Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

৪ দিনে পুলিশের ওপর দুই হামলা: ইন্ধনদাতাদের খোঁজে মাঠে গোয়েন্দা

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩০৯জন দেখেছেন
Image

রাজধানীতে মাত্র চারদিনের ব্যবধানে দুই জায়গায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। থানার ওসিসহ অন্তত পাঁচ পুলিশ সদস্য এতে আহত হয়েছেন, ভাঙচুর করা হয়েছে ট্রাফিক বক্স।

এসব হামলার পেছনে ‘স্বার্থান্বেষী মহলের ইন্ধন’ রয়েছে বলে মনে করছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। ইন্ধনদাতাদের খুঁজে বের করতে গোয়েন্দারা এরইমধ্যে মাঠে নেমেছে বলে জানা গেছে।

ডিএমপি কর্মকর্তারা বলছেন, যে কোনো বাহিনীর তুলনায় পুলিশ জনগণের কাছাকাছি থাকে। যে কারণে জঙ্গি থেকে শুরু করে স্বার্থানেষী মহল সহজেই পুলিশকে টার্গেট করে। পুলিশের ওপর হামলা করে পরিস্থিতি অস্বাভাবিক করে ফায়দা লুটতে চায় স্বার্থান্বেষীরা।

এ ধরনের হামলা ঠেকাতে আরও সতর্ক থাকা এবং দক্ষতার সঙ্গে মোকাবিলার পরামর্শ দিয়েছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতনরা।

গত মঙ্গলবার সকালে জুরাইন পুলিশ বক্সের পাশে উল্টোপথে আসা এক যাত্রীকে থামানোকে কেন্দ্র করে পুলিশের তিন সদস্যকে মারধর ও ট্রাফিক বক্স ভাঙচুর করা হয়।

এর রেশ কাটতে না কাটতেই শুক্রবার দুপুরে মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যানে মুসল্লিদের ভেতর থেকে কয়েকজন যুবক মোহাম্মদপুর থানার ওসি ও একজন এএসআইকে মারধর করে।

জুড়াইনে হামলার ঘটনায় অজ্ঞাত সাড়ে চারশো জনকে আসামি করে শ্যামপুর থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি তদন্ত করছে ডিবি। এ ঘটনায় শুক্রবার পর্যন্ত ২৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শুক্রবার ঢাকা উদ্যানে হামলার ঘটনায় সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় পুলিশ কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়ে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক কর্মসূচি বেড়েছে। ঢাকা মহানগর এলাকায় রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে যেন কেউ কোনো আগুন সন্ত্রাস বা নাশকতা করতে না পারে, সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আইনশৃঙ্খলার যেন অবনতি না ঘটে সেদিকে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। প্রকৃত অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে।

পুলিশের ওপর পৃথক হামলার ঘটনায় স্বার্থান্বেষী মহলের ইন্ধন রয়েছে বলে মনে করেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

তিনি জাগো নিউজকে বলেন, জুরাইনে একজন উল্টোপথে মোটরসাইকেল নিয়ে এলো। আর তার কাছে কাগজ দেখতে চাওয়ায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে তোলা হয়। মুহূর্তে শত শত লোক জড়ো করে পুলিশ সদস্যদের মারধর ও ট্রাফিক বক্স ভাঙচুর করা হলো। এটা স্পষ্ট স্বার্থান্বেষী মহলের ইন্ধনে হামলা হয়েছে। আমরা এই ইন্ধনদাতাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় নিয়ে আসবো। এরইমধ্যে তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ঢাকা উদ্যানে মোহাম্মদপুর থানার ওসির উপর হামলার পেছনেও অশুভশক্তির ইন্ধন থাকতে পারে বলে ধারণা ডিবিপ্রধানের।

পুলিশের ওপর হামলার বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোয়েন্দা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা জানান, একটি মহল ফায়দা লুটতে সবসময় পুলিশকে টার্গেট করে। এর আগেও দেশবাসী দেখেছে পুলিশের ওপর বোমা হামলাসহ নৃশংস হামলা হয়েছে। তবে এসব হামলায় কেউ পালিয়ে থাকতে পারেনি। অপরাধের সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। সম্প্রতি পুলিশের ওপর হামলার ঘটনাতেও অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

