাঁচ দালালও রয়েছে। ওই দালালরা অফিসের আশপাশে সকাল ৯টা থেকে শুরু করে রাত ১০টা পর্যন্ত বসে থাকে। তাদের কাজ হল সেবাগ্রহীতাদের সাথে চুক্তি করে নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে পৌঁছানো।


অভিযোগ রয়েছে, প্রতিটি নতুন এনআইডি কার্ড করতে ২০ হাজার থেকে শুরু করে সর্বনিম্ন ৩/৪ হাজার টাকা, সংশোধনের জন্য ক্যাটাগরিভেদে পাঁচ থেকে ৫০ হাজার টাকা নেন তারা। দালাল ছাড়া সরাসরি নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুসরণ করে অফিস আসলে পোহাতে হয় চরম ভোগান্তি। তবে দালালের মাধ্যমে গেলেই মেলে প্রশান্তি।


সরেজমিন উপজেলা নির্বাচন অফিস ঘুরে দেখা গেছে, দুপুরের দিকে নির্বাচন অফিসের সামনে ও বিভিন্ন কক্ষের ভেতর সেবাগ্রার্থীদের প্রচুর ভিড়। এখানে সর্বত্রই উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। কারোরই মুখে নেই কোন মাস্ক। নির্বাচন কর্মকর্তা ভিড় ঠেকাতে অফিসের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে রেখেছে। নতুন আইডি কার্ড করতে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আসা প্রায় শতাধিক সেবাগ্রহীতাকে দেখা গেছে। এদের মধ্যে থাকা ঢাকা কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. রোকন উদ্দিন ভূইঁয়া অভিযোগ করে বলেন, আমি আমার ছেলের আইডি কার্ড করতে নির্বাচন অফিসে আসি। নির্বাচন কর্মকর্তা শতশত সেবাগ্রহীতার জন্মনিবন্ধন আটকে রেখে টাকা আদায় করে হয়রানি করছে।ঢাকা থেকে আসা গোয়াল নগর ইউনিয়নের লালুয়ারটুক গ্রামের গ্রাফিক্স ডিজাইনা জোহাম জানায়,সে ভোট উঠানোর পর প্রিন্টিং কপির জন্য অনেক দিন অফিসে ধর্না দিলেও কোন কাজ হয়নি।কিন্তু অফিসের ইমরান সাহেব কে ৪ হাজার টাকা দেয়ার ২৪ ঘন্টার ভিতরেই পেয়ে যান প্রিন্টিং কপি।ডাঃ রোকন উদ্দিন বলেন,হয়রানির কারণ জানতে চাইলে নির্বাচন অফিসার দুর্ব্যহার করে।


 এদিকে অফিস থেকে বের হওয়ার সময় চোখে পড়ে সেবাগ্রহীতা সালামের সাথে অফিসের দালাল পারভেজের টাকা লেনদেনের চিত্র। সেটি মোবাইলে ধারণ করা হয়। তখন পারভেজ এসে এ প্রতিবদেককে বলেন, আমি সালামের কাছে টাকা পাইতাম সেই টাকাই ফেরৎনিচ্ছি।


ভলাকুট ইউনিয়নের বাঘী গ্রামের বাসিন্দা শ্যামল ভৌমিক অভিযোগ করে বলেন, আমি বিদেশ যেতে দ্রুত আইডি কার্ড করতে অফিসে আসি। কিন্তু নির্বাচন কর্মকর্তা আমার সকল কাগজপত্র দেখে বলেন, তোমার বয়স কম। আইডি কার্ড হবেনা। পড়ে একজন দালাল অফিসের পেছনে নিয়ে আমায় বলল স্যার (নির্বাচন কর্মকর্তাকে) কিছু খরচপাতি দিলে বয়স কোন সমস্যা হবেনা। তখন নির্বাচন অফিসারকে আমি ৩ হাজার টাকা দেই। কবে কার্ড পাব ভগবানই ভাল জানেন।


একই ইউনিয়নের কুটুই গ্রামের উদ্ভব দাস বলেন, আমার আইডি কার্ডে নামের ভুল সংশোধনের জন্য অফিসে আসি। কিন্তু অফিসের কেউ আমার সাথে কথাই বলতে চায়না। পরে একজন দালাল আমাকে বলে ১ সপ্তাহের মধ্যে ঠিক করে দিবে, বিনিময়ে তাকে ৩ হাজার টাকা লাগবে। আমি বাধ্য হয়ে ৩ হাজার টাকা দেই। কিন্তু প্রায় দুই মাস হলেও কার্ড পাচ্ছি না।


হরিপুর ইউনিয়নের মিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি ২০২১ সালের ২২ সেপ্টেম্বর নতুন আইডি কার্ড করতে অফিসে সকল কাগজপত্র জমা দেই। কিন্তু টাকা ছাড়া করবেনা বলে ফিরিয়ে দেয়। পরে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার পর চার মাস পর কার্ড হাতে পাই। কে টাকা নিয়েছে জানতে চাইলে বলেন, অফিসের আউট সোর্সিং-এ নিয়োগ পাওয়া ইমরান তার কাছ থেকে টাকা গ্রহণ করেছে।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন দালাল বলেন, এ অফিসের বিকাশ, রইস খান, মিজান, রুস্তম ও পারভেজই বেশি কাজ করে। তারাই নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে সেবাগ্রহীতাদের সাথে কন্ট্রাক করে অফিসে নিয়ে আসে।


