Logo
আজঃ Tuesday ২৬ October ২০২১
শিরোনাম
৪১তম বিসিএসের আবশ্যিক বিষয়সমূহের লিখিত পরীক্ষা আগামী ২৯ নভেম্বর

২৯ নভেম্বর শুরু ৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৬ October ২০২১ | ৮৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

 

ডেস্ক এডিটর :

 

৪১ তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী ২৯ নভেম্বর শুরু হবে। রোববার (১০ অক্টোবর) সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নূর আহমদের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৪১তম বিসিএসের আবশ্যিক বিষয়সমূহের লিখিত পরীক্ষা আগামী ২৯ নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষার হল, আসন ব্যবস্থা এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত নির্দেশা পিএসসির ওয়েবসাইটে যথাসময়ে জানানো হবে।

 

করোনা মহামারির কারণে কয়েক দফায় পিছিয়ে চলতি বছরের ১৯ মার্চ এই বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত ১ আগস্ট এ বিসিএসের ফল প্রকাশ করা হয়। এতে প্রাথমিকভাবে ২১ হাজার ৫৬ জন উত্তীর্ণ হন।

 

এর আগে ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। এতে বিভিন্ন পদে দুই হাজার ১৩৫ জন কর্মকর্তা নিয়োগের কথা বলা হয়।

 

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি কর্মকর্তা নেওয়া হবে শিক্ষা ক্যাডারে। এই ক্যাডারে ৯১৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এর মধ্যে সাধারণ শিক্ষায় ৯০৫ জন এবং কারিগরি শিক্ষা বিভাগে ১০ জন প্রভাষক নেওয়া হবে।

 

শিক্ষার পর বেশি নিয়োগ হবে প্রশাসন ক্যাডারে। প্রশাসনে ৩২৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এছাড়া পুলিশে ১০০ জন, স্বাস্থ্যে সহকারী সার্জন ১১০ জন ও সহকারী ডেন্টাল সার্জন ৩০ জন নেওয়া হবে।

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



প্রায় ৪ হাজার বিঘা ৩ ফসলি জমি বছরের ৮/৯ মাস জলাবদ্ধ

নাটোর বড়াইগ্রামে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:Sunday ১৭ October ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৬ October ২০২১ | ১৭৯জন দেখেছেন
Image


 

নাটোর প্রতিনিধি :

 

নাটোরের বড়াইগ্রামে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।রবিবার সকালে উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের ভেদাগাড়ি বিলের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে চামটা,বর্নি এবং জোনাইল গ্রামের প্রায় ৪ শতাধিক জনসাধারণ অংশগ্রহণ করেন।

 

এ সময় অত্র এলাকার প্রবীণ ব্যক্তিত্ব মোঃ রওশন আলীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন - জোনাইল ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড সদস্য মো: ইমদাদুল হক, মো: তরিকুল ইসলাম, ফ্রান্সিস রোজারিও, মো: জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

 

 

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন- প্রায় ৪ হাজার বিঘা ৩ ফসলি জমি বছরের ৮/৯ মাস জলাবদ্ধ হয়ে থাকায় কোন ফসল ফলানো সম্ভব হয় না, ফলে এই এলাকার কৃষিভিত্তিক অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ভেঙে পড়ায় সাধারণ মানুষ দারিদ্রতার দিকে ধাবিত হচ্ছে। চামটা-দিয়ারপাড়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা, মসজিদ, কবরস্থান সহ প্রায় ৪০ শতাংশ বাড়িতে দির্ঘ সময় জলাবদ্ধতা থাকে, এতে বয়োবৃদ্ধ ও শিশুরা সংক্রমিত হয় পানিবাহিত ও চর্ম রোগে। ২৫/৩০ বছরের সমস্যার স্থায়ীভাবে সমাধান চেয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এলাকাবাসী।

 

 

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মো: খলিলুর রহমান, মোঃ নজিমুল্লা, জুব্বার ফকির, সুনিল গোমেজসহ অত্র এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারণ।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গাঁজা খাওয়া নিয়ে বাকবিতণ্ডা, ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গাঁজা খাওয়া নিয়ে কথাকাটাকাটি ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

প্রকাশিত:Thursday ২১ October 20২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৬ October ২০২১ | ১৬৯জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

গাঁজা সেবন নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে শেখ আকাশ (২০) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।বুধবার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সুলতানপুর গ্রামের সুলতানপুর মধ্যপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।নিহত আকাশ ওই গ্রামের শেখবাড়ির উত্তরপাড়ার হুমায়ুনের ছেলে। তিনি চিনাইর ডিগ্রি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