হামলার বিষয়ে ডিএমপি মোহাম্মদপুর জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মৃত্যুঞ্জয় দে সজল জাগো নিউজকে বলেন, ঢাকা উদ্যানে স্থানীয়দের একটি সংগঠন থেকে বিক্ষোভ করার প্রস্তুতি নেয়। তখন ওসি সাহেব তাদের দ্রুত সময়ে কর্মসূচি শেষ করার কথা বলেন। চলে আসার সময় কয়েকজন যুবক তার ওপর হামলা করে। হামলাকারীদের চিহ্নিত করতে এরইমধ্যে আমরা কাজ করছি।

ডিএমপির অপরাধ বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, পুলিশ সাধারণ মানুষের সবচেয়ে কাছে থাকে, তাই সহজেই পুলিশকে টার্গেট করা হয়। পুলিশকে আক্রান্ত করে একটা মহল ফায়দা নিতে চায়। এ ধরনের হামলা প্রতিহত করতে আমাদের আরও সতর্ক এবং কৌশলী হতে হবে।


আরও খবর



দিশার ময়নাতদন্ত ও মৃত্যুর কারণ উদঘাটনের দাবি সহপাঠীদের

প্রকাশিত:Tuesday ০৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
Image

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থী জান্নাতুল মাওয়া দিশার আত্মহত্যার ঘটনার কারণ উদঘাটন ও ময়নাতদন্ত করে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছেন নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (৬ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে নিহত শিক্ষার্থীর সহপাঠীরা এ মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে তারা বলেন, একটা মেয়ে কতটা খারাপ পরিস্থিতিতে পড়লে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়? সদা হাস্যজ্জ্বল একটা মেয়ে কেন এমন করলো আমরা এর সঠিক তদন্ত চাই।

সহপাঠীরা আরো বলেন, দিশা একজন উৎফুল্ল মেয়ে। কোনো কারণ ছাড়া সে কখনো এমন সিদ্ধান্ত নেবে না। আমরা খবর পেলাম ময়নাতদন্ত করতেও তার পরিবারের সদস্যদের অনিহা আছে। আজকের এই মানববন্ধনে আমরা ২ দফা দাবি জানাচ্ছি। ময়নাতদন্ত নিশ্চিত করতে হবে এবং দিশা কী কারণে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হলো তা খুঁজে বের করতে হবে।

সোমবার (৬ জুন) দুপুর ১২টায় ঢাকায় স্বামীর বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন দিশা। দিশা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি যশোর জেলায়। দু’বছর আগে তার বিয়ে হয়। স্বামীর ব্যবসা সূত্রে প্রতি সপ্তাহে তিনি ঢাকায় যেতেন। সোমবার দুপুর ১২টায় নিজ রুমে গলায় ফাঁস দেন তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় তার স্বামীকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে।


আরও খবর



শুধু বলিউডে কেন, দক্ষিণের সিনেমাও ফ্লপ হয়: বরুণ ধাওয়ান

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

একটি মিডিয়া সম্প্রতি কথোপকথনের সময় অভিনেতা বরুণ ধাওয়ানকে তিনটি দক্ষিণের সিনেমা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল। এ তিনটি সিনেমা বলিউডের সব ছবির ইতিহাসকে পেছনে ফেলে দিয়েছে। সিনেমাগুলো ‘পুষ্প: দ্য রাইজ', 'আরআরআর' এবং 'কেজিএফ: অধ্যায় ২'।

উত্তর বনাম দক্ষিণের সিনেমা, এই বিতর্কের বিষয়ে নিজের চিন্তাভাবনা শেয়ার করে বরুণ বলেন, ‘সিনেমা এখন ভালো চলছে। দর্শকরা যে সিনেমা দেখতে চান তা দেখার অধিকার আছে। হলিউডের সিনেমাগুলো এত বছর ধরে কাজ করছে। কারণ হলিউডের চাহিদা বেশি। আমি নিজে 'কেজিএফ ২' দেখতে বেশ উপভোগ করেছি। এটি দেখে আমার খুব ভালো সময় কেটেছে। এটি এখন সবচেয়ে বড় ব্যবসার একটি।’

