Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

১ জানুয়ারি শুরু হবে বাণিজ্যমেলা

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৪২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; আগামী ১ জানুয়ারি শুরু হতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা। রাজধানীর উপকণ্ঠ পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) মাসব্যাপী এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১ জানুয়ারি সকাল ১০টায় সরাসরি বাণিজ্যমেলার উদ্বোধন করবেন। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী গতকাল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

করোনা মহামারীর কারণে ২০২০ ও ২০২১ সালে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে পূর্বাচলে স্থায়ী কেন্দ্রে বাণিজ্যমেলা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। আগামী ১ জানুয়ারি ঢাকায় হবে ২৭তম বাণিজ্যমেলার আসর। এর আগে সবগুলো মেলা হতো রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অস্থায়ী কেন্দ্রে। চীনের অর্থায়নে পূর্বাচলে স্থায়ী বাণিজ্যমেলা কেন্দ্র গড়ে তোলার পর এখানেই প্রতিবছর আসর বসবে।

ইপিবির সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী জানান, মেলা আয়োজনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা।


আরও খবর



হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image
হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:কুমিল্লার হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়। এ উপলক্ষে কার্যালয় চত্বরে জনসচেতনতামূলক সভা এবং তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত সেবা গ্ৰহিতাদের নামজারি জমা খারিজের সৃজিত খতিয়ান, দাখিলা ও খতিয়ানের ভুল সংশোধন সেবা দেওয়া হয়। 

এতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) আহাম্মেদ মোফাচ্ছেরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ক্ষেমালিকা চাকমা। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা স্বপন চন্দ্র বর্মণ, উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের কানুনগো আবদুল করিম ও নাজির মো. গোলাম মোস্তফা, খাদিজা মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও খবর



সৌদি পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন হজযাত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৭১জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশে চলতি বছর সৌদি আরবে পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন বাংলাদেশি হজযাত্রী। মোট ২০৯টি ফ্লাইটে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে পাড়ি জমিয়েছেন তারা।

বুধবার (১২ জুন) হজ পোর্টালে আইটি হেল্প ডেস্কের প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

হেল্প ডেস্কের তথ্যমতে, মোট ২০৯টি ফ্লাইটে মঙ্গলবার পর্যন্ত সৌদি আরবে পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন বাংলাদেশি। এরমধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ১০৫টি, সৌদি এয়ারলাইনস ৭২টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ৩২টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।

এদিকে, পবিত্র হজ পালন করতে গিয়ে গোলাম কুদ্দুস (৫৪) নামে আরও এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বছর হজ পালনে গিয়ে এখন পর্যন্ত ১৫ জনের মৃত্যু হলো। তাদের মধ্যে ১৪ জন পুরুষ ও ১ জন নারী। এর মধ্যে মক্কায় ১১ জন এবং মদিনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়।

বাংলাদেশ থেকে গত ৯ মে হজযাত্রীদের বহনকারী প্রথম ফ্লাইট সৌদি আরবের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। আজ বুধবার শেষদিনের মতো হজযাত্রীদের ফ্লাইট সৌদি আরবের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। এ বছর হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে আগামী ২০ জুন। এ ছাড়া আগামী ২২ জুলাই হজযাত্রীদের শেষ ফিরতি ফ্লাইট দেশের উদ্দেশে রওনা হবে।

প্রসঙ্গ, গত ৬ জুন সৌদি আরবে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। দেশটিতে পরদিন ৭ জুন থেকে আরবি বর্ষপঞ্জিকার ১২তম এ মাস শুরু হয়েছে। এই হিসেবে আগামী ১৫ জুন মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া পরদিন ১৬ জুন দেশটিতে পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর



পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করায় দেশে স্থিতিশীল: আইজিপি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৭৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে দেশে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণে সক্ষম হয়েছে, ফলে দেশে স্থিতিশীল অবস্থা বিরাজ করছে, বলেছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন।

আইজিপি বুধবার (১২ জুন) সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কোয়ার্টারলি কনফারেন্সে সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, বর্তমানে দেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তিনি জঙ্গিদের বিষয়ে সর্বদা সতর্ক থাকার জন্য মাঠ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, পুলিশকে আত্মতুষ্টিতে ভুগলে হবে না, আরো পেশাদারিত্বের সাথে দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে হবে। পুলিশ প্রধান বলেন , পুলিশ নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করে জনগণের আস্থা অর্জন করেছে। ফলে পুলিশের প্রতি জনগণের প্রত্যাশা বেড়েছে। তিনি এ অবস্থা ধরে রাখার জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশনা প্রদান করেন।

অতিরিক্ত আইজি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) মো. আতিকুল ইসলাম জানুয়ারি-মার্চ ২০২৪ কোয়ার্টারে দেশের সার্বিক অপরাধ চিত্র সভায় উপস্থাপন করেন।

