Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

৭১ এমপিকে মনোনয়ন না দেওয়ার কারণ জানালেন ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১৬৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৭১ জন দলীয় এমপিকে মনোনয়ন দেয়নি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। কেন তাদের মনোনয়ন দেওয়া হয়নি সে বিষয়ে জানালেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (২৭ নভেম্বর) আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রার্থীদের মধ্যে চূড়ান্ত মনোনয়নপত্র বিতরণের সময় তিনি এ বিষয়ে কথা বলেন।

কাদের বলেন, আমরা প্রার্থিতা ঘোষণা করেছি। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশে নির্বাচন হয়, একসঙ্গে সবার মনোনয়ন কে ডিক্লেয়ার করেছে? আপনারা প্রতিবেশী দেশগুলোর থেকে একটু জানুন। আমরা তো মাত্র দুইটা বাকি রেখেছি। সেটা আমাদের টেকনিক্যাল বিষয় থাকতে পারে। কৌশলগত বিষয় থাকতে পারে। সে কারণে আমরা দুইটা প্রকাশ করিনি। কৌশলের দিক থেকে এখানে কোনো ত্রুটি হয়নি।

৭১ জন এমপিকে মনোনয়ন না দেওয়ার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সংখ্যাটা বড় কিংবা ছোট- সেটা আমাদের দলের মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্ত। আমরা কাকে বাদ দেব, কাকে রাখব বোর্ডের সিদ্ধান্ত। আমাদের একটাই কথা উইনেবল এবং ইলেক্টেবল যে প্রার্থী, তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। সেই বিচারে যারা এসেছে, তারা মনোনয়ন পেয়েছে। যারা আসেনি, ধরে নিতে পারেন তারা পায়নি। আমাদের ক্যাটাগরির মধ্যে যারা পড়েনি, তাদের দেওয়া হয়নি।

দলীয় নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করলে শাস্তির কোনো ব্যবস্থা রয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দলীয় নেতাদের ব্যাপারে এখনো সুনির্দিষ্ট কোনো কিছু বলা হয়নি। আমাদের আরও কিছু বিষয় নিয়ে ভাবনা-চিন্তার ব্যাপার আছে। আমাদের শরিক কারা হবে, অপজিশন কে হয়, সবকিছু বিবেচনা করে ভোটারের উপস্থিতির বিষয়টা মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত হবে।

তিনি বলেন, গতকালকে ঘোষণার পরপরই সারা বাংলাদেশে উৎসব মিছিল হচ্ছে। মনে হচ্ছে না সেখানে আওয়ামী লীগ আছে, বিরোধীদল নেই। পরিবেশটা একদম নির্বাচনের অনুকূলে। অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে যে রূপ সেই রূপই দেখা যাচ্ছে।


আরও খবর



আমরা বইমেলায় যাব: মুশতাক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আলোচিত দম্পতি খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশা,গত কয়েকদিন বইমেলায় গিয়ে কিছু তরুণের রোষানলে পড়েছেন। এরপরও বইমেলায় যাওয়া বন্ধ রাখবেন না বলে জানিয়েছেন তারা।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ডিবি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলাপ করেন এই দম্পতি।

মুশতাক বলেন, আমার দুটি বই মেলায় প্রকাশিত হয়েছে। প্রথম দিকে পাঠকের উৎসবমুখর পরিবেশ ছিল। দূরদূরান্ত থেকে শতশত লোক এসেছে, আমাদের সঙ্গে ছবিও তুলেছে। কিন্তু ৯ ফেব্রুয়ারি হঠাৎ কিছু সংখ্যক ছেলে আজেবাজে কথা বলা শুরু করল। আমার স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করতে থাকে। মেলায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হওয়ায় আমরা স্বেচ্ছায় সেখান থেকে চলে যাই।