তিনি আরও যোগ করে বলেন, ‘শুধু বলিউডের সিনেমা ফ্লপ হয় না। দক্ষিণের অনেক সিনেমা আছে সুপারফ্লপ। হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে আমাদের অনেক ভালো সিনেমা আসছে। প্রতিটি সিনেমা হিট হতে পারে না। দর্শকরা খারাপ সিনেমা দেখবে না, তা হলিউড, বলিউড বা দক্ষিণ; যারই হোক না কেন। আমাদের ভালো ছবি বানাতে হবে।’

এদিকে বরুণ ধাওয়ানের ‘যুগযুগ জিও’ ছবিটি মুক্তির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। রাজ মেহতা পরিচালিত এ ছবিতে আরও আছেন কিয়ারা আদভানি, অনিল কাপুর এবং নীতু কাপুর। সে ছবির প্রচারে খুব ব্যস্ত রয়েছেন বরুণ।


আরও খবর



পথশিশুদের জন্ম নিবন্ধনের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

সরকার সবার জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করেছে। কিন্তু দেশের সুবিধাবঞ্চিত বৃহৎ জনগোষ্ঠী এখনো জন্ম নিবন্ধনের বাইরে। নানা জটিলতার কারণে পথশিশুসহ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্মসনদ পাওয়ার সুযোগ হচ্ছে না। কর্তৃপক্ষ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্ম নিবন্ধনের সুযোগ আছে বললেও বাস্তবে এমন কোনো ব্যবস্থা নেই।

তাই দেশের দুই লাখ পথশিশুকে জন্ম নিবন্ধনের আওতায় আনার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে।

স্পোর্টস ফর হোপ অ্যান্ড ইনডিপেনডেন্ট সংগঠনের পক্ষে গত সপ্তাহে ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল এ রিট আবেদন দায়ের করেন। রিটে নারী ও শিশু মন্ত্রণালয়ের সচিব, জন্ম নিবন্ধন অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।

এ বিষয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট আবেদন করা হয় বলে রোববার (১২ জুন) গণমাধ্যমকে জানান রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল। হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে শুনানি হতে পারে।

রিটের বিষয়ে আইনজীবী জানান, বাস্তবতা হলো, শিশুর পিতা-মাতার পরিচয় ও ঠিকানা না থাকা, শিশুর ধর্ম নির্ধারণ করতে না পারা, নিবন্ধন নিয়ে শিশুর অজ্ঞতা ও ফি দিতে না পারায় তাদের নিবন্ধন করা হয়ে ওঠে না। আবার নিবন্ধন ফরমে নাম, পিতা-মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা, বর্তমান ঠিকানার জন্য পৃথক ক্রম থাকলেও পথশিশুদের তথ্যসংবলিত কোনো ক্রম রাখা হয়নি। যারা পথশিশু তাদের অনেকের পরিচয় ও বাসস্থান নেই।

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন, ২০০৪-এর ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ২০১৮ সালের জন্ম/মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী পিতৃপরিচয়হীন, এতিম শিশুর জন্ম নিবন্ধন করা যাবে। তথ্যের ঘাটতির কারণে সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক জন্ম বা মৃত্যুর নিবন্ধন প্রত্যাখ্যান করতে পারবেন না।

ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল জানান, বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, দেশে দুই লাখের বেশি পথশিশু রয়েছে। এসব শিশুদের জন্ম নিবন্ধন সনদ নেই। জন্ম নিবন্ধন সনদ না থাকার কারণে পথশিশুরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারে না। জন্ম নিবন্ধন সনদ না থাকার কারণে শিশুরা অনেক নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ কারণে রিট দায়ের করেছি।


আরও খবর



কবে গোল পাবে ক্যাবরেরার বাংলাদেশ?

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

নতুন স্প্যানিশ কোচ হ্যাভিয়ের ক্যাবরেরার অধীনে এক এক করে চারটি ম্যাচ খেলা হয়ে গেছে বাংলাদেশের। অথচ, নতুন এই কোচের অধীনে এখনো গোলের দেখা পায়নি জামাল ভূঁইয়ারা। লাল-সবুজ জার্সিধারীরা সর্বশেষ ম্যাচটি খেললো বুধবার মালয়েশিয়ায় বাহরাইনের বিপক্ষে। এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের এই ম্যাচটিতে বাংলাদেশ হেরেছে ২-০ গোলে।