সভায় অতিরিক্ত আইজি (প্রশাসন) মো. কামরুল আহসান বিপিএম (বার), স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) প্রধান অতিরিক্ত আইজি মো. মনিরুল ইসলাম বিপিএম (বার), পিপিএম (বার), অতিরিক্ত আইজি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) মো. আতিকুল ইসলাম বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) সহ অতিরিক্ত আইজিপিগণ, সকল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলার পুলিশ সুপারগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় অতিরিক্ত আইজি (প্রশাসন) মোঃ কামরুল আহসান, স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত আইজি মো. মনিরুল ইসলাম, এপিবিএন'র অতিরিক্ত আইজি সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, অতিরিক্ত আইজি (অডিট অ্যান্ড ইন্সপেকশন) খন্দকার লুৎফুল কবির, নৌ পুলিশের অতিরিক্ত আইজি আব্দুল আলীম মাহমুদ, বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীর প্রিন্সিপাল মাসুদুর রহমান ভূঞা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন ।


আরও খবর



কম দামে ধান কিনতে জোটবদ্ধ ব্যবসায়ীরা,বিক্রি করতে এসেই ধরা চাষীরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাটে ব্যবসায়ীরা বেশী লাভের আশায় জোটবদ্ধ হয়ে ধান কিনছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কম মূল্যে ধান ক্রয় করে মিল-চাতাল মালিকরা সেই ধান থেকে চাল তৈরী করে সরকার নিদ্ধারিত রেটে খাদ্যগুদামে সরবরাহ করে মোটা অংকের লাভ করবেন বলে শংঙ্খা কৃষকদের। আবার স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বাহির থেকে আশা মহাজনদের হাটে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ রয়েছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন ভিন্ন কথা। ভেজা ধান বলে কম দামে ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে। রোদ ওঠলেই দাম বেড়ে যাবে। আর বাজার সবার জন্য উম্মোক্ত। যে কেউ বাজার থেকে ধান ক্রয় করতে পারেন। 

মিল-চাতাল মালিক, ফরিয়া ও মহাজনরা বাজারে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে কৃষকদের উৎপাদিত ধান অনেক কম মূল্যে ক্রয় করছেন। মাড়াইয়ের পর চাষীরা বাজারে ধান নিয়ে এসে ব্যবসায়ীদের ফাঁদে পা দিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করে অনেকেই বিক্রি করতে না পেড়ে ফেরত নিয়ে যাচ্ছেন। ধান বিক্রি করে চাষীরা লোকসান গুণলেও কৌশলে লাভোবান হচ্ছেন এলাকার মিল-চাতাল মালিক, ফরিয়া ও মহাজনরা। কম দামে ধান কিনে অল্প দিনেই বেশী লাভ করছেন তারা। 

গতকাল জেলার বৃহত ধানের বাজার পাঁচশিরা, পুনট ও ইটাখোলা হাটে কৃষকদের জিম্মি করে ব্যবসায়ীরা মোটা জাতের মামুন ও স্বর্ণা-৫ ধান ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা এবং চিকন কাটারি জাতের ১০৫০ থেকে ১১০০ টাকা (৪০ কেজির) মণ দরে ক্রয় করেছেন। এতে প্রতি কেজি মোটা ধান ১৭-১৮ টাকা এবং চিকন ধান ২৬-২৭ টাকা দরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। অথচ প্রতি কেজি ধানের সরকার নিদ্ধারিত মূল্য ৩২ টাকা আর চালের মূল্য ৪৫ টাকা ঘোষনা করা হয়েছে। ৪০ কেজি ধান থেকে চাল হয় ৩০ কেজি। সে অনুপাতে ৩০ কেজি চালের সরকারি মূল্য আসে ১৩৫০ টাকা। চাতাল ব্যবসায়ীরা কৃষকদের নিকট থেকে ধান ক্রয়ের পর চাল বিক্রয় করে লাভ করবেন ৬৫০ টাকা। কৃষকদের অভিযোগ, মিল-চাতাল মালিকরা জোটবদ্ধ হয়ে বেশী লাভের আশায় কম দামে ধান কেনার জন্য বাজারে মাঝে-মধ্যে ধান কেনা বন্ধ রাখেন। যখন বাজারে ধানের আমদানী বেশী হয়, তখন ব্যবসায়ীরা ক্রয় করার চাহিদা কমে দেয়। কম দামে বেশী পরিমান ধান ক্রয়ের জন্য ব্যবসায়ীরা এসব নাটক করেন। শ্রমিক বিদায়সহ সেচের টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য হয়ে কম দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে ধান। ভ‚ক্তভোগী কৃষকরা উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে দিনের পর দিন লোকশান গুণলেও অল্প সময়ে মোটা অংকের লাভ গুণছেন মধ্যে সত্ত¡ভোগী ব্যবসায়ীরা।