তিনি আরও বলেন, আমরা আবার মেলায় গেলে আমাদের গুলি করে মেরে ফেলারও হুমকি দেওয়া হয়। ১০ ফেব্রুয়ারি আমি শাহবাগ থানায় জিডি করেছি। অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে আমাদের হেয় প্রতিপন্ন করতেই তারা মেলায় এসেছে। মেলা থেকে আমাদের কেউ বের করেনি। পরিবেশ নষ্ট হবে, এই ভেবে আমরা স্বেচ্ছায় বেরিয়ে যাই।

ডিবি প্রধানের কাছে আসার বিষয়ে মুশতাক বলেন, ডিবি প্রধান হারুন সাহেব খুবই ভালো মানুষ। মিডিয়ায় দেখেছি তার কাছে যেই এসেছে সাহায্য পেয়েছেন। তাই আমাদের নিরাপত্তা নিয়ে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করি। দুইজনকে হয়রানির বিষয়ে লিখিত অভিযোগও দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, তিশা আমার বিবাহিত স্ত্রী। মুসিলম আইন মেনেই বিয়ে করেছি। সে সাবালিকা, তার নিজের সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার রয়েছে। আমি বলছি ভালো আছি, সেও বলছে ভালো আছে।


আরও খবর



বিয়ের পর নতুন সিদ্ধান্ত নিলেন পরিণীতি

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৬০জন দেখেছেন

Image

বিনোদন প্রতিনিধি:বলিউড অভিনেত্রী পরিণীতি চোপড়া দীর্ঘদিন প্রেম করে শেষে করেছেন বিয়ে। গেল বছরের সেপ্টেম্বরে ভালোবেসে আম আদমি পার্টির নেতা রাঘব চাড্ডার সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন। বর্তমানে স্বামীকে নিয়ে বেশ সুখেই দিন পার করছেন এই অভিনেত্রী। তবে হঠাৎ বিয়ের কয়েক মাসের মাথায় ক্যারিয়ারের জন্য নতুন সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি।

জীবনের মোড়কে আনতে চাচ্ছেন নতুনত্ব। নতুনভাবে হতে চাইছেন প্রতিষ্ঠিত। ইনস্টাগ্রামে সেই ঝলকও দেখা গেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আন্দবাজার পত্রিকার খবরে জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্টুডিও থেকে ছবি পোস্ট করে পরিণীতি জানিয়েছেন, গান আমার জীবনের সবচেয়ে ভালোবাসার জায়গা। বিশ্বের বহু গায়ককে স্টেজে পারফর্ম করতে দেখেছি। এ বার আমিও সেই সঙ্গীত জগতের অংশ হতে চলেছি। আমি যেমন উত্তেজিত, তেমনই চিন্তিত- জীবনের এক নতুন অধ্যায় শুরু করতে চলেছি।

জানা গেছে, কনসার্টের মাধ্যমেই গানের জগতে প্রবেশ করবেন। অভিনেত্রীর স্টুডিও তৈরির কাজ প্রায় শেষের পথে। খবরটি শোনা মাত্রই পরিণীতিকে প্রশংসা ও শুভেচ্ছায় ভাসাচ্ছেন নেটিজেনরা।

পরিণীতিও অভিনয়ের পাশাপাশি গানের চর্চাও চালিয়ে যাচ্ছেন সমানতালে। বোন প্রিয়াঙ্কা চোপড়াই কি তার অনুপ্রেরণা? তেমনটা হতেই পারে। কারণ, খুব শিগগির নিজস্ব গানের অ্যালবাম তৈরি করতে চলেছেন নায়িকা, সে কথা ঘোষণা করেছেন অভিনেত্রী।

পরিণীতির বোন প্রিয়াঙ্কা চোপড়াও গানে পারদর্শী। তিনিও বেশ কিছু গানের পারফরম্যান্স করেছেন বিদেশে। তার নিজস্ব অ্যালবামও রয়েছে গানের।

প্রসঙ্গত, গত সেপ্টেম্বর মাসের শেষেই মহা ধুমধাম করে রাজনীতিক রাঘব চাড্ডাকে বিয়ে করেন পরিণীতি। বিয়ের পর বড় পর্দায় তাকে সেভাবে দেখা না গেলেও গানসহ নানা ধরনের কাজে আপাতত ব্যস্ত আছেন তিনি।


আরও খবর



মাতৃভাষা ও স্বাধীনতা বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই পেয়েছি: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আমরা যে মাতৃভাষায় কথা বলতে পারছি, আমরা যে স্বাধীন জাতি হিসেবে মর্যাদা পেয়েছি সেটা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রহমানের হাত ধরেই এসেছে, বলেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ ভবনে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আজ আমরা এখানে সমবেত হয়েছি ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে। বাংলাদেশ, বাঙালি আজ আমরা বিশ্বের বুকে যে আত্ম-পরিচয় পেয়েছি, সেটা দিয়ে গেছেন মহান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমরা মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকার পেয়েছি, সেখানেও বঙ্গবন্ধুর অবদান রয়েছে।

তিনি বলেন, ১৯৪৮ সালের ২ মার্চ ভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন তমদ্দুন মজলিশ এবং আরও কয়েকটি সংগঠন নিয়ে। তার আগে ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরে করাচিতে শিক্ষা সম্মেলনে রাষ্ট্রভাষা উর্দু করার ঘোষণা দেওয়া হয়। তার প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা প্রতিবাদ জানান। এর মধ্য দিয়েই ৪ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আইন বিভাগের ছাত্র থাকাকালে পূর্ব বাংলা ছাত্রলীগ গঠন করেন।

ছাত্র সংগঠন গঠন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্দোলন-সংগ্রামের প্রস্তুতি নেন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তখন যেসব রাজনৈতিক দল ও ছাত্র সংগঠন ছিল, তাদের নিয়ে সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়। সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নেয় ১১ মার্চ ধর্মঘট ডাকা হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা যে আজ মাতৃভাষায় কথা বলতে পারছি, আমরা যে স্বাধীন জাতি হিসেবে মর্যাদা পেয়েছি উপমহাদেশে ভাষাভিত্তিক একমাত্র রাষ্ট্র বাংলাদেশ, সেই জাতি রাষ্ট্র আমরা পেয়েছি, তার সব কিছুতেই অবদান রয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের। আমি তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাই, ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ড. আব্দুর রাজ্জাক, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আতাউর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মো. নুরুল হুদা, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজীর আহমেদসহ এ সময় আরও অনেকে বক্তব্য রাখেন।


আরও খবর



রূপগঞ্জে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৫জন দেখেছেন

Image

আবু কাওছার মিঠু রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি:নারায়ণগঞ্জের  রূপগঞ্জে  জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ২০ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার  মুড়াপাড়া সরকারি কলেজ মাঠে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান মাহমুদ রাসেল।

সভায় বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক এমপি, রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত  চেয়ারম্যান সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাসুদ রানা, সরকারি  মুড়াপাড়া কলেজর অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান, ভাইস প্রন্সিপাল আল-আমিন,  নারায়ণগঞ্জ জেলা ও রূপগঞ্জ উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুর রহিম, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য সীমা রাণী পাল শীলা, কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ জাহেদ আলী, মাঝিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ জালালসহ আরো অনেকে। 

পরে বিজয়ী প্রতিযোগিদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক এমপি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



সড়ক দুর্ঘটনার বিভ্রান্তিকর পরিসংখ্যান নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে‘নিরাপদ সড়ক চাই’

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

কামাল হোসেন খানঃবাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার বিভ্রান্তিকর পরিসংখ্যান নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) এর চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন। সোমবার (২৯ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম মিলনায়তনে  এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় 

সংবাদ সম্মেলনে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, দেশের যেসব সংগঠন বা সরকারি সংস্থা সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য প্রকাশ করছে তা ভিন্ন ভিন্ন হচ্ছে। এতে দেশের মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছে। আমরা বরাবরই বলে আসছি সরকার নিজ উদ্যোগে দুর্ঘটনার তথ্য প্রকাশ করুক। যদিও বিআরটিএ গত বছর থেকে এই তথ্য প্রকাশ করছে কিন্তু এর মধ্যে হাসপাতালের কোনো তথ্য নেই।