 

হাসপাতাল ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, দুপুরে সুলতানপুর গ্রামের দক্ষিণপাড়ার একটি স্কুলের সামনে আকাশ গাঁজা সেবন করেন বলে অভিযোগ করা হয়। এতে তার সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয় উত্তরপাড়ার রিফাতের। এসময় বিষয়টি মীমাংসা করে দেন স্থানীয়রা। আর তাদের বাড়ি ফিরে যেতে বলেন।

 

পরে বিকেলে সুলতানপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে আকাশ বন্ধুদের নিয়ে খেলা দেখতে যান। খেলা শেষে মধ্যপাড়া এলাকায় আড্ডা দেওয়ার সময় রিফাত ও তার সহযোগীরা আকাশের ওপর অতর্কিতভাবে হামলা করে। এসময় আকাশের বুকে ও মাথায় ছুরিকাঘাত করেন রিফাত।

স্থানীয়রা গুরুত্বর আহত অবস্থায় আকাশকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

 

এ ঘটনায় আরও চারজন আহত হয়েছেন। তারা হলেন, ফায়েজ (১৬), আরমান (২০), রাকিব (১৪) ও মাসুম (১৭)। তাদের বাড়ি সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নে। আহতদের ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, আকাশের মাথা-বুকে একাধিক ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার মৃত্যু হয় হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই।

 

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ মোতায়েন রয়েছে ঘটনাস্থলে।

তিনি আরও জানান, অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের হচ্ছে।

-খবর প্রতিদিন / সি.বা 


আরও খবর



কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রকে গ্রেফতার

কৃষক হত্যা মামলায় ভারতীয়মন্ত্রীপুত্র গ্রেফতার

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৬ October ২০২১ | ৭৩জন দেখেছেন
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image



আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভারতের উত্তর প্রদেশের লখিমপুর খেরিতে কৃষক হত্যার ঘটনার মামলায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রকে গ্রেফতার করেছে দেশটির পুলিশ। শনিবার রাত ১১টার দিকে গ্রেফতার করা হয় আশিসকে। খবর এনডিটিভির।

 

উত্তর প্রদেশের লখিমপুর-কাণ্ডের পাঁচ দিন পর গ্রেফতার করা হলো আশিস মিশ্রকে। যদিও প্রথম থেকেই বিরোধী দলগুলো আশিসকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে আসছিলেন।দেশটির পুলিশ বলছে, তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযোগ এড়ানোর চেষ্টা করেছেন এবং সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাব দেখাননি।

 

বিতর্কিত আইন বাতিলের দাবিতে কৃষকদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে ভারতে। এর মাঝে কৃষককে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যার অভিযোগ ওঠে মন্ত্রীপুত্র আশিস মিশ্রের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় উচ্চ আদালত উত্তর প্রদেশ সরকারকে নির্দেশ দেন, কৃষক নিহত হওয়ার ঘটনায় যেই জড়িত থাকুক তাকে গ্রেফতার করার। এর পরপরই গ্রেফতার হন আশিস।

 

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত রোববার বিকালে লখিমপুর খেরিতে কৃষকরা বিক্ষোভ করার সময় একটি গাড়ি তাদের ওপর দিয়ে চলে যায়। এতে দুই কৃষক প্রাণ হারান। অভিযোগ, সেই গাড়িতে ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অজয় মিশ্রর ছেলে। এ খবর ছড়িয়ে পড়তেই সংঘর্ষ বেঁধে যায় পুলিশ-বিক্ষোভকারীদের মধ্যে। এতে চার কৃষকসহ আটজনের মৃত্যু হয়।

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



স্থানীয় সাংসদের ডিওলেটার নকল অর্ধকোটি আয়, সিন্ডিকেটে জড়িত সরকারী কর্মকর্তারা

মিঠাপুকুরে ভুয়া কাজীর হাতে ২ হাজার বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রি

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৫ October ২০২১ | ৭১জন দেখেছেন
Image

 

রুবেল ইসলাম,মিঠাপুকুর :

 

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলায় ভূয়া নিকাহ্ রেজিস্ট্রার সেজে ৭ বছরে বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রি করে কোটি টাকা আয় করেছেন এনামুল হক নামে কাজী। এই সময়ে তিনি ২ হাজারেরও বেশি নিকাহ্ ও তালাক রেজিস্ট্রি করেছেন। সম্প্রতি জানা গেছে তিনি একজন ভুয়া কাজী। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন আমিরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি।

 