অনিয়ম ও হয়রানির বিষয়ে জানতে নাসিরনগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমি কোন সেবাগ্রহীতার কাছ থেকে ঘুষ নেয়নি। কাউকে হয়রানিও করিনা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ আপনি নিজে টাকা নিয়ে কাজ করেন এমন প্রশ্ন করলে তিনি আর কথা বলতে রাজি হননি।


-খবর প্রতিদিন/ সি.বা   


আরও খবর



সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে প্রধান বিচারপতি

প্রকাশিত:Thursday ২০ January ২০22 | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ৭২জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: সস্ত্রীক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন দেশের প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। এখন তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, প্রথমেই প্রধান বিচারপতির স্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর প্রধান বিচারপতিরও করোনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, প্রধান বিচারপতির সহধর্মিণী ডালিয়া ফিরোজ গত মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর গতকাল বুধবার রাতে প্রধান বিচারপতিও একই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

প্রধান বিচারপতির অনুপস্থিতিতে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নূরুজ্জামানের নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতি মিলে আপিল বেঞ্চ পরিচালনা করছেন।

এদিকে, হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ছাড়াও হাইকোর্ট বিভাগের ১৩ বিচারপতি করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এসকে মোরশেদও করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে আছেন।

দেশের ২৩তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে গত ৩০ ডিসেম্বর নিয়োগ পান হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। নতুন বছর থেকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন শুরু করেন।


আরও খবর



নাসিরনগরে ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাতা বার্ষিকী পালিত

নাসিরনগরে ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাতা বার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:Tuesday ০৪ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১২২জন দেখেছেন
Image
নাসিরনগরে ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাতা বার্ষিকী পালিত


মোঃ আব্দুল হান্নান, 

নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), শিক্ষা, শান্তি প্রগতির পতাকাবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকা পালিত হয়েছে।এ উপলক্ষে বেলা ২ ঘটিকার সময় উপজেলা পরিষদ মিলনাতয়নে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনষ্ঠিত হয়।

উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক নাসির উদ্দিন রানার সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১, সংসদীয় ২৪৩ নাসিরনগর আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম।


বিশেষ অতিথি হিসেবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রাফি উদ্দিন আহমেদ, অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও গুনিয়াউক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জিতু মিয়া, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি বশির আল হেলাল সহ অনেকেই। অনুষ্টানের শুরুতেই প্রধান অতিথি কেক কেটে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন।

পরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ছাত্রলীগ নেতা শুভ সিদ্দিকী। 


-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



বাণিজ্যমেলা এবার স্থায়ী ঠিকানায় বসতে যাচ্ছে

প্রকাশিত:Monday ২৭ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ১১৭জন দেখেছেন
Image

শেরেবাংলা নগরের পরিবর্তে প্রথমবারের মতো রাজধানীর পূর্বাচলে বসতে যাচ্ছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা (ডিআইটিএফ)। শেরেবাংলা নগর থেকে পূর্বাচলের দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। পূর্বাচলে নবনির্মিত ‘বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে’ বসবে এবারের মেলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি আগামী ১ জানুয়ারি মেলা উদ্বোধন করবেন।

মেলায় নগরবাসীকে আনা-নেওয়ার জন্য থাকবে বিআরটিসির ৩০টি বাস। খাবারের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রথমবারের মতো ক্যাটারিং সার্ভিস চালু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন। মেলায় পছন্দের পণ্য অগ্রিম ক্রয়াদেশ (অর্ডার) দিলে তা কোম্পানির নিজস্ব উদ্যোগে ক্রেতার ঠিকানায় পৌঁছে দেওয়া হবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘প্রথমবারের মতো বাণিজ্যমেলা স্থায়ী ভেন্যুতে হতে যাচ্ছে- এটিই সবচেয়ে বড় বিষয়। দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় ধরে চেষ্টা চলছিল একটি স্থায়ী কমপ্লেক্স নির্মাণের। সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পরই ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা স্থায়ী কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। পরে এ প্রকল্পে সহযোগিতার হাত বাড়ায় চীন। বাংলাদেশ ও চীনের যৌথ উদ্যোগে অবশেষে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের পূর্বাচল নতুন শহরে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ‘বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টার’। পূর্বাচল ৪ নম্বর সেক্টরে ২০ একর জমির ওপর ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর মেলার অবকাঠামো নির্মাণ শুরু করে ‘চায়না স্টেট কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশন’। গত বছরের ৩০ নভেম্বর নির্মাণকাজ সম্পন্ন করার ঘোষণা দেয় তারা। ‘চায়না-বাংলাদেশ ফ্রেডশিপ এক্সিবিশন সেন্টার’ নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে চীনের অনুদান প্রায় ৬২৫ কোটি টাকা। ৩৩ হাজার বর্গমিটারের ‘ফ্লোর স্পেসের’ মধ্যে ভবন নির্মাণ করা হয়েছে ২৪ হাজার ৩৭০ বর্গমিটার জায়গা নিয়ে। এক্সিবিশন হলের আয়তন ১৫ হাজার ৪১৮ বর্গমিটার। এতে ৮০০টি স্টল রয়েছে।


আরও খবর