তিনি বলেন, পুলিশ সড়ক দুর্ঘটনার যে তথ্য প্রকাশ করে তাতে শুধু থানায় মামলার ঘটনা তুলে ধরা হয়। যদিও সব দুর্ঘটনায় মামলা হয় না। তাহলে আমরা এই তথ্য বিশ্বাস করবো কীভাবে। যেমন আমার স্ত্রী দুর্ঘটনায় মারা গেলে আমি কোনো মামলা করিনি।

তিনি বলেন, আমি আমার সংগঠন থেকে আর এ তথ্য প্রকাশ করবো না। আমাদের সেল চালু থাকবে নিজস্ব গবেষণার জন্য। তবে সরকারের প্রতি আহ্বান থাকবে বেসরকারি যে সমস্ত এক্সপার্ট আছে তাদের এই উদ্যোগের সঙ্গে সামিল করে একটা শক্তিশালী মনিটরিং সেল গঠন করার। এক্ষেত্রে আমাদের সুস্পষ্ট বক্তব্য হচ্ছে, যেহেতু সড়ক দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান তুলে ধরার যে ধারা আমরা শুরু করেছি সরকার যদি আমাদের সাপোর্ট এবং আর্থিক বরাদ্দ দেয় তাহলে আমরাও সরকারের সাথে এ কাজটি সঠিকভাবে করতে পারবো এই বিশ্বাস আমাদের আছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা বলতে চাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সড়ক দুর্ঘটনা বা রোডক্র্যাশকে প্রতিরোধযোগ্য একটি অসংক্রামক রোগ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। সংবিধানের ১৮ (১) অনুচ্ছেদ অনুসারে জনস্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও সুরক্ষার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। এছাড়াও অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাতে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ৩.৬ অর্জনে ২০২০ থেকে ২০২৫ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা বা রোডক্র্যাশে প্রাণহানির সংখ্যা ২৫ শতাংশ কমিয়ে আনার তাগিদ দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি বৈশ্বিক পর্যায়েও ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘভুক্ত সদস্য দেশগুলো বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনা বা রোডক্র্যাশে নিহত ও আহতের সংখ্যা শতকরা ৫০ ভাগ কমিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এই উদ্যোগ বাস্তবায়নের জন্য গ্লোবাল প্ল্যান ফর সেকেন্ড ডিকেড অব অ্যাকশন ফর রোড সেফটি ২০২১-২০৩০ এর আওতায় ৫টি স্তম্ভের কথা বলা হয়েছে।

সেগুলো হলো- বহুমুখী যানবাহন ও ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা, নিরাপদ যানবাহন, নিরাপদ সড়ক অবকাঠামো, নিরাপদ সড়ক ব্যবহার, রোডক্র্যাশ পরবর্তী ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এছাড়াও সড়ক ব্যবহারকারীদের জন্য ৫টি আচরণগত ঝুঁকি যেমন, গতিসীমা নিয়ন্ত্রণ না করা, সিট বেল্ট ব্যবহার না করা, মানসম্মত হেলমেট পরিধান না করা, মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানো এবং শিশুবান্ধব বিশেষায়িত আসন সংরক্ষণের ব্যবস্থা না করাকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এসব পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে ২০১০ থেকে ২০২১ সালে বেলারুশ, ব্রুনাই দারুসসালাম, ডেনমার্ক, জাপান, লিথুয়ানিয়া, নরওয়ে, রাশিয়ান ফেডারেশন, ত্রিনিদাদ, টোবাগো, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ভেনিজুয়েলা রোডক্র্যাশে মৃত্যুহার ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সরকার যদি নিজ উদ্যোগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং বিআরটিএর মাধ্যমে সমন্বয় করে একটু শক্তিশালী মনিটরিং সেলের মাধ্যমে সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য সংগ্রহ করে তা প্রকাশ করে তাহলে জনগণের মধ্যে আর বিভ্রান্তি থাকবে না।


আরও খবর