জেলা খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জয়পুরহাটের পাঁচটি উপজেলার খাদ্যগুদামগুলোতে এবার সরকার নিদ্ধারিত ৩২ টাকা কেজি দরে ৬ হাজার ৬৫৭ মে.টন ধান এবং সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ মিল-চাতাল মালিকদের নিকট থেকে ২১ হাজার ৫৯৭ মে.টন চাল ক্রয় করবেন। স্থানীয় মিলারদের নামে ইতমধ্যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এবং ক্রয় শুরু হয়েছে। বরাদ্দ পেয়ে জেলার বিভিন্ন হাট-বাজার থেকে ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে যে যার মত করে কৌশলে ধান ক্রয় করছেন। আবওহাওয়ার কারনে তারা এমন কৌশল চাষীদের উপর প্রয়োগ করছেন।  

ক্ষেতলালের মুন্দাইল গ্রামের কৃষক শাহিন বলেন,‘ধান বিক্রি করতে এসে যে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে, লাভতো দুরের কথা, মোটা অংকের লোকশান গুণতে হচ্ছে আমাদের। যাও একটু দাম বাড়তো, আবওহাওয়ার সাথে ব্যবসায়ীদের কারণেই সেটা সম্ভব হচ্ছেনা। এবার বিগা প্রতি উৎপাদন খরচ হয়েছে ১৬ হাজার টাকা। ৮ বিঘা জমিতে ধান পেয়েছি গড়ে ২০ মণ করে ১৬০ মণ, হিসাব করে বিগা প্রতি ৪ হাজার করে মোট ৩২ হাজার টাকা লোকশান হয়েছে।’

জোটবদ্ধ হয়ে ধান ক্রয়ের বিষয় অস্বীকার করেছেন পাঁচশিরা বাজারের মা চাউল-কলের স্বত্তাধীকার মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন,‘আবওহাওয়াজনিত কারনে ধান ভেজা হওয়ায় গত সপ্তাহের চেয়ে বর্তমানে মণে এক থেকে দেড়শ টাকা কমে গেছে। রোদ ওঠলেই ধানের দাম বেড়ে যাবে। ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা মিথ্যা, বাজার সবার জন্য উম্মোক্ত। যে কেউ এসে ধান ক্রয় করতে পারবে। কৃষকরা অনবরত ব্যবসায়ীদের দোষ দিয়ে থাকেন। এটা নতুন কিছু নয়।’  

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কামাল হোসেন বলেন,‘এ জেলার কৃষকরা চিকন জাতের ধান চাষ করে। সরকারের নিদ্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাজারে দাম বেশি হওয়ায় তারা গুদামে ধান দিতে চায় না। ফলে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হচ্ছে না। তবে আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবার শতভাগ চাল সংগ্রহ হবে।’

জেলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা রতন কুমার রায় বলেন,‘ধানের দাম নিয়ে বিভিন্ন কথাই শুনতে পাচ্ছি। সরকার ধান-চালের যে দর বেঁধে দিয়েছেন, সে অনুপাতে বিক্রি করতে পারলে কৃষকরা লাভবান হবেন। ধানের বাজার এতো কম হওয়ার কথা নয়। ধানের বাজারমূল্য কম হওয়ার পেছনে কোন রহস্য আছে কিনা তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে মোরেলগঞ্জ পৌর এলাকাসহ বহু গ্রাম প্লাবিত

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৬০জন দেখেছেন

Image
শেফালী আক্তার রাখি,মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধিঃঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে উপকূলীয় উপজেলা বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ পৌরসভাসহ বহু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বেলা ১২ টার দিকে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৫ থেকে ৬ ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হওয়ায় পৌরসভাসহ কয়েকটি ইউনিয়নের কমপক্ষে ২৫টি গ্রাম স্থান ভেদে ২ থেকে ৩ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। খাউলিয়া ইউনিয়নে চালের গুদামে পানি ঢুকে ৩ মেট্রিকটন চাল ভিজে নষ্ট হয়েছে বলে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাষ্টার সাইদুর রহমান জানিয়েছেন। 

 সাইক্লোন শেল্টারগুলোতে এখন পর্যন্ত ২ হাজার লোক ও ৩ শতাধিক গবাদি পশু আশ্রয় নিয়েছে।

মোরেলগঞ্জ থেকে বহরবুনিয়া ইউনিয়নের সাথে সংযোগ রক্ষাকারী ইটসোলিং রাস্তাটি ধসে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে শত শত মানুষের। ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে 
৮৬ টি সাইক্লোন শেল্টারে খাবার সরবরাহের কাজ শুরু হয়েছে। কিছু কিছু সাইক্লোন শেল্টারে গবাদি পশু ও বিপদাপন্ন লোকজন আশ্রয় নিয়েছে। 

১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত জারি হওয়ার পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম তারেক সুলতান, সহকারি কমিশনার(ভূমি) মো. বদরুদ্দোজা, থানার ওসি মোহাম্মদ সামসুদ্দীন আশ্রয়কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেছেন। পানগুছি নদীর ফেরিসহ সকল ধরণের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। 

আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে শুকনো খাবার সরবরাহের কাজ চলছে বলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল জাবির জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে নদীর তীরবর্তী সাইক্লোন শেল্টারগুলোতে প্রায় ২ হাজার লোক আশ্রয় নিয়েছেন।

আরও খবর