জানুয়ারিতে দায়িত্ব নিয়েছেন ক্যাবরেরা। বাংলাদেশের ডাগআউটে তার অভিষেক হয়েছিল মালেতে ২৪ মার্চ মালদ্বীপের বিপক্ষে। ওই ম্যাচ বাংলাদেশ হেরেছিল ২-০ গোলে। ক্যাবরেরার বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচ খেলেছিল মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে। ২৯ মার্চ সিলেটে হওয়া ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিল। প্রথম দুই ম্যাচের মতো তৃতীয় ম্যাচটিও ছিল ফিফা ফ্রেন্ডলি। মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে ১ জুন ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করেছিল বাংলাদেশ। সর্বশেষ ম্যাচে বাহরাইনের কাছে হারলো ২-০ গোলে।

চার ম্যাচে চারটি গোল হজম করেছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের জাল এখনো চিনতে পারেননি ক্যাবরেরার শিষ্যরা। গোল করতে না পারলে জিতবে কিভাবে বাংলাদেশ? কবেই বা করবে বহুল প্রত্যাশিত সেই গোল?

গোল করতে হলে গোলের সুযোগ তৈরি করতে হবে। প্রতিপক্ষের রক্ষণকে ব্যস্ত রেখে গোলের চেষ্টা করতে হবে। সর্বশেষ দুই ম্যাচে তা পারেনি বাংলাদেশ।

পারবে কি করে? গোল করার মতো ট্রেডমার্ক কেউ তো নেই ক্যাবরেরার দলে। একটু ভুল বোঝাবুঝিতে নাবিব নেওয়াজ জীবনকে ক্যাম্প থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। দল থেকে ছুঁড়ে ফেলার মতো অপরাধ কি নাবিব নেওয়াজ জীবন করেছিলেন? তা নিয়ে বিতর্ক আছে।

মতিন মিয়া, সুমন রেজারা বাদ পড়েছেন চোটের কারণে। ক্যাবরেরার দলে গোল করার মানুষটা কে? আপনি কার ওপর ভরসা রাখতে পারবেন? যে কারণে টানা চার ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালের দেখা পায়নি বাংলাদেশের কোন খেলোয়াড়।

২০১৫ সালে টানা ৬ ম্যাচ গোলহীন ছিল বাংলাদেশ। ২০১৬ সালে ছিল টানা ৫ ম্যাচ। মালয়েশিয়ায় বাকি দুই ম্যাচে গোল করতে না পারলে ২০১৬ সালের পর আবারো টানা ৬ ম্যাচ গোল না পাওয়ার দুঃখ পোড়াবে জামাল ভূঁইয়াদের।


আরও খবর



স্রোতে ভেসে যাচ্ছিল বাচ্চা হাতিটি, প্রাণপণ চেষ্টায় বাঁচালো মা

প্রকাশিত:Sunday ২৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

সন্তানকে আগলে রাখেন মা। মা-সন্তানের ভালবাসা চিরন্তন। নিজের জীবনকে বাজি রেখেও সন্তানকে রক্ষা করেন মায়েই। পৃথিবীর সব প্রাণীর মধ্যে এ যেন অনন্য এক মায়ার বন্ধন। সম্প্রতি একটি ভিডিওতে সেই ভালবাসার ধরন প্রকাশ পেয়েছে একটি হাতি ও তার বাচ্চার মধ্যে।

ওই ভিডিওতে দেখা যায় যে, খরস্রোতা নদী পার হচ্ছিল হাতির দল। হঠাৎই একটি বাচ্চা হাতি পানির স্রোতে ভেসে যেতে থাকে। অগত্যা মা হাতিটি প্রাণপণ চেষ্টা শুরু করেন তার বাচ্চাটিকে বাঁচানোর জন্য। অবশেষে রক্ষা পায় বাচ্চা হাতিটি। পরে তারা হাতির পালের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যায়।

ভারতীয় বন কর্মকর্তা পারভীন কাসওয়ান ওই ভিডিওটি শেয়ার করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। নর্থবেঙ্গলের নাগরাকাটার কাছে ভিডিওটি করা হয়েছে। টুইটারে ভিডিওটি শেয়ার করার পর ৩২ হাজারের বেশি মানুষ দেখেছেন সেটি এবং লাইক পড়েছে ১৮ হাজারের বেশি।

সূত্র: এনডিটিভি


আরও খবর