গত ২৬ শে আগস্ট আলোচিত অভিযোগটি উঠেছে-উপজেলার ময়েনপুর ইউনিয়নে দক্ষিণপাড়া গ্রামের আব্দুল হান্নানের পুত্র কাজী এনামুল হকের বিরুদ্ধে।ভুয়া রেজিস্ট্রারি নিয়োগ দেখিয়ে কাজির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।এতে সহযোগিতা করছেন জেলা রেজিস্ট্রার অফিস, মুদ্রণ ও প্রকাশনা অধিদপ্তর রংপুর আঞ্চলিক অফিসের কিছু কর্মচারী।তবে এই বিষয়ে উভয় উভয়কে দোষারোপ করছেন।

 

অভিযোগকারী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়- বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার শিকারপুর ইউনিয়নের মুন্ডপাশা গ্রামের আলাউদ্দিন মিয়ার ছেলে আমিরুল ইসলাম মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন)আইনে ১৯৭৪(১৯৭৪ সনের ৫২ নং আইন)এর ৪ ধারানুযায়ী নং-বিচার-৭/২এন/২০০৪-৪৪২ নং স্মারেেক কাজীর দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সেই স্মারক জালিয়াতি করে দীর্ঘ ৭বছর ধরে কাজীর দায়িত্ব পালন করে আসছেন এনামুল হক।তিনি আরও বলেন-তৎকালীন সময়ে আইন ও বিচার বিভাগ থেকে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার নিয়োগপ্রাপ্ত সঠিকতা প্রসঙ্গে ও তার বিরুদ্ধে বিচার-৭/২এন-৬৯/২০০৪-২৬৫ স্মারকে ৮ই মার্চ ২০১৭ সালে জেলা রেজিস্ট্রারকে ফৌজদারি মামলার নির্দেশ দেন সিনিয়র সহকারী সচিব জি.এম.নাজমুল শাহাদাৎ।কিন্তু তৎকালীন জেলা রেজিস্ট্রার অর্থের বিনিময়ে কোন ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।জানা যায়-গত ১৬ই ফেব্রয়ারী ২০১৪ সালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান কাজী আব্দুল ওয়াদুদ(৪৫)।তার মৃত্যুর পর থেকে ভুয়া নিয়োগপত্র দেখিয়ে কাজীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

 

নামপ্রকাশে অনিশ্চুক স্থানীয় বাসিন্দা জানান-এনামুল কাজী এলাকায় ৮-১০ হাজার টাকার বিনিময়ে বাল্যবিবাহ পড়িয়ে থাকেন।এছাড়া বিভিন্ন ধরণের ঝামেলার বিয়ে অনেক অর্থের বিনিময়ে রেজিস্ট্রোর করেন বলে দাবী তাদের।

এই বিষয়ে এনামুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করেননি। আবু তালেব মিয়া ও ইদ্রিস আলী নামে দুজনকে সাব কাজীর দায়িত্ব দেওয়ার কথা অস্বীকার করেন তিনি।

মুদ্রণ ও প্রকাশনা অধিদপ্তর রংপুর আঞ্চলিক অফিসের ম্যানেজার আব্দুস ছালাম বলেন-ময়েনপুর ইউনিয়নের কাজী এলামুল হকের কোন ফাইল তার অফিসে নেই ।জেলা রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত অনুমতি ও সরকারী মূল্য পরিশোধ না হওয়া পযর্ন্ত আমাদের কাছ থেকে বই পাওয়ার কোন সুযোগ নেই।তাহলে বই পেল কিভাবে এমন প্রশ্নে জেলা রেজিস্ট্রার অফিসকে দায়ী করেন তিনি।

 

জেলা রেজিস্ট্রার আব্দুল সালাম প্রামাণিক জানান-তিনি এই বিষয়ে অবগত নন।ইতিপূর্বে যিনি দায়িত্বে ছিলেন তিনি এই কাজ করেছেন। তার অফিসের সুপারিশ ছাড়া মুদ্রণ শাখা কখনই কোন বই হস্তান্তর করেন না। কাজী বই কিভাবে পেল এমন প্রশ্নে  তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান তিনি।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



২০২২-২৩ অর্থবছরেই জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে এশিয়ার বেশিরভাগ দেশকে আবারও পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ

দ. এশিয়ায় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সবচেয়ে ধারাবাহিক বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৬ October ২০২১ | ৭২জন দেখেছেন
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image



আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

 

করোনাভাইরাস মহামারির ভয়াল থাবা থেকে ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসছে দক্ষিণ এশিয়া। স্থবিরতা কাটিয়ে ফের গতিশীল হচ্ছে এ অঞ্চলের অর্থনীতি। কিন্তু বছরখানেক আগে অর্থনীতিতে যে আঘাত দিয়েছিল করোনা, তার ক্ষত পুরোপুরি মেটানো বেশ কঠিন। অথচ এমন কঠিন সময়েও দারুণ কৃতিত্ব দেখিয়ে অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। বলা বাহুল্য, ২০১৯-২০ অর্থবছরে দক্ষিণ এশিয়ায় একমাত্র ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি হওয়া দেশের নাম বাংলাদেশ। উন্নয়নের সেই ধারা অব্যাহত থাকতে পারে আগামী বছরগুলোতেও। আর তা হলে ২০২২-২৩ অর্থবছরেই জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার বেশিরভাগ দেশকে আবারও পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ।

 

গত বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত দক্ষিণ এশীয় অর্থনীতি বিষয়ক সবশেষ প্রতিবেদনে (সাউথ এশিয়া ইকোনমিক ফোকাস) এসব তথ্য উঠে এসেছে।

 

বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত হিসাবে দেখা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শুধু বাংলাদেশের (জুলাই-জুন) জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ইতিবাচক ধারায় ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। একই সময় এ অঞ্চলের বাকি সব দেশের প্রবৃদ্ধিই ছিল নেতিবাচক। ওই অর্থবছরে ভারতের (এপ্রিল-মার্চ) প্রবৃদ্ধি মাইনাস ৭ দশমিক ৩ শতাংশ, মালদ্বীপের (জানুয়ারি-ডিসেম্বর) মাইনাস ৩৩ দশমিক ৬ শতাংশ, শ্রীলঙ্কার (জানুয়ারি-ডিসেম্বর) মাইনাস ৩ দশমিক ৬ শতাংশ, ভুটানের (জুলাই-জুন) মাইনাস ০ দশমিক ৬ শতাংশ, নেপালের (জুলাই-জুন) মাইনাস ২ দশমিক ১ শতাংশ ও পাকিস্তানের (জুলাই-জুন) অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল মাইনাস ০ দশমিক ৫ শতাংশ।

 

এরপর ধীরে ধীরে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসায় ফের ইতিবাচক ধারায় ফেরে দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনীতি। ২০২০-২১ অর্থবছরে এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ শতাংশ, ভারতের ৮ দশমিক ৩ শতাংশ, নেপালের ১ দশমিক ৮ শতাংশ, পাকিস্তানের ৩ দশমিক ৫ শতাংশ, মালদ্বীপের ২২ দশমিক ৩ শতাংশ ও শ্রীলঙ্কার ৩ দশমিক ৩ শতাংশ। এই বছরটিতে কেবল ভুটানই নেতিবাচক ধারা থেকে বের হতে পারেনি। তাদের প্রবৃদ্ধি ছিল মাইনাস ১ দশমিক ২ শতাংশ।

 

বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাস অনুসারে, ২০২১-২২ অর্থবছরেও বাংলাদেশ আশাব্যঞ্জক গতিতে প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। এসময় বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। এছাড়া নেপালের প্রবৃদ্ধি বেড়ে ৩ দশমিক ৯ শতাংশ ও ভুটানের প্রবৃদ্ধি বেড়ে হতে পারে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ। ওই বছর এ অঞ্চলের বাকি দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি কমতে পারে। সেসময় ভারতের প্রবৃদ্ধি কমে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ, পাকিস্তানের ৩ দশমিক ৪ শতাংশ, মালদ্বীপের ১১ শতাংশ ও শ্রীলঙ্কার প্রবৃদ্ধি কমে দাঁড়াতে পারে মাত্র ২ দশমিক ১ শতাংশে।

 

ভারতের অবনতি অব্যাহত থাকবে এর পরের বছরও। অর্থাৎ ২০২২-২৩ অর্থবছরে দেশটির প্রবৃদ্ধি আরও কমে হবে ৬ দশমিক ৫ শতাংশ। অন্য দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি কিছুটা বাড়বে। ওই বছর উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ভারতকে আবারও ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি বেড়ে দাঁড়াবে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ। সে সময় দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে কেবল মালদ্বীপের চেয়েই পিছিয়ে থাকবে বাংলাদেশ।

 

সুতরাং বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাস বলছে, আগামী বছরগুলোতে দক্ষিণ এশিয়ার বাকি দেশগুলো অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে উত্থান-পতন দেখলেও সুষমগতিতেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর